Jump to content
Please ensure regular participation (posting/engagement) to maintain your account. ×

All Activity

This stream auto-updates

  1. Past hour
  2. https://www.tbsnews.net/economy/industry/terry-towel-soft-start-later-grow-billion-dollar-industry-451818 Jobaer Chowdhury 03 July, 2022, 10:30 am Last modified: 03 July, 2022, 10:33 am Terry towel: A soft start later to grow into a billion dollar industry Bangladesh’s export in towel and home textile segment now worth $1.2 billion a year Industry requires a few Ms at the beginning: manpower, money, method, and one other thing – an entrepreneur with a vision. The inception of Sonar Cotton Mills BD Ltd and its subsequent journey prove it again. Rais Khan, a Pakistani-born US citizen, had the business foresight to grasp the towel-making potentials in Bangladesh in the 1980s. He left a top executive position in the global textile giant Franco Ferri Corporation to establish Sonar Cotton Mills in Chattogram Export Processing Zone (EPZ) in 1984. This is the first towel factory not only in the EPZ but also in Bangladesh, as annual export of towels and home textiles by local manufacturers has now reached $1.2 billion. Sonar produces 30,000 kg of terry towels per month, as the company's export in FY2021-22 was more than $1.62 million. Sonar's products are now being sold at multinational shops such as Amazon. Rais Khan's son Shariq Khan now runs the factory his father established 38 years ago. After completing his medical studies, Shariq joined the production unit in 2002 at his father's request. In an interview with The Business Standard, Shariq – who is now the managing director of Sonar Cotton – shared the eventful story of the company and an expansion plan in the next two years. Shariq said many workers from Feni, Mirsarai, Chattogram, Sitakunda and adjacent areas used to work at towel factories in Karachi in Pakistan before independence. Bangladeshis had a good reputation as skilled workers. In 1984, many of these workers joined Rais Khan's venture in the Chattogram EPZ. "My father used to travel to Bangladesh regularly before 1971 as we had relatives here. He loved the country and saw the future potential of business after Bangladesh's independence," Shariq said. Rais Khan had been in the textile sector since the 1960s. He was a senior official of the textile giant Franco Ferri Corporation. Shariq said his father's experience in textiles led him to invest in Bangladesh. "My father consulted with MrFerri, the head of the Franco Ferri Corporation, about investing in Bangladesh. MrFerri supported him as he was our first client," said the Sonar MD. He attributed the success of the local towel-making sector to the fashion quota system for least developed countries under which the USA used to source 1.2 million kg of towels from Bangladesh. But there were challenges and vulnerabilities, within the country and outside of it. Shariq said the first hit onthe factory was the 1991 cyclone, which inundated and eventually damaged the machinery. It took Rais Khan seven years to resume production in 1998. Shariq said the business suffered severely during the 2007-08 global recession, forcing them to allow a local investor to pump money into the company. According to the Bangladesh Terry Towel & Linen Manufacturers & Exporters Association, 110 companies are producing home textile and terry towel items in the country. The factories employ nearly 65,000 workers and have investments totalling around $1.20 billion. The international market size of the textile segment is around $26 billion. According to the Bangladesh Export Processing Zones Authority (Bepza), Sonar Cotton has exported products worth $19.73 million since 2003. In 2002, Shariqflew from the US to join Sonar as his father became ill and died subsequently. "Father told me, "I paid for your education from this factory. Now you should take charge." "The first time I came here, my father told me to go to the production lines first to understand the factory. He used to say that once you understand the work of the production unit, you will understand the business. Before sitting behind the desk, I worked at the production unit for six months," he recalled. Shariq said the firm is now sitting on new orders despite using its full manufacturing capacity. "We need to expand now. There are plans to set up a new factory in Mymensingh as our aim is to double production in the next two years," he said.
  3. https://www.jamuna.tv/news/362119 পদ্মা সেতুর কারণে ঢাকায় বাড়বে গাড়ির চাপ, রিং রোড গড়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় | 3RD JULY, 2022 2:37 PM বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পদ্মা সেতুর কারণে রাজধানী ঢাকায় বাড়বে যানবাহনের চাপ। তাই, রাজধানীর চারপাশে রিং রোড গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সাথে দক্ষিণাঞ্চলের শাকসবজির সুফল পেতে নতুন বাজার গড়ে তোলার পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন তিনি। সেই সাথে, আবারও করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বানও জানান শেখ হাসিনা। রোববার (৩ জুলাই) সকালে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে এ কথা জানান প্রধানমন্ত্রী। ওসমানি স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় ২০২২-২৩ সালের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর ও পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান। গণভবন প্রান্ত থেকে যুক্ত হোন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষমতায় এসে নির্বাচনী ইশতেহার ভুলে যায়নি আওয়ামী লীগ। টানা সরকারে থাকায় তৃণমূলের উন্নতি হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারির কারণে পুরো বিশ্বই ভয়াবহ অবস্থা পার করেছে। এরপরই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী দেখা দিয়েছে অর্থনৈতিক মন্দা। আমাদের মতো দেশে তো এর প্রভাব আরও বেশি পড়েছে। তবে এর মধ্যেও প্রতিটি মন্ত্রণালয় এবং সকল কর্মকর্তা, কর্মচারী আন্তরিকভাবে কাজ করেছে বলেই এত প্রতিকূলতার মধ্যেও দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। পদ্মা সেতুর কারণে দেশের আত্মমর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি যানবাহনের বাড়তি চাপ সামলানোর পরামর্শও দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঢাকাকে ঘিরে রিং রোড গড়ার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে কিছু কিছু জায়গায় কাজ শুরু হয়েছে। পণ্য পরিবহন, বাজারজাতকরণ এবং মানুষের চলাচল যাতে সহজ হয় সেই ব্যবস্থা করা হবে। রাজধানীর চারপ্রান্তে চারটি স্থায়ী কাঁচাবাজার গড়ে তোলার কথাও জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমিনবাজারের দিকে আরেকটি মার্কেট হতে পারে। কেরানীগঞ্জ বা পোস্তগোলায় একটি হোলসেল মার্কেট করা হতে পারে। কামরাঙ্গিরচরেও আরেকটি মার্কেট হতে পারে। শহরের চার কোণায় চারটি মার্কেট হলে পণ্য সেখানে সে পৌঁছুতে পারবে। এতে গাড়ি শহরের ভেতর ঢুকবে না।
  4. Today
  5. https://thefinancialexpress.com.bd/economy/bangladesh/prospect-of-joining-rcep-bd-accession-to-pay-dividend-1656728876 Prospect of joining RCEP: BD accession to pay dividend SYFUL ISLAM and REZAUL KARIM | Published: July 02, 2022 08:27:57 | Updated: July 02, 2022 21:07:27 Bangladesh's export may grow by 17 per cent and gross domestic product (GDP) 0.26 per cent if a free-trade agreement (FTA) is signed with member-states of the emerging Regional Comprehensive Economic Partnership (RCEP) bloc. The RCEP deal, which came into force in January this year, is considered high-quality, modern and comprehensive FTA between ten member-states of the Association of Southeast Asian Nations (ASEAN) and its five FTA partners. The ASEAN members are Brunei, Cambodia, Indonesia, Laos, Malaysia, Myanmar, the Philippines, Singapore, Thailand and Vietnam, while its FTA partners are Australia, China, Japan, New Zealand and Korea. An outstanding feature of the RCEP is that it represents world's largest FTA, comprising about 30 per cent of global GDP and about a third of the world population. The economic cooperation bloc covers 2.3 billion people, contributes US$25.8 trillion or about 30 per cent of global GDP, and accounts for $12.7 trillion or over a quarter of global trade in goods and services, and 31 per cent of global foreign direct investment (FDI) inflows. A recent study of the Bangladesh Trade and Tariff Commission (BTTC) shows that bilateral trade of Bangladesh with RCEP member-countries is mostly concentrated towards goods trade. In the fiscal year (FY) 2020-21, Bangladesh exported goods worth $3.9 billion and imported goods worth $24.5 billion. On the other hand, at the same time, the services export was $1.8 billion and import was worth $2.6 billion. Bangladesh enjoys preferential market access to many of the RCEP countries, either through preferential trade agreement (PTA) or through GSP facilities. After graduating from the least-developed country (LDC) status in 2026, the duty-free access will no longer be available except for reciprocal general preference under the Asia-Pacifica Trade Agreement (APTA). In such a situation, sustaining the consistent progress achieved by Bangladesh in bilateral export trade with some of the RCEP countries as well as availing the opportunity to some potential destinations in RCEP will be a real challenge. The study says RCEP includes some of the major export destinations as well as major import sources of Bangladesh. Considering the bilateral-trade scenario, RCEP remains more as an important partner from the Bangladesh perspective. Import from RCEP contributes around 43.92 per cent of the total global import of Bangladesh, 55.33 per cent of the total tax revenue and 58.56 per cent of total revenue from customs duty collected under home consumption, as of FY 2020-21. Thus, the probable accession of Bangladesh to RCEP may, however, have a negative impact on revenue generation from customs duty. Since some major import sources of Bangladesh like China, Japan, Thailand, South Korea, Indonesia, Malaysia and Australia are involved with RCEP, there is a threat of losing certain amount of revenue from these countries. More than 68 per cent of total merchandise exports to RCEP are under apparel- product category. Top twenty export items to RCEP mostly consist of apparel products and these twenty products constitute 64 per cent of total export items. The study found that the average most-favoured nation (MFN) tariff for Bangladesh has been comparatively higher than that of the RCEP members. It says the probable increase in import along with a comparatively protective regime of Bangladesh estimated a probable high revenue loss for Bangladesh compared to that of the RCEP. "However, as estimated trade creation would likely be higher than the trade-diversion effect for Bangladesh, it may generate additional revenue from other duties and charges, if not reduced due to a possible accession in RCEP," the study mentions. The Trade and Tariff Commission recommends that the government may express its positive stand regarding the accession of Bangladesh to RCEP through weighing all the pros and cons. In that case, domestic rules and regulations may require to be changed in some cases, if situation arises. Former BTTC member Dr Mostafa Abid Khan told the FE Friday that Bangladesh needs to reform various policies which will help lower revenue losses to be created due to the signing of FTAs. "Tariff policy and education-sector policy reforms are needed immediately," he points out and says capable human resource needs to be created. [email protected] [email protected]
  6. Yesterday
  7. https://www.tbsnews.net/bangla/বাংলাদেশ/news-details-100382 কামরান সিদ্দিকী & জসীম উদ্দীন 02 July, 2022, 11:55 pm Last modified: 02 July, 2022, 11:54 pm বাংলাদেশ থেকে পোশাক কর্মী নিচ্ছে বুলগেরিয়া বর্তমানে দেশের বাইরে শুধু জর্ডানে বাংলাদেশি দক্ষ নারী আরএমজি কর্মীরা কর্মরত আছেন। তারা মাসিক ২২ হাজার টাকা বেতন পান। ভালো বেতনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বাংলাদেশ থেকে দক্ষ জনশক্তি নিয়োগ করছে দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের দেশ বুলগেরিয়া। এখন পর্যন্ত ইউরোপের বাজার বাংলাদেশের তৈরি পোশাক (আরএমজি) পণ্যের শীর্ষ রপ্তানি গন্তব্যগুলোর একটি। তবে এই প্রথম ইউরোপের কোনো দেশে পেশাগত যাত্রা শুরু করছেন বাংলাদেশের আরএমজি কর্মীরা। এই পদক্ষেপ ইঙ্গিত দিচ্ছে, ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের বড় ব্র্যান্ড ও ক্রেতারা নিয়ারশোরিং ও অটোমেশনের দিকে মনোযোগ দিচ্ছে। বৈশ্বিক পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান ম্যাককিনসে অ্যান্ড কোম্পানির সাম্প্রতিক প্রতিবেদন অনুসারে, বৈশ্বিক পোশাক ব্র্যান্ড ও খুচরা বিক্রেতাদের টিকে থাকতে হলে এশীয় দেশগুলো থেকে আরএমজি আমদানি কমাতে হবে। বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, 'এই প্রথম ইউরোপের কোনো দেশ বাংলাদেশ থেকে আরএমজি কর্মী নিয়োগের জন্য আনুষ্ঠানিক পদক্ষেপ নিল।' অধিকাংশ ক্রেতাই লিড টাইম—উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু ও সম্পন্ন করতে মোট যে সময় লাগে—কমানোর জন্য নিয়ার-শোর থেকে পণ্য সোর্স করতে চায়; তাই বুলগেরিয়ার প্রতিষ্ঠানগুলো এ উদ্যোগ নিয়েছে। ফারুক হাসান আরও বলেন, 'আমরা মনে করি প্রত্যেকেরই উন্নত জীবন বেছে নেওয়ার অধিকার আছে। বুলগেরিয়ান কারখানার কাজের প্রস্তাব শ্রমিকদের ভালো জীবনযাপনে সহায়ক হবে। একইসাথে আমরা দক্ষ জনশক্তি তৈরির জন্য আরও বেশিসংখ্যক লোককে প্রশিক্ষণ দিচ্ছি।' অবশ্য ইংল্যান্ডের কিছু পোশাক কারখানায় অল্পসংখ্যক বাংলাদেশি কাজ করছে বলে জানান তিনি। প্রাথমিকভাবে দুটি বুলগেরিয়ান কোম্পানি—আঁতোয়া ভিল ও মিজিয়া-৯৬এডি—প্রতি মাসে ৪৬০ ডলার (৪৫,০০০ টাকা)) বেতনে ১০০ জন কর্মী নিয়োগ করছে। বাংলাদেশ ওভারসিজ এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেডের (বোয়েসল) তত্ত্বাবধানে ইতিমধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বোয়েসল সূত্রে জানা গেছে, এই কোম্পানিগুলো দক্ষ কর্মী, বিশেষ করে সুইং মেশিন অপারেটর, প্রেসিং মেশিন অপারেটর ও টেক্সটাইল টেইলার্স খুঁজছে। বাংলাদেশে একজন পোশাক শ্রমিকের মাসিক আয় ৮ হাজার টাকা থেকে ৮ হাজার ৪২০ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে। বুলগেরিয়ায় যারা নিয়োগ পাবেন, তারা দেশের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি আয় করবেন। চাকরির শর্তাবলি অনুযায়ী, চুক্তির মেয়াদ হবে সর্বোচ্চ তিন বছর এবং প্রতিবার নবায়নযোগ্য। মাসিক বেতন ছাড়াও বিমান ভাড়া, খাওয়া বাবদ মাসিক ৫০ ডলার এবং থাকা বাবদ ৩-৪ জনের আলাদা কক্ষ কোম্পানি থেকে দেওয়া হবে। তবে বিদ্যুৎ ও পানির বিল কর্মীকে বহন করতে হবে। কর্মাবস্থায় দুর্ঘটনাজনিত ক্ষতিপূরণ এবং অন্যান্য বিষয়াদি বুলগেরিয়ার শ্রম আইন অনুযায়ী প্রযোজ্য হবে। ২০ থেকে ৩৫ বছর বয়সি পুরুষ ও নারী উভয় প্রার্থীই নিয়োগের জন্য আবেদন করতে পারবেন। বোয়েসলের ৪২ হাজার টাকা সার্ভিস চার্জসহ মোট অভিবাসন খরচ ৫২ হাজার ৭৪০ টাকা। স্টেকহোল্ডারদের মতে, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন শ্রম রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান বোয়েসলও বেসরকারি নিয়োগকারীদের মতোই অভিবাসনের জন্য মাত্রাতিরিক্ত চার্জ নিচ্ছে। বোয়েসলের জেনারেল ম্যানেজার (ওভারসিজ এমপ্লয়মেন্ট) বনানী বিশ্বাস টিবিএসকে বলেন, 'আপাতত ১০০ লোকের চাহিদা দিলেও পরবর্তীতে আরো লোক নেয়া হবে বলে আমরা আশা করছি। হ্যান্ডসাম স্যালারি হওয়ায় আমরা শ্রমবাজারটিকে গুরুত্ব দিচ্ছি। 'এর আগে ইউরোপে আমাদের কোনো স্কিলড গার্মেন্ট ওয়ার্কার যায়নি। জর্ডানের পরে বোয়েসেল-এর মাধ্যমে বুলগেরিয়াতেই প্রথম গার্মেন্টস কর্মীরা যাচ্ছে।' উচ্চ অভিবাসন ব্যয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, 'অভিবাসন ব্যয় নির্ধারণ করে বোয়েসেল বোর্ড। যদি এটা বেশি হয়ে থাকে, আমরা বোর্ডে বিষয়টি আবার তুলব যাতে পুনরায় বিবেচনা করা যায়।' নিয়োগের শর্তানুযায়ী, একজন কর্মীকে দৈনিক ৮ ঘণ্টা কাজ করতে হবে। ওভারটাইমের পারিশ্রমিকও কোম্পানির নীতিমালা অনুযায়ী দেওয়া হবে। বোয়েসল প্রতি শুক্রবার বাংলাদেশ-কোরিয়া টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারে আগ্রহী প্রার্থীদের ব্যবহারিক পরীক্ষা নিচ্ছে। বোয়েসেলের বাছাইকৃতদের মধ্য থেকে বুলগেরিয়ার কোম্পানি প্রতিনিধিরা এসে পুনরার পরীক্ষার মাধ্যমে চূড়ান্ত প্রার্থী বাছাই করবেন। দীর্ঘদিন ধরেই পূর্ব ইউরোপের ফ্যাশনের কেন্দ্র বুলগেরিয়া। বুলগেরিয়ান ফ্যাশন ম্যানুফ্যাকচারিংকে প্রায়ই তাদের প্রতিবেশী তুরস্কের উচ্চ মানের সঙ্গে তুলনা করা হয়। প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে পারিবারিকভাবে বুলগেরিয়ান ফ্যাশন ম্যানুফ্যাকচারাররা কাজ করছে। এই ঐতিহ্যের সঙ্গে নতুন সেলাই প্রযুক্তি যুক্ত হওয়ায় বুলগেরিয়া হয়ে উঠেছে পোশাক ও টেক্সটাইল সোর্সিংয়ের হটস্পট। গার্মেন্টস ও টেক্সটাইল উৎপাদন আজও বুলগেরিয়ার অন্যতম প্রধান শিল্প। হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান করছে এই খাত। ইউরোপে বুলগেরিয়ার উৎপাদন খরচই সবচেয়ে কম। এছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ থাকায় সমস্ত নৈতিক ও পরিবেশগত মানদণ্ডও নিশ্চিত করে দেশটি। ২০১৮ সালে বুলগেরিয়ার ফ্যাশন সেগমেন্টের আয় ছিল আনুমানিক ৩২৪ মিলিয়ন ডলার। পোশাক সোর্সিং ও প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট সাইট স্কেচ-এর তথ্যানুসারে, পোশাক ও টেক্সটাইল শিল্প বুলগেরিয়ায় প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান তৈরি করেছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশ বুলগেরিয়ায় ১.৭৯ মিলিয়ন ডলারের পোশাক রপ্তানি করেছে, আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে আরএমজি শিপমেন্ট ছিল ২.২৭ মিলিয়ন ডলার। নিয়োগকারী সংস্থাগুলোর মধ্যে আঁতোয়া ভিল ১৯৮৮ সাল থেকে উচ্চ মানের মহিলাদের পোশাক উৎপাদন করছে। বোয়েসলের তথ্যমতে, প্রতিষ্ঠানটি নানা স্টাইলের পোশাক তৈরি করে—জামা, ব্লাউজ, টপস, জ্যাকেট, ট্রাউজার, স্কার্ট ইত্যাদি। জার্মানি, বেলজিয়াম, সুইডেন, গ্রেট ব্রিটেন ও অন্যান্য ইইউভুক্ত দেশের গ্রাহকদের দ্বারা স্বীকৃত বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক ফ্যাশন ব্র্যান্ডের সঙ্গে দীর্ঘদিনের অংশীদারত্ব আছে কোম্পানিটির। বর্তমানে জর্ডানেও বাংলাদেশি দক্ষ নারী আরএমজি কর্মীরা কর্মরত আছেন। তারা মাসিক ২২ হাজার টাকা বেতন পান। এছাড়া কয়েকজন বাংলাদেশি ইতালির আরএমজি কারখানায়ও কাজ করছেন বলে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্টস রিসার্চ ইউনিটের (আরএমএমআরইউ) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান তাসনিম সিদ্দিকি বলেন, 'বাংলাদেশে তৈরি পোশাক খাতে প্রচুর শ্রমিক আছে। তারা যথেষ্ট দক্ষ। আমরা এই জনশক্তি বিদেশে রপ্তানির উদ্যোগ নিতে পারি। ইউরোপের বাজার পোশাক জনশক্তি রপ্তানির আদর্শ গন্তব্য হতে পারে।' 'তবে এই সংখ্যাটা যাতে লিমিটেড না হয়ে ক্রমাগত বাড়ে, সেদিকে বোয়েসেলকে নজর দিতে হবে। বছরে যদি অন্তত ১০ হাজার লোক আমরা ইউরোপের মার্কেটে পাঠাতে পারি, তাহলে এটা রেমিট্যান্সের ক্ষেত্রে বিশাল প্রভাব ফেলবে,' যোগ করেন তিনি। এশিয়া থেকে আরএমজি আমদানি কমাবে ইউরোপ, যুক্তরাষ্ট্র ২০২৫ সালের মধ্যে ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান ব্র্যান্ড এবং ক্রেতারা চীন, বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের মতো দেশগুলো থেকে তাদের তৈরি পোশাকের আমদানি কমিয়ে দিতে পারে। বৈশ্বিক পরামর্শদাতা সংস্থা ম্যাককিনসে অ্যান্ড কোম্পানির 'ইজ অ্যাপারেল ম্যানুফ্যাকচারিং কামিং হোম?' শিরোনামের প্রতিবেদনে এ ইঙ্গিত দেওয়া হয়। ব্যবসায়িক প্রকাশনা 'সোর্সিং জার্নাল'-এর সঙ্গে যৌথভাবে ১৮০টি ব্র্যান্ড, ক্রেতা ও নির্বাহীদের ওপর একটি সমীক্ষার পর প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, আগামীতে সফল পোশাক কোম্পানি তারাই হবে যারা দুটি ফ্রন্টে—নিয়ারশোরিং ও অটোমেশন—পোশাকের ভ্যালু চেইন বাড়ানোতে নেতৃত্ব দেবে। দুটি ফ্রন্টেই টেকসই উপায়ে ভ্যালু চেইন বাড়াতে হবে। ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে পোশাকের ব্র্যান্ড এবং খুচরা বিক্রেতারা আর আগের মতো ব্যবসা করতে পারছে না বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। সেখানে বিক্রেতা ও ব্র্যান্ডগুলো ব্যবসা বাড়ানোর পথ খুঁজছে। এই দেশগুলোতে মজুরি বৃদ্ধির ফলে উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ায় বিদেশি ব্র্যান্ডগুলো এমন পরিকল্পনা করেছে। ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের ব্র্যান্ড এবং ক্রেতারা চীন, বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের পরিবর্তে মেক্সিকো ও তুরস্কের মতো কাছাকাছি দেশ থেকে পোশাক তৈরি করতে চাইছে। তারা মনে করছে, এতে কম সময়ে পোশাক হাতে পাবে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ফ্যাশনের ধারা বদলে যাওয়ায় ক্রেতারা এখন কম সময়ে ও কম খরচে পোশাক চায় বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ থেকে জার্মানিতে পণ্য পাঠাতে সময় লাগে ৩০ দিন, যেখানে তুরস্ক থেকে জার্মানিতে পণ্য পাঠাতে সময় লাগে মাত্র ৩ থেকে ৬ দিন। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই-মে মাসে তৈরি পোশাকের চালান আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৩৫ শতাংশ বেড়েছে। এ সময়ে রপ্তানি হয়েছে ৩৮.৫২ বিলিয়ন ডলারের পোশাক। এই সময়ে ইইউতে বাংলাদেশের রপ্তানি ছিল প্রায় ১৯.৩ বিলিয়ন ডলার, যা মোট পোশাক রপ্তানির ৫০.১১ শতাংশ। আর যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের মোট পোশাকের ১০.৬৩ শতাংশ ও ২১.১৫ শতাংশ রপ্তানি হয়। ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষ ৭ রপ্তানি গন্তব্য হলো—জার্মানি (৬.৫ বিলিয়ন ডলার), স্পেন (২.৭২ বিলিয়ন ডলার), ফ্রান্স (২.১৫ বিলিয়ন ডলার), পোল্যান্ড (১.৮২ বিলিয়ন ডলার), ইতালি (১.৪২ বিলিয়ন ডলার), নেদারল্যান্ডস (১.৩২ বিলিয়ন ডলার) এবং ডেনমার্ক (১.০৩ বিলিয়ন ডলার)।
  8. https://www.tbsnews.net/economy/fbcci-wants-set-innovation-centre-451714 TBS Report 02 July, 2022, 10:50 pm Last modified: 02 July, 2022, 10:57 pm FBCCI wants to set up innovation centre The Federation of Bangladesh Chambers of Commerce and Industries (FBCCI) would like to set up an innovation centre if the government provides Tk50 crore. FBCCI President Md Jasim Uddin hoped that this money will be available from the national budget for the new financial year. "After Bangladesh graduates LDC, institutional capacity building will be badly needed. For this we have asked the government for Tk50 crore to set up an innovation centre," said the FBCCI president at the Members Night organised by FBCCI at ICCB, Bashundhara. He further said that a special cell for research would also be set up at the centre. The finance minister has shown a positive attitude towards giving this money. The centre will be set up at the FBCCI building in Hatkhola. Former presidents and vice-presidents of the FBCCI were honoured at the ceremony. Md Jasim Uddin said the FBCCI was playing an active role in formulating various business policies.
  9. https://www.tbsnews.net/bangladesh/telecom/mobile-internet-users-hit-hard-vat-hike-451718 Eyamin Sajid 02 July, 2022, 10:55 pm Last modified: 02 July, 2022, 10:58 pm Mobile internet users hit hard by VAT hike At present, the number of mobile internet users in the country is 11.45 crore whereas the total number of internet users reached 12.55 crore in May The burden of value-added tax (VAT) on mobile internet users is getting heavier as operators have started charging 15% VAT on data service from 1 July, the beginning of the new fiscal, instead of 5%. The Association of Mobile Telecom Operators of Bangladesh (AMTOB) has sent a letter recently to the Bangladesh Telecommunication Regulatory Commission (BTRC) in this regard. In the letter, AMTOB said, as per the Value Added Tax and Supplementary Duty Act, 2012, mobile operators were endorsed to collect 15% VAT in the prescribed manner but they were charging a reduced VAT rate. "But due to the changes in the Finance Act, 2022, the mobile network operators have to collect and pay 15% VAT to the exchequer on data services with effect from 1st July 2022," reads the letter. When asked, Subrata Roy Maitra, vice-chairman at BTRC, said that the issue is related to the National Board of Revenue (NBR). "The VAT increase will hit the consumers in the pocket. So, being the regulator of the sector, we will write to the NBR about the issue," he said. Shahed Alam, chief corporate and regulatory officer at Robi Axiata Limited, said that the Value Added Tax and Supplementary Duty Act, 2012 was enacted to increase the collection of VAT with fairness. This law also ensured the availability of all types of rebates. "In keeping with the basic principles of VAT and global standards, the 2012 Act (effective from 2019) imposed universal VAT at the rate of 15%. But it is a matter of great regret that since the enactment of the Act, VAT has been levied at a reduced rate, and the rebate has been limited by changing the definition of instruments," he said. As a result, the effective VAT rate at the business level continued to rise. Businesses have to bear the burden of this additional tax, he said. "Provision has been made in the Finance Act for the current financial year to cancel the VAT rebate or adjustment at a proportional rate. This means that even if there is a fair adjustment scope, VAT rebates will be revoked according to the type of service and the overall availability of rebates will be limited," he said. "This will result in a much higher effective VAT rate, which we cannot afford. Not only that, the new law will increase the legal complexities of VAT. Due to which, from today, we have added VAT at the rate of 15% on all internet packages as per the relevant provisions of the VAT Act," he added. At present, the number of mobile internet users in the country is 11.45 crore whereas the total number of internet users reached 12.55 crore in May.
  10. https://www.dhakatribune.com/power-energy/2022/07/02/rampal-power-plant-set-for-december-launch#cb= Rampal power plant set for December launch India’s Bharat Heavy Electricals Ltd has been awarded the contract for the Tk160 billion project File of Rampal Power Plant Mahmud Hossain Opu/Dhaka Tribune Shohel Mamun July 2, 2022 7:16 PM Construction of the first unit of the Rampal coal-fired power plant, located 14km away from the Sundarbans, is almost complete and the plant is expected to be inaugurated in December this year. “We expect Prime Minister Sheikh Hasina to inaugurate the Rampal Power Plant at the time,” said Md Habibur Rahman, secretary of the Power Division. The 1,320-megawatt (660*2) power plant is being implemented by Bangladesh-India Friendship Power Company Ltd (BIFPCL). India’s Bharat Heavy Electricals Ltd (BHEL) has been awarded the contract for the Tk160 billion project. According to a progress report, commercial production of the power plant is commissioned to start in October following a trial run to be held in September. “As per the latest plan, the plant can start generating electricity at the end of October, or by November at the latest. Officially, the launch is in December,” said Habibur Rahman. In 2010, a Memorandum of Understanding (MoU) was signed between the Bangladesh Power Development Board (BPDB) and India’s NTPC for the implementation of the Rampal Power Plant Project. According to the MoU, Rampal was supposed to begin production in 2018. However, the deadline was extended several times for various reasons, including the Covid-19 pandemic. According to project officials, construction of the project is now progressing at a fast pace. As much as 83% of the project work has been completed and the first unit is almost ready for trial production. “Physical construction of unit-1 is done and trial production can begin soon,” said a high official of the project. “Electricity supply to the national grid will be possible by November,” he added. “If there is no crisis, the second unit is expected to begin production in February 2023,” he said. Electricity will be supplied to Khulna, Dhaka According to officials, the electricity generated at the Rampal Coal Power Plant will be supplied to Khulna through the Gopalganj transmission line. Later, when power generation begins in the second unit, electricity will be supplied to Dhaka across the Padma River. Rampal’s power plant will be connected to Dhaka through a 400 kV transmission line which is under construction from Gopalganj to Aminbazar. Regarding the transmission line, a high official said it is expected to be completed by February next year. Then the government can begin to supply electricity from Payra and Rampal power plants to Dhaka once the transmission line across the Padma River is complete. “It was not possible to keep pace in the construction of the transmission line due to Covid-19. Now the construction work is progressing quite fast,” he added.
  11. https://www.ispr.gov.bd/এমআইএসটির-বায়োমেডিকেল-ই/ আন্তঃবাহিনী সংস্থা জুলাই ২, ২০২২ আইএসপিআর এমআইএসটি’র বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ কর্তৃক ‘‘অনুরণন ২০২২’’ অনুষ্ঠিত ঢাকা ০২ জুলাই ২০২২: ঢাকার মিরপুর সেনানিবাসস্থ মিলিটারি ইনিস্টিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (এমআইএসটি) কমপ্লেক্সে আজ শনিবার (০২-০৭-২০২২) বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ কর্তৃক ‘‘অনুরণন ২০২২’’ শীর্ষক দেশব্যাপী প্রযুক্তি ও মেমোরিভিত্তিক বিভিন্ন ধরনের প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। উক্ত প্রতিযোগিতায় এমআইএসটি’সহ বাংলাদেশের ১৫ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০০ জনের অধিক প্রতিযোগী যথাক্রমে মেমোরি কম্পিটিশন, ডিজাইন চ্যালেঞ্জ, প্রজেক্ট কম্পিটিশন এবং পোস্টার প্রেজেন্টেশন বিভাগে অংশগ্রহণ করেন। দিনব্যাপী বিভিন্ন পর্বে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে প্রতি বিভাগ হতে শ্রেষ্ঠ প্রথম ০৫ জনকে পুরষ্কৃত করা হয়। উক্ত পুরস্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে মেজর জেনারেল মোঃ ওয়াহিদ-উজ-জামান, বিএসপি, এনডিসি, এওডব্লিউসিই, পিএসসি, টিই উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে ক্রেস্ট এবং প্রাইজ মানি বিতরণ করেন। উক্ত প্রতিযোগিতা ও সমাপনী অনুষ্ঠানের সভাপতি বিএমই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান কর্নেল সৈয়দ মাহফুজুর রহমানসহ অন্যান্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধানগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। ভিশন ২০৪১ এর বাংলাদেশ বিনির্মানে ও চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগী প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও প্রয়োগে বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের গুরুত্ব অনুধাবন এবং সম্প্রসারণে দেশে এই ধরনের প্রতিযোগিতা এটিই প্রথম অনুষ্ঠিত হলো যার সার্বিক সহযোগীতায় ছিল এমআইএসটি’র বিএমই বিভাগের অধীনে পরিচালিত ইনথোভেন ক্লাব। এমআইএসটি সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকমন্ডলী, বিচারকবৃন্দ, সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তা-কর্মচারী, ইনথোভেন ক্লাবের সদস্য এবং সর্বোপরি অংশগ্রহণকারী সকল ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দের স্বতঃস্ফুর্ত সহযোগিতায় ‘‘অনুরণন-২০২২’’ সাফল্য মন্ডিত হয়।
  12. https://www.thedailystar.net/business/news/sign-deals-now-continued-duty-privilege-canada-3061881 Sign deals now for continued duty privilege to Canada Canada-Bangladesh Joint Working Group suggests Star Business Report Sat Jul 2, 2022 04:18 PM Last update on: Sat Jul 2, 2022 04:24 PM The Canada-Bangladesh Joint Working Group (JWG) has suggested the government for signing new business deals with Canada as the preferential duty privilege provided by the North American country comes to an end next year. The general preferential tariffs with Canada will expire in 2023, said the JWG. For continuing the duty-free access to Canadian market, the Canada-Bangladesh Joint Working Group on Strengthening Commercial Relations urged the Bangladesh government to complete negotiations on a new agreement by this time. The committee came up with this call during the meeting virtually held on Wednesday night. During the meeting, Canadian Co-Chair Nuzhat Tam-Zaman recommended launching an annual Canada-Bangladesh Forum as a launching pad for the JWG. The recommendations from Canada include easier visa processing, electronic visa for Bangladeshis, branding the development stories of Bangladesh to Canadian investors and forming Canada Bangladesh cross-border e-commerce platform. Md Jashim Uddin, president of the Federation of Bangladesh Chambers of Commerce and Industry (FBCCI), said Bangladesh Investment Development Authority (BIDA) is providing a number of services through One-Stop Service platform. Doing business in Bangladesh is easier now. Hence, the FBCCI chief called the Canadian entrepreneurs to invest in Bangladesh. Agriculture and technology are the sectors with the most potential, he informed. Bangladesh High Commissioner to Canada Khalilur Rahman informed that the foreign ministry is working to ease the Canadian visa processing for Bangladesh. Masud Rahman, president of Canada Bangladesh Chamber of Commerce and Industry, suggested establishing a 100- acre Canadian industrial zone in Bangabandhu Industrial City to attract the Canadian investors. He proposed establishing Canadian visa office in Dhaka, signing investment promotion and protection agreements, FTA and forming a consultative committee in a report submitted in the meeting. Canadian High Commissioner to Bangladesh Lilly Nicholls suggested identifying the obstacles for Canadian companies to invest in Bangladesh.
  13. https://www.tbsnews.net/bangladesh/korean-company-oversee-n8-expressway-bangladesh-451306 TBS Report 02 July, 2022, 10:15 am Last modified: 02 July, 2022, 11:12 am Korean company to oversee N8 Expressway in Bangladesh The N8 Expressway is a 55-km, four-lane highway and is the first expressway in Bangladesh. Lee Hyun-seung (third from right), head of Korea Expressway Corp.'s Overseas Project Division, shakes hands with Quazi Muhammad Ferdous, head of the Bridge Authority of Bangladesh, after signing a contract on June 29 (local time). Korea Expressway Corp announced on 30 June that it has signed a 104-billion-won contract with the Bangladeshi government to operate and manage the country's N8 Expressway. The N8 Expressway is a 55-km, four-lane highway and is the first expressway in Bangladesh. It is Asian Highway No. 1 that connects Dhaka, the capital of Bangladesh, and Bhanga in the southwest of Dhaka. This contract is the second overseas road operation and management project won by Korea Expressway Corp, following the Padma Bridge project, reports Business Korea. Korea Expressway Corp will install Hi Pass automatic toll service and intelligent traffic management systems on the N8 Expressway and conduct toll collection, road and structure maintenance, safety patrol and disaster management, etc for five years after opening the systems. The operation of the expressway already started on 1 July. Korea Expressway Corp will implement advanced highway operations such as the Hi-Pass automatic toll service for sections including Padma Bridge which are a total of 75km long, and lay the groundwork for private Korean companies with excellent road operation technology to advance into the Bangladeshi market.
  14. https://www.tbsnews.net/bangladesh/infrastructure/karnaphuli-tunnel-potential-harbinger-growth-451374 Abu Azad 02 July, 2022, 12:05 pm Last modified: 02 July, 2022, 02:15 pm Karnaphuli tunnel: A potential harbinger of growth Karnaphuli tunnel, which will connect Chattogram Port and Anwara upazila and cut the distance between Dhaka and Chattogram, is set to act as a harbinger of growth by turning the southern part of the port city into a business hub. A slew of large industrial plants have started lining up on the south bank of the River Karnaphuli as the country's maiden underwater expressway tunnel is expected to open to traffic this December – with 87% of work on it already complete. New investments are coming in and new industries are being set up, while many old factories are being expanded. Besides, a number of large industrial groups have bought land in advance to establish factories. Speaking to the Chattogram Chamber of Commerce, the BGMEA, BKMEA, BGAPMEA, and the local upazila administration, The Business Standard has learnt that businesses have undertaken initiatives to build at least 80 large industrial units in various sectors – apparels, shipbuilding, edible oil, fish processing, steel, cement, among others – on the south bank of the Karnaphuli. Some of the factories have already started production. Bangladesh’s maiden underwater expressway tunnel under the Karnaphuli river is expected to open to traffic this December. About 87% of work has already completed and the installation of the road surface is underway in the first tube of the tunnel. PHOTO: Courtesy Mostafa-Hakim Group, one of the largest business conglomerates in the country, has set up a steel plant and an oxygen plant with an investment of Tk1,500 crore. The two factories – HM Steel Plant and HM Oxygen Plant – currently employ about 2,000 workers. Besides, Akij Group, Four H Group, Diamond Cement, S Alam Group, and Partex Group have purchased land in Karnaphuli and Anwara upazilas to set up factories. Among the industrial units that have already started operations are Super Pharmaceutical Limited, Partex Petro Limited, Acorn Infrastructure Services Limited, and BN Lubricants at Juldha in Karnaphuli upazila. Belami Textile, ATP International Limited, GSL Export, Benchmark Apparel, Yuasa Battery Factory have started production in the Khoajnagar and Ichhanagar areas of Karnaphuli. On the other hand, a large garment factory, HS Composite Textile, is being set up on about an acre of land near the approach road to Bangabandhu Tunnel. The factory is expected to generate 3,000-5,000 jobs. The Saad Musa Industrial Park has been built just 500 metres away on a five-acre area of land, housing several export-oriented factories, including cotton mills, textile mills, spinning mills, and composite textile mills. In this way, massive industrialisation is in progress on the south bank of the Karnaphuli in view of the potential economic benefits to be derived from the Karnaphuli tunnel. As a result, the adjacent villages are turning into semi-urban areas, as a visit by TBS found in different areas of Karnaphuli and Anwara upazilas. PHOTO: Courtesy A potential game changer Businesses have said the Karnaphuli tunnel will open up a window of opportunities for tourism and the economy in South Chattogram and Cox's Bazar. This tunnel will facilitate road communication between the deep seaport under construction at Matarbari and Chattogram and the rest of the country, they maintained. They also expect that not only Anwara and Karnaphuli, but the entire area stretching from Mirsarai to Cox's Bazar along the River Karnaphuli will see massive investments following the opening of the tunnel. The Bangladesh Bridge Authority (BBA) says the tunnel will reduce the distance between Dhaka and Chattogram by 50 kilometres and that between Chattogram and Cox's Bazar by 15 kilometres. It will also ease communication for people living on the south bank of the Karnaphuli with Shah Amanat International Airport. Moinul Islam, economist and former professor at Chittagong University, told TBS that the opening of Bangabandhu Tunnel would first lead to industrialisation in South Chattogram and facilitate easy communication between Matarbari Deep Seaport, Chattogram Port, Bay Terminal, Mirsarai Economic Zone. Photo: Mohammad Minhaz Uddin But the impact of the tunnel would be more far-reaching, he said, adding that it would serve as a bridge to build the country's largest industrial corridor from Mirsarai to Cox's Bazar. Besides, it will be a significant part of the Asian Highway. At present, goods and passenger vehicles ply to South Chattogram and Cox's Bazar via Shah Amanat Bridge, Third Karnaphuli Bridge, and Kalurghat Bridge. When the tunnel is opened, many of the vehicles plying on the Karnaphuli Bridge will use the tunnel instead of the bridge. Industrial cargo vehicles of the mills and factories being set up in South Chattogram also will use it. Mohammad Sarwar Alam, director of Mostafa-Hakim Group, told TBS, "Products manufactured in our heavy industries here are supplied all over the country. Once the tunnel is complete, freight vehicles will be able to go directly to the Dhaka-Chittagong Highway through the Outer Ring Road. It will also save our transportation costs and time." Chattogram Chamber President Mahbubul Alam said, "Hopefully, we are going to get the benefits of the tunnel from next year. The tunnel will be an easy means of transporting industrial raw materials and finished goods across the country. There will be no obstacle to the development of new industries in South Chattogram and Cox's Bazar." Photo: Mohammad Minhaz Uddin Raisul Uddin Saikat, chairman of Albion Group, told TBS, "Keeping in mind the economic potential of the south, we have built a distribution house next to the approach road to the tunnel, from where we supply raw materials to Unilever and Marico. Apart from this, we are making new plans to make the best use of the economic potential of the tunnel." BGMEA Vice-President Rakibul Alam Chowdhury said Bangabandhu Tunnel will bring about a new revolution in the country's garment sector. "Work on four new factories has already started at the Korean EPZ. Also, many entrepreneurs are seeking permission to set up factories there. On the other hand, 15 local and foreign companies have taken initiatives to invest in the China EPZ to be built next to the tunnel." PHOTO: Courtesy 87% work done Engineer Harunur Rashid, project director of Bangabandhu Tunnel, told TBS on Thursday that some 87% of the work on the Tk10,374 crore project has been completed as of June. Besides, work on the approach roads and flyover on both sides of the tunnel is almost completed, he added. "We are working in line with the target of opening the tunnel by December. But we can't say right now whether all the work can be done within this time because of the delay in bringing the communication system inside the tunnel, including ventilation and other equipment, owing to the lockdown in Shanghai, China. Even though some equipment is coming now, it is being supplied at a slow pace," said the project director. Meanwhile, the tunnel project authorities have sent a letter to the ministry to extend the project by another six months. If the application is accepted, the implementation time of the project will be till June 2023. Photo: Mohammad Minhaz Uddin Land prices rising, living standards improving The tunnel feasibility study report said that almost the entire economy of the Anwara-Karnaphuli region was dependent on agriculture as only 2% of the land was used for industry, while 47% was agricultural land. But, about 27% of the area was likely to be used for industries following the opening of the Karnaphuli tunnel, the report added. Seven years into the feasibility study, land on the south bank of the Karnaphuli have risen more than ten-fold as hundreds of businesses, including the country's top conglomerates, have already purchased thousands of acres of land there over the last three to four years, Karnaphuli Upazila Nirbahi Officer Sahina Sultana told TBS. Expatriate Mizanur Rahman has built a four-storey house next to the approach road to the tunnel with the money he earned by selling his agricultural land to an industrial group. "The rate at which I sold the land was higher than what I had imagined," said Mizan. Meanwhile, the government has undertaken a project to improve the living standards of people living in South Chattogram. The project will be implemented in Cox's Bazar Sadar, Maheshkhali, Chakaria, Teknaf, and Ukhiya upazilas at a cost of 32,462 million Japanese Yen. PHOTO: Courtesy Need for developing Anwara-Pekua road Local people have said the road from Anwara-Banshkhali-Cox's Bazar to Pekua needs to be developed in order to get maximum benefits of the tunnel. Morshed Nayan, a local social worker, said, "A number of industries, including coal-based thermal power plants and LNG stations, are being set up at Matarbari in Maheshkhali upazila of Cox's Bazar with domestic and foreign investment. Besides, a coal-fired power plant is being constructed at Banshkhali. If the Anwara-Pekua road is developed, communication between Cox's Bazar and Chattogram will be easier and thus maximum benefits can be reaped from the tunnel." Jointly funded by Bangladesh and China, the initial cost of the project was estimated at Tk9,880 crore. Work on the project began in December 2017, two years after getting the green light. The cost was subsequently revised up to Tk10,374 crore. Photo: Mohammad Minhaz Uddin The main tunnel is 3.32 km long, while the length of each of the two tubes is 2.45 km with a diameter of 10.60 m. The tubes will each consist of two lanes. There will be a 5.35 km connecting road on the west and east ends of the main tunnel along with a 727 m long overbridge. Prime Minister Sheikh Hasina and Chinese President Xi Jinping inaugurated the construction of the project on 14 October 2016.
  15. https://www.tbsnews.net/bangladesh/over-tk69-lakh-toll-collected-mawa-expressway-first-24hrs-451434 TBS Report 02 July, 2022, 01:40 pm Last modified: 02 July, 2022, 01:40 pm Over Tk69 lakh toll collected on Mawa Expressway in first 24hrs A total of Tk69,81,440 was collected from 26,064 vehicles in 24 hours on the Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman Expressway at the Dhaka-Mawa-Bhanga route during first 24 hours of toll collection. Confirming the matter, Roads and Highways Department (RHD) Executive Engineer (Munshiganj Zone) Nahyan Reza said, "The overwhelming number of vehicles, that used the expressway on Friday, is due to the interest of the citizens to cross the Padma Bridge on a weekend." "The pressure of vehicles might increase before Eid-ul-Azha," he added. A five-kilometre-long tailback was created at the Dhaka-Mawa-Bhanga route yesterday (1 July) – the first day of toll collection at the expressway, causing drivers and passengers to suffer. Slow-moving traffic was observed about kilometres away from the Dhaleshwari toll plaza in the early morning of Friday. However, the situation improved on Saturday as no long queues were seen on both sides of the river, reports our correspondent. The toll rates have been set based on the distance between the six entry and exit sites. As per the rates, the toll for large buses is Tk295 and motorbikes will have to pay Tk20 for using the 55-kilometre expressway. Besides, the toll for trailers has been fixed Tk1,015, heavy trucks Tk660, medium trucks Tk330, mini truck Tk250, minibus/ coaster Tk165, microbus, and pickup Tk130, four-wheeler vehicles Tk130, and private car Tk 85. The RHD informed the High Court that vehicles will not have to pay toll for using Postagola, Dhaleshwari, and Arial Khan bridges from 1 July as toll collection has started on the expressway. The RHD has also proposed to ban the movement of motorcycles on expressways to prevent accidents.
  16. Last week
  17. https://bangla.thedailystar.net/সংবাদ/বাংলাদেশ/অপরাধ-ও-বিচার/শাহজালালে-২২-লাখ-সৌদি-রিয়াল-ফেলে-পালালো-যাত্রী-365701 শাহজালালে ২২ লাখ সৌদি রিয়াল ফেলে পালালো যাত্রী স্টার অনলাইন রিপোর্ট বৃহস্পতিবার, জুন ৩০, ২০২২ ১১:০৯ পূর্বাহ্ন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ২২ লাখ ৯৯ হাজার ৫০০ সৌদি রিয়াল (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৬ কোটি টাকা) জব্দ করেছে কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর এবং ঢাকা কাস্টম হাউস প্রিভেন্টিভ টিম। আজ বৃহস্পতিবার সকালে কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের উপপরিচালক আহমেদুর রেজা চৌধুরী দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গত রাতে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের ইকে ৫৮৫ ফ্লাইটে দুবাই যাওয়ার জন্য চেক ইন করেন মামুন খান নামে এক যাত্রী। তার লাগেজে কৌশলে রিয়ালগুলো লুকানো ছিল। তল্লাশিতে ধরা পড়লে গ্রেপ্তার এড়াতে ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ না করেই তিনি বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। রেজা চৌধুরী আরও জানান, রাত সাড়ে ৯টার দিকে তল্লাশি শুরু হয়। ফ্লাইটের প্যাসেঞ্জারস হোল্ড ব্যাগেজ স্ক্রিনিং রুমের স্ক্যানিং মেশিনে লাগেজটি স্ক্যান করা হলে মুদ্রা সদৃশ বস্তুর অস্তিত্ব পাওয়া যায়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতে লাগেজ খুলে দেখা যায়, ৩৪টি শার্টের ভেতরে কাগজের বোর্ডের মধ্যে রিয়ালগুলো বিশেষ কায়দায় লুকানো ছিল। সে সময় খোঁজ করেও লাগেজটির মালিককে পাওয়া যায়নি। পরে এমিরেটস কাউন্টার, ইমিগ্রেশন ও এভিয়েশন সিকিউরিটির সহায়তায় যাত্রীর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। জব্দ বৈদেশিক মুদ্রা কাস্টমস গুদামে জমা দেওয়া হবে। এছাড়া কাস্টমস অ্যাক্ট ও বিশেষ ক্ষমতা আইন, ১৯৭৪ অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
  18. https://www.dhakapost.com/national/126296 ঢাকা-ওয়াশিংটনের ৫০ বছর পূর্তি বিষয়ে নিউইয়র্কে বৈঠক নিজস্ব প্রতিবেদক ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৪৩ এএম ‘বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের ৫০ বছর : বিশ্ব মঞ্চে বাংলাদেশ’ বিষয়ক একটি গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন ক‌রে‌ছে নিউইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল। শুক্রবার (১ জুলাই) কনস্যুলেট জেনারেল এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসায়ীরা, বিশেষ করে যারা সম্প্রতি বাংলাদেশ সফর করেছেন তারা উপস্থিত ছি‌লেন। এ‌তে বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপট ও বাস্তবতায় বৈশ্বিক ও আঞ্চলিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ বিভিন্ন বিষয়ে নিয়ে বক্তারা আলোচনা করেন। কনসাল জেনারেল ড. ম‌নিরুল ইসলাম বাংলাদেশের সঙ্গে প্রতিবেশীসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের মধ্যকার বিরাজমান সম্পর্কের ওপর আলোকপাত করেন। তি‌নি ব‌লেন, ভূ-রাজনৈতিক ও ভূ-অর্থনৈতিক বিবেচনায় বাংলাদেশ ক্রমবর্ধমান হারে বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। বৈঠকে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের নানা দিক উঠে আসে। এর মধ্যে প্রাধান্য পায়- রোহিঙ্গা ইস্যু, জলবায়ু পরিবর্তন ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা, ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে পারস্পরিক সহযোগিতাগুলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে যে অভাবনীয় উন্নয়ন সাধিত হয়েছে তা বর্ণনা করে কনসাল জেনারেল বলেন, বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। দারিদ্র বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবিলা এবং বিশ্ব শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশের ভূমিকা প্রশংসিত হচ্ছে। বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল থেকে পাওয়া সুবিধাগুলোর বর্ণনা দিয়ে তিনি ব‌লেন, যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পপতি ও বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশে বিনিয়োগের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। এক্ষেত্রে তিনি অন্যান্যের মধ্যে নবায়নযোগ্য জ্বালানি, জাহাজ নির্মাণ শিল্প, তথ্য প্রযুক্তি, কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ ও পর্যটন খাতগুলোর কথা বিশেষভাবে চিহ্নিত করেন।
  19. https://www.tbsnews.net/nbr/ctg-customs-earns-record-revenue-tk59256cr-450658 TBS Report 30 June, 2022, 09:40 pm Last modified: 30 June, 2022, 09:41 pm Ctg customs earns record revenue of Tk59,256cr Chattogram Customs House has earned Tk59,256 crore in revenue in the FY2021-2022, an amount equivalent to the cost of two Padma Bridges, against the target of Tk64,075 crore. The revenue growth was nearly 15% compared to the previous fiscal year. The customs house authorities informed that the revenue collection for the FY2020-2021 was Tk51,576 crore. The authorities said that the outstanding amount of revenue for the outgoing fiscal year is Tk3,884 crore. If this amount could be realised, the revenue could have become Tk63,140 crore with a growth rate of 22.42%. Of the total outstanding amount, Petrobangla has a pending amount of Tk3,699 crore, Padma Oil Company Tk116.73 crore, Meghna Petroleum Tk28.40 crore, Standard Asiatic Oil Tk57 lakh, Summit LNG Tk5.11 crore, Accelerate Energy Tk13 lakh and Bangladesh Police Tk34.21 crore.
  20. https://bangla.thedailystar.net/সংবাদ/বাংলাদেশ/অপরাধ-ও-বিচার/হলি-আর্টিজান-হামলার-৬-বছর-অনলাইনে-কিছু-জঙ্গি-সংগঠন-এখনও-সক্রিয়-366226 হলি আর্টিজান হামলার ৬ বছর: অনলাইনে কিছু জঙ্গি সংগঠন এখনও সক্রিয় শরিফুল ইসলাম, মোহাম্মদ জামিল খান শুক্রবার, জুলাই ১, ২০২২ ০৭:৪৪ অপরাহ্ন গুলশানের হলি আর্টিজান ক্যাফেতে ২০১৬ সালে হামলা চালায় জঙ্গি সংগঠন নব্য-জেএমবি। এই মুহূর্তে আরেকটি হামলা চালানোর মতো সক্ষমতা তাদের না থাকলেও পুলিশ কর্মকর্তা ও নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা অন্য কয়েকটি সংগঠনকে হুমকি হিসেবে দেখছেন। তাদের মতে, জঙ্গি সংগঠনগুলো অনলাইনে সক্রিয় রয়েছে। তারা আরও জানান, ইন্টারনেটে পর্যাপ্ত পরিমাণে জঙ্গি কনটেন্ট রয়েছে, যা মানুষকে এ ধরনের আদর্শে অনুপ্রাণিত করতে পারে। পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান এবং ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, 'নব্য-জেএমবি এখন অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে। তাদের কোনো সক্রিয় কর্মী বা নেতা নেই।' সিটিটিসির কর্মকর্তাদের মতে, নিষিদ্ধ হওয়া সংগঠনটির প্রধান মেহেদী হাসান জন তুরস্কের একটি গোপন আস্তানা থেকে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তবে আনসারুল্লাহ বাংলা টিম ও হিযবুত তাহরীর এখনো সক্রিয় রয়েছে। তারা আরও জানান, হিযবুত তাহরীর এখনও বড় উদ্বেগের বিষয়, কারণ সংগঠনের শীর্ষ নেতা মেজর (বরখাস্ত) সৈয়দ জিয়াউল হক ও আকরাম হোসেন এখনো পলাতক। পুলিশের মতে, এই সংগঠনটি 'স্লিপার সেলের' মাধ্যমে কাজ করে। যার অর্থ, সদস্যরা একে অপরের পরিচয় জানতে পারেন না এবং নেতারা বেনামে কার্যক্রম পরিচালনা করেন। একজন সিটিটিসি কর্মকর্তা জানান, তারা এনক্রিপটেড মেসেজিং অ্যাপের মাধ্যমে একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং কোডের মাধ্যমে ভার্চুয়াল পরিচয় ধারণ করেন। 'একজনকে গ্রেপ্তার করা হলেও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা বাকিদের চিহ্নিত করতে পারে না,' যোগ করেন তিনি। সিটিটিসি প্রধান জানান, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমকে অনেকটাই নিষ্ক্রিয় করে ফেলা হয়েছে। কারণ সংগঠনটির মূল সদস্যদের বিভিন্ন সময়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, করোনাভাইরাসের বিধিনিষেধের সময়ে জঙ্গি কার্যক্রম কিছুটা বাড়লেও এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। হিযবুত তাহরীরের সদস্যরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান। দীর্ঘদিন জঙ্গিদের চিহ্নিত ও আটকের কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত এক অভিজ্ঞ কর্মকর্তা জানান, এই নিষিদ্ধ সংগঠনের সদস্যরা এখন শক্তি সঞ্চয়ের জন্য সরকারি ও বেসরকারি সংস্থায় চাকরি খুঁজছেন। কর্মকর্তারা জানান, গত কয়েক বছরে নিষিদ্ধ সংগঠন হরকাতুল জিহাদ আল ইসলাম, বাংলাদেশ (হুজি-বি) এবং জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) নিষ্ক্রিয় অবস্থায় আছে। সিটিটিসির তথ্য অনুযায়ী, ১৯৯৯ থেকে ২০০৪ সালের মধ্যে হুজি-বি ১৬টি হামলায় ১৪৫ জনকে হত্যা করে। ২০০২ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে জেএমবি ২৩টি হামলায় ৭০ জনকে হত্যা করে। সিটিটিসির সাবেক প্রধান ও বর্তমানে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) প্রধান ও অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মনিরুল ইসলাম কাউন্টার টেরোরিজম জার্নালে প্রকাশিত এক প্রবন্ধে জানান, জঙ্গিরা সাইবার স্পেস ব্যবহার করে তাদের বার্তা ছড়াচ্ছে। এ ছাড়া, তারা অনলাইনে বিভিন্ন ব্যক্তির প্রতি ঘৃণা ছড়ানো, নতুন কর্মী নিয়োগ, তহবিল সংগ্রহ, নতুন সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেওয়া ও জঙ্গি হামলার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। তিনি উল্লেখ করেন, অন্য অনেক দেশের মতো বাংলাদেশেও এর (মৌলবাদের) উত্থান দেখা যাচ্ছে। 'কাউন্টার টেরোরিজম একটি জটিল ও সময় সাপেক্ষ কাজ, যার সঙ্গে সমাজের সকল অংশকে সম্পৃক্ত হতে হবে,' যোগ করেন তিনি। নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) এএনএম মুনিরুজ্জামান জানান, কিছুদিন পরপর সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার এবং অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার এটাই ইঙ্গিত করে যে জঙ্গিরা এখনো সক্রিয় আছে। তিনি জানান, একটি জাতীয় জঙ্গি বিরোধী কৌশলগত নীতিমালা প্রয়োজন, যেখানে সরকার, পুলিশ ও সমাজের অন্যান্য অংশীজনদের সুনির্দিষ্ট ভূমিকা উল্লেখ করা থাকবে। সিটিটিসির প্রধান আসাদুজ্জামান জানান, পুলিশ সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের অনলাইন কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করছে। তিনি আরও জানান, মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির কারণে (এবং এর খারাপ পরিণতি দেখে) জঙ্গিদের পক্ষে নতুন সদস্য পাওয়া বেশ জটিল হয়ে পড়েছে। হলি আর্টিজান হামলা ও নব্য-জেএমবি প্রয়াত বাংলাদেশি-কানাডীয় নাগরিক তামিম আহমেদ চৌধুরী ২০১৩ সালের অক্টোবরে বাংলাদেশে আসার পর নব্য-জেএমবি গঠন করেন। তিনি আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংস্থা ইসলামিক স্টেটের (আইএস) কার্যক্রমে অনুপ্রাণিত হয়ে এই সংগঠনটি চালু করেন। এই সংগঠনটি ঢাকার গুলশানের রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজানে হামলার পেছনে দায়ী ছিল। ২০১৬ সালের ১ জুলাইয়ের হামলায় ১৭ জন বিদেশি নাগরিক ও ২ জন পুলিশ কর্মকর্তাসহ মোট ২২ জন নিহত হন। ২০১৬ সালে নব্য-জেএমবি ও আল কায়েদার অনুপ্রেরণায় গঠিত আনসার আল ইসলাম মোট ৫৩টি হামলায় ৬০ জনকে হত্যা করে। পরবর্তী বছর নব্য-জেএমবির আক্রমণে সিলেটে ৩ পুলিশসহ ৫ জন নিহত হন। হলি আর্টিজান হামলার পর সিটিটিসি দেশব্যাপী গোয়েন্দা অভিযান শুরু করে। র্যাব ও পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে তাদের কার্যক্রমকে আরও শক্তিশালী করে। হলি আর্টিজান হামলার পর সিটিটিসি এ পর্যন্ত ৫১২ জন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা জঙ্গি আস্তানায় ২৮টি অভিযান চালায়, এ সময় ৭৯ জন জঙ্গি নিহত হন এবং প্রচুর বিস্ফোরক উপকরণ ধ্বংস ও আটক করা হয়।
  21. https://www.tbsnews.net/economy/corporates/guardian-life-launches-ai-based-chatbot-their-omnichannel-communication-platform#.Yr2IlRiMIgM.facebook TBS Report 29 June, 2022, 11:10 pm Last modified: 29 June, 2022, 11:13 pm Guardian Life launches AI-Based chatbot on their omnichannel communication platform Guardian Life has introduced an Artificial Intelligence (AI) based chatbot on their omnichannel communication platform, making it a first for the Bangladeshi insurance sector. The chat-bot is synchronised with their integrated Facebook Messenger, WhatsApp, and corporate website. "Guardian Life Chatbot" was recently launched at Guardian Life's head office at Police Plaza Concord, Gulshan, reads a press release. Md Zahid Hossain, deputy secretary, Financial Institutions Division, Ministry of Finance, was present as the chief guest at the inaugural function, and Sheikh Rakibul Karim, acting CEO, Guardian Life, presided over the function. These systems will now make the customer experience better than ever. Customers will now be able to navigate to the required information with the aid of an intelligent chatbot by following simple and user-friendly steps. The audience or customers won't have to wait in a queue or take office hours into consideration to get the information they need. The customer service of Guardian Life will now be available around the clock to respond to all types of inquiries via an omnichannel communication platform. Customers can get information about policy, payment procedures, product details, claim status, and even find out the location of the nearest partner hospital using the intelligent chatbot. There is also the option to communicate directly with a live customer support agent for complex queries. "Our omnichannel platform along with an AI-based chatbot is our latest Insurtech initiative and it will elevate our customer experience to a whole new level. 'Customer First' is one of our core philosophies and we are always striving to provide our customers with a seamless experience," said Sheikh Rakibul Karim. Other senior management team members of Guardian Life also graced the event, including Mahmudur Rahman Khan, SEVP & head of Retail Business; Tahsinur Rahim, EVP & head of Internal Audit & Compliance; Ahmed Istiaque Mahmud, EVP & head of Bancassurance; Rubayat Saleheen, SVP & head of Marketing & Communication; Habib Chowdhury, SVP & head of HR; Md Shohel Rana, SVP & head of IT; and Palash Lodh, VP, Customer Care.
  22. 'Adeffi Ltd,' the parent company of advertising-tech startup 'Sticker Driver,' has added a new dimension to Bangladesh's advertising industry and raised $200,000 in pre-seed funding. With their desire to transform outdoor advertising in the nation, they have been successful in attracting investors from the Bangladesh Angels Network (BAN). Adeffi stands for "advertisement efficiency," and as the name implies, their entire team is focused on bringing efficiencies to the fragmented outdoor advertising market. Adeffi (Sticker Driver), which got its start in a small garage, today works with well-known companies including ACI, Bombay Sweets, Square, Savlon, Domino's pizza, Digital Health, and Xiaomi, to mention a few. Adeffi currently operates in Dhaka, Chittagong, and Sylhet, three of Bangladesh's biggest cities, with intentions to expand nationwide.
  23. https://bonikbarta.net/home/news_description/305146/পদ্মা-সেতুতে-যান-চলাচল-কমছে পদ্মা সেতুতে যান চলাচল কমছে নিজস্ব প্রতিবেদক জুলাই ০১, ২০২২ https://bonikbarta.net/uploads/news_image/news_305146_1.jpg?t=1656664485 পদ্মা সেতুতে যান চলাচল শুরুর পাঁচদিন পেরিয়েছে। এর মধ্যে প্রথম দিন ৫১ হাজারের বেশি যানবাহন সেতু পারাপার হয়। সেতু তৈরির আগে করা সমীক্ষায় ২০২২ সালে যান চলাচলের যে পূর্বাভাস দেয়া হয়, তার তুলনায় প্রথম দিনে সেতু দিয়ে যাওয়া যানের সংখ্যা ছিল দ্বিগুণেরও বেশি। অবশ্য দ্বিতীয় দিন থেকে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা এবং সেতুর ওপর প্রশাসনের নজরদারি বৃদ্ধির কারণে যানবাহন চলাচল প্রায় চার ভাগের এক ভাগে নেমে আসে। বুধবার সেতু পারাপার হয়েছে ১৪ হাজার ১০৫টি যানবাহন। এসব যানবাহন থেকে টোল আদায় হয়েছে ১ কোটি ৯২ লাখ ৯২ হাজার ৮০০ টাকা। পদ্মা সেতু দিয়ে কোন বছর কী পরিমাণ যানবাহন চলাচল করবে, তার একটা পূর্বাভাস দেয়া হয়েছিল ২০০৫ সালে করা সম্ভাব্যতা সমীক্ষায়। সমীক্ষার পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, ২০২২ সালে পদ্মা সেতু দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ২৩ হাজার ৯৫৪টি যানবাহন চলবে। এসব যানবাহন থেকে প্রতিদিন গড়ে ৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা টোল আদায় হওয়ার কথা। এ হিসেবে প্রতি মাসে ১৩৩ কোটি ৬৬ লাখ ও প্রতি বছর ১ হাজার ৬০৩ কোটি টাকা টোল আদায় হওয়ার কথা পদ্মা সেতুতে। অবশ্য ২০১৫ সালের আগে পদ্মা সেতু চালু হবে ধরে নিয়ে এ পূর্বাভাস দেয়া হয়েছিল। অন্যদিকে ২০২২ সালে পদ্মা সেতুতে কী পরিমাণ গাড়ি চলাচল করবে ও টোল আদায় হতে পারে, তার আরেকটি প্রাক্কলন করা হয় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) হিসাবের ভিত্তিতে। মাওয়া-জাজিরা রুটে বর্তমানে কী পরিমাণ যানবাহন ফেরিতে পারাপার হয়, তার ভিত্তিতে এ প্রাক্কলন তৈরি করা হয়। এতে বলা হয়, চলতি বছর সেতু দিয়ে প্রতিদিন ৩৮৭টি ট্রাক, ৮৩টি বাস ও ১ হাজার ২৮৭টি হালকা যানবাহন পারাপার হওয়ার কথা। বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের তথ্য বলছে, চালুর দ্বিতীয় দিনে পদ্মা সেতুতে যানবাহন পারাপার হয়েছে ১৫ হাজার ২৭৪টি। তৃতীয় দিন পারাপার হয়েছে ১৪ হাজার ৪৯৩টি যানবাহন। আর চতুর্থ দিন (বুধবার) ১৪ হাজার ১০৫টি যানবাহন পদ্মা সেতু পারাপার হয়েছে। অর্থাৎ সম্ভাব্যতা সমীক্ষা নয়, বিআইডব্লিউটিসির তথ্যের ভিত্তিতে যে প্রাক্কলন করা হয়েছিল, পদ্মা সেতুতে বর্তমানে যানবাহন চলাচল তার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ। প্রথম দিন পদ্মা সেতু দিয়ে যত যানবাহন পারাপার হয় তা ছিল এ পূর্বাভাসের দ্বিগুণেরও বেশি। ৫১ হাজার ৩১৬টি যানবাহন থেকে টোল আদায় হয় ২ কোটি ৯ লাখ টাকার বেশি। পদ্মা সেতু প্রকল্পের প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন, প্রথম দিন সেতুর ওপর দিয়ে যত যানবাহন পারাপার হয়েছে, তার ৬০ শতাংশের বেশি ছিল শুধু মোটরসাইকেল। অনেক মোটরসাইকেলচালক ছিলেন বেপরোয়া। ওইদিন একটি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুজনের মৃত্যুর পর ২৭ জুন থেকে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। যান চলাচল শুরুর প্রথম দিন অনেকেই মাঝ সেতুতে গাড়ি থেকে নেমে ছবি তোলেন। নাট-বল্টু খুলে ফেলেন। মালপত্র চুরির অভিযোগও ওঠে। এমন প্রেক্ষাপটে দ্বিতীয় দিন থেকে সেতুর ওপর নজরদারি বাড়ায় প্রশাসন। পদ্মা সেতুতে যানবাহন চলাচল কমে যাওয়ার পেছনে এ দুটি ঘটনাকেই মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের প্রকৌশলীরা। তারা বলছেন, মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় প্রথম দিনের তুলনায় সেতুর সিংহভাগ ট্রাফিক কমেছে। একইভাবে প্রশাসনের কঠোর নজরদারির কারণে এখন আর কেউ গাড়ি থামিয়ে সেতুর ওপর নামতে পারছে না। এ কারণে উত্সুক মানুষ কমে যাওয়ায় সেতুর ট্রাফিকে প্রভাব পড়েছে। যদিও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পদ্মা সেতুতে যানবাহন চলাচল বাড়তে শুরু করবে বলে জানিয়েছেন তারা। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবুল হোসেন বণিক বার্তাকে বলেন, পদ্মা সেতুতে এখন যে পরিমাণ যানবাহন চলাচল করছে, এ সংখ্যাই আসলে স্বাভাবিক। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এ সংখ্যাটি বাড়তে থাকবে। সরকারের অর্থ বিভাগের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ। ২০১৯ সালের ২৯ আগস্ট পদ্মা সেতুর ঋণ নিয়ে সরকারের অর্থ বিভাগের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করে সেতু কর্তৃপক্ষ। চুক্তি অনুযায়ী, ৩৫ বছরে ১৪০টি ত্রৈমাসিক কিস্তিতে ঋণ পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ। সেতু কর্তৃপক্ষ কোনো অর্থবছর কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হলে পরবর্তী সময়ে সুদসহ বকেয়া অর্থ পরিশোধ করবে। ঋণচুক্তি অনুযায়ী, যানবাহন চলাচল শুরুর প্রথম বছরেই (২০২২) ৫৯৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকা ঋণ পরিশোধ করতে হবে। ঋণের পরিমাণ ক্রমান্বয়ে বেড়ে কোনো কোনো বছর ১ হাজার ৪৭৫ কোটি টাকা পর্যন্ত পরিশোধ করতে হবে। তাছাড়া সেতু রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচালন ব্যয়, নদী শাসন কাজ, ভ্যাট ও ট্যাক্স পরিশোধসহ বিভিন্ন ধরনের ব্যয়ও নির্বাহ করতে হবে টোলের আয় থেকে।
  24. https://samakal.com/bangladesh/article/2206119640/অল্প-দূরত্বেও-বেশি-টোল-এক্সপ্রেসওয়েতে অল্প দূরত্বেও বেশি টোল এক্সপ্রেসওয়েতে সমকাল প্রতিবেদক প্রকাশ: ৩০ জুন ২২ । ০০:০০ | আপডেট: ৩০ জুন ২২ । ০২:৩১ । প্রিন্ট সংস্করণ ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে নামে পরিচিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহাসড়কে আগামীকাল শুক্রবার থেকে টোল দিতে হবে। অল্প দূরত্বে চললেও বেশি টোল লাগবে। দুর্ঘটনা রোধে এক্সপ্রেসওয়েতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব করেছে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর (সওজ)। এক্সপ্রেসওয়েতে টোল আদায়ে গতকাল বুধবার অপারেটর কোরিয়ান এক্সপ্রেসওয়ে করপোরেশনের (কেইসি) সঙ্গে চুক্তি করে সওজ। তেজগাঁওয়ের সড়ক ভবনে চুক্তি সই অনুষ্ঠানে সওজের প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম মনির হোসেন পাঠান বলেন, নিষিদ্ধের প্রস্তাবে সরকার অনুমোদন দিলে পদ্মা সেতুর মতো এক্সপ্রেসওয়েতেও মোটরসাইকেল চলবে না। তবে পাশের সার্ভিস লেনে চলতে পারবে। এদিকে, গতকাল সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ এক্সপ্রেসওয়ের অন্তর্বর্তী টোলের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। ট্রেইলারে ১ হাজার ৬৯০ টাকা, বড় ট্রাকে ১ হাজার ১০০, মাঝারি ট্রাকে ৫৫০, বড় বাসে ৪৯৫, মিনি ট্রাকে ৪১৫, মিনিবাসে ২৭৫, মাইক্রোবাসে ২২০, প্রাইভেটকারে ১৪০ এবং মোটরসাইকেলে ৩০ টাকা টোল দিতে হবে। এর আগে গত মঙ্গলবারের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছিল, নীতিমালা অনুযায়ী যথাসময়ে চূড়ান্ত টোল নির্ধারণ হবে। অন্যদিকে, গতকাল হাইকোর্টকে সওজ জানায়, এক্সপ্রেসওয়েতে টোল আদায় শুরু হওয়ায় ১ জুলাই থেকে পোস্তগোলা, ধলেশ্বরী ও আড়িয়াল খাঁ সেতুতে টোল দিতে হবে না। চুক্তিসই অনুষ্ঠানে ছয়টি এন্ট্রি ও এক্সিট পয়েন্টের দূরত্বের ভিত্তিতে টোলের হিসাব দেওয়া হয়। এ তালিকা অনুযায়ী, ঢাকার যাত্রাবাড়ীর জিরো পয়েন্ট এবং ফরিদপুরের ভাঙ্গা ইন্টারচেঞ্জ দিয়ে এক্সপ্রেসওয়েতে প্রবেশ ও বের হওয়া যাবে। পথে পদ্মা সেতুর এপারে কেরানীগঞ্জের আবদুল্লাহপুর, ধলেশ্বরী প্লাজা, মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর এবং পদ্মা সেতুর ওপারে মাদারীপুরের পাচ্চর, মালিগ্রাম ও পুলিয়ায় এন্ট্রি এবং এক্সিট পয়েন্ট রয়েছে। জিরো পয়েন্ট থেকে আবদুল্লাহপুর পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার পথে বড় বাসে টোল ৯০ টাকা। বাবুবাজার সেতু হয়ে ঝিলমিল থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরের আবদুল্লাহপুর গেলেও ৯০ টাকাই লাগবে। আবদুল্লাহপুর থেকে ধলেশ্বরী টোল প্লাজার দূরত্ব তিন কিলোমিটার। কিন্তু কোনো বাস আবদুল্লাহপুরে ঢুকে ধলেশ্বরী টোল প্লাজা অতিক্রম করলেই জিরো পয়েন্ট থেকে পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তের শ্রীনগর পর্যন্ত পুরো ৩২ কিলোমিটারের ২৯০ টাকা দিতে হবে। পদ্মা সেতুর ওপারে পুলিয়া থেকে মালিগ্রাম চার কিলোমিটার পথ চললেও ধরা হবে বাসটি পদ্মা সেতুর পাচ্চর প্রান্ত থেকে চলছে। ১৬ কিলোমিটারের জন্য ১৪৫ টাকা লাগবে। এর কারণ জানতে চাইলে প্রধান প্রকৌশলী বলেন, এক্সপ্রেসওয়েতে তিন-চার কিলোমিটার পথ চলতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। ১৮ ফুটের সার্ভিস লেন ট্রেইলার বা বড় ট্রাক চলাচলের উপযোগী কিনা- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, পৃথিবীর কোথাও এক্সপ্রেসওয়েতে গাড়ি অল্প দূরত্বে চলে না। মহাসড়কে মোটরসাইকেল বন্ধের পক্ষে মনির হোসেন পাঠান বলেন, একই লেনে বিভিন্ন গতির গাড়ি চললে দুর্ঘটনা হয়। তাই এক্সপ্রেসওয়েতে লেন পৃথক। বাংলাদেশের যাত্রী ও চালকের মানসিকতা উন্নত দেশের মতো নয়। মহাসড়কে সওজের ৪৬টি পর্যবেক্ষণ ক্যামেরা রয়েছে। তাতে দেখা যায়, মোটরসাইকেল দ্রুতগতির লেনে চলে আসে। বড় গাড়ি এত দ্রুত সরতে পারে না। ফলে দুর্ঘটনা ঘটে। বর্তমানে পোস্তগোলায় ৪০, ধলেশ্বরীতে ১৮০ এবং আড়িয়াল খাঁতে ৯০ টাকাসহ মোট ৩১০ টাকা টোল দিতে হয় ৪০ আসনের বাসে। এই তিন সেতুতে টোলের বদলে এক্সপ্রেসওয়েতে লাগবে ৪৯৫ টাকা। এতে ১৮৫ টাকা খরচ বাড়ছে। পদ্মা সেতুতে মাঝারি বাসের টোল ২ হাজার টাকা। বন্ধের আগে ফেরিতে টোল ছিল ১ হাজার ৩৫০ টাকা। আগে ফেরি ও তিন সেতু মিলিয়ে টোল দিতে হতো ১ হাজার ৬৬০ টাকা। আগামীকাল থেকে দিতে হবে ২ হাজার ৪৯৫ টাকা। সব মিলিয়ে খরচ বাড়ছে ৮৩৫ টাকা। আগামী পাঁচ বছর টোল আদায়, এক্সপ্রেসওয়ের রক্ষণাবেক্ষণ এবং ইন্টেলিজেন্ট ট্রাফিক সিস্টেম (আইটিএস) ইন্সটল ও পরিচালনা করে কেইসি ৭১৭ কোটি টাকা নেবে। এর মধ্যে ভ্যাট ও আয়কর ২১৮ কোটি টাকা। তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের টেলিটেল কমিউনিকেশন। গত ২২ জুন কেইসিকে নিয়োগের অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা কমিটি। আট দিনের প্রস্তুতিতে টোল আদায় করতে পারবে কিনা- এমন প্রশ্নে সওজের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান জানান, এক মাস ধরেই কাজ চলছে। সাময়িক সফটওয়্যার তৈরি হয়েছে, যা ম্যানুয়াল ও অটোমেটেডের মাঝামাঝি ধরনের। আগামী ১ জানুয়ারি থেকে টোল আদায় অটোমেশন হবে। আপাতত অস্থায়ী বুথে টোল তোলা হবে। আইটিএসের ফলে দুর্ঘটনার খবর ও ট্রাফিক নিয়ম ভঙ্গের খবর তাৎক্ষণিক পেয়ে হতাহতদের উদ্ধার করা যাবে। কেইসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক লি হিউং সান জানান, তাঁদের প্রতিষ্ঠান দক্ষিণ কোরিয়ায় ৪ হাজার কিলোমিটারের বেশি এক্সপ্রেসওয়েতে টোল আদায় করছে। চুক্তিতে তিনি ও সবুজ উদ্দিন খান নিজ নিজ পক্ষে সই করেন।
  25. https://www.dhakapost.com/country/126028 পদ্মা সেতুতে চতুর্থ দিনে টোল আদায় ১ কোটি ৯২ লাখ টাকা জেলা প্রতিনিধি, শরীয়তপুর ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৫৯ পিএম পদ্মা সেতুতে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ কোটি ৯২ লাখ ৯২ হাজার ৮০০ টাকা টোল আদায় করা হয়েছে। এ সময় পদ্মা সেতু দিয়ে ১৪ হাজার যানবাহন পারাপার হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বিকেল ৪টার দিকে পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবুল হোসেন এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, নিরবচ্ছিন্নভাবে পদ্মা সেতু দিয়ে যানবাহন পারাপার হচ্ছে। আমরা এখন তারিখের হিসাব তারিখেই শেষ করছি। আগে সকাল ৬টা থেকে পর দিন ৬টা পর্যন্ত হিসাব করা হতো। এখন থেকে রাত ১২টা থেকে পরের রাত ১২টা পর্যন্ত হিসাব করা হবে। সেই হিসেবে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ কোটি ৯২ লাখ ৯২ হাজার ৮০০ টাকা টোল আদায় হয়েছে। পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গত রোববার (২৬ জুন) পদ্মা সেতু যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়ার পর ২৪ ঘণ্টায় ২ কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার ৩০০ টাকা টোল আদায় করা হয়। এ সময় পদ্মা সেতু দিয়ে ৫১ হাজার ৩১৬টি যানবাহন পারাপার হয়েছিল। দ্বিতীয় দিন ১ কোটি ৯৭ লাখ ৪৫ হাজার ৮২০ টাকা টোল আদায় করা হয়। এ সময় ১৫ হাজার ৪২৯টি যানবাহন পারাপার হয়েছিল। তৃতীয় দিন ১ কোটি ৯৪ লাখ ৫৮ হাজার ১০০ টাকা টোল আদায় করা হয়। ওইদিন ১৪ হাজার ৪৯৩টি গাড়ি পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়েছিল। সৈয়দ মেহেদী হাসান/আরএআর
  26. https://www.thedailystar.net/tech-startup/news/shape-startup-thats-breaking-stereotypes-3049266 Spotlight Shape: A startup that’s breaking stereotypes Tahseen Nower Prachi Fri Jun 17, 2022 12:29 AM Last update on: Fri Jun 17, 2022 12:39 AM The core team of Shape. Photo: Courtesy Shape, an intimate clothing line for women in Bangladesh, provides lingerie and innerwear that caters to the distinct body featurettes of South Asian women. Since 2019, Shape has developed a clientele among Bangladeshi women not only through their unique sales but also through the creation of essential conversation that is considered taboo in our society. Founded by Monoshita Ayruani in September 2019. Shape is now a brand with 5 different stores across Dhaka and Chittagong with 12 members in its core team. Toggle recently talked with Monoshita Ayruani to learn more about this unique brand's journey. The beginning of an inclusive brand If there's one thing lacking in South Asia, let alone Bangladesh, that is the lack of inclusivity in the sizes and shapes of undergarments. Most products available in local markets are of the few sizes that are excerpts of UK and US sizes. However, such fits are not compatible with the body sizes and structures of women in our subcontinent. "I noticed the huge waste of investment every time when women buy their innerwear without any proper knowledge of their sizes and shapes. I decided to start a brand that will cater to women by not only selling products but also helping them understand their right fit," says Monoshita, "Hence, I started Shape. Currently, Shape has 11 different sizes of innerwear and loungewear one can find the perfect fit of." The launching of Shape Shape initially launched its line on Instagram. Monoshita adds, "As we wanted to establish a communication with customers to understand their needs and feedback, we designed our feed into a channel to reach out to them. This feed caters to topics not only limited to innerwear but on reproductive health, menstrual hygiene and mental health as well." This interactive feed is what helped Shape develop a sustainable bond with its clients, eventually leading to an official website and Facebook page. Bootstrapping the business Monoshita started the company with her own capital without external funding, expanding it with her partner after a while. Till today, the brand is self-funded and runs on its own revenue. Right now it is working on establishing a stronger base in the local market, with future plans on going international, especially to other South Asian countries. Becoming a customer-friendly local brand "Shape has worked hard to gain this trust over the two and half years from its clientele. It offers an open space for conversation for women who have a difficult time finding the right fit for their regular use. We offer size consultation with expert consultants," claims Monoshita. According to her, the problem that customers often face is a lack of proper knowledge about choosing the right fit. The wrong fitted inner might harm the original body shape of the user and is usually uncomfortable. "But here in Shape, there is a right fit for everyone," she adds. Their interactive and informative page and feed also answer FAQs about body shapes and sizes, debunks taboos and eradicates misconception about less-talked but important issues. "Comfort should not come second to beauty, rather, it should come before the existing stereotypical norms of beauty. In Shape, we provide services that will serve both comfort and elegance to our customers," ensures Monoshita. In the face of adversities Monoshita highlights two prime adversities in her journey. Firstly, being a young female entrepreneur in Bangladesh with a unique product idea was nothing short of a challenge itself. Secondly, the lack of open conversation about women's innerwear and loungewear. Creating a productive conversation about one of the most frequently-bought products seemed to be an absurd taboo. "I wanted to establish a safe space of informative shopping for women. While it was difficult to promote my brand's message initially, we steadily learned how to embrace the uniqueness of our brand with confidence," she says. Breaking the taboos Monoshita believes that creating conversation and building awareness are the two most important factors to break the stereotypes and taboos regarding women's intimate wear. "Women have been taught to look beautiful first, and put comfort later. But it doesn't have to be that way; comfort and beauty can both come hand in hand," states Monoshita, "Shape is working towards a size-inclusive movement - whether you're lean or plus-sized, we have something for everybody."
  27. https://www.tbsnews.net/economy/budget/individuals-submit-tax-return-acknowledgement-document-instead-e-tin-certificate TBS Report 29 June, 2022, 07:20 pm Last modified: 29 June, 2022, 07:34 pm Individuals to submit tax return acknowledgement document instead of an e-tin certificate Individual taxpayers will have to show tax return acknowledgement documents in places where the e-tin certificate was needed, sources at the parliament said. However, companies or firms will be out of this jurisdiction for the time being. They will also come under this guideline from the tax year 2024-2025. Finance Minister AHM Mustafa Kamal placed the Tk6,78,064 crore national budget for FY23 at Jatiya Sangsad on 9 June. The proposed budget is Tk74,383 crore higher than the original budget size for the FY2021-22 fiscal year, which was Tk6,03,681 crore.
  28. https://www.dhakapost.com/economy/125859 বিদ্যুতের আধুনিকায়নে সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ২৯ জুন ২০২২, ০৯:৩৮ পিএম বিদ্যুতের সরবরাহ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ও শক্তিশালী করতে বাংলাদেশকে ৫০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশি মুদ্রায় এ অর্থের পরিমাণ ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা (প্রতি ডলার সমান ৯০ টাকা ধরে)। বুধবার (২৯ জুন) বাংলাদেশ সরকার ও বিশ্বব্যাংকের মধ্যে এ সংক্রান্ত ঋণ চুক্তি সই হয়েছে। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন ও বাংলাদেশে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর দনদন চেন নিজ নিজ পক্ষে চুক্তিতে সই করেন। ইআরডি থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিশ্বব্যাংক জানায়, বিদ্যুৎ ব্যবস্থার আধুনিকায়নের এ কর্মসূচির আওতায় ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের চার কোটি মানুষের কাছে উন্নত বিদ্যুৎ সেবা পৌঁছানো হবে। এর মাধ্যমে ৩১ হাজার কিলোমিটার বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন ও ১৫৭ উপকেন্দ্র আপগ্রেড ও নির্মাণ করা হবে। একই সঙ্গে ২৫টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জন্য জলবায়ু সহায়ক বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা তৈরিতে উদ্যোগ নেওয়া হবে। বাংলাদেশে বিশ্ব ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর দনদন চেন বলেন, গত এক দশকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উৎপাদন চারগুণের বেশি বাড়িয়েছে। আর ৯৯ ভাগের বেশি মানুষের কাছে বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে গেছে। কিন্তু বিদ্যুৎ উৎপাদনের উল্লেখযোগ্য গতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে সরবরাহ নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে পারেনি। এ ঋণ কর্মসূচি জলবায়ু সহনশীল সরবরাহ নেটওয়ার্কের আধুনিকায়ন ও নিশ্চিত করতে সহায়তা করবে, যা নিরাপদ ও নির্ভরযোগ্য বৈদ্যুতিক ব্যবস্থার মেরুদণ্ড। বিশ্ব ব্যাংকের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার (আইডিএ) মাধ্যমে দেওয়া হবে ৩০ বছর মেয়াদি এ ঋণ। এর মধ্যে থাকবে পাঁচ বছরের রেয়াত কাল। ঋণের আওতায় বিশ্বব্যাংকে সার্ভিস চার্জ দিতে হবে শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ এবং কমিটমেন্ট চার্জ দিতে হবে শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ। মোট অর্থের মধ্যে ১৫ লাখ ডলার ক্লিন টেকনোলজি ফান্ডের (সিটিএফ) আওতায় অনুদান হিসাবে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে। এ কর্মসূচিসহ বাংলাদেশের বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বিশ্ব ব্যাংকের ১০৮ কোটি ডলারের সহায়তা কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। প্রকল্পটি চলতি সময় থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২৬ মেয়াদে বাস্তবায়িত হবে । এসআর/আরএইচ
  1. Load more activity
×
×
  • Create New...