Jump to content
Please ensure regular participation (posting/engagement) to maintain your account. ×

All Activity

This stream auto-updates     

  1. Today
  2. Last week
  3. These days even though the navy and police special forces use m-4 carbines, the paracommandoes of Bangladesh army are using obsolete type-56 rifles.Does anyone know if the army will buy new assault rifles anytime soon?
  4. These days,even though the police and navy special forces are using modern m4 cabine, the army special forces are still using the obsolete type-56 as their primary assault weapon.Will anyone tell me if the army has plans to buy new rifles for the paracommandoes?
  5. 12:00 AM, September 15, 2020 / LAST MODIFIED: 12:46 AM, September 15, 2020 Myanmar troops mobilised in Rakhine Porimol Palma Mobilising thousands of troops in northern Rakhine has created fears of a fresh crackdown and subsequent Rohingya influx like the one that forced around 750,000 members of the ethnic group to flee to Bangladesh. Analysts think deploying troops near the Bangladesh-Myanmar border also could be Myanmar's tactic of provoking Bangladesh and distracting the global attention from the Rohingya crisis that has not been addressed yet even more than three years after the influx. "One of the purposes of gathering troops in the Rohingya villages could be driving them out at a time when the world faces a global pandemic and other tensions over Indo-China border dispute and US elections," said Brig Gen (retd) Shahedul Anam Khan. Another purpose could be provoking Bangladesh, he told this correspondent yesterday, a day after Bangladesh's Ministry of Foreign Affairs Director General (Myanmar) summoned Myanmar Ambassador to Bangladesh, Aung Kyaw Moe, to express concern over the suspicious movements of Myanmar soldiers along the border since last Friday. Myanmar troops were moved to northern Maungdaw's Rohingya-dominated villages in boats via the Naf river that divides Bangladesh and Myanmar, said an official concerned. The foreign ministry asked Moe to take effective actions to avoid any misunderstandings between the two countries. The diplomat assured the ministry of communicating the matter to the Myanmar authorities, he said. "We have our fishermen fishing in the Naf river. There may be unexpected incidents because Myanmar had no announcement on the movement of troops," said an official, adding that such movement along the border is a matter of concern for any country. According to Kaladan Press, a Rohingya news agency, about 1,000 Myanmar troops arrived by boat in northern Maungdaw early morning of September 11. Quoting a Rohingya boat driver, it said officials from Maungdaw had ordered 20 fishing boats from Maung Ni to travel down to Inn Din on the coast of southern Maungdaw, and stand by from September 8. On September 10, four Burma Navy ships arrived off the coast of Inn Din, and the boat driver saw "thousands" of troops disembarking. That night, the boat drivers from Maung Ni were forced to transport the troops along the coast up to northern Maungdaw, carrying about 50 armed soldiers in each boat. The troops disembarked at different locations along the Naf river, including Ngakhura, about 20km north of Maungdaw town; Maungdaw No.1 Jetty near Maungdaw town, and Kanyin Chaung. "The arrival of so many Burma Army troops is creating fear among Rohingya residents of Maungdaw, who fear a repeat of the deadly "clearance operations" in 2017," reported Kaladan Press. A Rohingya in Maungdaw said Burmese soldiers had already been in Rakhine in high numbers since 2017. Now the reinforcement of it with additional two to three thousand more is seriously worrying for the Rohingyas. He said it was surprising why the troops used the waterways to reach to northern Rakhine when there were no problems with roads. Security analyst Shahedul Anam said such troop mobilisation in Rakhine is happening at a time when it is failing to comply with the International Court of Justice order of preventing genocidal acts. Instead, the escalation of conflicts between Myanmar military and the Arakan Army (a Myanmar separatist group) in recent months left hundreds of ethnic Rakhine and dozens of Rohingya civilians killed, he said. Meanwhile, two soldiers who deserted the military in Rakhine also confessed in a film of their involvement in mass killings of Rohingyas upon orders from the high command, a fact that could be significant in the investigation by the International Criminal Court. Shahedul Anam said it is possible that the military would conduct operations in Rakhine to fuel the nationalistic behaviour of the Burmese ahead of the national polls on November 8. Munshi Faiz Ahmad, former chairman of Bangladesh Institute of International and Strategic Studies, said Myanmar had wanted to drive out all the Rohingyas from Myanmar. Now that all are busy tackling the coronavirus pandemic and are drawn by other regional or global tensions. It is not unlikely Myanmar military wants to drive out the rest six lakh Rohingyas to Bangladesh, he said. Fighting the Arakan Army can also be used just as a pretext by Myanmar to actually conduct anti-Rohingya operations, he said. Both the experts said Myanmar tried to provoke Bangladesh repeatedly by mobilising military along the border and by violating Bangladesh's air space, but Bangladesh has always dealt it with keeping heads cool. "This time too, Dhaka should not do anything so that Myanmar can put blame on us. Rather, we should reach out to the international community and continue keeping the focus on addressing the Rohingya crisis," said Faiz, also a former ambassador. https://www.thedailystar.net/backpage/news/myanmar-troops-mobilised-rakhine-1961365
  6. 15 September, 2020 03:35:00 PM / LAST MODIFIED: 15 September, 2020 05:32:12 PM Payra power plant’s 2nd unit expected to open in Oct BSS, Dhaka The second unit of the country’s largest coal-fired power plant at Payra in southern Bangladesh is expected to go for commercial operation in first week of October as its trial run already started, an official said. “We are expecting that Honourable Prime Minister Sheikh Hasina will inaugurate the 660 MW second unit of Payra power plant in the first week of October,” Managing Director of North-West Power Generation Company Ltd (NWPGCL) A M Khurshedul Alam told BSS today. He said the first 660 MW unit of the power plant started commercial operation in May last. According to the project details, Bangladesh-China Power Company Limited (BCPCL), the owner of the Payra coal-fired power plant, inked a contract with a Chinese consortium for engineering, procurement and construction (EPC) of the 1,320MW coal-fired power plant near the Payra seaport in Patuakhali district on March 29, 2016. It said China National Machinery Import and Export Corporation (CMC) is implementing the power plant project, which is a joint venture initiative of NWPGCL and BCPCL. The BCPCL is now importing coal from Indonesia. The consortium of the China Energy Engineering Group, the Northeast Electric Power Construction Co Ltd, and the China National Energy Engineering & Construction Co Ltd is implementing the power plant project as the EPC contractor, the details said. Khurshedul Alam said currently the NWPGCL is supplying 25,00 MW to the national grid, which would be 3100 after commercial operation of the second unit of the Payra power plant. Apart from this, two separate power plants with some 2,300 MW capacity are under construction including Khulna Power Plant with 800 MW and Payar power plant with 1300 MW, he said. Asian Development Bank (ADB) has given loan for 800 MW power plant in Khulna, being implemented by China as EPC contractor while Chinese Export Import Bank is financing for construction of 1300 MW Payra power plant project, he added. Khulna Power Plant is expected to open in 2023 as the construction of the Payra power plant is hoped to complete in the same year, he continued. http://www.theindependentbd.com/post/253286
  7. 07:50 PM, September 14, 2020 / LAST MODIFIED: 08:09 PM, September 14, 2020 Bangladesh keen to deepen ties with Turkey: PM UNB, Dhaka Prime Minister Sheikh Hasina today said Bangladesh is keen to boost its relationship with Turkey as it is deeply rooted in shared history, faith and traditions based on trust and confidence. The prime minister said this while virtually opening Bangladesh's Embassy complex in Ankara from her official residence Gono Bhaban. Turkish Foreign Minister Mevlut Cavusoglu and Bangladesh Foreign Minister Dr AK Abdul Momen also spoke at the programme. The PM recalled her visit to Ankara at the invitation of then Prime Minister and now President of Turkey Recep Tayyip Erdogan on April 13, 2012 and said the formal diplomatic ties between the two countries began in 1974. On behalf of the Bangladesh government and herself, Sheikh Hasina thanked Turkey for extending support to Bangladesh on various issues, including the Rohingya crisis. "All the support you extended for [resolving] the Rohingya crisis, we also thank you for your support… I think it has been nearly three years [since the crisis broke out]. So, Rohingya people should go back to their own country. I feel Turkey can play a pivotal role in this regard," she said. About the Covid-19 crisis, the prime minister said the world is enduring a difficult time due to the pandemic as it has battered the health systems and the economies of most countries. In Bangladesh, she said, they have been able to successfully contain the spread of the virus. "At the same time our timely and appropriate measures and stimulus packages have also been able to minimise the disastrous effects of the deadly disease. We've so far announced a set of Covid-19 recovery packages worth 13.25 billion dollars, equivalent to 4.03 percent of our GDP." The prime minister also commended Turkish leadership for its success in fighting the deadly pandemic and appreciated its initiative to dispatch medical supplies to different countries, including Bangladesh. She said Bangladesh is one of the fastest-growing economies in the world. After showing some initial sluggishness for a month or two due to the pandemic, exports have started making a turnaround from July. "We're overcoming the situation. The country's foreign currency reserve now stands at a record 39.40 billion US dollars. We're on the right path to graduate from LDC [least developed country] to a developing country," she said. Talking about the newly-built Embassy Complex, the Prime Minister said it took less than two years to complete the construction of the Embassy building with the help of the Turkish as well as Bangladesh authorities. The distinct red-brick cladding on the Embassy complex would resonate for long the Bangladeshi architectural impression and heritage. The spacious complex has all facilities along with a beautiful auditorium. It proudly hosts a bust of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman and a Shaheed Minar. To achieve vision 2021 and 2041, she said, Bangladesh is set to expand its global outreach by establishing many more diplomatic offices. "This permanent embassy complex in Ankara is a testimony to the priority Bangladesh attaches to boost further its friendship with Turkey. The recently built Turkish Embassy building in Dhaka also demonstrates the same sentiment," she said. She hoped the formal opening of the Turkish Embassy building in Dhaka would also take place soon with the presence of President Erdogan during the ongoing Mujib Year. "Please convey my invitation to the president and the first lady," the prime minister requested the Turkish foreign minister. She also thanked Turkey for repairing the Bangladeshi Navy ship that was damaged in the recent blasts in Lebanon. https://www.thedailystar.net/bangladesh-keen-deepen-ties-turkey-1961169
  8. Bangladesh summons Myanmar ambassador over troop movement United News of Bangladesh .Dhaka | Published: 10:00, Sep 14,2020 The Ministry of Foreign Affairs on Sunday summoned Myanmar Ambassador to Bangladesh Aung Kyaw Moe and protested visible movement of Myanmar military very close to Bangladesh-Myanmar border. The Myanmar Ambassador was summoned to the office of Director General (DG-Myanmar Wing) Md. Delwar Hossain. ‘Yes, the Ambassador was summoned and conveyed Bangladesh’s protest,’ a senior official told UNB. Bangladesh noticed suspicious movement of Myanmar military forces on fishing trawlers close to the maritime international border since Friday, a source said. Bangladesh side asked the Myanmar to stop such suspicious movement so that no misunderstanding takes place between the two countries. Such movement of military along the international border might create panic among Rohingyas living on both sides of the border, sources said. Earlier, nine countries including the USA and UK said they are concerned by the continued clashes between the Myanmar military and the Arakan Army in Rakhine and Chin States and by the heavy toll this continues to take on local communities. The nine countries are Belgium, the Dominican Republic, Estonia, France, Germany, Tunisia, the United Kingdom of Great Britain and Northern Ireland, and the United States of America. On the situation in Rakhine more broadly, it is now more than three years since over 700,000 Rohingyas were forcibly displaced from their homes to Bangladesh because of violence perpetrated by the Myanmar military. The countries urged Myanmar to intensify its bilateral dialogue with Bangladesh to agree a durable solution that enables the safe, voluntary, sustainable, and dignified return of Rohingyas. The countries underscored that accountability is an essential part of addressing the long-term challenges in Myanmar and in creating conditions for the return of Rohingyas and IDPs. ‘We stress the importance of fighting impunity and holding accountable all those responsible for violations of international law and abuses,’ reads the joint statement. In line with Security Council Presidential Statement 2017/22, they called on Myanmar to accelerate its efforts to address the long-term causes of the crisis in Rakhine and create conditions conducive to the safe, voluntary, sustainable, and dignified return of refugees. In particular, the countries encouraged Myanmar to set out a transparent and credible plan to implement the recommendations of the Rakhine Advisory Commission and the Independent Commission of Enquiry. https://www.newagebd.net/article/116208/bangladesh-summons-myanmar-ambassador-over-troop-movement
  9. যুদ্ধক্ষেত্রে ট্যাংক টিকবে কি অর্ণব সান্যাল ঢাকা প্রকাশ: ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯:৫১ আধুনিক সমরসজ্জায় ১০০ বছরের বেশি সময় ধরে সগর্বে নিজের অবস্থান ধরে রেখেছে ট্যাংক। এত দিন উন্নত সব দেশই যুদ্ধক্ষেত্রে তাদের আক্রমণ সাজানোর ক্ষেত্রে ট্যাংকের অবস্থান খুব গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করত। কিন্তু ইদানীং উন্নত দেশগুলোই সেই অবস্থান থেকে ধীরে ধীরে সরে যাচ্ছে। ভবিষ্যতের যুদ্ধবিদ্যায় ট্যাংকের অবদান কমে যাবে কি না, সেই প্রশ্নও উঠে গেছে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় যুদ্ধের ময়দানে ট্যাংকের অভিষেক ঘটেছিল। ১৯১৬ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর সোমের যুদ্ধে প্রথমবারের মতো ট্যাংক নামে শত্রু নিধনে। জনক যুক্তরাজ্য। প্রথম কার্যকর ট্যাংকটির নাম ছিল ‘মার্ক ওয়ান’। ট্যাংকের ভয়ানক চেহারা দেখা গিয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে। আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রের দিক থেকে ট্যাংককে মনে করা হতো সবচেয়ে বিধ্বংসী হিসেবে। বিশেষ করে শত্রুদের প্রতিরক্ষাব্যূহ তছনছ করে দেওয়ায় ট্যাংকের ভূমিকা ছিল দারুণ। একদিকে এতে আছে কামানের মাধ্যমে গোলা ছোড়ার সুবিধা। আবার অন্যদিকে শক্তিশালী বর্মব্যবস্থার কারণে একে ধ্বংস করাও কঠিন। ফলে শক্তিশালী দেশগুলো নিজেদের ট্যাংকবহর বাড়াতে উদ্যোগ নেয়। চিন্তক প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের (আইআইএসএস) দেওয়া হিসাব অনুযায়ী, শুধু ইউরোপের দেশগুলোতেই এখন আছে পাঁচ হাজারের বেশি ট্যাংক। আর বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশের কাছে ট্যাংক আছে প্রায় ৫৪ হাজার। কিন্তু ট্যাংকের কার্যকারিতা নিয়ে খোদ সমরশক্তিতে পারদর্শী দেশগুলোতেই এখন অনাস্থা দেখা দিয়েছে। বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্যাংকের জনক যুক্তরাজ্যই এখন এই খাতে বিনিয়োগ কমিয়ে ফেলতে চাইছে। কারণ, প্রচলিত যুদ্ধের নকশা বর্তমানে বদলে যাচ্ছে। ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল স্যার মার্ক কার্লটন স্মিথ সম্প্রতি এক বক্তব্যে জানিয়েছেন যে তিনি মনে করেন আধুনিক যুদ্ধক্ষেত্রে ট্যাংকের প্রাণঘাতী রূপ অনেকটাই ম্রিয়মাণ হয়ে পড়েছে। তাই এর ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবার সময় এসেছে। ব্রিটিশ সাময়িকী ‘দ্য ইকোনমিস্ট’ জানাচ্ছে, শুধু যুক্তরাজ্য নয়, ক্ষমতাধর যুক্তরাষ্ট্রও একই পথে হাঁটছে। দেশটি বিশাল ট্যাংকবহর যুদ্ধসজ্জা থেকে বাদ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে। কারণ, প্রশান্ত মহাসাগরে চীনের মোকাবিলায় ট্যাংকের প্রয়োজনীয়তা খুব কম। বিশ্লেষকেরা বলছেন, সাম্প্রতিক কিছু যুদ্ধ-সংঘাতে ট্যাংক নাকাল হয়েছে বাজেভাবে। গত ফেব্রুয়ারিতে তুর্কি ড্রোনের কারণে সিরিয়ার কয়েক ডজন ট্যাংক ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। অতীতে ক্যামোফ্ল্যাজের কারণে ট্যাংক যুদ্ধক্ষেত্রে লুকিয়ে থাকতে পারত। কিন্তু এখন আর তা সম্ভব হয় না। জঙ্গি ও নজরদারি বিমানে এখন থাকে উন্নত সেন্সর। ফলে ইঞ্জিনের তাপ ও মাটিতে চলার দাগ চিহ্নিত করে আকাশ থেকে ট্যাংকের অবস্থান নির্ধারণ করে তা ধ্বংস করা বেশ সহজ হয়ে গেছে। আবার অ্যান্টি–ট্যাংক মিসাইল ব্যবস্থাও অনেক উন্নত হয়েছে। ফলে ট্যাংক ধ্বংস করা এখন আর নিদারুণ কঠিন কোনো কাজ নয়। তাই চিন্তক প্রতিষ্ঠান রয়্যাল ইউনাইটেড সার্ভিসেস ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ নিক রেনল্ডস ও জ্যাক ওয়াটলিং মনে করেন, যুদ্ধের ময়দানে ট্যাংকের মতো ভারী বর্মের সাঁজোয়া যান ব্যবহারের যে ধারণা এখনো আছে, তার কার্যকারিতা নিয়ে সন্দেহ ওঠা অযৌক্তিক নয়। সংবাদমাধ্যম সিজিটিএনে প্রকাশিত এক নিবন্ধে বলা হয়েছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বিশেষ করে এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যে ট্যাংকের সাফল্য ছিল নজরকাড়া। কিন্তু এক শতক পর ট্যাংক নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। কারণ, বর্তমান সমরবিদ্যায় বিবর্তন আসছে। আর পরিবর্তনের সেই জোয়ারে ট্যাংক ভেসে যাচ্ছে। লন্ডনের ন্যাশনাল আর্মি মিউজিয়ামের সহকারী পরিচালক ইয়ান মেইন বলেন, আধুনিক যুদ্ধ এখন অনেক বদলে গেছে। ড্রোন এসেছে, এসেছে উন্নত ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা। ফলে যুদ্ধক্ষেত্রে ট্যাংকের একা একা যুদ্ধ করার কৌশল এখন খুব একটা কাজে আসছে না। যুদ্ধের পরিবেশের বৈচিত্র্য এ ক্ষেত্রে ট্যাংকের জন্য বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সব মিলিয়ে বলা যায়, ট্যাংকের ভবিষ্যৎপথ বেশ বন্ধুর। একসময় যে ছিল যুদ্ধের রাজা, সে-ই পড়েছে রাজ্যপাট হারানোর আশঙ্কায়। উল্টো শুরু হয়েছে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই। সেই লড়াইয়ে ট্যাংকের টিকে থাকা এখন নির্ভর করছে অনেক যদি-কিন্তুর ওপর।
  10. রাখাইনে সৈন্য সমাবেশ, মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব নিজস্ব প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম Published: 13 Sep 2020 10:45 PM BdST Updated: 13 Sep 2020 10:45 PM BdST রাখাইনে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশের সদস্যের সতর্ক অবস্থানের এই ছবি ২০১৭ সালের। ফাইল ছবি: রয়টার্স সীমান্তে মিয়ানমার সেনাদের সন্দেহজনক গতিবিধির মধ্যে ঢাকায় দেশটির রাষ্ট্রদূতকে তলব করল বাংলাদেশ। রোববার বিকালে রাষ্ট্রদূত অং কিউ মোয়েকে ডেকে পাঠানো হয় বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রণালয়ের মিয়ানমার উইংয়ের মহাপরিচালক দেলোয়ার হোসেন বলেন, “আমরা উনাকে ডেকেছিলাম এবং আমাদের উদ্বেগের কথা জানিয়েছি। বলেছি, তিনি যেন যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে আমাদের বার্তা পৌঁছে দেন।” বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সীমান্তে শুক্রবার ভোর থেকে মাছ ধরার ট্রলারে করে মিয়ানমারের সেনাদের সন্দেহজনক গতিবিধির খবর দেয় বিভিন্ন গণমাধ্যম। সীমান্ত এলাকায় কয়েকটি পয়েন্টে গত কয়েক দিনে মিয়ানমার সৈন্যদের উপস্থিতি দেখার কথা জানিয়েছেন স্থানীয়রা। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা ধারণা করছেন, রাখাইনের আরাকান আর্মির সঙ্গে যে সংঘাত চলমান, তার অংশ হিসাবে সৈন্যদের আসা-যাওয়া হতে পারে। সেখানে এমন সন্দেহজনক গতিবিধি ঘটলে বাংলাদেশের উদ্বেগের কারণ রয়েছে। তিন বছর আগে রাখাইনে সেনা অভিযানের পর দমন-পীড়নের মুখে লাখ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে আসে বাংলাদেশে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “রাখাইনে সংঘাত এলাকায় রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীও রয়েছে। সে কারণে আমাদের জন্য তা বেশ উদ্বেগের। আবার যদি কোনো কারণে রোহিঙ্গা ঢল নামে আমাদের চাপের উপর চাপ বাড়বে।” ২০১৭ সালের ২৫ অগাস্ট রাখাইনে সেনা অভিযান শুরুর পর কয়েক মাসের মধ্যে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়। আগে থেকে বাংলাদেশে ছিল আরও চার লাখ রোহিঙ্গা। আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যে মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে ২০১৭ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করলেও সেই প্রত্যাবাসন আজও শুরু হয়নি। গত বছর দু’দফায় প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও রাখাইন রাজ্যের পরিবেশ নিয়ে শঙ্কার কথা তুলে ধরে ফিরতে রাজি হননি রোহিঙ্গারা। রাখাইনে সৈন্য সমাবেশ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশের পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়ার বিষয়ও রাষ্ট্রদূতকে বলা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।
  11. 12 September, 2020 08:06:26 PM / LAST MODIFIED: 12 September, 2020 08:11:22 PM Work on 5-star hotel, amusement park begins at Nilgiri Staff Reporter, Dhaka The construction work of the 5-star Marriott Hotel and Amusement Park has begun in full swing at Nilgiri in Bandarban. The 24th Division and the 69th Brigade of Bangladesh Army, Army Welfare Trust and R&R Holdings Limited, a concern of Sikder Group, are jointly implementing the project, said a press release. According to the statement, once implemented, the project will be one of the best tourist attractions in Bangladesh. Besides the main hotel building, there will be 12 separate villas, modern cable cars to facilitate tourists’ travel from one hill to another. There will be various kinds of amusement facilities, including rides and swimming pools. Army Welfare Trust and R&R Holdings Limited signed a 35-year lease and profit-sharing agreement to implement the project at the exquisitely beautiful Nilgiri surrounded by hills. It is on the Chimbuk-Thanchi route and 47 kilometres southeast of Bandarban district town. Chairman of R&R Holdings Limited Rick Haque Sikder and Major Khairul of the 69th Brigade of Bangladesh Army visited the project site on Saturday. During the visit, Rick Haque Sikder said the project could be open for tourists within September next year. http://www.theindependentbd.com/post/253164
  12. 12 September, 2020 04:49:32 PM / LAST MODIFIED: 12 September, 2020 09:15:36 PM 3 more Differential GPS beacon stations for river dredging on cards ANISUR RAHMAN KHAN, Dhaka The government has planned to install three more Differential Global Positioning System (DGPS) beacon stations to conduct river dredging survey and navigation activities in the country in a tech savvy way. It would need Tk 75 crore (estimated) to procure only equipment excluding establishment costs and land acquisition for the base stations. The three new DGPS stations will be installed in Chandpur, Rajshahi and Rangpur, sources in the Bangladesh Inland Water Transport Authority (BIWTA) told this correspondent. Besides, three existing DGPS stations situated in Mymensingh, Chattogram and Jashore —will be renovated. A five-member feasibility study committee has been formed headed by Mehedi Hasan, superintendent engineer, hydrographic division of the BIWTA in this regard. “It is not covering the total areas through existing three DGPS. Total rivers will be under full coverage after installation the three new DGPS stations. It would help to prepare accurate chart for river dredging through proper survey report,” Mehedi Hasan told this correspondent while talking to The Independent on Thursday. He said it is needed to dredge the rivers round the year to maintain navigability. “The DGPS stations will be linked with the satellite. So, it would also help to operate ferries and water vessels smoothly. Besides, it would also help to reduce accidents in waterways,” Mehedi Hasan said in reply to a query. He said such DGPS beacon stations are very important to conduct hydrographic survey. “Now we are conducting a feasibility study in this regard. We have estimated Tk 25 crore for each DGPS beacon station only for procurement of equipment. Besides, more fund will be needed for land acquisition and construction purposes. We are now assessing the project and later will be possible to inform total cost,” he said to another query. Hasan said they are searching lands at Chandpur, Rajshahi and Rangpur to install the DGPS beacon stations. The existing three such stations are very old and it is needed to re-construct. Once the DGPS beacon stations are installed it would help to maintain the river’s channels properly maintaining accuracy of hydrographic survey through dredging, he added. http://www.theindependentbd.com/post/253152
  13. 13 September, 2020 12:29:19 PM Bangladesh tops in UN Peacekeeping Mission UNB, Dhaka Bangladesh has secured the top position among 118 countries in sending troops to the United Nations peacekeeping missions. The Inter-Service Public Relations (ISPR) Directorate disclosed the information through a press release on Saturday. Bangladesh regained the position by sending a 160-member Quick Reaction Force in the Central African Republic on July 17, it said. A total of 6,731 Bangladeshis are now employed in different peacekeeping missions of the United Nations. Bangladesh is followed by Ethiopia with 6,662 peacekeepers. In the Indian subcontinent, India has been in fifth place with 5,353 peacekeepers and Pakistan in sixth position with 4,440 peacekeeping members in the UN missions. http://www.theindependentbd.com/post/253187
  14. 02:23 PM, September 13, 2020 / LAST MODIFIED: 02:25 PM, September 13, 2020 PM to virtually inaugurate Bangladesh Chancery Complex in Ankara tomorrow UNB, Dhaka Photo courtesy: UNB Prime Minister Sheikh Hasina is scheduled to virtually inaugurate the newly-constructed Bangladesh Chancery Complex in Ankara tomorrow. Foreign Minister Dr AK Abdul Momen will join his Turkish counterpart Mevlut Cavusoglu at the inaugural ceremony there. Dr Momen left for Turkey this morning, a senior official told UNB. The foreign minister will hold bilateral talks with his Turkish counterpart on September 15, he said. Rohingya crisis, D-8 summit, trade and investment issues are expected to come up for discussion at the meeting. The foreign minister is scheduled to return home on September 16, said the official. The construction work of Bangladesh Chancery Complex in Ankara was completed on September 3 at the cost of Tk 45.76 crore Main features of the Complex include Chancery Building, Embassy Residence, 229 seat hi-tech auditorium named 'Victory 1971', automated mechanical and electrical systems, mosque, gymnasium, display centre for Bangladeshi items, library for reference books on Bangladesh primarily on Bangabandhu, War of Independence and socio-economic development of Bangladesh. As reflection of Bangladesh's history of independence, a bust of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman and Shaheed Minar were also installed at the complex, said the Ministry of Foreign Affairs. Moreover, 36 sqm mural works titled 'Invincible Bangladesh' as well as terracotta works on the rural life of Bangladesh were also placed at the Complex. Reflection of the aura of Bangladeshi architecture was ensured by the use of red bricks in the façade of the buildings and use of flat roof. A protocol between Bangladesh and Turkey on Exchange of Land Plots for Diplomatic Missions was signed in Dhaka at the Foreign Minister level on November 14, 2010. The protocol paved the way for acquisition of land plots mutually exchanged between the two countries for construction of diplomatic missions in their respective capitals. Later, in 2012, Prime Minister Sheikh Hasina laid the foundation stone for the 'Construction of Bangladesh Chancery Complex in Ankara' project and the bust of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman at the site at Oran Diplomatic Zone during her visit to Turkey in 2012. The implementation of the project received a renewed boost after M AllamaSiddiki, Ambassador of Bangladesh to Turkey and current Project Director, took charge of the Mission at the end of 2015, said the Bangladesh Embassy in Turkey. The ground breaking for the construction was done on September 18, 2018. Although construction was going on smoothly, work progress suffered heavily due to snowfalls in two winters and the current COVID-19 pandemic. Despite these hurdles, the Embassy could manage to complete the construction within 20 months of the ground breaking. Tk 2.26 crore was refunded by Bangladesh Embassy in Ankara at the successful completion of the construction project. https://www.thedailystar.net/world/news/pm-virtually-inaugurate-bangladesh-chancery-complex-ankara-tomorrow-1960537
  15. Earlier
  16. https://www.facebook.com/mofadhaka/posts/822751895132053?__cft__[0]=AZUzIhCcRUDPji3J-CHk1qVtxr14KoGRuihJwNeuwf6moo43tzATWRYR5iUML32jNzn5YBWSfJgzxJ6FTUWkfKj7QwKovviQiFCwXxd1PaKAfv0ilSM0hMRhgDx7DFOp7zGp6BPWq5c4PFPgk36blV-1I2CXXoiDG3cRJ8X-yVW08IjhmA1dfD_5ihdIg-c9Ke8&__tn__=%2CO%2CP-R
  17. BAF radar recently installed in Barisal, can it give assistance to civil aviation if needed ?
  18. 12:00 AM, September 02, 2020 / LAST MODIFIED: 01:13 AM, September 02, 2020 edotco deploys Bangladesh’s first hybrid solar-wind tower in Hatiya Star Business Desk Integrated telecom infrastructure services company edotco Bangladesh has built a 75-metre hybrid solar-wind tower in Hatiya, a remote cyclone-prone island located to the north of the Bay of Bengal, where no commercial power connection is available. The tower consists of an in-built green hybrid energy solution with a capacity to produce 42 kilowatts per day from 12-kilowatt solar panels and 6 kilowatt per day from 4-kilowatt wind turbines mounted on the tower to ensure round-the-clock power supply, keeping the telecom system operating throughout the year. The renewable energy solution not only helps decrease operating expenses by reducing diesel consumption and maintenance costs, but also reduces carbon emissions by up to 80 per cent, the company said in a statement. "As a socially responsible company, edotco implements initiatives in communities across the nation irrespective of their location or economic condition," said Ricky Steyn, country managing director of edotco Bangladesh. "Solutions like these allow us to bring connectivity to underprivileged communities who desperately need it for social empowerment. Aware of the community's needs, we aim to deliver solutions that are sustainable and can help improve the quality of livelihoods." This renewable energy solution is the first of its kind in Bangladesh, specially built to address connectivity needs in areas where the national electricity grid is unavailable, according to the statement. This initiative is a part of edotco's continuous efforts to ensure seamless connectivity throughout the nation by using alternative energy solutions to power telecom towers through the deployment of innovative, sustainable and energy-efficient solutions. The hybrid system has vertical axis wind turbines to take wind from 360 degrees and it is scalable to user defined energy needs, the company said. The environment-friendly system is equipped with the facility to operate silently is also easy to assemble and maintain and requires minimal maintenance support, according to the statement. The wind tower is established not only in line with the company's commitment to champion sustainable energy but also in support of the nation's vision to ensure that seamless connectivity is available both in urban and rural communities, Steyn said. "We understand how connecting rural communities is integral in meeting the country's digital vision and are committed to being nation building partners. "We are committed to reducing our impact on the environment and building sustainable infrastructure that is efficient and environmentally-friendly," said Ir Kumari Nalini, edotco Group's director of engineering and technology. "Wherever possible, our towers use the national grid as the main energy source but for countries where this is a challenge, renewable energy is a viable solution and we work with various stakeholders within each of our footprint countries to make this option available." A similar solution was deployed in four sites across Myanmar last year, Nalini said. The engineering teams worked together to adopt the learnings from Myanmar and bring a better, improved solution to the site in Hatiya, she added. "Bangladesh has been home to a few firsts for edotco over the years, and we look forward to bringing and creating more innovations for and by the people." Established in 2012, edotco Group is the first regional and integrated telecommunications infrastructure service company in Asia, providing end-to-end solutions in the tower services sector from tower leasing, co-locations, build-to-suit, energy, transmission and operations and maintenance. The group operates and manages a regional portfolio of over 31,820 towers across scores of markets in Malaysia, Myanmar, Bangladesh, Cambodia, Sri Lanka, Laos, Philippines and Pakistan with 20,230 towers being directly operated by edotco. In Bangladesh, edotco currently owns and operates over 10,000 telecom towers. https://www.thedailystar.net/business/news/edotco-deploys-bangladeshs-first-hybrid-solar-wind-tower-hatiya-1954465
  19. 12:00 AM, September 02, 2020 / LAST MODIFIED: 12:24 AM, September 02, 2020 Air Traffic Control: New radar to usher in a new era Purchase deal likely to be finalised in a couple of months Shariful Islam The purchase deal of a state-of-the-art radar system, long overdue for safe aircraft navigation and control of air traffic through the country's airspace, is expected to be finalised in a couple of months. The ultra-modern radar will enhance the country's airspace safety, ensure safe landing of aircraft in adverse weather and improve the communication system which is now very weak. The Civil Aviation Authority of Bangladesh (Caab) recently issued a letter requesting the French government to authorise the radar-maker Thales to supply the long-range sophisticated radar, said a top Caab official. The radar costing between Tk 600 to Tk 700 crore will be purchased following a government-to-government (G2G) deal. First a memorandum of understanding (MOU) will be signed with the French government on authorising Thales. Then Bangladesh will negotiate with the company, and an inter-ministerial committee has already been formed for this, added the official. "The purchase of the radar was under process for quite a long time. Now it has reached a matured stage," Caab Chairman Air Vice Marshal M Mafidur Rahman told The Daily Star recently. He further said it may take around three years to install the new radar in Dhaka and fully implement the system which will enhance Caab's capacity to control air traffic communications with any commercial aircraft flying over Bangladesh. The country now has two radars -- at the international airports in Dhaka and Chittagong. These age-old radars have serious dearth of capacity to ensure surveillance of the airspace which has now expanded significantly with Bangladesh winning the maritime disputes with Myanmar and India. "A number of air routes are passing through the country's south airspace. As the existing radar systems cannot control commercial air traffic on the routes, India is now providing the service," said the Caab chairman. However, Bangladesh gets a share of revenue that India earns from the service. "Once the new radar system is installed, our control will be established and we will earn a good amount from services to aircraft flying through the routes in the south," said Mafidur Rahman. Bangladesh has hardly any control over its vast airspace as the existing radar in Dhaka is 36-year-old and has gone through modification several times. The other radar in Chattogram is also very old. With these, the communication system can go out of order anytime, Caab officials said. The radar in Dhaka can communicate 200 nautical miles and able to see aircraft within 100 nautical miles. The one in Chattogram can detect aircraft far at 240 nautical miles and its communication capacity is a bit more. The new radar will be connected through integrated networking system, covering the entire airspace up to the sea boundary. The technical specification of the new radar has already been completed with the support of ICAO's technical cooperation bureau specialist. The Caab took initiatives to replace the old radar in Dhaka in 2005. In 2012, a company proposed to install the radar at Tk 330 crore under the public-private partnership. After all formalities, tender was floated and four companies took part in the bidding in 2015. Caab primarily selected a company and sent the proposal to the ministry for final approval, but the ministry rejected it as it showed unusual expenditure. Then again in September 2018 initiative was taken as per the order of Prime Minister's Office to make the purchase under the project titled "Communications, Navigation and Surveillance/ Air Traffic Management (CNS/ATM)" under G2G process. https://www.thedailystar.net/backpage/news/air-traffic-control-new-radar-usher-new-era-1954337
  20. বাংলাদেশ-ভারত–চীন সম্পর্কে মোড় পরিবর্তনের সময় এল কি বাংলাদেশের সামনে আঞ্চলিক রাজনীতির চ্যালেঞ্জটি অনেক বড়। তবে মোকাবিলাযোগ্য। রাজনীতিবিদেরা সেই অসম্ভবের শিল্পকলা জানেন। আলতাফ পারভেজ প্রকাশ: ১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৫১ অ+অ- বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং আজকাল অনেক ভাষ্যকারের কলমেই বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কের আলোচনা শুরু হয় ১৯৭৬ সাল থেকে। কিন্তু পূর্ব বাংলার প্রধান রাজনীতিবিদদের অন্তত দুজন একাধিকবার গণচীন সফর করেছেন ১৯৭০ সালের আগেই। আবার বাংলাদেশে তরুণদের একাংশের মধ্যে মাও সে তুংয়ের রাজনৈতিক আদর্শের চর্চার শুরু তারও আগে থেকে। যেকোনো দুটি জনপদের সম্পর্ক অবশ্যই দূতাবাস খোলার চেয়েও বেশি কিছু। চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষের রাজনৈতিক পরিচয়ের শুরুও ১৯৭৬ সালের জানুয়ারির আগেই। ১৯৬৭ সালে মাওলানা ভাসানীকে দেওয়া মাও সে তুংয়ের ট্রাক্টরটি পারস্পরিক ওই পরিচয়ের প্রতীকীচিহ্ন হয়ে টাঙ্গাইলে এখনো টিকে আছে। বঙ্গবন্ধুর ১৯৫২ সালের চীন সফরের বিস্তারিত বিবরণও বেশ মনোযোগ কেড়েছে সম্প্রতি। এসব সফর কোনো সাধারণ ভ্রমণ ছিল না; বরং দুই জনপদের সর্বোচ্চ পর্যায়ের নেতাদের দেখা-সাক্ষাৎ হয়েছিল তাতে। ছয়-সাত দশকের পরিক্রমা শেষে বাংলার সঙ্গে চীনের সেই সম্পর্ক আজ নতুন এক সন্ধিক্ষণে উপস্থিত। সেই তুলনায় ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্ধন অবশ্যই আরও পুরোনো, ঐতিহাসিক ও বহুমাত্রিক। বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ইতিহাসের প্রায় প্রতি অধ্যায়ে ভারতীয় ছোঁয়া আছে। তার চিরদিনের সাক্ষী হয়ে আছেন খোদ রবীন্দ্রনাথ-নজরুল। কিন্তু এ সম্পর্কের গাঁথুনিতে হঠাৎ কোথাও যেন টান পড়েছে। অচেনা এই কম্পনের উৎস খুঁজতে গিয়ে কেউ পাচ্ছেন আগ্রাসী এক ড্রাগনের ছায়া, কেউ দেখছেন মধ্যম আয়ের দেশে পৌঁছার প্রয়োজনীয় সিঁড়ি। বিজ্ঞাপন প্রচারমাধ্যমের ভুল বার্তা বাংলাদেশ-ভারত-চীন সম্পর্ক নিয়ে ধারাভাষ্যকারদের নাটকীয় লেখালেখি বিশেষ গতি পেয়েছে গত ১৮ আগস্ট ভারতের পররাষ্ট্রসচিবের বাংলাদেশ সফরে। হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা কেন এলেন, আনুষ্ঠানিক বৈঠকের ছায়ায় অনানুষ্ঠানিক আলাপে কী আদান-প্রদান হলো, তার সামান্যই জানা গেছে। আবার যতটুকু জানা গেল, সেই তুলনায় গল্পগুজব তৈরি হলো শতগুণ বেশি। অথচ আরেকটু পেছনে ফিরে তাকালেই আমরা দেখব ২০১৩ সালে চীন যখন বিআরআই প্রকল্পে সবাইকে আহ্বান করে, ভারত তখনই ঘোষণা করে ‘প্রতিবেশী প্রথম’ নীতি। অর্থাৎ ঢাকার সামনে ভূরাজনীতির নাটকীয়তা হর্ষ বর্ধন শ্রিংলার এই সফরের বহু আগেই তৈরি হয়ে আছে। বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জটি আসলে অন্য রকম। চীন-ভারত উভয়ের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্যিক ভারসাম্যহীনতা প্রায় ২০ বিলিয়ন ডলার। ডলার গুনতে আগ্রহী যেকোনো সরকার এই অবস্থা বদলাতে চাইবে। কিন্তু পত্রিকাগুলো মনোযোগ সরাতে চাইছে অন্যদিকে, যা জনগণকে ভুল বার্তা দেয় এবং সরকারের জন্য মানসিক চাপ বাড়ায়। একতরফা ভালোবাসায় সম্পর্ক গভীরতা পায় না ভারতে যদি এই প্রশ্ন তোলা হয়, নিকট প্রতিবেশী কোন দেশে তাদের প্রভাব এ মুহূর্তে বেশি, নিঃসন্দেহে তাতে এক-দুটি নামের মধ্যেই বাংলাদেশ থাকবে। এখানে রাজনীতির পাশাপাশি সংস্কৃতির পরিসরেও তাদের গর্ব করার মতো প্রভাবের পরিসর আছে। হিন্দির উপস্থিতি আজ শ্রেণিনির্বিশেষে ঘরে ঘরে। বইয়ের দোকানগুলোয় দেশের বই ছাপিয়ে আছে ভারতীয় প্রকাশনা। আন্তর্জাতিক সম্পর্কের একাংশ যদি হয় বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের সাংস্কৃতিক যোগাযোগ, একমাত্র ভারতীয়দের সঙ্গেই বাংলাদেশিদের সেটা কিছুটা আছে। মুক্তিযুদ্ধে সমর্থন ও সহায়তা সেই যোগাযোগের ভিত্তি হয়ে আছে। স্বর্ণালি সেই ঐতিহ্যে ভারতীয়রা আজ আর পুরো ভরসা রাখতে পারছে না বলেই মনে হয়। দেশটির সংবাদমাধ্যমের সাম্প্রতিক ভাষ্যগুলোয় সেই মনোজাগতিক সংকটের ছাপ মেলে হামেশা। বিজ্ঞাপন সেই তুলনায় চীনের ভাষা-সাহিত্য-মুভির প্রভাব ঢাকায় বিরল। চীনপন্থী দল-উপদল-গণসংগঠন বলে এখন আর স্পষ্ট কিছু নেই এখানে। আমাদের সাহিত্যে কলকাতার মতো ঐতিহাসিক কোনো চীনা ভরকেন্দ্র নেই। ইট-সিমেন্ট-বালু-রডের গাঁথুনি এবং মাওবাদ ছাড়া বেইজিং বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে বিশেষ কিছু দিতে পারেনি এখনো। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের ক্ষেত্রেও চীন থেকে আমরা ভবিষ্যতে ঠিক কী নিতে পারব, বলা মুশকিল। সঙ্গে রয়েছে জাতিসংঘে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভেটো ক্ষমতা প্রয়োগের তিক্ত স্মৃতি। অথচ এর বিপরীতে তুলনা করা যায় মুক্তিযুদ্ধে আহত-নিহত ভারতীয় যোদ্ধাদের অবদানের কথা, শরণার্থীদের প্রতি আসাম-ত্রিপুরা-পশ্চিমবঙ্গের মানুষের সহমর্মিতার স্মৃতি। যুদ্ধোত্তর দিনগুলোতেও ভারত অবশ্যই নবীন রাষ্ট্রে বড় ভরসা ছিল। আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই সম্পর্ককে ‘রক্তের বন্ধন’ বলে ভুল বলেননি। গত দশকে স্থল ও সমুদ্রসীমানা নিয়ে বোঝাপড়ায় সামান্য অপূর্ণতাসহ অনেকখানি ঝামেলা মেটানো গেছে দুই দেশের মধ্যে। কোভিডের আগ পর্যন্ত ভারতে বাংলাদেশের রপ্তানিও বেড়েছে কিছু। দুই প্রতিবেশীর মধ্যে এসব গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি। ভারতের ভিসা পাওয়ার ব্যবস্থাপনায়ও বড় ধরনের সংস্কার ঘটেছে। বাংলাদেশিদের বছরে প্রায় ১৫ লাখ সফর হয় ভারতে। ভিসা ব্যবস্থাপনার সংস্কারে লাভবান হয়েছে উভয় পক্ষ। তবে ভারত যে সময় যতটা দিয়েছে, ঢাকার প্রতিদান ছিল বহুগুণ বেশি। সম্প্রতি চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য খালাসে ভারত যে অগ্রাধিকার পেল, ভারতীয় ভাষ্যকারদের কলমে তার কিন্তু কোনো প্রশংসা পাওয়া গেল না। এর আগে উত্তর-পূর্ব ভারতের অর্থনীতির সহায়তায় নিজের সীমানা দিয়ে স্থল ও নৌপথে সর্বাত্মক যোগাযোগ সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশ। একই অঞ্চলের নিরাপত্তাসংকট সামলাতেও ভারতের চাওয়া পূরণ হয়েছে। নয়াদিল্লির বড় প্রত্যাশা ছিল এসব। বন্ধুত্বকে অর্থবহ করতে বাংলাদেশ তা মিটিয়েছে। এভাবে ১৯৭১-পরবর্তী বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের অডিট করলে বাংলাদেশের আন্তরিকতার ছাপই বেশি নজরে পড়ে। কিন্তু ছোট প্রতিবেশীকেই কেন বেশি দিতে হবে? কেন ভুলে যাব, ইতিহাসে কোনো নিবেদনই চিরস্থায়ী নয়। আন্তরাষ্ট্রীয় সম্পর্কে বন্ধুত্ব ও দূরত্বও স্থায়ী কিছু নয়। একতরফা ভালোবাসায় সম্পর্ক গভীরতা পায় না। পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে নির্বাচনকালে বাংলাদেশবিরোধী যেসব কদাকার প্রচারণা চলে, তার ওপর দাঁড়িয়ে বন্ধুত্বকে গভীরতা দেওয়া দুরূহও বটে। এসব রাজনৈতিক প্রচারণা বাংলাভাষীদের মনস্তত্ত্বকে ১৯৪৭ পেরিয়ে সামনে এগোতে দিচ্ছে না। গুজরাল-ডকট্রিন থেকে বহুদূর সরে গেছে সম্পর্কের লক্ষ্মণরেখা। আন্তনদী সংযোগ প্রকল্পগুলো যে বাংলাদেশের হৃদয়ে কতটা উদ্বেগ তৈরি করেছে, ভারতের হৃদয় তা কতটা বুঝতে চেয়েছে? ‘বাংলাদেশিরা হলো উইপোকার মতো’—এমন অভিধার জন্যও সীমান্তের ওপার থেকে কেউ দুঃখ প্রকাশ করেনি। ধারাবাহিক এসব দূরত্ব ও বন্ধ্যত্বের মধ্যেই চীনের আবির্ভাব। বিজ্ঞাপন চীন দুনিয়াজুড়ে এখন শিষ্য খুঁজছে চীন অনেক ধৈর্য ধরে ধরে ইটের পর ইট গেঁথে ঢাকা-বেইজিং সম্পর্ককে আজকের অবস্থানে এনেছে। একাত্তর থেকে ছিয়াত্তর পর্যন্ত তারা পিছিয়ে পড়েছিল। দুর্দান্ত মনোযোগে তারা সেই দূরত্ব গুছিয়েছে। রাজনৈতিক দল, ভাবাদর্শ, সংগীত, চিত্রকলা, ছাত্রবৃত্তিকে তারা কমই ব্যবহার করেছে বাংলাদেশ জয় করতে। বরং শক্তপোক্ত এক অর্থনৈতিক-সামরিক ভরসা হয়ে ক্রমে তারা বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের গরিমায় সাহায্য করেছে। দক্ষিণবঙ্গের বেকুটিয়ায় নির্মাণাধীন সেতুটিসহ আটটি গুরুত্বপূর্ণ সেতু বানাতে সহায়তা দিয়ে বেইজিং শুরু থেকে বার্তা দিচ্ছিল তারা নতুন বাংলাদেশের (উন্নয়ন) ক্ষুধা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। চীনের এই বোঝাপড়া নিঃসন্দেহে কলকাতা-গুয়াহাটি-আগরতলা থেকে আসা কবিতা-গান-নাটক-সিনেমাকেন্দ্রিক ভাবাবেগের চেয়ে বেশি কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। পদ্মা সেতুর রেললাইন কিংবা কর্ণফুলীর টানেলে যুক্ত হয়ে চীন বাংলাদেশের কাছে বন্ধুত্বের নতুন মানে দিয়েছে। ৩০০ থেকে ৪০০ বিলিয়ন ডলারের অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে বাংলাদেশের জন্য চীনের অনুদান বিপুল, ঋণ বিপুল এবং অঙ্গীকার আরও বিপুল। বাংলাদেশের হৃদয়েও এখন বদলে যাওয়ার বিপুল ক্ষুধা। ২০১৬ সালের ২৪ বিলিয়ন ডলারের ক্রেডিট লাইন একটা ক্ষুদ্র সূচনামাত্র, যদি আমরা সামনের দিকে তাকাতে শিখি। এমনকি ভারতের ৭ বিলিয়ন ঋণের অঙ্কও না বাড়ারও কারণ নেই। বাংলাদেশে বেইজিংয়ের এই অগ্রযাত্রায় ভারতের আপত্তি নেই। আপত্তির সুযোগও ছিল না। বাংলাদেশে চীনের গড়া প্রতিটি অবকাঠামো থেকে পরোক্ষে ভারতীয় অর্থনীতিও লাভবান। সমৃদ্ধ বাংলাদেশের অন্যতম সুবিধাভোগী কলকাতার নিউমার্কেট থেকে ভেলোরের হাসপাতালগুলোও। চীনের অবকাঠামোগত অবদান আন্তর্জাতিক পরিসরে বাংলাদেশের কাছে রাজনৈতিক সহযোগিতার প্রত্যাশা করতে পারে। এটা অস্বাভাবিক নয়। নয়াদিল্লির দিক থেকে বন্ধুত্ব হারানোর কল্পিত উদ্বেগের শুরু হয়তো এখান থেকেই; যে বন্ধুত্ব হয়তো স্থায়ী বলে ধরে নেওয়া হয়েছিল কিংবা যে বন্ধুত্বকে ভুল করে কেউ আনুগত্য ভেবেছেন। সাম্প্রতিক ভারতীয় ধারাভাষ্যকারদের প্রত্যাশার সোজাসাপ্টা মানে হলো বাংলাদেশ যত ইচ্ছা চীনা অর্থনৈতিক সহায়তা নিক, রাজনৈতিক আধিপত্যে নয়াদিল্লির আবেগের মর্যাদা দিয়ে চলুক এবং চীনের সঙ্গে সামরিক সম্পর্কও এড়িয়ে চলুক। কিন্তু প্রায় ২০০ মিলিয়ন ডলার দিয়ে সাবমেরিন কিনে বাংলাদেশে মৃদুভাবে জানিয়েছে, নিরাপত্তা ইস্যুতেও তাকে এখন স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নিতে শিখতে হবে। অন্তত রোহিঙ্গা-অধ্যায়ের পর বাংলাদেশ কীভাবে আর তার সামরিক শক্তি-সামর্থ্য না বাড়িয়ে থাকতে পারে? আবার ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক পরিসরে চীনও ‘পরাশক্তি’ হিসেবে দাঁড়িয়ে গেছে। অভূতপূর্ব এক আগ্রাসী কূটনীতির মাধ্যমে নিজের অভিলাষের কথা জানাচ্ছে তারা দুনিয়াজুড়ে। বিজ্ঞাপন যেকোনো নেতারই কিছু শিষ্য দরকার হয়। চীন দুনিয়াজুড়ে এখন শিষ্য খুঁজছে। মধ্য আয়ের দেশের চলতি পর্যায় পেরোতে বাংলাদেশের সবল-সুঠাম-উচ্চাকাঙ্ক্ষী চীনকে দরকার আছে কি না সেটা ঢাকার নীতিনির্ধারকদেরই সিদ্ধান্ত নিতে দিতে হবে। এ সত্যে আঁতকে ওঠার কিছু নেই—চীন ভারতের চারপাশে প্রভাববলয় বাড়াচ্ছে। বাংলাদেশের বিষয়েও তারা নিরাসক্ত নয়। বিশ্বের সব পরাশক্তি অতীতে আধিপত্য কায়েম করেছে। ভারতসহ অন্য যারা ভবিষ্যতে পরাশক্তি হতে চাইবে, তাদেরও এভাবেই চারদিকে ‘বিনিয়োগ’ বাড়িয়ে যেতে হবে। নেতৃত্ব সব সময় দাপট দাবি করে; সঙ্গে উদারতাও। ৯৭ ভাগ বাংলাদেশি পণ্যকে ট্যারিফ ছাড় দিয়ে চীন সর্বশেষ উদারতা দেখাল। এখন হয়তো ঢাকার কিছু দেওয়ার পালা। তারপরও ভারত বাংলাদেশের জন্য এক মুখ্য বিবেচনা বাংলাদেশ নিয়ে চীন-ভারতের আগ্রহকে ঢাকায় ইতিবাচকভাবেই দেখা উচিত এবং সম্ভবত এখনো তা-ই ঘটছে। চীন-ভারত উভয়ের সঙ্গেই বাণিজ্যের আয়তন ক্রমে বাড়ছে। অন্তত সাম্প্রতিক কোনো বছরই কমেনি। তবে সব সময় ভারসাম্য রক্ষা সহজ নয়। হয়তো প্রয়োজনও নেই এবং লাদাখ সংঘাতের পর সেটা দুরূহ বটে। রংপুরের মতো প্রায় প্রান্তিক অঞ্চলে তিস্তাকে উপলক্ষ করে প্রায় এক বিলিয়ন ডলার পাওয়ার দৃশ্য বলছে, আসন্ন ভূরাজনীতি বাংলাদেশের জন্য সাহায্য-সহযোগিতা-বিনিয়োগের নতুন তরঙ্গ নিয়ে আসতে পারে। বছরে ২০ লাখ তরুণকে কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিতে হলে অর্থনীতিতে যেভাবে প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রাখতে হবে, তাতে ওই তরঙ্গে নৌকা ভাসানো ছাড়া বিকল্প কী? তবে অসুবিধার দিকও আছে। দেশের জন্য ঋণের ফাঁদ এবং দুর্নীতির সংস্কৃতি জোরদার হতে পারে এতে। দেশি-বিদেশি সম্পদ কীভাবে খরচ হয় বা হওয়া উচিত, এ নিয়ে গণনজরদারির সঠিক ব্যবস্থা গড়া যায়নি আজও। বাড়তি অর্থ মানেই দুর্নীতির বাড়তি শঙ্কা তৈরি করে। ঋণখেলাপি হয়ে পড়া এবং সম্পদ পাচার তথাকথিত উদ্যোক্তাদের যে মজা এনে দিয়েছে, তাতে চীনকে তাঁরা ভবিষ্যৎ-বান্ধব হিসেবে দেখতে পারেন। পাশাপাশি মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তদের মধ্যেও চীনের দুর্নাম কম। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতিতে চীন কখনোই মোটাদাগে হস্তক্ষেপ করেনি। আবার উইঘুরের মুসলমানদের দুর্দশার গল্পগুলো এখনো কাশ্মীর বা আসামের মুসলমানদের মতো মনোযোগ পায়নি; বাবরি মসজিদের মতো তো নয়ই। এ রকম একটা রিপোর্ট-কার্ড আঞ্চলিক সুনাম-দুর্নামে চীনকে এগিয়ে রেখেছে। পক্ষান্তরে নয়াদিল্লির নীতিনির্ধারকেরা কেন আজও বাংলাদেশ সীমান্তে বেসামরিক মানুষের রক্তঝরা বন্ধ করতে পারলেন না, তা দুঃখজনক। বন্ধুত্ব এবং রক্তপাত একদম বিপরীতমুখী। সার্ক না থাকায় সে কথা বলারও জায়গা নেই। সবকিছু চূড়ান্ত হওয়ার পরও তিস্তার প্রবাহ নিয়ে চুক্তি না হওয়ায় কী বার্তা পেল বাংলাদেশের মানুষ? ৫৪টি আন্তনদীর দু–চারটির পানি নিয়েও কেন উভয় দেশ সমঝোতা করে উঠতে পারল না গত পাঁচ দশকে, তা বিস্ময়কর। গ্রীষ্মে শুকিয়ে থাকা নদীগুলোর দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশিদের যে বোবা ক্ষোভ হয়, তা বন্ধুত্বের অতীত দিয়ে কত আর মিটমাট করা যায়। এমনকি, ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিতর্কে বাংলাদেশের দিকে অঙ্গুলিনির্দেশও ঢাকার পক্ষে মেনে নেওয়া শক্ত, বিশেষ করে যখন মেঠো বাস্তবতায় তার সমর্থন দুর্লভ। তারপরও ভারত বাংলাদেশের জন্য এক মুখ্য বিবেচনা। চার হাজার কিলোমিটারের চেয়েও দীর্ঘ সীমান্ত উভয়ের। এ সত্য অগ্রাহ্য করা যায় না। ভবিষ্যতে এ সম্পর্ক আরও বেশি মনোযোগ ও যত্ন দাবি করতে পারে। কারণ, যুক্তরাষ্ট্র ভারতের বিশেষ বন্ধু এখন। আবার যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের বড় বাজারও। বড় বিনিয়োগ পেতে গিয়ে বড় বাজার হারানোর ঝুঁকি নেওয়া যায় না। বিজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জটি অনেক বড়, তবে মোকাবিলাযোগ্য চীনকে নিয়ে ভাবতে বসে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আরব আমিরাত ও সৌদি আরবের সাম্প্রতিক উদীয়মান মৈত্রীও বাংলাদেশ অগ্রাহ্য করতে পারে না। বিশেষ করে যখন তুরস্ক ও ইরানের সঙ্গে ঢাকার সম্পর্কে অর্থনৈতিক গভীরতা বেশি নয়। তবে বাংলাদেশের বন্ধুত্ব ফিরে পেতে পাকিস্তানের পুনঃপুন আগ্রহ বাংলাদেশের বাজারমূল্য বাড়াচ্ছে বৈকি। যেকোনো সরকারকে পূর্বাপর ভেবেই সিদ্ধান্ত নিতে হয়। আসামে প্রায় ২০ লাখ বাংলাভাষী হিন্দু-মুসলমান ‘বাংলাদেশি’ পরিচয়ের এক রহস্যময় রাজনীতির করুণ শিকার হয়ে আছে। পশ্চিমবঙ্গেও তথাকথিত বাংলাদেশি অনুপ্রবেশের রাজনীতি সরব। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি এবং সাম্প্রদায়িক সৌহার্দ্যের চলতি মাত্রার সঙ্গে এসব অনুপ্রবেশের ‘গল্প’ বেমানান হলেও আঞ্চলিক ভূরাজনীতি থেকে বিচ্ছিন্ন বিষয় নয় পশ্চিম-উত্তর সীমান্তের এই দুই দৃশ্য। একই রকমভাবে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানও কোনোভাবেই চীনকে অসন্তুষ্ট করে সম্ভব নয়। বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান এখন পর্যন্ত স্বচ্ছ। কোনো রকম ছদ্মযুদ্ধে নেই ঢাকা। কিন্তু আমাদের আরও বহুদূর এগোতে হবে। দুঃখজনক হলো আঞ্চলিক টানাপোড়েনে বাংলাদেশের জন্য এসব শুভ-অশুভ সংকেত নিয়ে কেবল সরকারকে একাকী সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। ‘জাতীয় ইস্যু’তে ‘জাতীয় ঐকমত্য’ চিরদিনই অধরা এ দেশে। স্থানীয় রাজনৈতিক দলগুলোর এসব নিয়ে ভাবনাচিন্তার প্রকাশ্য কোনো চেষ্টাই নেই। জনগণের তরফেও মতামত প্রকাশের কাঠামো নেই। ভূরাজনীতিতে ঐতিহাসিক মোড় পরিবর্তনের এই মুহূর্তে বাংলাদেশের নাগরিকেরা কেবল দর্শকের ভূমিকাতেই থাকছেন আপাতত। ছায়া-পররাষ্ট্রমন্ত্রীর রেওয়াজ এ দেশে বরাবরই অনুপস্থিত। কোনো দল ভূরাজনীতি নিয়ে ইদানীং কোনো সভা-সেমিনার-বৈঠক করেছে বলে দেখা যায় না। অথচ এ রকম কথাবার্তার মধ্যেই জাতীয় আকাঙ্ক্ষার হদিস মিলত। এ রকম আলোচনায় চীন-ভারতের প্রতিনিধিদের কাছে আমরা রোহিঙ্গা সংকটে তাদের নিষ্ক্রিয়তার ব্যাখ্যা শুনতে পারতাম। তবে আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে অভিমান আর স্থবিরতার মূল্য নেই। বাংলাদেশ গভীর সমুদ্রবন্দর বানাতে না দিলেও পাকিস্তান, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কায় চীন ইতিমধ্যে সেটা বানিয়েছে এবং বাংলাদেশের ওপর অভিমান করে বসে নেই। বাংলাদেশ একই উপকূলে অন্য দেশকে রাডার সিস্টেম বসাতে দিলেও চীন হয়তো অভিমান করে বসে থাকবে না। ইতিবাচক কূটনীতির ধরনই আজকাল এ রকম। বাংলাদেশকেও একইভাবে চলতি নতুন ঐতিহাসিক মুহূর্তটিকে হাতের মুঠোয় নিতে হবে। এ চ্যালেঞ্জে জনগণকে যতটা সম্পৃক্ত করা যাবে, ততই সিদ্ধান্ত নেওয়া সহজ হতে পারে। খেয়াল করলে দেখা যায়, মানচিত্রে ঢাকা-নয়াদিল্লি-বেইজিংয়ের মধ্যে রেখা টানলে একটা ত্রিভুজ তৈরি হয়। সেটা বিষমবাহু ত্রিভুজ। এ রকম ত্রিভুজের বাহু, মধ্যমা, কোণ, লম্ব—সবই অসমান। বাহুর দৈর্ঘ্য জানা থাকলেই কেবল বিষমবাহু ত্রিভুজের ক্ষেত্রফল নির্ণয় করা যায়। বাংলাদেশের সামনে চ্যালেঞ্জটি তাই অনেক বড়। তবে মোকাবিলাযোগ্য। রাজনীতিবিদেরা সেই অসম্ভবের শিল্পকলা জানেন। আলতাফ পারভেজ: দক্ষিণ এশিয়ার ইতিহাস বিষয়ে গবেষক
  21. https://www.berichbd.com/ It is an online brokerage house. Please visit their website.
  22. 02:34 PM, August 31, 2020 / LAST MODIFIED: 02:45 PM, August 31, 2020 Bangladesh Railway, Chinese joint-venture firm sign contract for 125 luggage vans Star Online Report Mizanur Rahman Yang Bing sign a contract on behalf of their respective sides at Dhaka's Rail Bhaban, in presence of Railways Minister Nurul Islam Sujan on Monday, August 31, 2020. Photo: Collected Bangladesh Railway (BR) today signed a contract with a Chinese joint-venture firm to procure 125 railway luggage vans to boost transportation of agro-based products. Under the contract, the joint venture firm of CNTIC-RAIL TECO-JINXI will supply 75 meter-gauge and 50 broad-gauge luggage vans at a cost of Tk 358.39 crore. The firm will complete supplying the luggage vans in between 20 and 24 months from the effective date of the contract, and commissioning work will be completed within 27 months. The luggage vans are being procured under the project titled "Rolling Stock Operation Improvement Project (Rolling Stock Procurement)" assisted by the Asian Development Bank. Mizanur Rahman, the project director, and Yang Bing, deputy general manager of CNTIC, signed the contract on behalf of the respective sides at the capital's Rail Bhaban, in presence of Railways Minister Nurul Islam Sujan. https://www.thedailystar.net/country/news/bangladesh-railway-chinese-joint-venture-firm-sign-contract-125-luggage-vans-1953537
  23. 12:00 AM, August 30, 2020 / LAST MODIFIED: 02:05 AM, August 30, 2020 Australian biotech firm to set API plant at BSMSN for $30m Jagaran Chakma Australian biotechnology company HA TECH will invest up to $80 million, or roughly Tk 700 crore, to establish a large-scale active pharmaceutical ingredient (API) manufacturing facility in Bangladesh that could help the country meet its growing demand. "We aim to fulfil the demand for quality APIs in Bangladesh," Abdullah Al Mahmud, executive chairman of HA TECH, told The Daily Star. Initially, the Sydney-based company, which produces APIs mainly for cardiovascular, diabetic, ulcer and oncology applications, will invest $30 million to develop the facility. But within the next five years, the total investment could reach $80 million if the company wants to increase the product range. There are about 10 local companies, including Eskayef, Square, Beacon and Beximco, that produce API materials on a limited scale, according to SM Shafiuzzaman, secretary general of Bangladesh Association of Pharmaceutical Industries (BAPI), a collective of about 250 local drug markers. Local production can at best meet 5 or 6 per cent of the annual demand from the pharmaceutical sector, which has only grown in stature with the onset of the coronavirus pandemic, according to Monjurul Alam, director for global business development at Beacon Pharmaceuticals. Subsequently, Bangladesh spends about $1.3 billion each year to import APIs from the US, Taiwan, Italy, Germany, Spain, Switzerland, France and the UK. Development works for HA TECH's upcoming state-of-the-art good manufacturing practice (GMP) facility spanning 10 acres on at the Bangabandhu Sheikh Mujib Shilpa Nagar (BSMSN) will begin in January, said Paban Chowdhury, executive chairman of the Bangladesh Economic Zones Authority (BEZA). HA TECH and BEZA signed the land lease agreement on 25 August. The facility is expected to go into full operation by sometime next year. Securing more foreign direct investment (FDI) for the country's Tk 22,000 crore-pharmaceutical industry, particularly API manufacturing, is crucial for propping up the sector, Chowdhury said. About 98 per cent of the annual domestic demand for pharmaceutical products is met by BAPI members. After meeting the local demand, the products are shipped to 144 different countries. Pharmaceutical shipments rose 4.5 per cent year-on-year to $136 million in fiscal 2019-20 following improvements in product quality and policy support. The National Board of Revenue recently declared that imports of API products, pharmaceutical raw materials and reagents would be exempt of VAT until 2025 in a bid to boost the sector. However, the tax authority also imposed a condition on API producers that require them to spend at least 1 per cent of their annual turnover on research and development projects for them to avail the benefit. The minimum value-addition should be 60 per cent. "Our pharmaceutical sector will contribute to export diversification. Therefore, BEZA always welcomes API manufacturers at economic zones and is ready to roll out the red carpet, if needed," he added. There is a huge potential to invest in API manufacturing in Bangladesh, said Beacon Pharma's Alam. The reason being, the pharmaceutical sector is expected to grow 15 per cent year-on-year to reach $5.1 billion by 2023, propelled by investments from local companies that seek to grab a bigger share of the global market, according to an estimate. Mahmud though is buoyant that HA TECH's facility will become a manufacturing hub for a range of finished pharmaceutical products as well. This includes nucleic acid drugs that use oligonucleotide, which is one of the newest segments of innovative medicine. https://www.thedailystar.net/business/news/australian-biotech-firm-set-api-plant-bsmsn-30m-1953261
  24. 1. Wasn't Walton bd suppose establish listing on a European stock exchange 2. If not can I buy Walton bd stocks on the dse, what online broker should I use?
  25. Walton starts TV export to Poland New Age Desk | Published: 02:03, Aug 28,2020 Bangladeshi electronics manufacturer Walton has exported first consignment of television, with ‘Made in Bangladesh’ label, to Poland. An agreement has recently been signed between Walton and Opticum of Poland through a video conference in this regard. Walton’s International Business Unit president Edward Kim, Walton television division CEO Mostafa Nahid Hossain, Walton’s EU business unit head Tauseef Al Mahmud were present while Opticum’s CEO Richard Grab joined through online. Tauseef Al Mahmud said that Walton televisions will be available in the Poland market by the end of September. Opticum also expressed hopes to become a partner for the online sales of Walton products in Poland. Mostafa Nahid Hossain said that Walton plans to export 1 lakh units of televisions to European market by next year. Edward Kim said, ’We are going to use Poland as a bridgehead to enter into all of the EU markets. Walton will become one of the top five brands in the world by 2030.’ Earlier, Walton signed business agreement with Google to produce smart TVs for western countries. Walton received license from Dolby, a US company, as the only manufacturer in Bangladesh. As a result, Walton television is gaining special acceptance in the global market. More about: https://www.newagebd.net/article/114738/walton-starts-tv-export-to-poland
  1. Load more activity


×
×
  • Create New...