Jump to content
Please ensure regular participation (posting/engagement) to maintain your account. ×

Leaderboard

Popular Content

Showing content with the highest reputation since 10/28/2020 in all areas

  1. https://www.tbsnews.net/economy/forex-reserves-cross-record-48-billion-mark-292702 TBS Report 24 August, 2021, 10:45 pm Last modified: 24 August, 2021, 10:48 pm Forex reserves cross record $48 billion mark The country's foreign exchange reserves witnessed a new record crossing the $48 billion mark following the $1.45 billion financial assistance from the International Monetary Fund (IMF). In addition to remittances sent by expatriates, the IMF aid mainly contributed to the surge in forex reserves. Foreign exchange reserves in Bangladesh have reached new heights due to the positive trend of remittances sent by expatriates and the addition of loan assistance from the IMF, said a Bangladesh Bank official. By international standards, a country has to have reserves equal to three months of import expenditure. With the amount of reserves that Bangladesh has now, it is possible to pay the import cost for more than 8 months at the rate of $6 billion per month. The reserve crossed the $46 billion-mark on 28 June while $45.01 billion-mark on 3 May and crossed the $44 billion mark on 24 February this year and touched the $40 billion-mark on October 28 last year.
    2 points
  2. https://www.thedailystar.net/business/economy/industries/investments/news/china-company-invest-42m-ishwardi-epz-2134391 China company to invest $42m in Ishwardi EPZ Star Business Report Tue Jul 20, 2021 12:00 AM Chinese company Vanessa Enterprise has signed a $41.77 million deal with Bangladesh Export Processing Zones Authority (Bepza) to produce accessories for ladies' intimate garments in the Ishwardi export processing zone (EPZ) in Pabna. As per the agreement, the company will annually produce 299.52 million pieces of bra cup and polyurethane foam, said a Bepza press release yesterday. Bepza said the factory would employ at least 4,028 Bangladeshi nationals. Bepza Member (Finance) Nafisa Banu and Vanessa Enterprise Managing Director Choi Chun Ho signed the agreement recently at Bepza Complex in Dhaka.
    2 points
  3. Ahsan Habib Tuhin 10 July, 2021, 09:05 pm Last modified: 10 July, 2021, 09:14 pm https://www.tbsnews.net/economy/stocks/sri-lankan-firm-plans-get-listed-5-years-272968#.YOm5fK93AjQ.facebook Sri Lankan firm plans to get listed in 5 years Wood coating supplier JAT Holdings Bangladesh has a plan to set up a factory Highlights JAT Holdings Bangladesh has a plan to set up a factory to produce coating under its own brand "White" and enhance research and development facility for wood coating by investing Tk12 crore. JAT Holdings Bangladesh has started its journey in 2009 together with local business conglomerate Akhter Group. The company distributed the wood coating under the brand name "Sayerlack", an Italian brand that provides wood finishes in the industry. JAT Holdings Bangladesh (Pvt) Limited, an affiliate company of Sri Lanka-based JAT Holdings, plans to get listed on local stock exchanges in the next five years. "JAT Holdings is looking at getting listed on Bangladesh's capital market in the next five years," JAT Holdings Chairman Dr Sivakumar Selliah said in the company's recently-held annual general meeting in Sri Lanka. That is why JAT Holdings Bangladesh has a plan to set up a factory to produce coating under its own brand "White" and enhance research and development facility for wood coating by investing Tk12 crore. To strengthen its overseas operations, the mother company JAT Holdings will raise funds by issuing shares in the Colombo Stock Exchange. Managing Director of JAT Holdings Aelian Gunawardene at the virtual launch of the initial public offering (IPO) said that this investment would be made from the proceeds raised from the proposed IPO which would be launched on 20 July. The overseas operation investments would be made through a fully owned subsidiary of JAT Holdings, which is based in Dubai. The managing director said, "We will be investing Tk1.68 crore for enhancing the existing research and development facility to a fully-fledged, state-of-the-art facility for all coatings and a further Tk10 crore locally for expanding the "White" brand coating by JAT marketing and development initiatives." Bangladesh has a good central bank that has kept the exchange rate stable for over a decade and has avoided currency crises and monetary instability, he added. JAT Holdings Bangladesh has started its journey in 2009 together with local business conglomerate Akhter Group. The company distributed the wood coating under the brand name "Sayerlack", an Italian brand that provides wood finishes in the industry. When contacted with its local office, the responder has denied making any comments over this issue. The company claimed in its annual report that currently JAT enjoys a market share of 30% in the wood coating segment in Bangladesh and the brand is synonymous with the high-quality wood coatings in the country and is the exclusive supplier to seven of the 15 largest local industrial furnishing exporters. Furthermore, revenues from Bangladesh, the top export destination fell from Tk70 crore in 2020 to Tk23 crore in 2021, making it the second-largest market, after Sri Lanka. The wood coating market depends on the furniture and wood industry. Stakeholders believe the growth of this industry has primarily been driven by the country's flourishing corporate sector in the last 20 years. The industry now enjoys an annual growth of 18-20%. The country's furniture industry is huge, with yearly revenues exceeding Tk10,000 crore. At present Berger Paints led the coating industry.
    2 points
  4. As per the media, Japan's largest investment in Asia will be at Mirshorai in automobile sector
    2 points
  5. Myanmar is building a powerful air defence system to prolong their isolation. They will be a victim of their own success like North Korea.
    2 points
  6. The Bangladesh Ministry of Defence (MoD) has signed Government-to-Government (G2G) Memorandum of Understanding (MoU) with Turkey’s Defence Industries or the Savunma Sanayii Başkanı for purchasing Roketsan’s products to equip the Bangladesh Armed Forces with NATO standard air, land and naval warfare equipment. https://www.defseca.com/military/bangladesh-turkey-sign-defence-purchase-agreements/
    2 points
  7. Exclusive: China Has Built Village In Arunachal, Show Satellite Images The village, located on the banks of the River Tsari Chu, lies in the Upper Subansiri district, an area which has been long disputed by India and China and has been marked by armed conflict. Written by Vishnu Som Updated: January 18, 2021 7:42 pm IST By Nov 1, 2020, China completed construction of a village, 4.5 kms in Arunachal Pradesh. High res: here Highlights The village consists of 101 homes, satellite images show New village in Arunachal Pradesh nearly 4.5 km in Indian territory Village is in Upper Subansiri district - marked by India, China conflict New Delhi: China has constructed a new village in Arunachal Pradesh, consisting of about 101 homes, show satellite images accessed exclusively by NDTV. The same images, dated November 1, 2020, have been analysed by several experts approached by NDTV, who confirmed that the construction, approximately 4.5 kms within Indian territory of the de facto border, will be of huge concern to India. Though this area is Indian territory, according to official government maps, it has been in effective Chinese control since 1959. However, earlier only a Chinese military post existed, but this time a full-fledged village that can house thousands has been built. The village, located on the banks of the River Tsari Chu, lies in the Upper Subansiri district, an area which has been long disputed by India and China and has been marked by armed conflict. It was constructed in the eastern range of the Himalayas even as Indian and Chinese soldiers confronted each other in their deadliest clash in decades, thousands of kilometres away in the Western Himalayas in Ladakh. In June last year, 20 Indian soldiers were killed in a clash in the Galwan Valley. China has never publicly stated how many casualties its own army suffered. The stand-off in Ladakh continues through this winter with thousands of soldiers from both sides deployed on the frontline at extreme altitudes in sub-zero temperatures. The latest image that establishes the village in question is dated November 1, 2020. The image dated a little more than a year before that - August 26, 2019 - does not show any construction activity. So, the village was set up in the last year. No village in this area in August, 2020. By November 2020, 101 homes appear in completed village. Click here for high resolution image In response to NDTV's detailed questions, the Foreign Ministry, which was also sent the satellite images, did not challenge what the pictures show. "We have seen recent reports on China undertaking construction work along the border areas with India. China has undertaken such infrastructure construction activity in the past several years." The government says it remains committed to improving border infrastructure. ''Our Government too has stepped up border infrastructure including the construction of roads, bridges etc, which has provided much needed connectivity to the local population along the border.'' In October last year, China's Foreign Ministry spokesperson said, "For some time, the Indian side has been ramping up infrastructure development along the border and stepping up military deployment that is the root cause for the tensions between the two sides." There are, however, no signs of Indian road or infrastructure development in the immediate vicinity of the new Chinese village. New Chinese village lies 4.5 kms south of the the external boundary of India (Survey of India). Click here for high resolution image In fact, in November 2020, which is when this satellite image was taken, the BJP MP from Arunachal Pradesh, Tapir Gao, had warned the Lok Sabha of Chinese incursions in his state, referring specifically to the Upper Subansiri district. This morning, he told NDTV that this includes the construction of a new double-lane road. ''Construction is still going on. China has entered more than 60-70 kms inside the upper Subansiri district if you follow the path along the river. They are constructing a road along the river known locally as the Lensi as it flows in the direction of the Subansiri river.'' The Foreign Ministry did not respond directly to a question on whether the village construction has been diplomatically raised with Beijing. It said to NDTV, ''The government keeps a constant watch on all developments having a bearing on India's security and takes all the necessary measures to safeguard its sovereignty and territorial integrity.'' An authentic online map of the Surveyor General of India, used by the government as its official map, clearly shows that the Chinese village lies well within Indian territory. Screenshots of official map of Survey of India show location of Chinese village inside Indian territory. Click here for high resolution image The images with NDTV have been procured from Planet Labs Inc, satellite imagery experts who monitor the planet on a daily basis. They show the exact coordinates of the new village, which lies north of a large square-shaped structure, believed by defence analysts to be a Chinese military post, first captured as an image over a decade ago by Google Earth. The new images with NDTV indicate that this post has also been substantially upgraded. New Chinese village lies 1 km north of an existing Chinese military post, which has been upgraded over the last decade. Click here for high resolution image Google Earth images also indicate that the village lies south of the McMahon Line, the demarcation between Tibet and India's Northeast which New Delhi believes marks the boundary between India and China in the region. This line is disputed by Beijing. According to Claude Arpi, an expert in India-China relations, ''The village is well South of the McMahon [Line] and the Indian perception of the Line of Actual Control.'' While explaining that this has historically been a disputed area, the construction of the new village, he says, ''is an extraordinarily serious issue as it has many other implications elsewhere on the boundary.'' Construction of this village appears to be a violation of a key part of multiple agreements reached with India that ask both countries to "safeguard due interests of their settled populations in the border areas'' and decree that ''Pending an ultimate settlement of the boundary question, the two sides should strictly respect and observe the line of actual control and work together to maintain peace and tranquility in the border areas.'' ''The imagery is clearly showing the Chinese construction of a residential area within India's claimed border,'' says Sim Tack, a leading military analyst on armed conflicts. ''It's important to note that the Chinese military has maintained a small forward position in this valley since 2000'' says Mr Tack. This position ''has allowed China to advance observation into the valley for many years, [and] has been seemingly uncontested.'' This has ''allowed gradual upgrades of mobility from China into the valley (roads and bridges) over time, eventually culminating in the recent construction of this village.'' The Tsari Chu river valley has a history of clashes between India and China dating back to 1959. A formal note of protest sent by Delhi to Beijing at the time says Chinese soldiers fired without notice on an Indian forward post "which was twelve strong but eight Indian personnel somehow managed to escape.'' ''China is opening another front against India by taking its "salami-slicing" tactics to Arunachal Pradesh,'' says strategic affairs expert Dr Brahma Chellaney. ''Its encroachment on an area that clearly falls within India underscores the stealth and speed with which it is redrawing facts on the ground, with little regard for the geopolitical fallout.'' https://www.ndtv.com/india-news/china-has-built-village-in-arunachal-pradesh-show-satellite-images-exclusive-2354154
    2 points
  8. BGB is the first line of defence for Bangladesh. While it operates under the Ministry of Home Affairs it is a war capable organisation meant to be seconded to the Army during any conflict. BGB having over 70,000 strong force is mostly ill-equipped to fight any conventional war beyond holding rear lines. The recent exercises with the Army is telling of the serious need to focus on strengthening this first line of defence. It lacks adequete training, skilled manpower, modern weapons and advanced infrastructure to fight at a level against regional foes.
    2 points
  9. 12:00 AM, August 30, 2020 / LAST MODIFIED: 02:05 AM, August 30, 2020 Australian biotech firm to set API plant at BSMSN for $30m Jagaran Chakma Australian biotechnology company HA TECH will invest up to $80 million, or roughly Tk 700 crore, to establish a large-scale active pharmaceutical ingredient (API) manufacturing facility in Bangladesh that could help the country meet its growing demand. "We aim to fulfil the demand for quality APIs in Bangladesh," Abdullah Al Mahmud, executive chairman of HA TECH, told The Daily Star. Initially, the Sydney-based company, which produces APIs mainly for cardiovascular, diabetic, ulcer and oncology applications, will invest $30 million to develop the facility. But within the next five years, the total investment could reach $80 million if the company wants to increase the product range. There are about 10 local companies, including Eskayef, Square, Beacon and Beximco, that produce API materials on a limited scale, according to SM Shafiuzzaman, secretary general of Bangladesh Association of Pharmaceutical Industries (BAPI), a collective of about 250 local drug markers. Local production can at best meet 5 or 6 per cent of the annual demand from the pharmaceutical sector, which has only grown in stature with the onset of the coronavirus pandemic, according to Monjurul Alam, director for global business development at Beacon Pharmaceuticals. Subsequently, Bangladesh spends about $1.3 billion each year to import APIs from the US, Taiwan, Italy, Germany, Spain, Switzerland, France and the UK. Development works for HA TECH's upcoming state-of-the-art good manufacturing practice (GMP) facility spanning 10 acres on at the Bangabandhu Sheikh Mujib Shilpa Nagar (BSMSN) will begin in January, said Paban Chowdhury, executive chairman of the Bangladesh Economic Zones Authority (BEZA). HA TECH and BEZA signed the land lease agreement on 25 August. The facility is expected to go into full operation by sometime next year. Securing more foreign direct investment (FDI) for the country's Tk 22,000 crore-pharmaceutical industry, particularly API manufacturing, is crucial for propping up the sector, Chowdhury said. About 98 per cent of the annual domestic demand for pharmaceutical products is met by BAPI members. After meeting the local demand, the products are shipped to 144 different countries. Pharmaceutical shipments rose 4.5 per cent year-on-year to $136 million in fiscal 2019-20 following improvements in product quality and policy support. The National Board of Revenue recently declared that imports of API products, pharmaceutical raw materials and reagents would be exempt of VAT until 2025 in a bid to boost the sector. However, the tax authority also imposed a condition on API producers that require them to spend at least 1 per cent of their annual turnover on research and development projects for them to avail the benefit. The minimum value-addition should be 60 per cent. "Our pharmaceutical sector will contribute to export diversification. Therefore, BEZA always welcomes API manufacturers at economic zones and is ready to roll out the red carpet, if needed," he added. There is a huge potential to invest in API manufacturing in Bangladesh, said Beacon Pharma's Alam. The reason being, the pharmaceutical sector is expected to grow 15 per cent year-on-year to reach $5.1 billion by 2023, propelled by investments from local companies that seek to grab a bigger share of the global market, according to an estimate. Mahmud though is buoyant that HA TECH's facility will become a manufacturing hub for a range of finished pharmaceutical products as well. This includes nucleic acid drugs that use oligonucleotide, which is one of the newest segments of innovative medicine. https://www.thedailystar.net/business/news/australian-biotech-firm-set-api-plant-bsmsn-30m-1953261
    2 points
  10. https://www.banglarunnoyon.net/national-news/43726 সিআরবি এলাকায় ১৮৩টি ঔষধি গাছের সন্ধান: গবেষণা নিউজ ডেস্ক প্রকাশিত: ২৩ আগস্ট ২০২১ চট্টগ্রাম নগরের ইতিহাস-ঐতিহ্যমণ্ডিত সবুজ পাহাড়ি এলাকা সিআরবির বনজঙ্গলে ১৮৩টি ঔষধি গাছের সন্ধান পাওয়া গেছে। এগুলো ক্যানসার, হৃদ্‌রোগ, উচ্চ রক্তচাপ, জন্ডিস, অর্শসহ বিভিন্ন রোগের ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। গবেষক ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সিআরবি এলাকাটি নিজেই যেন একটি ‘প্রাকৃতিক হাসপাতাল’। এখানে হাসপাতাল নির্মাণ করা হলে এসব ঔষধি গাছের বেশির ভাগ ধ্বংস হবে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ওমর ফারুক রাসেলের নেতৃত্বে বেসরকারি সংস্থা ইফেক্টিভ ক্রিয়েশন অন হিউম্যান ওপিনিয়ন (ইকো) গবেষণাটি করে। চট্টগ্রাম নগরের ২০টি এলাকার গাছের ওপর চার মাসের বেশি সময় ধরে গবেষণাটি করা হয়। গবেষণার অন্তর্ভুক্ত এলাকাগুলোর মধ্যে চট্টগ্রাম নগরের ‘ফুসফুস’খ্যাত সিআরবি রয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার গবেষণার ফলাফল আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হবে। জানতে চাইলে ওমর ফারুক বলেন, ‘সিআরবি এলাকাটি নিজেই যেন একটি প্রাকৃতিক হাসপাতাল। এখানে আমরা ১৮৩টি ঔষধি গাছের সন্ধান পেয়েছি। এসব গাছ বিভিন্ন রোগের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বনৌষধির পাশাপাশি মেডিকেল সায়েন্সের ওষুধের জন্যও এসব উদ্ভিদ ব্যবহার করা হয়। আমাদের উচিত এই গাছগুলো সংরক্ষণ করা।’ গবেষণায় সিআরবি এলাকায় মোট ২২৩ প্রজাতির উদ্ভিদ পাওয়া যায়। তার মধ্যে গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ ৩৪ প্রজাতির। লতাজাতীয় উদ্ভিদ ২২ প্রজাতির। বিপন্ন প্রজাতির উদ্ভিদ ৯টি। ভবিষ্যতে বিলুপ্ত হতে পারে—এ রকম উদ্ভিদ ৬৬টি। এলাকাটিতে বড় বৃক্ষ রয়েছে ৮৮টি। যার মধ্যে শতবর্ষী গর্জন ও শিরীষ আছে। গবেষণায় সিআরবির চেয়ে নগরের বাটালি পাহাড় ও মুরগির ফার্ম এলাকায় মাত্র দুই থেকে সাতটি ঔষধি গাছ পাওয়া গেছে। গাছের সংখ্যা ও বৈচিত্র্যের দিক থেকে সিআরবি নগরের ২০টি এলাকার মধ্যে তৃতীয়। গবেষণার উদ্যোক্তা ইকোর সভাপতি সরওয়ার আলম বলেন, ‘চট্টগ্রাম শহর ক্রমেই বনজঙ্গলশূন্য হয়ে পড়ছে। এই উদ্বেগ থেকে বর্তমানে এখানে কী পরিমাণ সবুজ অবশিষ্ট রয়েছে, তা অনুসন্ধানের জন্য আমরা গবেষণাকর্মটির উদ্যোগ নিয়েছিলাম। আমাদের গবেষকেরা অনেক ঔষধি গাছের সন্ধান পেয়েছেন।’ গবেষকেরা জানান, সিআরবি এলাকায় যেসব ঔষধি গাছ পাওয়া গেছে, তার মধ্যে টোনা (Oroxylum indicum), অর্জুন (Terminamia arjuna), লজ্জাবতী (Mimosa pudica), আপাং (Achyranthus aspera), নিসিন্দা (Vitex nikundu), টগর (Tabernaemontana divericata), শজনে (Moringa oliefera), দেবকাঞ্চন (Bauhinia purpuria), মাটমিন্দা (Tacca intigrifolia), সর্পগন্ধা (Rauvolfia tetraphylla), বকুল (Mimusops elengi), শিমুল (Bombax ceiba), পিতরাজ (Aphanamixis polystachya), দুধকুরুস (Wrightia arborea), বাকা গুলঞ্ছ (Tinospora erispa), সোনাতলা (Diploclasia glaucescens), দুরন্ত (Duranta erecta) ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। গবেষকেরা জানান, টোনা ক্যানসার রোগের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। জন্ডিস, শরীরব্যথা, পেটব্যথা, ডায়ারিয়া, আমাশয়, বাত, শ্বেতী ইত্যাদি রোগের চিকিৎসায়ও এ গাছ ব্যবহৃত হয়। অর্জুন ডায়ারিয়া, আমাশয়, হৃদ্‌রোগ, উচ্চ রক্তচাপ, দাঁতব্যথা, শরীরব্যথা, হাঁপানি ইত্যাদি রোগের চিকিৎসায় এই গাছ ব্যবহৃত হয়। লজ্জাবতীর মূল, কাণ্ড, পাতা, ফুল—সবকিছুরই ভেষজ গুণাগুণ রয়েছে। ফোলা, প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া, অর্শ, কফ-কাশি, ফোড়া, জন্ডিস ইত্যাদি রোগের চিকিৎসায় লজ্জাবতী ব্যবহৃত হয়। নিসিন্দাপাতা নারকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে দাদ রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। লজ্জাবতী, নিসিন্দা, সর্পগন্ধা সাপের বিষ নিষ্ক্রিয়করণে ব্যবহার করা হয়। আপাংয়ের শিকড় ক্যানসারের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। লিউকোরিয়া, টিউমার, দাঁতব্যথা, কিডনিতে পাথর, ঠান্ডা, জ্বর, নিউমোনিয়া, পেটব্যথার চিকিৎসায় আপাংয়ের ব্যবহার রয়েছে। টগর জন্ডিস, ফোঁড়া, জ্বর, বদহজম, প্লীহা, লিভারের রোগ, বাত ইত্যাদি রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। শজনের শিকড়, কাণ্ড, পাতা, ফুল ও ফল দারুণ পুষ্টিসমৃদ্ধ। এ জন্য একে ‘ম্যাজিক’ গাছ বলা হয়। এর রয়েছে নানাবিধ ভেষজ গুণাগুণ। প্লীহা ও লিভারের রোগ, জ্বর, ফোলা, পক্ষাঘাত, পেটের রোগ, মৃগীরোগের চিকিৎসায় এটি ব্যবহার করা হয়। দেবকাঞ্চন রক্তক্ষরণ বন্ধ, বাত, খিঁচুনি, ডায়ারিয়া, ব্যথা, আলসার ইত্যাদি রোগের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও দেবকাঞ্চনের ব্যবহার রয়েছে। মাটমিন্দাপাতা রক্তক্ষরণ বন্ধ করতে ব্যবহার করা হয়। গবেষকেরা জানান, সিআরবি এলাকায় ভবিষ্যতে বিলুপ্ত হতে পারে—এমন উদ্ভিদগুলোর মধ্যে রয়েছে সর্পগন্ধা, বকুল, শিমুল, পিতরাজ, দুধকুরুস, বাকা গুলঞ্ছ, সোনাতলা, দুরন্ত ইত্যাদি। গবেষণায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের প্রাক্তন-বর্তমান শিক্ষার্থী মো. খন্দকার রাজিউর রহমান, ইমাম হোসেন, সজীব রুদ্র, মো. আরিফ হোসাইন, সনাতন চন্দ্র বর্মণ, ইকরামুল হাসান ও মো. মোস্তাকিম অংশ নেন। ইকোর সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য এস এম ইউসুফ সোহেল ও সাহেদ মুরাদ বলেন, সিআরবিতে এত বৈচিত্র্যপূর্ণ ও ঔষধিগুণসমৃদ্ধ বৃক্ষ রয়েছে, তা তাঁরা আগে জানতেন না। এগুলো দেশের সম্পদ। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য এই সবুজ রক্ষা করা সবার দায়িত্ব। সিআরবি এলাকা থেকে প্রস্তাবিত হাসপাতালটি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে এখানকার ‘প্রাকৃতিক হাসপাতাল’ রক্ষার দাবি জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞসহ পরিবেশকর্মীরা। সিআরবি এলাকায় হাসপাতাল নির্মাণের বিরোধিতা করে এক মাসের বেশি সময় ধরে আন্দোলন করে আসছে বিভিন্ন সংগঠন। তাদের দাবি, সিআরবির শান্ত-কোলাহলহীন সবুজ এলাকা বাদ দিয়ে হাসপাতালটি শহরের অন্য কোথাও করা হোক। আন্দোলনরত সংগঠন নাগরিক সমাজের উদ্যোক্তা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘সিআরবি ঐতিহ্যগতভাবে যেমন সমৃদ্ধ, তেমনি বৃক্ষরাজিতেও অনন্য। বৃক্ষরাজির দিকটি গবেষণায় উঠে এসেছে। নগরজীবনে এত ঔষধি গাছ কোথায় পাব আমরা?’ একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বীরশ্রেষ্ঠ আবদুর রবসহ সাতজনে কবর রয়েছে সিআরবি এলাকায়। পিপলস ভয়েস নামের একটি সামাজিক সংগঠন সিআরবির শতবর্ষী গাছগুলোয় শহীদদের নামফলক টাঙিয়েছে। সংগঠনটির সভাপতি শরীফ চৌহান বলেন, ‘এখানে বীর শহীদরা শুয়ে আছেন। এই গাছ ও সবুজ এলাকা রক্ষা করা হলে তাঁদের প্রতিও সম্মান প্রদর্শন করা হবে।’ ব্রিটিশ আমলে তৈরি সেন্ট্রাল রেলওয়ে বিল্ডিং এখানে অবস্থিত। এখানকার ছয় একর জমিতে বেসরকারি হাসপাতাল নির্মাণের জন্য রেলওয়ে চুক্তি করেছে।
    1 point
  11. Exclusive:এবার দেশে নদীর তলদেশে রেল লাইন! | Mass Rapid Transit Project | Dhaka Metro Rail | Somoy TV https://www.youtube.com/watch?v=nR1zfYSiE6I
    1 point
  12. https://www.newagebd.net/article/148372/iu-teacher-gets-best-research-award-in-australia IU teacher gets best research award in Australia IU Correspondent . Kushtia | Published: 19:23, Sep 06,2021 Rafiquel Islam. -- New Age photo Rafiquel Islam, an assistant professor of applied chemistry and chemical engineering department of Islamic University in Kushtia, has received Society of Environmental Toxicology and Chemistry Australasia best research publication award-2021 in Australia. According to university officials, Rafiquel Islam is now working as a PhD researcher at the School of Environmental and Life Sciences, The University of Newcastle, Australia. The subject of his research is ‘Hormonal compounds and their adverse effects on marine and estuarine aquatic life’. He got the award as he showed, in his research, how hormones act as the essential elements in the body of rock oysters. The research was presented in an Australia Conference held between August 30 and September 2 while he got the best publication award for this research work. The research was also published in the Elsevier Aquatic Toxicology journal earlier.
    1 point
  13. https://www.facebook.com/awamileague.1949/videos/3047143312201213/
    1 point
  14. https://thefinancialexpress.com.bd/national/two-bangladeshi-youths-killed-in-bsf-firing-along-lalmonirhat-border-1630235821 Two Bangladeshi youths killed in BSF firing along Lalmonirhat border Published: August 29, 2021 17:17:01 Two Bangladeshi youths were shot dead by some members of the Indian Border Security Force (BSF) along Burimari border at Patgram upazila in Lalmonirhat on Sunday morning. The deceased were identified as Yunus Ali, 29, son of Bulbul Hossain of Dangapara village under Burimari union of Patgram upazila and Sagar, 26, of Jaldhaka area of Nilphamari district. According to 61 Burimari BGB camp sources, a patrol team of BSF opened fire on a group of cattle traders when they went to bring cattle near pillar no 842 of Burimari border, leaving Sagar and Yunus dead on the spot. Omar Faruque, Officer-in-Charge of Patgram Police Station, said they identified the duo after seeing the photographs sent by Indian prople living along the border, reports UNB.
    1 point
  15. https://www.dhakatribune.com/bangladesh/nation/2021/08/29/flood-situation-deteriorates-in-brahmaputra-basin Flood situation deteriorates in Brahmaputra basin BSS Published at 05:56 pm August 29th, 2021 Hundreds of homes submerged in floodwater The flood situation in Brahmaputra River basin of four upazilas in the district deteriorated further as the water level has increased in the last 24 hours, ending at 9am on Sunday due to incessant rainfall and the rush of hilly waters from the upstream. Bangladesh Water Development Board (BWDB) sources said the water level of the Brahmaputra River increased by 5cm during the period and the river was flowing 5cm above its danger mark at Fulchharighat point of the district. As a result, the chars located on the river basin areas of Sundarganj, Sadar, Fulchhari, and Shaghata upazilas of the district have been inundated and many char people have been marooned and are passing their days in misery. The low-lying areas located on the western side of the river were also inundated. Abdus Salam Jakir, chairman of Kamarjani Union Parishad under Sadar upazila said with the rise of water level in the river, the river erosion has taken a serious turn at different points of the union and hundreds of houses of the union are submerged in the water creating untold suffering to the flood victims. On the other hand, the water level of the rivers – the Teesta and the Ghagot – decreased significantly during the period and both the rivers were flowing below their danger levels. Executive Engineer of BWDB Mokhlasur Rahman said as the Brahmaputra was flowing over its danger mark, the officials and employees of the board have been kept on high alert to protect the embankment from any kind of damage. Gaibandha Superintendent of Police (SP) Mohammad Towhidul Islam said that police patrol by boats had been intensified to check piracy in the chars and western sides of the river. Talking to BSS, Deputy Commissioner (DC) Abdul Matin said the district and the upazila administrations are fully prepared with relief materials and manpower to address the flood situation in the district efficiently. They have also been monitoring the situation closely. The district administration is planning to open a control room to inform the people about the overall flood situation, the DC added.
    1 point
  16. Japan's professionalism is incomparable. No doubt about it.
    1 point
  17. https://www.thedailystar.net/news/bangladesh/news/red-gold-sparks-hope-2147221 Mamunur Rashid Sun Aug 8, 2021 12:00 AM Red Gold sparks hope Prof Jamal Uddin grows saffron inside greenhouse at Sher-e-Bangla Agricultural University It has a history stretching back millenniums. Emperors have patronised it, poets have romanticised it, monks have used its colour in their robes and worshippers have adored it. Popularly known as "Red Gold", the crimson hued saffron has been used for culinary, medicinal and aesthetic purposes. Poet Jibanananda Das had compared the stunning colour of saffron with the setting sun of an autumn evening. Saffron, one of the most prized and covetable condiments on the planet, had never been a major produce of a warm country like Bangladesh as it is mostly cultivated in cold environment. But a teacher and researcher of Sher-e-Bangla Agricultural University, Dhaka has created a scope for growing the spice in the country. AFM Jamal Uddin, a professor of horticulture at the university, has managed to flowering saffron plants in a temperature-controlled room. He successfully collected red coloured stigma from the flowers. This stigma, the distal ends of the plant's carpels, is separated from the petals by hand and dried to make saffron spice. "Saffron cultivation is expensive in its usual habitat -- an open terrain. And producing it in a temperature controlled room is expected to be even more expensive. But the chances of losing a yield is little in this process. And saffron can be harvested multiple times in a year in this method," Jamal Uddin told The Daily Star. Considering its huge global demand and high price, he said, saffron can be produced commercially in Bangladesh if appropriate support is provided. The scientific name of saffron is Crocus Sativus. It's a lily herb belonging to the Iridaceae family. The golden spice, which is called zafran in Urdu, kesar in Hindi, has a worldwide fame as an expensive cooking ingredient widely used in a variety of kitchens, starting from the Mughals and lavish hotels. It is also one of the most revered ingredient used in beauty care. Its distinctive aroma, flavour and colour are also used in dyes and perfumes. According to industry insiders, more than 90 percent of saffron used in Bangladesh is imported from Iran and the rest from Kashmir, Spain and Morocco. The reason it's so expensive is that it needs intensive harvesting of tiny stigmas that are extremely delicate and require hand extraction. Here manual labour plays a bigger role than machines. A large number of crocus flowers is needed to produce a significant amount of saffron. In the international market, each gram of saffron is sold for about $4, meaning each kilogram of the spice costs over Tk 3 lakh. Jamal Uddin said the popular method of cultivating saffron in wintry countries is to plant it on open terrains. However, the same method cannot be adopted in Bangladesh, because heavy rainfall can cause the bulbs to rot easily. Also, due to the humidity factor of the soil, even if the plant grows well, the flowers won't bloom as per expectations, he said. The researcher brought more than 500 saffron bulbs from Japan last year. "Initially, those were frozen at a specific temperature in order to get them prepared for sowing. Later, they were sown in trays made of plastic and tin and preserved indoors. Finally, flowers bloomed in almost all the plants," Jamal Uddin said. "Usually, saffron cultivation requires a vast swathe of land, but we have examined that if we adapt the aeroponics procedure, we can produce enough saffron equivalent to the amount grown on a hector of land in a small room. As the plant trays used in this method are arranged vertically, much less space is required," said the researcher. Aeroponics is the process of growing plants in an air or mist environment without the use of soil or an aggregate medium. PRODUCTION OF SAFFRON Jamal Uddin said each flower usually yields 30 milligrams of saffron, which weighs only around seven milligrams once dried. Therefore, at least 150 flowers are required to get one gram of saffron and for one kg, 1.50 lakh flowers are required. Once the bulbs become matured, each plant provides one flower in the first year which rises up to seven or eight in subsequent years. "In Iran and Kashmir, around two-kg of saffron are being yielded from a hector of land. But it is possible to produce the same amount of saffron in a 100 square feet greenhouse or a temperature-controlled room," said the researcher. LIMITATIONS Jamal Uddin said costs and collecting bulbs are the major challenges facing saffron cultivation in Bangladesh. In order to get one kilogram of saffron, stigmas of around 1.50 lakh flowers are required. For sapling, each bulb costs at least Tk 60, so the cost of 1.50 lakh bulbs would be Tk 9 lakh, he said. Besides, two air conditioners, lights and a person will be required for monitoring the production round the clock. He, however, said the cost can be cut by collecting bulbs once and then making seedlings by tissue culture. "Another benefit of cultivating saffron indoors is that we can get its yield throughout the year," Jamal Uddin said. He said given the success achieved so far, they can easily go for commercial production if they have a sponsorship. DEMAND IN BANGLADESH There is no available data on the amount of saffron being imported to Bangladesh and how many people consume it. Enayet Ullah, chairman of Wholesale Spice Traders Association, said because of its high price, the number of saffron consumers in Bangladesh is very low. The import is also less for the same reason, he told this newspaper. The quality of saffron imported is not high, he said, adding that some people sell the spice by mixing it with lower quality of saffron.
    1 point
  18. https://bonikbarta.net/home/news_description/271155/আগারগাঁও-পর্যন্ত-মেট্রোরেলের-৮৮-শতাংশ-কাজ-শেষ উত্তরা-মতিঝিল আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেলের ৮৮ শতাংশ কাজ শেষ নিজস্ব প্রতিবেদক আগস্ট ০৯, ২০২১ নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ২০১৭ সালের আগস্টে। চার বছর পেরিয়ে এখন শেষ পর্যায়ে দেশের প্রথম মেট্রোরেল লাইনের উত্তরা-আগারগাঁও অংশের কাজ। এখন পর্যন্ত পূর্তকাজের অগ্রগতি ৮৮ দশমিক ১৮ শতাংশ। মেট্রো লাইনটির এ অংশে আগামী বছরের ডিসেম্বর নাগাদ ট্রেন চালুর পরিকল্পনা করছে কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে আগারগাঁও থেকে কারওয়ান বাজার হয়ে মতিঝিল পর্যন্ত দ্বিতীয় অংশের পূর্তকাজ সম্পন্ন হয়েছে ৬৬ দশমিক ৭৪ শতাংশ। ২০২৩ সাল নাগাদ পুরো মেট্রো লাইনটি চালুর লক্ষ্য সরকারের। মেট্রোরেলের উত্তরা-আগারগাঁও অংশ আগে চালু হবে, নাকি পুরো লাইনটিই একসঙ্গে চালু হবে তা নিয়ে একাধিকবার সিদ্ধান্ত বদলেছে মেট্রোরেল নির্মাণ ও পরিচালনার দায়িত্বে থাকা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)। সংস্থাটির সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী বছরের ডিসেম্বরে ট্রেন চলবে উত্তরা-আগারগাঁও অংশের মধ্যে। এরই মধ্যে জাপান থেকে দুই সেট মেট্রো ট্রেন ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। পরীক্ষামূলক চলাচলের অংশ হিসেবে চলতি মাসেই এসব ট্রেন ভায়াডাক্টের (উড়ালপথ) ওপর চলার কথা রয়েছে। মেট্রোরেল লাইনে উত্তরা-আগারগাঁও অংশের দূরত্ব ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার। ডিপো থেকে বের হয়ে প্রথম স্টেশন উত্তরা নর্থ। সেখান থেকে উত্তরা সেন্টার, উত্তরা সাউথ, পল্লবী, মিরপুর ১১, মিরপুর ১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া স্টেশন পার হয়ে ট্রেন আসবে আগারগাঁও স্টেশনে। নয়টি স্টেশনের মধ্যে চারটির প্লাটফর্ম ও স্টিলের কাঠামোর ছাদ নির্মাণ শেষ হয়েছে। বাকি পাঁচটির কাজ চলছে। সবক’টি স্টেশনে যান্ত্রিক, বৈদ্যুতিক কাজসহ ‘অ্যান্টি-এক্সিট স্ট্রাকচার নির্মাণও শুরু হয়েছে। ডিএমটিসিএলের জুলাইয়ের অগ্রগতির তথ্য বলছে, উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও নয়টি স্টেশন নির্মাণকাজের সার্বিক অগ্রগতি ৮২ দশমিক ৮ শতাংশ। আর উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত পুরো মেট্রোরেল লাইনটির সার্বিক অগ্রগতি ৬৮ দশমিক ৪৯ শতাংশ বলে উল্লেখ করা হয়েছে জুলাইয়ের অগ্রগতি প্রতিবেদনে। দ্বিতীয় পর্যায়ে আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল লাইনটির কাজ চলছে দুটি প্যাকেজে। ৫ নম্বর প্যাকেজে নির্মাণ করা হচ্ছে কারওয়ান বাজার পর্যন্ত ৩ দশমিক ১৯ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও তিনটি স্টেশন। এ অংশে বর্তমানে বিজয় সরণি, ফার্মগেট ও কারওয়ান বাজার স্টেশনের কাজ চলছে। মোট ১ হাজার ৪৮টি প্রিকাস্ট সেগমেন্টের মধ্যে ৮৩৯টি সেগমেন্ট নির্মাণ করা হয়েছে। একইভাবে ৩ হাজার ২৩৪টি প্যারাপেট ওয়ালের মধ্যে ১ হাজার ৬৩৯টির কাজ শেষ হয়েছে। এরই মধ্যে দৃশ্যমান হয়েছে দুই কিলোমিটারের বেশি উড়ালপথ। প্যাকেজটির সার্বিক বাস্তব অগ্রগতি ৭১ দশমিক ১৪ শতাংশ। অন্যদিকে কারওয়ান বাজার থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ৪ দশমিক ৯২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও চারটি স্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে ৬ নম্বর প্যাকেজে। এ অংশে ২৯৮টি পাইল ক্যাপ হবে, যার মধ্যে ২৭০টি সম্পন্ন হয়েছে। ১ হাজার ৭৬৪টি প্রিকাস্ট সেগমেন্টের মধ্যে ১ হাজার ৭০৭টির কাস্টিং শেষ হয়েছে। ৪ হাজার ৯৪৬টি প্যারাপেট ওয়ালের মধ্যে ৩ হাজার ১৯৩টি সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয় ও মতিঝিল মেট্রোরেল স্টেশনের নির্মাণকাজ চলমান আছে। মোট ২৪ সেট ট্রেন চলবে উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোতে। ট্রেনগুলো নির্মাণ করছে জাপানি রোলিংস্টক নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কাওয়াসাকি-মিত্সুবিশি। এর মধ্যে দুটি ট্রেন এরই মধ্যে ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। ডিএমটিসিএলের জুলাইয়ের অগ্রগতি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তৃতীয় ও চতুর্থ মেট্রো ট্রেন সেট গত ২০ জুলাই জাপানের কোবে বন্দর থেকে মোংলা সমুদ্রবন্দরে এসেছে। চলতি মাসের তৃতীয় সপ্তাহ নাগাদ ট্রেন দুটি ঢাকায় এসে পৌঁছানোর আশা করছেন ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তারা। প্রসঙ্গত, উত্তরা-মতিঝিল মেট্রো লাইনটি নির্মাণে খরচ হচ্ছে ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১৬ হাজার ৫৯৫ কোটি টাকা জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) ও ৫ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। উত্তরা-আগারগাঁও অংশটি নির্মাণ করছে ইতাল-থাই ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি। অন্যদিকে আগারগাঁও থেকে কারওয়ান বাজার অংশ জাপানের টেক্কেন করপোরেশনের সঙ্গে যৌথভাবে বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশের আব্দুল মোনেম লিমিটেড। আর কারওয়ান বাজার-মতিঝিল অংশ নির্মাণ করছে জাপানি সুুমিতোমো মিতসুই কনস্ট্রাকশন ও ইতাল-থাইয়ের জয়েন্ট ভেঞ্চার। উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেলের পাশাপাশি ঢাকায় আরো পাঁচটি মেট্রোরেল গড়ে তুলবে সরকার, যেগুলোর কোনোটি হবে উড়ালপথে, কোনোটি পাতালপথে। কোনো কোনোটি আবার উড়াল-পাতাল সমন্বয় করে নির্মাণ করা হবে। সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনার মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যেই সব মেট্রোরেল বাস্তবায়ন করতে চায় সরকার।
    1 point
  19. Blue Economy of Bangladesh https://www.youtube.com/watch?v=ptXlncl9MUY
    1 point
  20. Update of Elenga-Hatikumrul 6 lane Highway https://www.youtube.com/watch?v=yR9GibhJDhg
    1 point
  21. https://thefinancialexpress.com.bd/trade/india-may-extend-anti-dumping-duty-on-bangladeshi-jute-goods-1624070803
    1 point
  22. On the other hand, Bangladeshi products are facing anti-dumping duties.
    1 point
  23. https://www.youtube.com/watch?v=26D0keKqThQ
    1 point
  24. https://www.thedailystar.net/business/news/japanese-firms-invest-64b-1872655 Japanese firms to invest $6.4b Six infra projects will be implemented under the PPP model Major Japanese large firms are to invest about $6.4 billion to implement six infrastructure projects in Bangladesh under the public-private partnership model. The implementation timeline for the projects to be implemented by groups such as Kajima, Sojitz and Marubeni will be set at the fourth Bangladesh-Japan Joint PPP Platform meeting in Dhaka next month. The feasibility study, the construction period and other issues will also be fixed at the meeting, said officials of the Prime Minister's Office and the planning ministry. The government had submitted a list of 18 projects to the Japanese government in December 2017. But Shinzo Abe's administration picked the six projects from the list that it deemed suitable for investment through Japanese private investors. The ministry of land, infrastructure, transport and tourism (MLIT) of Japan has selected a consortium of private investors for each project to be led by a major company. The consortium is known as the sub working group (SWG). The Japanese companies, which have set up their offices in Dhaka to start the construction of the projects, will invest under the government-to-government system without participating in any bidding. At the meeting, Dhaka will seek investment for four more projects, which include the Bhola-Barishal bridge and the deep water container terminal at the Payra port. SECOND METRO RAIL The proposed route of the MRT Line-2 is Gabtoli-Mohammadpur-Jigatola-Science Lab-New Market-Azimpur-Palashi-Shaheed Minar-Police Headquarters-Motijheel-Kamalapur-Demra-Chattogram Road covering around 40 kilometres. The cabinet committee on economic affairs has already approved the project. The metro rail is expected to go on commercial operation in 2030. "Japan SWG will make best efforts to secure MLIT's fund from next fiscal year's budget starting from April 2020 for the basic study of the project," said an official of the PMO. The lead company of the project is Marubeni Corporation. The other participating companies are: Oriental Consultants Global, Katahira & Engineers International, Sojitz and Sumitomo Mitsui Construction Corporation. OUTER RING ROAD The approximate length of the proposed revised alignment is 130km, of which 46km is new alignment and 84km will follow existing alignment that needs to be improved. The lead company is Marubeni Corporation. Other participating companies include IHI Corporation, Obayashi Corporation, Shimizu Corporation and Taisei Corporation. The route of the Outer Ring Road will be Hemayetpur-Kalakandi-3rd Shitalakhya Bridge-Madanpur-Bhulta-Gazipur-Bypail-Hemayetpur. MULTIMODAL HUBS Two multimodal hubs will be built at Kamalapur Railway Station and Dhaka Biman Bandar Railway Station each. The hubs will have road and rail connectivity as well as flyovers for facilitating easy movement of commuters. The lead company of Kamalapur hub project is Kajima, while Sojitz will lead the group of companies that will implement the hub at the airport railway station. DEPOT NEAR DHIRASRAM The government has decided to establish a full-fledged inland container depot near Dhirasram Railway station attached to the Dhaka eastern by-pass road with constant access to container handling and transportation. This will ease the pressure on the Kamalapur ICD. The capacity of Kamalapur ICD is not adequate to serve the increasing share of container handling diverted towards Bangladesh Railway, according to the PPP Office under the PMO. Further expansion of Kamalapur ICD is difficult due to heavy built up of the surrounding area. Apart from capacity constraints, daytime prohibition on movement of commercial vehicles is also very difficult in Kamalapur ICD, according to the PPP Office. The handling capacity of the proposed ICD is 354,000 twenty-foot equivalent units. The lead company is Sojitz. CTG-COX'S BAZAR HIGHWAY The two-lane highway will be turned into a four-lane one under the project. The lead group is Marubeni.
    1 point
  25. https://www.dhakatribune.com/business/economy/2021/06/04/budget-fy22-railway-gets-more-allocation-for-mega-projects Published at 12:23 am June 4th, 2021 Budget FY22: Railway gets more allocation for mega projects Despite its failure to fully spend its budgetary allotment of the 2020-2021 fiscal, the government has decided to increase the allocation for the Ministry of Railways in the upcoming fiscal year intending to improve connectivity. In the budget proposed for the 2021-22 fiscal on Thursday, Finance Minister AHM Mustafa Kamal set aside Tk17,542 crore for railways, some Tk1,216 crore more than the previous one. It was proposed in the previous fiscal that the ministry get Tk16,326, but the amount was dropped down to Tk15,496 crore due to slow progress in the implementation of the mega projects. Bangladesh Railway is currently implementing 36 projects, including three mega projects, to improve and modernize its services. The three mega projects are the Padma Bridge Rail Link Project (PBRLP), the Dohazari-Cox's Bazar-Gundam Rail Link Project and the Bangabandhu Sheikh Mujib Railway Bridge Construction Project, on which over half of the total proposed allocation is supposed to be used. Railways Minister Nurul Islam Sujan on Tuesday said that an additional six months would be needed to complete the Dohazari-Cox's Bazar-Gundam Rail Link Project. “It will be possible to open the Mawa-Bhanga segment of the PBRLP to traffic in June next year. Meanwhile, the Dhaka-Mawa section is scheduled to be opened by June 2023 and the whole project will be implemented by June 2024,” he said. “As we are getting a large allocation for the Bangabandhu Sheikh Mujib Railway Bridge Construction Project, we will try our utmost to utilize the funds properly,” he added.
    1 point
  26. https://www.thedailystar.net/news/bangladesh/news/bangladeshs-promising-bourse-cash-flush-americans-can-now-invest-easily-2122849 12:00 AM, July 03, 2021 Bangladesh’s Promising Bourse: Cash-flush Americans can now invest easily Zina Tasreen A hidden gem is what British banking giant HSBC dubbed Bangladesh's bourse earlier last month. But the problem is, access to this market is rather difficult for global investors who are flush with cash but not lucrative investment options. Foreign investors need to open a special cash account with a custodian bank as well as a foreign currency account for remittances inside and outside the country and a beneficiary owner's account -- steps not very straightforward for someone not residing in Bangladesh. But Bangladesh's stock market could do with the liquidity for vibrancy, further development and most importantly, for economic growth. Many profitable investments require a long-term commitment of capital, but investors are often unwilling to give up control of their savings for long periods. Liquid stock markets make investments less risky and more attractive because they allow savers to acquire an asset in the form of stock (equity) and to sell it promptly and reasonably if they need access to their savings or want to alter their portfolios. At the same time, companies enjoy constant access to capital through equity rights issues. By facilitating longer-term and more profitable investments, liquid stock markets improve the allocation of scarce resources, that is capital, and the promotion of production of goods and services as well as employment and therefore enhance prospects for long-term economic growth. Additionally, by lowering enterprise risks and increasing profitability, stock market liquidity can direct more investment and contribute to increased prosperity. Empirical studies have established that stock market liquidity affects economic growth by and large, and there is a diminishing return to liquidity as a country progresses toward development. In other words, Bangladesh is in the right stage of development to benefit from a liquid stock market. But Bangladesh's capital market is rather illiquid compared with its peers. For instance, the daily trading value, a metric for liquidity, is around $81 million in contrast to Vietnam's $714 million. And solving the problem is Dawn Global, a London-based boutique investment firm. Last month, it launched an exchange-traded fund (ETF) that provided easy entry to global investors, particularly American ones, to the bourses of Bangladesh, Indonesia, Pakistan, Philippines and Vietnam -- five large and fast-growing but historically difficult-to-access markets. An ETF is a basket of securities that tracks an index, sector, commodity or other assets, but which can be purchased or sold on a stock exchange the same as a regular stock. Investors who purchase shares of an ETF can gain exposure to a basket of equities and limit company-specific risk associated with single stocks. Called the Asian Growth Cubs ETF, Dawn Global's investment vehicle is listed on the New York Stock Exchange. By way of the Cubs ETF, American investors, for the first time, can get a slice of Bangladesh's stock market -- which yielded the highest return of 21.3 percent amongst its Asian peers in 2020 -- without going through the hassle needed to invest directly. As much as 17 percent of the Cubs ETF is dedicated to Bangladesh. At present, the Cubs ETF has positions in eight Bangladeshi stocks: Brac Bank, Grameenphone, Square Pharmaceuticals, Renata Pharmaceuticals, Beximco Pharmaceuticals, Summit Power, Marico and Beacon Pharmaceuticals. Over the past year, save for Grameenphone the stock prices of all posted gains upwards of 25 percent, with Beximco and Beacon's stock prices more than doubling in value. "Bangladesh is a remarkable long-term economic success story and yet this story is hard to access for foreign investors given the lack of ETF or ADR [American Depository Receipts] coverage in Bangladesh," said Maurits Pots, founder and chief executive officer of Dawn Global. ADRs offer US investors a means to gain investment exposure to non-US stocks without the complexities of dealing in foreign stock markets. "Through the Cubs ETF I am hoping I can make this unique Bangladeshi story more accessible to foreign investors," said Pots, who is being advised by Nihad Kabir, president of the Metropolitan Chamber of Commerce and Industry. The five economies have individually grown GDP faster than 6 percent a year since 2000, while Bangladesh and Vietnam have compounded GDP for 40 consecutive years including 2020, according to Dawn Global. Most emerging market investors focus on China and India among Asian countries and yet there is a compelling long-term secular growth story in five Asian countries with a combined population of more than 860 million, which is expected to grow to one billion by 2035 and with attractive demographics, Pots said. The average age is 28 in the markets with a burgeoning middle-class and accelerating digital adoption, he added. And Dawn Global's launch of the ETF could not be more opportune: partly as a result of monetary and fiscal stimulus for the US economy, more money than ever has flowed into the financial system. The glut of cash is looking for a home in a dwindling supply of positive-yielding places as US markets flirt with negative interest rates.
    1 point
  27. Since our country will be graduating from the LDC status in 2026, Bangladeshi pharma companies will loose the free patent license as per WTO rules.
    1 point
  28. This is a very alarming situation in the Cox's Bazar. If GoB do not take concrete step, this will become a nightmare in the security and defense establishment.
    1 point
  29. Count me in. This is a better initiative from FB.
    1 point
  30. Been a while since I joined this forum. Given how dormant this forum remains, you can't expect much to begin with. With forum's renewal in sight, perhaps its time we call for a more cerebral environment for fruitful engagement. Also its high time, we bring some discussion away from FB page. Which lately has become quite toxic.
    1 point
  31. Forum software has been upgraded. Contact or invite whoever required to rebuild our 'BDMilitary Forum' again.
    1 point
  32. Still we are sitting ducks when it comes to acquiring Air Defence Systems other than FM-90s... we should've had at least MRSAMs by now!
    1 point
  33. MN lacks true guided missile frigates, meaning they lack proper air defense in their frigate. Despite building their own indigenous ship building capability. With size of its EEZ and sea area, MN is rather undersized and under armed. Inducting handful of Corvettes, FACs, a lone submarine, and 4 frigates ( among them 2 of them are old Type52H1s) are not indication outstripping anyone. However, there's no provision for Bangladesh to underestimate anyone.
    1 point
  34. LOL!! The naval balance of power is gradually shifting towards Myanmar?! We still have upper hand than their fleet. Only advantage they have is that JF-17 with C-802.
    1 point
  35. Bangladesh's largest solar power plant connected to national grid The country's largest solar power plant at Mymensingh has been connected to the national grid. The plant has the capacity to generate 73 MW of electricity, which will help meet the government’s target of generating 10% of the country’s total electricity through using renewable energy by 2021. The project is located on the banks of the Brahmaputra River at Gauripur in Mymensingh. With a 173K solar panel and 332 inverters, the solar power plant was fully installed with Huawei Smart photovoltaic (PV) solution to connect to the national grid, said a media statement on Tuesday. A photovoltaic system, also PV system or solar power system, is a power system designed to supply usable solar power by means of photovoltaics. It consists of an arrangement of several components, including solar panels to absorb and convert sunlight into electricity, a solar inverter to convert the output from direct to alternating current, as well as mounting, cabling and other electrical accessories to set up a working system. According to Huawei, Bangladesh is a South Asian country that enjoys up to 2,500 hours of sunshine per year but with a humid and hot climate. With this in mind, the Huawei SUN2000-185KTL Smart PV String Inverter with IP66 high level protection and anti-PID technology was used to safeguard the smooth running of the plant with the highest yields possible. Yang Guobing, president of Enterprise Business Group of Huawei Technologies (Bangladesh) Limited, said: “Bangladesh as a rapidly digitizing nation is a very important market for us, and therefore we are very pleased to have worked with our partners in this 73 MW project. We look forward to contributing further in digitizing and transforming the energy sector in Bangladesh using our innovation and expertise.”
    1 point
  36. Production of API is a much needed one. Because "It’s of some concern, then, that if Bangladesh potentially leaves the LDC category in 2024 it’ll no longer have access to a special World Trade Organisation (WTO) waiver which exempts the industry from the Agreement on Trade-Related Aspects of International Property Rights (TRIPS). The exemption has allowed government to pursue a dedicated industrial policy that’s spurred growth until now." https://www.un.org/ldcportal/what-ldc-graduation-will-mean-for-bangladeshs-drugs-industry/
    1 point
  37. বাংলাদেশ-ভারত–চীন সম্পর্কে মোড় পরিবর্তনের সময় এল কি বাংলাদেশের সামনে আঞ্চলিক রাজনীতির চ্যালেঞ্জটি অনেক বড়। তবে মোকাবিলাযোগ্য। রাজনীতিবিদেরা সেই অসম্ভবের শিল্পকলা জানেন। আলতাফ পারভেজ প্রকাশ: ১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৫১ অ+অ- বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং আজকাল অনেক ভাষ্যকারের কলমেই বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কের আলোচনা শুরু হয় ১৯৭৬ সাল থেকে। কিন্তু পূর্ব বাংলার প্রধান রাজনীতিবিদদের অন্তত দুজন একাধিকবার গণচীন সফর করেছেন ১৯৭০ সালের আগেই। আবার বাংলাদেশে তরুণদের একাংশের মধ্যে মাও সে তুংয়ের রাজনৈতিক আদর্শের চর্চার শুরু তারও আগে থেকে। যেকোনো দুটি জনপদের সম্পর্ক অবশ্যই দূতাবাস খোলার চেয়েও বেশি কিছু। চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষের রাজনৈতিক পরিচয়ের শুরুও ১৯৭৬ সালের জানুয়ারির আগেই। ১৯৬৭ সালে মাওলানা ভাসানীকে দেওয়া মাও সে তুংয়ের ট্রাক্টরটি পারস্পরিক ওই পরিচয়ের প্রতীকীচিহ্ন হয়ে টাঙ্গাইলে এখনো টিকে আছে। বঙ্গবন্ধুর ১৯৫২ সালের চীন সফরের বিস্তারিত বিবরণও বেশ মনোযোগ কেড়েছে সম্প্রতি। এসব সফর কোনো সাধারণ ভ্রমণ ছিল না; বরং দুই জনপদের সর্বোচ্চ পর্যায়ের নেতাদের দেখা-সাক্ষাৎ হয়েছিল তাতে। ছয়-সাত দশকের পরিক্রমা শেষে বাংলার সঙ্গে চীনের সেই সম্পর্ক আজ নতুন এক সন্ধিক্ষণে উপস্থিত। সেই তুলনায় ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্ধন অবশ্যই আরও পুরোনো, ঐতিহাসিক ও বহুমাত্রিক। বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ইতিহাসের প্রায় প্রতি অধ্যায়ে ভারতীয় ছোঁয়া আছে। তার চিরদিনের সাক্ষী হয়ে আছেন খোদ রবীন্দ্রনাথ-নজরুল। কিন্তু এ সম্পর্কের গাঁথুনিতে হঠাৎ কোথাও যেন টান পড়েছে। অচেনা এই কম্পনের উৎস খুঁজতে গিয়ে কেউ পাচ্ছেন আগ্রাসী এক ড্রাগনের ছায়া, কেউ দেখছেন মধ্যম আয়ের দেশে পৌঁছার প্রয়োজনীয় সিঁড়ি। বিজ্ঞাপন প্রচারমাধ্যমের ভুল বার্তা বাংলাদেশ-ভারত-চীন সম্পর্ক নিয়ে ধারাভাষ্যকারদের নাটকীয় লেখালেখি বিশেষ গতি পেয়েছে গত ১৮ আগস্ট ভারতের পররাষ্ট্রসচিবের বাংলাদেশ সফরে। হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা কেন এলেন, আনুষ্ঠানিক বৈঠকের ছায়ায় অনানুষ্ঠানিক আলাপে কী আদান-প্রদান হলো, তার সামান্যই জানা গেছে। আবার যতটুকু জানা গেল, সেই তুলনায় গল্পগুজব তৈরি হলো শতগুণ বেশি। অথচ আরেকটু পেছনে ফিরে তাকালেই আমরা দেখব ২০১৩ সালে চীন যখন বিআরআই প্রকল্পে সবাইকে আহ্বান করে, ভারত তখনই ঘোষণা করে ‘প্রতিবেশী প্রথম’ নীতি। অর্থাৎ ঢাকার সামনে ভূরাজনীতির নাটকীয়তা হর্ষ বর্ধন শ্রিংলার এই সফরের বহু আগেই তৈরি হয়ে আছে। বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জটি আসলে অন্য রকম। চীন-ভারত উভয়ের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্যিক ভারসাম্যহীনতা প্রায় ২০ বিলিয়ন ডলার। ডলার গুনতে আগ্রহী যেকোনো সরকার এই অবস্থা বদলাতে চাইবে। কিন্তু পত্রিকাগুলো মনোযোগ সরাতে চাইছে অন্যদিকে, যা জনগণকে ভুল বার্তা দেয় এবং সরকারের জন্য মানসিক চাপ বাড়ায়। একতরফা ভালোবাসায় সম্পর্ক গভীরতা পায় না ভারতে যদি এই প্রশ্ন তোলা হয়, নিকট প্রতিবেশী কোন দেশে তাদের প্রভাব এ মুহূর্তে বেশি, নিঃসন্দেহে তাতে এক-দুটি নামের মধ্যেই বাংলাদেশ থাকবে। এখানে রাজনীতির পাশাপাশি সংস্কৃতির পরিসরেও তাদের গর্ব করার মতো প্রভাবের পরিসর আছে। হিন্দির উপস্থিতি আজ শ্রেণিনির্বিশেষে ঘরে ঘরে। বইয়ের দোকানগুলোয় দেশের বই ছাপিয়ে আছে ভারতীয় প্রকাশনা। আন্তর্জাতিক সম্পর্কের একাংশ যদি হয় বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের সাংস্কৃতিক যোগাযোগ, একমাত্র ভারতীয়দের সঙ্গেই বাংলাদেশিদের সেটা কিছুটা আছে। মুক্তিযুদ্ধে সমর্থন ও সহায়তা সেই যোগাযোগের ভিত্তি হয়ে আছে। স্বর্ণালি সেই ঐতিহ্যে ভারতীয়রা আজ আর পুরো ভরসা রাখতে পারছে না বলেই মনে হয়। দেশটির সংবাদমাধ্যমের সাম্প্রতিক ভাষ্যগুলোয় সেই মনোজাগতিক সংকটের ছাপ মেলে হামেশা। বিজ্ঞাপন সেই তুলনায় চীনের ভাষা-সাহিত্য-মুভির প্রভাব ঢাকায় বিরল। চীনপন্থী দল-উপদল-গণসংগঠন বলে এখন আর স্পষ্ট কিছু নেই এখানে। আমাদের সাহিত্যে কলকাতার মতো ঐতিহাসিক কোনো চীনা ভরকেন্দ্র নেই। ইট-সিমেন্ট-বালু-রডের গাঁথুনি এবং মাওবাদ ছাড়া বেইজিং বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে বিশেষ কিছু দিতে পারেনি এখনো। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের ক্ষেত্রেও চীন থেকে আমরা ভবিষ্যতে ঠিক কী নিতে পারব, বলা মুশকিল। সঙ্গে রয়েছে জাতিসংঘে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভেটো ক্ষমতা প্রয়োগের তিক্ত স্মৃতি। অথচ এর বিপরীতে তুলনা করা যায় মুক্তিযুদ্ধে আহত-নিহত ভারতীয় যোদ্ধাদের অবদানের কথা, শরণার্থীদের প্রতি আসাম-ত্রিপুরা-পশ্চিমবঙ্গের মানুষের সহমর্মিতার স্মৃতি। যুদ্ধোত্তর দিনগুলোতেও ভারত অবশ্যই নবীন রাষ্ট্রে বড় ভরসা ছিল। আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই সম্পর্ককে ‘রক্তের বন্ধন’ বলে ভুল বলেননি। গত দশকে স্থল ও সমুদ্রসীমানা নিয়ে বোঝাপড়ায় সামান্য অপূর্ণতাসহ অনেকখানি ঝামেলা মেটানো গেছে দুই দেশের মধ্যে। কোভিডের আগ পর্যন্ত ভারতে বাংলাদেশের রপ্তানিও বেড়েছে কিছু। দুই প্রতিবেশীর মধ্যে এসব গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি। ভারতের ভিসা পাওয়ার ব্যবস্থাপনায়ও বড় ধরনের সংস্কার ঘটেছে। বাংলাদেশিদের বছরে প্রায় ১৫ লাখ সফর হয় ভারতে। ভিসা ব্যবস্থাপনার সংস্কারে লাভবান হয়েছে উভয় পক্ষ। তবে ভারত যে সময় যতটা দিয়েছে, ঢাকার প্রতিদান ছিল বহুগুণ বেশি। সম্প্রতি চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য খালাসে ভারত যে অগ্রাধিকার পেল, ভারতীয় ভাষ্যকারদের কলমে তার কিন্তু কোনো প্রশংসা পাওয়া গেল না। এর আগে উত্তর-পূর্ব ভারতের অর্থনীতির সহায়তায় নিজের সীমানা দিয়ে স্থল ও নৌপথে সর্বাত্মক যোগাযোগ সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশ। একই অঞ্চলের নিরাপত্তাসংকট সামলাতেও ভারতের চাওয়া পূরণ হয়েছে। নয়াদিল্লির বড় প্রত্যাশা ছিল এসব। বন্ধুত্বকে অর্থবহ করতে বাংলাদেশ তা মিটিয়েছে। এভাবে ১৯৭১-পরবর্তী বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের অডিট করলে বাংলাদেশের আন্তরিকতার ছাপই বেশি নজরে পড়ে। কিন্তু ছোট প্রতিবেশীকেই কেন বেশি দিতে হবে? কেন ভুলে যাব, ইতিহাসে কোনো নিবেদনই চিরস্থায়ী নয়। আন্তরাষ্ট্রীয় সম্পর্কে বন্ধুত্ব ও দূরত্বও স্থায়ী কিছু নয়। একতরফা ভালোবাসায় সম্পর্ক গভীরতা পায় না। পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে নির্বাচনকালে বাংলাদেশবিরোধী যেসব কদাকার প্রচারণা চলে, তার ওপর দাঁড়িয়ে বন্ধুত্বকে গভীরতা দেওয়া দুরূহও বটে। এসব রাজনৈতিক প্রচারণা বাংলাভাষীদের মনস্তত্ত্বকে ১৯৪৭ পেরিয়ে সামনে এগোতে দিচ্ছে না। গুজরাল-ডকট্রিন থেকে বহুদূর সরে গেছে সম্পর্কের লক্ষ্মণরেখা। আন্তনদী সংযোগ প্রকল্পগুলো যে বাংলাদেশের হৃদয়ে কতটা উদ্বেগ তৈরি করেছে, ভারতের হৃদয় তা কতটা বুঝতে চেয়েছে? ‘বাংলাদেশিরা হলো উইপোকার মতো’—এমন অভিধার জন্যও সীমান্তের ওপার থেকে কেউ দুঃখ প্রকাশ করেনি। ধারাবাহিক এসব দূরত্ব ও বন্ধ্যত্বের মধ্যেই চীনের আবির্ভাব। বিজ্ঞাপন চীন দুনিয়াজুড়ে এখন শিষ্য খুঁজছে চীন অনেক ধৈর্য ধরে ধরে ইটের পর ইট গেঁথে ঢাকা-বেইজিং সম্পর্ককে আজকের অবস্থানে এনেছে। একাত্তর থেকে ছিয়াত্তর পর্যন্ত তারা পিছিয়ে পড়েছিল। দুর্দান্ত মনোযোগে তারা সেই দূরত্ব গুছিয়েছে। রাজনৈতিক দল, ভাবাদর্শ, সংগীত, চিত্রকলা, ছাত্রবৃত্তিকে তারা কমই ব্যবহার করেছে বাংলাদেশ জয় করতে। বরং শক্তপোক্ত এক অর্থনৈতিক-সামরিক ভরসা হয়ে ক্রমে তারা বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের গরিমায় সাহায্য করেছে। দক্ষিণবঙ্গের বেকুটিয়ায় নির্মাণাধীন সেতুটিসহ আটটি গুরুত্বপূর্ণ সেতু বানাতে সহায়তা দিয়ে বেইজিং শুরু থেকে বার্তা দিচ্ছিল তারা নতুন বাংলাদেশের (উন্নয়ন) ক্ষুধা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। চীনের এই বোঝাপড়া নিঃসন্দেহে কলকাতা-গুয়াহাটি-আগরতলা থেকে আসা কবিতা-গান-নাটক-সিনেমাকেন্দ্রিক ভাবাবেগের চেয়ে বেশি কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। পদ্মা সেতুর রেললাইন কিংবা কর্ণফুলীর টানেলে যুক্ত হয়ে চীন বাংলাদেশের কাছে বন্ধুত্বের নতুন মানে দিয়েছে। ৩০০ থেকে ৪০০ বিলিয়ন ডলারের অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে বাংলাদেশের জন্য চীনের অনুদান বিপুল, ঋণ বিপুল এবং অঙ্গীকার আরও বিপুল। বাংলাদেশের হৃদয়েও এখন বদলে যাওয়ার বিপুল ক্ষুধা। ২০১৬ সালের ২৪ বিলিয়ন ডলারের ক্রেডিট লাইন একটা ক্ষুদ্র সূচনামাত্র, যদি আমরা সামনের দিকে তাকাতে শিখি। এমনকি ভারতের ৭ বিলিয়ন ঋণের অঙ্কও না বাড়ারও কারণ নেই। বাংলাদেশে বেইজিংয়ের এই অগ্রযাত্রায় ভারতের আপত্তি নেই। আপত্তির সুযোগও ছিল না। বাংলাদেশে চীনের গড়া প্রতিটি অবকাঠামো থেকে পরোক্ষে ভারতীয় অর্থনীতিও লাভবান। সমৃদ্ধ বাংলাদেশের অন্যতম সুবিধাভোগী কলকাতার নিউমার্কেট থেকে ভেলোরের হাসপাতালগুলোও। চীনের অবকাঠামোগত অবদান আন্তর্জাতিক পরিসরে বাংলাদেশের কাছে রাজনৈতিক সহযোগিতার প্রত্যাশা করতে পারে। এটা অস্বাভাবিক নয়। নয়াদিল্লির দিক থেকে বন্ধুত্ব হারানোর কল্পিত উদ্বেগের শুরু হয়তো এখান থেকেই; যে বন্ধুত্ব হয়তো স্থায়ী বলে ধরে নেওয়া হয়েছিল কিংবা যে বন্ধুত্বকে ভুল করে কেউ আনুগত্য ভেবেছেন। সাম্প্রতিক ভারতীয় ধারাভাষ্যকারদের প্রত্যাশার সোজাসাপ্টা মানে হলো বাংলাদেশ যত ইচ্ছা চীনা অর্থনৈতিক সহায়তা নিক, রাজনৈতিক আধিপত্যে নয়াদিল্লির আবেগের মর্যাদা দিয়ে চলুক এবং চীনের সঙ্গে সামরিক সম্পর্কও এড়িয়ে চলুক। কিন্তু প্রায় ২০০ মিলিয়ন ডলার দিয়ে সাবমেরিন কিনে বাংলাদেশে মৃদুভাবে জানিয়েছে, নিরাপত্তা ইস্যুতেও তাকে এখন স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নিতে শিখতে হবে। অন্তত রোহিঙ্গা-অধ্যায়ের পর বাংলাদেশ কীভাবে আর তার সামরিক শক্তি-সামর্থ্য না বাড়িয়ে থাকতে পারে? আবার ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক পরিসরে চীনও ‘পরাশক্তি’ হিসেবে দাঁড়িয়ে গেছে। অভূতপূর্ব এক আগ্রাসী কূটনীতির মাধ্যমে নিজের অভিলাষের কথা জানাচ্ছে তারা দুনিয়াজুড়ে। বিজ্ঞাপন যেকোনো নেতারই কিছু শিষ্য দরকার হয়। চীন দুনিয়াজুড়ে এখন শিষ্য খুঁজছে। মধ্য আয়ের দেশের চলতি পর্যায় পেরোতে বাংলাদেশের সবল-সুঠাম-উচ্চাকাঙ্ক্ষী চীনকে দরকার আছে কি না সেটা ঢাকার নীতিনির্ধারকদেরই সিদ্ধান্ত নিতে দিতে হবে। এ সত্যে আঁতকে ওঠার কিছু নেই—চীন ভারতের চারপাশে প্রভাববলয় বাড়াচ্ছে। বাংলাদেশের বিষয়েও তারা নিরাসক্ত নয়। বিশ্বের সব পরাশক্তি অতীতে আধিপত্য কায়েম করেছে। ভারতসহ অন্য যারা ভবিষ্যতে পরাশক্তি হতে চাইবে, তাদেরও এভাবেই চারদিকে ‘বিনিয়োগ’ বাড়িয়ে যেতে হবে। নেতৃত্ব সব সময় দাপট দাবি করে; সঙ্গে উদারতাও। ৯৭ ভাগ বাংলাদেশি পণ্যকে ট্যারিফ ছাড় দিয়ে চীন সর্বশেষ উদারতা দেখাল। এখন হয়তো ঢাকার কিছু দেওয়ার পালা। তারপরও ভারত বাংলাদেশের জন্য এক মুখ্য বিবেচনা বাংলাদেশ নিয়ে চীন-ভারতের আগ্রহকে ঢাকায় ইতিবাচকভাবেই দেখা উচিত এবং সম্ভবত এখনো তা-ই ঘটছে। চীন-ভারত উভয়ের সঙ্গেই বাণিজ্যের আয়তন ক্রমে বাড়ছে। অন্তত সাম্প্রতিক কোনো বছরই কমেনি। তবে সব সময় ভারসাম্য রক্ষা সহজ নয়। হয়তো প্রয়োজনও নেই এবং লাদাখ সংঘাতের পর সেটা দুরূহ বটে। রংপুরের মতো প্রায় প্রান্তিক অঞ্চলে তিস্তাকে উপলক্ষ করে প্রায় এক বিলিয়ন ডলার পাওয়ার দৃশ্য বলছে, আসন্ন ভূরাজনীতি বাংলাদেশের জন্য সাহায্য-সহযোগিতা-বিনিয়োগের নতুন তরঙ্গ নিয়ে আসতে পারে। বছরে ২০ লাখ তরুণকে কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিতে হলে অর্থনীতিতে যেভাবে প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রাখতে হবে, তাতে ওই তরঙ্গে নৌকা ভাসানো ছাড়া বিকল্প কী? তবে অসুবিধার দিকও আছে। দেশের জন্য ঋণের ফাঁদ এবং দুর্নীতির সংস্কৃতি জোরদার হতে পারে এতে। দেশি-বিদেশি সম্পদ কীভাবে খরচ হয় বা হওয়া উচিত, এ নিয়ে গণনজরদারির সঠিক ব্যবস্থা গড়া যায়নি আজও। বাড়তি অর্থ মানেই দুর্নীতির বাড়তি শঙ্কা তৈরি করে। ঋণখেলাপি হয়ে পড়া এবং সম্পদ পাচার তথাকথিত উদ্যোক্তাদের যে মজা এনে দিয়েছে, তাতে চীনকে তাঁরা ভবিষ্যৎ-বান্ধব হিসেবে দেখতে পারেন। পাশাপাশি মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তদের মধ্যেও চীনের দুর্নাম কম। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতিতে চীন কখনোই মোটাদাগে হস্তক্ষেপ করেনি। আবার উইঘুরের মুসলমানদের দুর্দশার গল্পগুলো এখনো কাশ্মীর বা আসামের মুসলমানদের মতো মনোযোগ পায়নি; বাবরি মসজিদের মতো তো নয়ই। এ রকম একটা রিপোর্ট-কার্ড আঞ্চলিক সুনাম-দুর্নামে চীনকে এগিয়ে রেখেছে। পক্ষান্তরে নয়াদিল্লির নীতিনির্ধারকেরা কেন আজও বাংলাদেশ সীমান্তে বেসামরিক মানুষের রক্তঝরা বন্ধ করতে পারলেন না, তা দুঃখজনক। বন্ধুত্ব এবং রক্তপাত একদম বিপরীতমুখী। সার্ক না থাকায় সে কথা বলারও জায়গা নেই। সবকিছু চূড়ান্ত হওয়ার পরও তিস্তার প্রবাহ নিয়ে চুক্তি না হওয়ায় কী বার্তা পেল বাংলাদেশের মানুষ? ৫৪টি আন্তনদীর দু–চারটির পানি নিয়েও কেন উভয় দেশ সমঝোতা করে উঠতে পারল না গত পাঁচ দশকে, তা বিস্ময়কর। গ্রীষ্মে শুকিয়ে থাকা নদীগুলোর দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশিদের যে বোবা ক্ষোভ হয়, তা বন্ধুত্বের অতীত দিয়ে কত আর মিটমাট করা যায়। এমনকি, ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিতর্কে বাংলাদেশের দিকে অঙ্গুলিনির্দেশও ঢাকার পক্ষে মেনে নেওয়া শক্ত, বিশেষ করে যখন মেঠো বাস্তবতায় তার সমর্থন দুর্লভ। তারপরও ভারত বাংলাদেশের জন্য এক মুখ্য বিবেচনা। চার হাজার কিলোমিটারের চেয়েও দীর্ঘ সীমান্ত উভয়ের। এ সত্য অগ্রাহ্য করা যায় না। ভবিষ্যতে এ সম্পর্ক আরও বেশি মনোযোগ ও যত্ন দাবি করতে পারে। কারণ, যুক্তরাষ্ট্র ভারতের বিশেষ বন্ধু এখন। আবার যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের বড় বাজারও। বড় বিনিয়োগ পেতে গিয়ে বড় বাজার হারানোর ঝুঁকি নেওয়া যায় না। বিজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জটি অনেক বড়, তবে মোকাবিলাযোগ্য চীনকে নিয়ে ভাবতে বসে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আরব আমিরাত ও সৌদি আরবের সাম্প্রতিক উদীয়মান মৈত্রীও বাংলাদেশ অগ্রাহ্য করতে পারে না। বিশেষ করে যখন তুরস্ক ও ইরানের সঙ্গে ঢাকার সম্পর্কে অর্থনৈতিক গভীরতা বেশি নয়। তবে বাংলাদেশের বন্ধুত্ব ফিরে পেতে পাকিস্তানের পুনঃপুন আগ্রহ বাংলাদেশের বাজারমূল্য বাড়াচ্ছে বৈকি। যেকোনো সরকারকে পূর্বাপর ভেবেই সিদ্ধান্ত নিতে হয়। আসামে প্রায় ২০ লাখ বাংলাভাষী হিন্দু-মুসলমান ‘বাংলাদেশি’ পরিচয়ের এক রহস্যময় রাজনীতির করুণ শিকার হয়ে আছে। পশ্চিমবঙ্গেও তথাকথিত বাংলাদেশি অনুপ্রবেশের রাজনীতি সরব। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি এবং সাম্প্রদায়িক সৌহার্দ্যের চলতি মাত্রার সঙ্গে এসব অনুপ্রবেশের ‘গল্প’ বেমানান হলেও আঞ্চলিক ভূরাজনীতি থেকে বিচ্ছিন্ন বিষয় নয় পশ্চিম-উত্তর সীমান্তের এই দুই দৃশ্য। একই রকমভাবে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানও কোনোভাবেই চীনকে অসন্তুষ্ট করে সম্ভব নয়। বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান এখন পর্যন্ত স্বচ্ছ। কোনো রকম ছদ্মযুদ্ধে নেই ঢাকা। কিন্তু আমাদের আরও বহুদূর এগোতে হবে। দুঃখজনক হলো আঞ্চলিক টানাপোড়েনে বাংলাদেশের জন্য এসব শুভ-অশুভ সংকেত নিয়ে কেবল সরকারকে একাকী সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। ‘জাতীয় ইস্যু’তে ‘জাতীয় ঐকমত্য’ চিরদিনই অধরা এ দেশে। স্থানীয় রাজনৈতিক দলগুলোর এসব নিয়ে ভাবনাচিন্তার প্রকাশ্য কোনো চেষ্টাই নেই। জনগণের তরফেও মতামত প্রকাশের কাঠামো নেই। ভূরাজনীতিতে ঐতিহাসিক মোড় পরিবর্তনের এই মুহূর্তে বাংলাদেশের নাগরিকেরা কেবল দর্শকের ভূমিকাতেই থাকছেন আপাতত। ছায়া-পররাষ্ট্রমন্ত্রীর রেওয়াজ এ দেশে বরাবরই অনুপস্থিত। কোনো দল ভূরাজনীতি নিয়ে ইদানীং কোনো সভা-সেমিনার-বৈঠক করেছে বলে দেখা যায় না। অথচ এ রকম কথাবার্তার মধ্যেই জাতীয় আকাঙ্ক্ষার হদিস মিলত। এ রকম আলোচনায় চীন-ভারতের প্রতিনিধিদের কাছে আমরা রোহিঙ্গা সংকটে তাদের নিষ্ক্রিয়তার ব্যাখ্যা শুনতে পারতাম। তবে আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে অভিমান আর স্থবিরতার মূল্য নেই। বাংলাদেশ গভীর সমুদ্রবন্দর বানাতে না দিলেও পাকিস্তান, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কায় চীন ইতিমধ্যে সেটা বানিয়েছে এবং বাংলাদেশের ওপর অভিমান করে বসে নেই। বাংলাদেশ একই উপকূলে অন্য দেশকে রাডার সিস্টেম বসাতে দিলেও চীন হয়তো অভিমান করে বসে থাকবে না। ইতিবাচক কূটনীতির ধরনই আজকাল এ রকম। বাংলাদেশকেও একইভাবে চলতি নতুন ঐতিহাসিক মুহূর্তটিকে হাতের মুঠোয় নিতে হবে। এ চ্যালেঞ্জে জনগণকে যতটা সম্পৃক্ত করা যাবে, ততই সিদ্ধান্ত নেওয়া সহজ হতে পারে। খেয়াল করলে দেখা যায়, মানচিত্রে ঢাকা-নয়াদিল্লি-বেইজিংয়ের মধ্যে রেখা টানলে একটা ত্রিভুজ তৈরি হয়। সেটা বিষমবাহু ত্রিভুজ। এ রকম ত্রিভুজের বাহু, মধ্যমা, কোণ, লম্ব—সবই অসমান। বাহুর দৈর্ঘ্য জানা থাকলেই কেবল বিষমবাহু ত্রিভুজের ক্ষেত্রফল নির্ণয় করা যায়। বাংলাদেশের সামনে চ্যালেঞ্জটি তাই অনেক বড়। তবে মোকাবিলাযোগ্য। রাজনীতিবিদেরা সেই অসম্ভবের শিল্পকলা জানেন। আলতাফ পারভেজ: দক্ষিণ এশিয়ার ইতিহাস বিষয়ে গবেষক
    1 point
  38. ******************************* Most Muslims get nostalgic over the Islamic golden age, when they become disillusioned with today's Muslim world. Little do modern Muslims know that most of the greatest minds from Islamic golden age subscribed to the school and teachings of Mu'taza/mu'tazaila. By today's standard by would get beaten up and possibly killed. Your fingers can tell you a lot about your... What kind of fingers do you have? tips-and-tricks.co In a nutshell mu'tazas incorporated ancient Greek philosophy and adjusted in Islamic context of metaphysical properties in the world, object, space, time, cause and effect. The group did not necessarily use the Quran and the sun ah as the only sources of understanding. They believed that humans existence was not predetermined and human kind made decisions independently of gods will. (Believed in absolute free will.) Many of the greatest mind from the Islamic golden age we're fiercest critics of literal interpretation of the quran. Among the many reasons, the Muslims world lack critical thought due to preference of revelation over reason/rationalism. Ibn Ḥanbal school of thought, was the seed of the down fall in the Muslims in the field of science and technology. Through his seed whabism came into existence and being the most dominant in the Muslim world.. Forum Home Forum
    1 point
  39. @Darth Nihilus see why I am against the construction of any new power plant- পায়রা পুরোদমে চালু হলে বন্ধ রাখতে হবে ছোট বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো পটুয়াখালীতে এবছরই পুরোদমে চালু হবে দেশের সবচেয়ে বড় পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র। দু’টি ইউনিটের মধ্যে এরই মধ্যে একটি ইউনিট পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করেছে। দ্বিতীয় ইউনিট উৎপাদনে আসার কথা চার মাস পর। সব মিলিয়ে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদনক্ষমতা দাঁড়াবে ১৩২০ মেগাওয়াট। পুরোদমে কেন্দ্রটি চালু হলে খুলনা ও বরিশালের সব বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ রাখতে হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। পিডিবি সূত্রে জানা গেছে, খুলনা ও বরিশালে এখন মোট বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে ১৬টি। এর মধ্যে খুলনায় ১০টি, বরিশালে ছয়টি। এছাড়া কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা দিয়ে প্রতিদিন এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ভারত থেকে আমদানি করা হচ্ছে। এর বাইরে বাগেরহাটের রামপালে নির্মাণাধীন বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিট আগামী ডিসেম্বরে উৎপাদনে আসার কথা রয়েছে। প্রসঙ্গত, করোনা ভাইরাসের জন্য পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রে কাজ করা চীনের প্রকৌশলীরা বাংলাদেশে এখনও আসতে পারেননি। তারা কবে আসতে পারবেন তাও জানা যায়নি। এ কারণেই দ্বিতীয় ইউনিটের উৎপাদন শুরু করা যায়নি। খুলনা জোনে মোট ১০ বিদ্যুৎকেন্দ্রের মধ্যে ভেড়ামারায় ৬০ ও ৪১০ মেগাওয়াট, ফরিদপুরে ৫০ মেগাওয়াট, গোপালগঞ্জে ১০০ মেগাওয়াট, খুলনায় ২২৫ ও ১১৫ মেগাওয়াট, নোয়াপাড়ায় ১০০ মেগাওয়াট, রূপসায় ১০৫ মেগাওয়াট, মধুমতিতে ১০৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে। এসব কেন্দ্র ছাড়াও ভেড়ামারা সাবস্টেশন দিয়ে ভারত থেকে আসছে ১০০০ মেগাওয়াট। ফলে এই জোনের বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর উৎপাদনক্ষমতা ২ হাজার ৩২৮ হলেও এখন বিদ্যুৎ উৎপাদনক্ষমতা ২ হাজার ৩১৪ মেগাওয়াট। যদিও এখন সেখান থেকে চাহিদা অনুযায়ী মাত্র ১ হাজার ৪৩৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। ফলে ৮৯৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ অলস পড়ে আছে। বরিশাল জোনের ছয়টি বিদ্যুৎকেন্দ্রের মধ্যে আছে বরিশালে ৪০ ও ১১০ মেগাওয়াট, ভোলায় ৩৩, ২২৫ ও ৯৫ মেগাওয়াট। এই কেন্দ্রগুলোর বর্তমান উৎপাদনক্ষমতা ৪৬২ মেগাওয়াট। কিন্তু গ্রিডে দেওয়া হয় মাত্র ২৫০ মেগাওয়াট। অর্থাৎ এখনই বিদ্যুৎ পড়ে থাকে ২১২ মেগাওয়াট। পিডিবির প্রতিদিনের চাহিদার হিসাব অনুযায়ী খুলনা ও বরিশাল জোনের বিদ্যুতের চাহিদা যথাক্রমে ১ হাজার ১০৩ এবং ২৩৯ মেগাওয়াট। ফলে সবমিলিয়ে দুই জোনের ১৬টি বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদনক্ষমতা এখন ২ হাজার ৭৭৬ মেগাওয়াট। এর বিপরীতে মোট চাহিদা ১ হাজার ৩৪২ মেগাওয়াট। এই অবস্থায় পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের দু’টি ই্উনিট চালু হলে এই বাড়তি বিদ্যুৎ যদি অন্য এলাকা সরবরাহ করা না যায় তাহলে হয় পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ রাখতে হবে নইলে ওই এলাকার প্রায় সব বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ রাখার মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহম্মদ হোসেইন বলেন, ‘পায়রা চালু হলে ছোট ছোট বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হবে। যেহেতু সে এলাকায় চাহিদা কম সেহেতু একটি বড় কেন্দ্র চালু হলে ছোট কেন্দ্রগুলোর আর প্রয়োজন হবে না।’ পায়রার বিদ্যুৎ সঞ্চালনে দু’টি সঞ্চালন লাইন করা হচ্ছে। একটি পটুয়াখালী (পায়রা) থেকে গোপালগঞ্জ পর্যন্ত ১৬০ কিলোমিটারের ৪০০ কেভির ডাবল সার্কিট লাইন। অন্যটি পায়রা-পটুয়াখালী ২৩০ কিলোভোল্টের (কেভি) ৪৭ কিলোমিটারের লাইন। এর মধ্যে গোপালগঞ্জ পর্যন্ত লাইনটি চালু হয়েছে। এই লাইনের মাধ্যমে পায়রা হতে পটুয়াখালী সদর-বরগুনা-ঝালকাঠি-বরিশাল-মাদারীপুর হয়ে গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলায় নবনির্মিত ৪০০/২৩০ কেভি গ্রিড উপকেন্দ্রে সংযুক্ত হয়েছে। কিন্তু এই দুই সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলেই বিদ্যুৎ দেওয়া যাবে। এর বাইরে দিতে হলে আলাদা সঞ্চালন লাইন করতে হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।
    1 point
  40. Moody’s latest report reflects Bangladesh’s economic strength The review highlights how Bangladesh balances robust growth prospects against very low per capita income and economic competitiveness Moody's Investors Service has just completed its periodic review of a group of issuers – including Bangladesh. Bangladesh's credit profile reflects the country's economic strength – which balances robust growth prospects against very low per capita income and economic competitiveness. It also shows the country's vulnerability to climate change risks – given its low-lying nature with large coastal areas prone to flooding and the influence of seasonal monsoon rains on rural incomes and consumption. The review of the strength of institutions and governance takes into account weaknesses in the government's effectiveness, corruption control and low credibility in its legal structures – although macroeconomic policies are effective and conducive to macroeconomic stability. It assessed the fiscal strength of Bangladesh's government – which balances the government's low debt burden against weak debt affordability because of its narrow revenue base. The review also covers susceptibility to domestic political risk – incorporating a high-probability, low-impact scenario involving protests motivated by issues ranging from wages to road safety – that threatens to slow economic activity and raise perceptions of risks in the country. Meanwhile, banking sector risk remains elevated given the persistent weakness of state-owned banks.
    1 point
  41. The BD shipbreaking industry gives off the vibe that it is some sort of necessary evil since it is the main source of steel for the country. But I feel like this should not be an excuse for the lack of concern by the policymakers over the safety of the workers there.
    1 point
  42. Pakistan can be an ally no doubt, I actually want Bangladesh to take a softer approach to Pakistan and Imran khan is the guy we needed in Islamabad. He's got the Indians under pressure. Bangladesh can't keep India in check by itself and our economic clout can only take us so far, we need a friend whose nearby, it's even better that friend has the same enemy as us; Akhand Bharat. Regardless of what clueless Yahoos say India under BJP is the greatest threat to Bangali way of life since 71.
    1 point
  43. Bangladeshi firm holds steady among world's largest 5,000 Asia accounts for 43 percent of the world's top firms by revenue and is the only region whose representation has risen over the past ten years A Bangladeshi company has held its rank among the world's largest 5,000 firms, according to a report by the McKinsey Global Institute. The American management consultancy firm published the report "Corporate Asia: A Capital Paradox" in January this year. In a previous report of the McKinsey published in July last year, the total revenue generated by the company was $1 billion, based on data from 2017. The report did not explicitly state the Bangladeshi company's name. But there are speculations in the local market that the firm could be the Summit Group, a large conglomerate involved in sectors such as communication, trading, shipping, energy and power. Incorporated in Singapore, the Summit Power International is a leading infrastructure developer and operator in South Asia. Setting up Bangladesh's first independent power plant in 1997, the Summit Power International went on to become the country's largest Independent Power Producer, reflecting 21 percent of Bangladesh's total private installed capacity and 9 percent of total installed capacity in 2017. In October 2019, Japan's largest energy company Jera acquired a 22 percent stake in the Summit Power International for $330 million. Asia: A force to reckon with Asia captured $1 of every $2 in new investments in the past decade, and this investment has helped the region scale rapidly. Asian companies have the largest share in the G5000 – the world's largest 5,000 firms by revenue. Asia accounts for 43 percent of the world's top 5,000 firms by revenue and is the only region whose representation has risen over the past ten years, the report said. Chinese companies doubled their share of the G5000, in the decade, to over 900 firms and India's representation also doubled from a lower base of 85 to 142, the seventh-highest share. Although Asian firms outperform on growth in invested capital, they have underperformed when turning it into economic profit, added the report. During 2005-07 and 2015-17, economic profit dropped from $726 billion to an economic loss of $34 billion and half of that drop happened in Asia. The report mentioned that three things led to this drop – the cyclicality of returns in the energy and materials sector, Europe's underperforming financial sector and China's allocation of capital to value-destroying sectors. One-third of all investments happened in China and 80 percent of that had been in value-destroying sectors. In the past decade, the energy and materials sectors turned from being a large contributor to economic profit to the largest reason for lost economic profit, accounting for $500 billion of the slump. However, value is still being added in some pockets. And information technology globally has been a value-creator. The McKinsey said, "We see pockets in Japan – the capital goods sector which means investments, heavy manufacturing, automotive and chemicals. That has been value-creating. We see that tech investments into Japan, Korea and China have been creating value. "The coming decade will perhaps reap the benefits of these investments. They have been put in place, so we now hope to start seeing the returns on some of these over time." In Asia, the "Troubled 200" – 200 largest companies that destroyed more economic profit than others – need to be turned around. Similarly, the "Terrific 200" – companies that created a disproportionate amount of value – should get disproportionate investments to reverse global economic profit destruction.
    1 point
  44. You have to introduce yourself here and also post at least a minimum of 10 posts to have your account upgraded to verified status. Its an automatic process so just keep on participating until you reach the threshold.
    1 point
This leaderboard is set to Dhaka/GMT+06:00


×
×
  • Create New...