Jump to content
Please ensure regular participation (posting/engagement) to maintain your account. ×

Bangladesh Police vehicles


Recommended Posts

  • Administrators

In 2013 Adnan Corporation sold 5 units of Riot Van (Water Cannon) – manufactured by DAEJI PRESITION & INDUSTRIES CO., LTD; South Korea – to Bangladesh Police for using them in UN peace keeping mission.

Total contract Value: USD 800,000.00 (Eight Hundred Thousand US Dollar Only)

KFvTqzc.jpg

Link to comment
Share on other sites

  • Administrators

In 2012 Adnan Corporation sold 17 units Armored Personnel Carriers (APC) – manufactured by STREIT MANUFACTURING INC., Canada – to Bangladesh Police for using them in UN peace keeping mission.

Total contract value: USD $ 5,434,900.00 (Five Million Four Hundred Thirty Four Thousand Nine Hundred US Dollar Only).

BKaeiIa.jpg

mSdpBYx.jpg

9Sy5IDE.jpg

i3ZT8GP.jpg

NG6a9Df.jpg

  • Like 1
Link to comment
Share on other sites

  • 1 month later...
  • 5 weeks later...
  • Administrators

19 ships of River Police working to prevent coronavirus spread in riverways

Starting from April 11, the ships have already pushed back 310 people from different river ports and ghats

River Police, a specialised unit of Bangladesh Police responsible for policing internal riverways of the country, has deployed 19 ships and 23 speedboats to control the movement of people in riverways amid the spread of novel coronavirus in the country. 

The ships will also strengthen the government's ongoing drive against catching jatka (juvenile Hilsa), says a press release issued by the river police.

Starting from April 11, the ships have already pushed back 310 people from different river ports and ghats. 

"After observing the current situation, we came to the conclusion that preventing the spread of coronavirus via riverways would have been easier if brick-field owners agreed to give minimum incentives to the workers," the press release reads.

Besides pushing back people, the river police have recovered 15,000 kilograms of jatka in the last 15 days, all of which have been distributed among local orphanages, gipsies (snake charmer) and poor people. 

  • Like 2
Link to comment
Share on other sites

  • 3 months later...

অত্যাধুনিক জলযান পেলো খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট

a685273e84eab0486c91490377bd5377-5f2006d

সুন্দরবন ও উপকূলীয় এলাকায় অপরাধমূলক কার্যক্রম নির্মূলে আইজিপি কর্তৃক খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট জেলার জন্য বরাদ্দকৃত তিনটি অত্যাধুনিক জলযান (স্পিডবোট) বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মহানগরীর জেলখানা ঘাটে এ বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি ড. খ. মহিদ উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (অ্যাডমিন অ্যান্ড ফিন্যান্স) মো. হাবিবুর রহমান, অতিরিক্ত ডিআইজি (অপারেশনস অ্যান্ড ক্রাইম) একেএম নাহিদুল ইসলামসহ খুলনা রেঞ্জ অফিস ও জেলার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ডিআইজি ড. খ. মহিদ উদ্দিন খুলনার পুলিশ সুপার এস. এম. শফিউল্লাহ, বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায় এবং সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে জলযানের চাবি হস্তান্তর করেন।

এ সময় ডিআইজি ড. খ. মহিদ উদ্দিন বলেন, কোরবানির সময় চামড়া পাচার প্রতিরোধে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে ইতোমধ্যে দেশের ৬৬০ জন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। জাতীয় সম্পদ রক্ষায় পুলিশ কঠোর অবস্থানে থাকবে। সুন্দরবনের জলদস্যু, বনদস্যুদের প্রতিহত করতে পুলিশ সর্বদা তৎপর। সম্প্রতি সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট এলাকা থেকে বিভিন্ন অপরাধীকে আটক করা হয়েছে। বরাদ্দকৃত তিনটি অত্যাধুনিক জলযান সুন্দরবন এলাকায় পুলিশের কার্যক্রম আরও গতিশীল করবে।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় আইলা, বুলবুল, ফনি, আম্ফানের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগে সুন্দরবনের কারণে উপকূলীয় এলাকায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কম হয়। সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য রক্ষায় এর ভিতরেই পুলিশের নিয়ন্ত্রণে ক্যাম্প স্থাপনের চিন্তাভাবনা রয়েছে। তাছাড়া ওই এলাকায় অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হবে যার, মাধ্যমে অপরাধীদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ এবং তাদের আটক করা সম্ভব হবে।

Link to comment
Share on other sites

  • 9 months later...

Please sign in to comment

You will be able to leave a comment after signing in



Sign In Now
 Share

×
×
  • Create New...