Second C-130J from UK arrives in Bangladesh

Second C-130J from UK arrives in Bangladesh

19th May 2020 Off By Aparajita Banerjee

The second C-130J transport aircraft of the Bangladesh Air Force arrived in Bangladesh yesterday at the Bangabandhu airbase in Dhaka. The aircraft and crew were given a water cannon salute and received by the Chief of Air Staff Air Chief Marshal Masihuzzaman Serniabat,BBP, OSP, ndu, psc and H.E. Robert C Dickson, British High Commissioner to Bangladesh with presence of other defence officials.

Marshal Aerospace & Defence Group was awarded two contracts by the Bangladesh Air Force to upgrade C-130J transport aircraft purchased from the Royal Air Force inventory in 2018-2019. This is the first time the Bangladesh Air Force awarded a comprehensive package to a British company. The Cambridge-based aerospace group will also be responsible for in-country support in Bangladesh to maintain the aircraft during the course of its operations.

Some aircraft have been modified with MEDIVAC equipment but still retain their transportation capabilities. The aircraft can be used to perform paradropping, cargo transportation, VVIP transportation.

The Air Force has already utilised the aircraft to transport medical equipment for COVID19.

The Bangladesh Air Force released a statement (in Bengali):

বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরী সি-১৩০জে পরিবহন বিমানের আগমন।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনা ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বর্তমান সরকার বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর আধুনিকায়নে অত্যন্ত সচেষ্ট। তারই ধারাবাহিকতায়, যুক্তরাষ্ট্রের তৈরী অত্যাধুনিক ০৫টি সি-১৩০জে পরিবহন বিমান যুক্তরাজ্যের রয়েল এয়ার ফোর্সের সাথে ক্রয় চুক্তি এবং মার্শাল এ্যারোস্পেস এন্ড ডিফেন্স গ্রূপ এর সাথে রক্ষণাবেক্ষণ চুক্তির মাধ্যমে বিমান বাহিনীতে সংযোজনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। উক্ত বিমানগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় সি-১৩০জে বিমানটি যুক্তরাজ্য হতে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর নিজস্ব বৈমানিক কর্তৃক সফল ফেরী ফ্লাইটের মাধ্যমে মঙ্গলবার ১৯ মে ২০২০ বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে অবতরন করে। এসময় বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত, বিবিপি, ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি এবং বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার H. E. Robert Chatterton Dickson উপস্থিত ছিলেন। যাত্রাপথে বিমানটি কায়রো (মিশর) ও মাসকাট (ওমান) এ অবতরন করে এবং এই দুটি বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের জন্য কিছু শুভেচ্ছা বার্তা ও শুভেচ্ছা নিদর্শন সামগ্রী নিয়ে যায়। এছাড়া, করোনাভাইরাস এর কারণে কায়রোতে আটকে পড়া কিছু বাংলাদেশী নাগরিক উক্ত বিমানের মাধ্যমে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়।

বিমান বাহিনী ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে ঐতিহ্যগত রীতি মোতাবেক অভ্যর্থনা জানানো হয়। উল্লেখ্য যে, সি-১৩০জে পরিবহন বিমান অত্যাধুনিক এভিওনিক্স ও উন্নত প্রযুক্তি সম্পন্ন পরিবহন বিমান যা মালামাল ও সৈন্য পরিবহনসহ দেশে এবং বিদেশে মানবিক সহায়তা কার্যক্রম এবং জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে ব্যবহৃত হবে। ক্রয়কৃত অবশিষ্ট বিমানগুলি পর্যায়ক্রমে যুক্তরাজ্য হতে নিয়ে আসার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে অত্যাধুনিক এই সি-১৩০জে বিমানের অন্তর্ভুক্তি, বিমান বাহিনীর পরিবহন ক্ষমতা সর্বোপরি বাহিনীর সক্ষমতাকে বহুলাংশে বৃদ্ধি করবে। এখানে আরও উল্লেখ্য যে, উক্ত অনুষ্ঠানে বিমান সদরের প্রিন্সিপাল ষ্টাফ অফিসারগণ, বিমান বাহিনী ঘাঁটি বঙ্গবন্ধু ও বাশার এর এয়ার অধিনায়ক এবং উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।