Jump to content
Please ensure regular participation (posting/engagement) to maintain your account. ×

Recommended Posts

  • Gold Class Members

https://thefinancialexpress.com.bd/trade/bangladeshs-lone-irradiation-centre-soon-for-agribusiness-1636776085

Bangladesh's lone irradiation centre soon for agribusiness

 JASIM UDDIN HAROON Back from BINA, MYMENSINGH | Published:  November 13, 2021 10:01:25 | Updated:  November 13, 2021 19:21:03

https://thefinancialexpress.com.bd/uploads/1636776085.jpg

Bangladesh's lone nuclear agriculture agency is setting up a maiden irradiation centre for fresh fruits and vegetables to prevent spoilage and insect infestations that cost the country minimum Tk 20 billion in postharvest losses annually.

The damage and degradation of quality of the prospective export items also mar overseas market expansion, particularly in Europe, sources say.

Bangladesh Institute of Nuclear Agriculture or BINA, which is implementing the project in Bhanga area of Faridpur, is expecting to launch in January next the technology that scientists concerned say holds out multiple boons regarding supply of essentials and public health.

"We're expecting to start piloting in January. And afterwards, we will start commercial operation…," Dr Mirza Mofazzal Islam, director-general at the BINA, told the FE at his office on the Bangladesh Agricultural University (BAU) campus in Mymensingh on Thursday.

Mr Islam, also a renowned breeder, said farmers of vegetables, spices and fruits incur postharvest losses worth around 30 per cent each year. "We'll be able to minimise the losses significantly by using the peaceful uses of the atomic energy."

However, benefits of irradiation, which extends shelf life of some key foods, are often highly touted. Some say it will be a boon to farmers and exporters by extending the life of produce for export while others say it could increase country's food supply and help stabilise prices on the local market.

Mr Islam, who is chief executive at the BINA, said this may enhance country's export receipts as the importing nations, especially the 27-member EU economic bloc, allow it in procuring foodstuffs from other economies.

In the meantime, people at the BINA said the name of the centre is 'Bangabandhu Gamma Irradiation Centre' at Bhanga. The plant will have capacity to irradiate 85,000 tonnes of vegetables and others amounting to Tk 1.25 billion. It will derive Tk 250 million in revenues for the nuclear agriculture agency.

Faridpur has been selected as it is one of the major onion-growing areas in the country, and the spice item rots fast and sprouts after few weeks. Apart from this, agricultural producers of the West and Southern districts may utilise the facility.

They further say potato will not need additional preservation up to six months for using the technology while onion up to six months, tomato 22 days, and litchi seven days. It will take just 4-5 seconds to pass on thorough conveyer belts.

However, proponents of irradiation at the BINA say it is one way food can be preserved without using potentially cancer-causing chemicals. They say irradiation will enhance consumers' health by replacing hazardous post-harvest chemicals.

To preserve food with radiation, the item is exposed to gamma rays (which are similar to X-rays) emitted by radioactive materials. The radiation usually zaps food-borne bacteria. Gamma rays penetrate the food and kill bacteria and other infectious organisms by preventing the organisms from dividing and growing. The edibles, however, do not become radioactive.

BINA is taking technical assistance from the Vienna-based IAEA. It is procuring the equipment through competitive bidding from Germany, at a cost of around Tk 1.6 billion.

The concept of irradiated foods first reached the public when Soviet cosmonauts complimented American astronauts on the tastiness of their irradiated steak during the 1975 Apollo-Soyuz rendezvous.

Now China is the biggest user of the technology. Malaysia, Indonesia, Pakistan and Thailand also use it as the European Union allows the technology for importing food items.

[email protected]

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangla/বাংলাদেশ/news-details-77281

টিবিএস রিপোর্ট

15 December, 2021, 11:50 pm

Last modified: 16 December, 2021, 12:10 am

বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকে তলানিতে বাংলাদেশ

গত বছর বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল সবচেয়ে নিচে। এবার অবশ্য পাকিস্তান ও নেপালকে পিছনে ফেলতে পেরেছে বাংলাদেশ।

knowledge_index.png?itok=8JSMYJ7K&timest

 

চলতি বছরের বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকের (গ্লোবাল নলেজ ইনডেক্সের) তালিকা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) ও মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম নলেজ ফাউন্ডেশন (এমবিআরএফ)। এ তালিকায় বিশ্বের ১৫৪টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২০তম। 

প্রযুক্তিগত ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণ আর জ্ঞান অর্থনীতিতে সূচকে ভালো পারফরম্যান্স করেছে বাংলাদেশ। কিন্তু গবেষণা, উন্নয়ন ও উদ্ভাবনে ধারাবাহিকভাবে খারাপ করে চলেছে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে নিচে বাংলাদেশ। আর টানা চতুর্থবারের মতো এই তালিকায় শীর্ষে আছে সুইজারল্যান্ড।

বাংলাদেশের স্কোর ২ দশমিক ২ বেড়েছে এবার। ফলে সার্বিক স্কোর বেড়ে হয়েছে৩৮ দশমিক ১। তারপরও বৈশ্বিক গড়ের চেয়ে কম স্কোর অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

২০২১ সালের জ্ঞান সূচক তৈরিতে সাতটি বিষয়কে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। এগুলো হলো—প্রাক্‌-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা, প্রযুক্তিগত ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা, উচ্চশিক্ষা, গবেষণা, উন্নয়ন ও উদ্ভাবন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, অর্থনীতি এবং সাধারণ সক্ষমতার পরিবেশ।

গবেষণা, উন্নয়ন ও উদ্ভাবন খাতে বাংলাদেশের স্কোর মাত্র ১৯ দশমিক ২ এবং ১৩৬তম অবস্থানে রয়েছে। 

বাংলাদেশের পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, সূচকটিতে বাংলাদেশের গবেষণা ও উন্নয়নের বাস্তব চিত্র প্রতিফলিত হয়েছে। তিনি বলেন, এই খাতে দুরবস্থার একটি বড় কারণ হলো, বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিশ্বের শীর্ষ ৫০০তেও নেই।

সাতটি উপসূচকের মধ্যে বাংলাদেশ সবচেয়ে ভালো স্কোর পেয়েছে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণ খাতে। এ খাতে ৫১ দশমিক ৫ স্কোর নিয়ে ৭৭তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। 

অর্থনীতির উপসূচকে ৪৬ দশমিক ৯ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ১০১তম। ৪৪ দশমিক ৭ স্কোর নিয়ে প্রাক্‌-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা খাতে ১১৯তম অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। এছাড়া আইসিটি খাতে ২৮ দশমিক ৩ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ১১৭তম। সাধারণ সক্ষমতার পরিবেশে বাংলাদেশের স্কোর ৪১, অবস্থান ১৩৪তম।

বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকের তালিকায় টানা পঞ্চমবারের মতো শীর্ষস্থান দখল করেছে সুইজারল্যান্ড। তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র, তৃতীয় স্থানে ফিনল্যান্ড এবং চতুর্থ স্থানটি নেদারল্যান্ডসের দখলে।

গত বছর ৩৫ দশমিক ৯ স্কোর নিয়ে বিশ্বের ১৩৮টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১১২তম অবস্থানে ছিল। গতবার দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে নিচে ছিল বাংলাদেশ।

এ বছর ৩৮ দশমিক ১ স্কোর নিয়ে পাকিস্তান (১২৩তম) ও নেপালকে (১২৮তম) পিছনে ফেলেছে বাংলাদেশ।

৪৬ দশমিক ৬ স্কোর নিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে আছে শ্রীলঙ্কা। দেশটির বৈশ্বিক অবস্থান ৮৬তম। ৯৭তম অবস্থানে থেকে এই অঞ্চলে দ্বিতীয় শীর্ষস্থানে আছে ভারতে। 

দক্ষিণ এশিয়ায় ভুটান ও বাংলাদেশ যথাক্রমে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান দখল করেছে।

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.newagebd.net/article/157436/bangla-computing-follies-all-the-way

Bangla computing: follies all the way

Abu Jar M Akkas | Published: 00:00, Dec 16,2021 | Updated: 00:11, Dec 16,2021

https://www.newagebd.com/files/records/news/202112/157436_110.jpg

The draft table of the 1993 Bangladesh efforts of a Bangla code page.

CHARACTERS to the code page are what letters are to the alphabet. A set of letters is what makes an alphabet, which is used to write a certain language. A set of characters, or numbers assigned to characters, in a block or table is what makes a code page that allows the writing of more than one languages using similar scripts on computer. And, characters, which can in an extreme generalisation be called letters, are visible only when they become manifest in their glyphs. And a glyph, the visible form of a single character, can be variously manifest — in letters that are upright, slanted or emboldened. They can also look different depending on the style and genre — or face for that matter.

The presence of poor understanding, or the absence of any understanding at all, of the issues appears to have marked the development of, and marred the efforts for, a code page that could have made Bangla computing universal — across programs on different operating systems — when the issues primarily came up in public discussion, with one group of people, basically technologists, struggling to work out something effective, another group of people, basically traders of technological devices, trying to oppose what the technologists would say in fears of losing their business and, yet, another group of people, basically experts in other areas but hardly attuned to computing, floundering in between, without having the standing to say something resolutely in favour of or against what the two other groups would say. This was how it all began in the early 1990s.

The first computer in what now constitutes Bangladesh was, however, an IBM 1620 mainframe — a general-purpose, stored-program data processing system — that Pakistan received under the Colombo Plan. It was installed at the Dhaka centre of the Pakistan Atomic Energy Commission, which was later renamed as the Bangladesh Atomic Energy Commission, in the last quarter of 1964. The computer, a second-generation mainframe, came to be installed in Dhaka because there were none but one, Hanifuddin Mia who trained in analogue computer technique and digital computer programming in Prague in 1960, in the whole of Pakistan who knew how to run a computer. He was offered an overture in West Pakistan but he resolved not to leave East Pakistan. The computer, thus installed in Dhaka, catered to universities and government and semi-government research and development agencies in the whole of Pakistan. The machine — which IBM announced on October 21, 1959 and withdrew on November 19, 1970 — was declared dysfunctional on July 5, 1980 and it has been housed in the Science and Technology Museum since 2001.

Although it was not until the mid-1980s that computers could effectively process texts in Bangla in a significant way, the proof of concept work on Bangla computing is reported to have begun roughly in 1977 after the microprocessor that had arrived in 1971 paved the way for the IBM personal computer in 1974 and Apple Macintosh in 1976; the IBM compatibles became available in 1982. Efforts of some individuals came to be reported while efforts of some other may have gone unnoticed. A Sweden-based Bangladeshi student is reported to have first used the computer to publish a newsletter in Bangla in 1977. In July 1982, the Bangladesh University of Engineering and Technology came up, after six years of work, with a hardware-based solution, partially completed, where a low-cost microcomputer could write Bangla. The letters, which were fixed-pitch, hardly looked good but any further work was thwarted by compounding problems of conjunct letters. The project remained at the research level and was finally shelved.

Efforts in this direction progressed on the Apple Macintosh front. The first workable program to write Bangla text came about in January 1985, reportedly after two years of work. Saifuddoha Shahid, an employee of Beximco Ltd, began the work to create a font on Mac in 1983 and he could finish designing a bitmapped font in Apple’s Resource Editor in 1984. Zafar Iqbal developed a system to process Bangla script on Mac at CalTech in the United States about the same time. Saifuddoha Shahid released Shahid Lipi, which could process Bangla text on Mac with a keyboard overlay and some TrueType fonts, in January 1985. The program was later ported to Windows, but it is reported not to have properly worked much later with newer versions of computer and operating systems coming in and the program gradually fell out of use. The National Mass Media Institute, which had plans to develop a fully-fledged word processor since 1984, began work with two Macs, two image-writers or dot-matrix printers, a laser printer and a copy of the Shahid Lipi program under a scheme funded by UNESCO in 1986. But it did not proceed further.

A Kolkata-based Indian enterprise named Rahul Commerce is reported to have, meanwhile, designed a font named Bankim, a Postscript font, for use on computer. A Bangladeshi named Gautam Sen is reported to have designed the font. Saifuddoha Shahid is reported to have been asked to create a laser font, but Bankim had reached Dhaka before he could finish his work. A flight engineer named Mahmud Hossain is reported to have developed the second laser font. Saifuddoha Shahid had already completed designing his font, but it could be of little use in the absence of a keyboard driver.

https://imagenfile.newagebd.com/uploads/aks_code1995.jpg

The first official Bangla code page issued by the Standards and Testing Institution in 1995.

Next came a system devised by Abdul Mottalib said to have been talked about in a presentation. Mainul Lipi, developed by Mainul Islam, came out in 1987. It was used in a publication in May 1987. But many thought that the typeface was not good to look at. Some improvements were made to the font by September 1987, but it basically remained the same. It was then Mustafa Jabbar and Gholam Faruque Ahmed who developed a system named Bijoy, which was released in December 1988 — a set of fonts and a keyboard overlay with the software reportedly written by an Indian programmer by the name of Devendra Joshi, then working as a programmer in the Apple distributor’s office in Delhi.

Mustafa Jabbar developed a font called Ananda in December 1987 and it began to be used in a Bangla-language newspaper called the Azad. This font was better than the earlier ones. But using the Jabbar overlay, which was developed by Mustafa Jabbar in 1982 mostly modelled on the typewriter’s Munier overlay, it was very difficult to type faster. Because the keyboard assigned four letters to a single key on the board, in four tiers, normal, shift, option, which is the same as the control key on PC, and shift option. The Bijoy interface system and fonts, released on December 16, 1988, made keyboard manipulation simple and fast. A horde of fonts coming out earned the system a huge market share. Another interface named Basundhara came out on Mac in 1992. Until towards the end of the 1980s, it was all an affair running on graphical window on Macs, with fonts, the keyboard overlay and the driver bundled as add-ons running on top of word processors or layout software.

The table had by then turned for the IBM personal computers and compatibles. People started work on writing Bangla on personal computers. A company called Compico made the first attempt at a hardware-based approach in 1987. But low-quality printing and an absence of the ease of use held it from gaining ground. Another firm called Computer Land started marketing DuangJan, a full-screen international word processing program for the IBM PC and compatibles which allowed users to edit text concurrently in English and another foreign language and it had Bangla on offer on the platter. Computer Land started marketing the program, which had been in use in the United States around 1986, in 1988. It was developed by the Philadelphia-based Megachomp Company. A few copies of the program were sold, but it began to be heavily copied soon after.

Two local firms — Computer Solutions Ltd and Graphics Information System — tried at the localisation process that was developed in India. Although the fonts created using the technology produced better results, the whole affair was expensive and both the companies failed to gain any market share. Shamsul Haque Chowdhury, of Automation Engineers, worked in the same direction. He started working in 1987 and could use Bangla on computers with the help of a hardware card and a program called Abaha, which was released in November 1988. Immediately after Abaha, Unidev Computer Solutions tried to market the Indian GIST card-based technology. Graphics Intelligent Script Technology used an indigenously designed special purpose VLSI chip called GIST 9000. But they both failed in a Mac-dominated publishing industry. Subsequently evolved Onirban and Barna. Onirban, not a basic word processor in itself, was released in March 1990. It was developed in Pascal programming language.

Barna came out to be the first basic fully-fledged word processor on DOS. Work on Barna began in 1988 and the first release came out in 1990. The program offered three Bangla and three Roman typefaces and an ‘easy’ overlay in addition to three popular overlays in use. The developer duo of Barna later founded the SAfeworks to take over the marketing of the software. Barna came to ship a spell-checker called Pandit with 60,000 basic word entries and the word-processor was ported to Windows in 1993 as Barnana. A Bangladeshi student in China, Maruf Hassan, is learnt to have been developing a Bangla script text-processing software using multi-byte codes around 1992; but nothing of it was heard thereafter. DOS-based programs could offer a good means for office and personal use. They had commanded the market for a long time, but they failed to offer any appreciable means for desktop publication.

With people having more access to graphical user interface such as Windows on the IBM and compatibles, efforts on fonts and overlays, which included the driver and the layout, got a going. Several add-ons that could work on Windows entered the scene in a short span. Basundhara became available for Windows in 1993 a year after it had been released for Mac. Barnana, a Windows version add-on of Barna, came out in 1993. Onirban was upgraded to version 3.0 for Windows that year. Proshika Computer Systems brought out Proshika Shabda in 1994 and Lekhani, both on Windows and Mac, was out in December 1994. Two more programs — Asha and Prabartan — came out about the same time.

A few years after, in 1997, Hi-Tech professionals developed Anmana. Before the turn of the century, there were a number of options, with varied capabilities, on offer for people to choose one from — Orcosoft Borno, Adarsha Bangla, Bhasha Sainik, Natural Bangla developed by CDS-IT, Lekhak, Bangla 2000 and the like, coupled with some programs that allowed users to type texts with mouse clicks; 8 Phalgun, released in 1998 by Microtek, and Duranta Bangla, which came out in 1999, were two examples of this kind. But almost all of the late entrants failed to gain any notable market share as did other add-ons developed by Access Ltd, Micrologic, Flora Limited, etc. None of them could make any dent in the market already dominated by Bijoy, Lekhani, Proshika and Barnana.

While all this that happened on the user side left the sphere of Bangla computing with a horde of programs and more than a hundred fonts, what became the most troublesome issue is the various font encodings that the developers used in laying out their fonts, mostly TrueType. There were more than a dozen font encodings, which are basically graphical forms of Bangla letters or part of letters placed in a certain order in a file that had 256 places, but the use of 190 or so of them was allowed. This soon made texts processed with individual programs unintelligible to one another, creating a Tower of Babel. The problem of interoperability of text or electronic data interchange could have been effectively solved if the government had taken the right approach when it set up a committee for the implementation of the Bangla language on computers in 1987.

But, by the mid-1990s, the situation curdled enough to create effective hurdles to a meaningful resolution of code page issues. Indolence, and even inadequacy, on part of the government, the emergence of traders dealing in electronic typewriters, early birds in the word-processing and add-on trade, and the formation of a software services group lent enough strength to the opposition of anything that could prove good in Bangla computing. The government set up the National Computer Committee in 1983 which was meant more to control the use of computers. With some deregulations, the entity was turned into the National Computer Board in 1988. It became the National Computer Council in 1990 with an ordinance.

The committee on the implementation of the Bangla language on computers kept floundering until 1992. All the while the committee flustered about what to do to design a standard Bangla keyboard overlay or a code set for Bangla characters, agencies in India, especially the Department of Electronics and the Centre for Development of Advanced Computing, did the research and work on laying out a common code page for most of the Indian, or Indic, languages. It had begun work in 1986, a year before Bangladesh set up the committee. The Bureau of Indian Standards published the first code page for Indic languages, which included Bangla, in 1991 after the work that spanned from 1986 to 1988. It was formally named BIS 13194:1991, or the Indian Standard Code for Information Interchange, modelled on the name of ASCII or the American Standard Code for Information Interchange that has been in existence and use since 1963, initially named as ASA X3.4-1963, which underwent two minor revisions.

The ISCII code page, laid out in two versions of 7- and 8-bit, mainly dealt with Devanagari letters employed to write Hindi, Marathi, Nepali and some other languages. Letters of nine other Indic languages are mapped onto the Devanagari characters. This is the first instance of an official Bangla code page. The code page had a limited, regional use, yet it formed the basis for the Unicode Bangla as it came out as an international standard in October 1991. As Unicode started to gain grounds, across international boundaries and across platforms, it give birth to opposition by software vendors, who goaded the policymakers, to Unicode and the opposition still continues on a limited but ineffectual scale. It was in April 1992 that the then head of the computer science and engineering department at the Bangladesh University of Engineering and Technology was entrusted with laying out a Bangla code page or coded character set. A draft could be readied by August that year. The draft was approved in June 1993 and sent to the Bangladesh Computer Council in July. The Computer Council sent the documents to the Bangladesh Standards and Testing Institution for approval towards the end of July.

The opposition to Unicode on the premise that it was based on the Indian Standard Code for Information Interchange carried no meaning in that it is all about the early bird catching the worm. Unicode people had ISCII before them and they modelled the Bangla code block on ISCII but with noticeable changes, modification and addition, especially in the ligation control method and the formation of extended characters. The proverb is also true about the dominant keyboard overlay called Bijoy. It came first, with ease, and gained ground.

Bangladesh so far has had five code page happenings, including the 1993 efforts that fell through. The first standard, which is the second effort, that came out in 1995 was something that technologists here devised by cudgelling their brain. But it was the worst of all by any definition of a code page and it suggested that the people involved in the process had neither any understanding of what a code page should be nor a proper understanding of how Unicode works. The three other efforts — in 2000, 2011 and 2018 — only rubber-stamped the international Unicode standard, with some minor suggestions that the Unicode Consortium has never cared to bother about.

A Bangla keyboard implementation committee, meanwhile, could come up with a keyboard overlay and a font scheme under the stewardship of the Bangla Academy in 1992. It was a private computer company, CiTech Co Ltd, that designed the overlay for the academy free and it hardly warranted any efforts from other members on the committee. The ‘ideal’ keyboard was advertised in early December that year, but it failed to take off primarily because of the objection of a vendor against the overlay with allegations of copying the key distribution scheme from the vendor’s overlay. Some of the vendors wanted the keyboard to have 96 keys while some wanted the number to be 94 keeping to the number of keys available in electronic typewriters depending on the make. The committee had been largely sandwiched between technologists, on the one hand, and vendors of electronic typewriters and Bangla add-on developers, on the other hand. Media reports of the time suggest that all the quarters stood their ground so as not to lose the market share that they gained. And, such quarters included typewriter vendors who feared that once a different overlay was officially decided, it could keep them out of the market.

No keyboard overlay efforts in Bangladesh have so far trodden any scientific path although there is a set course for this. The process is simple. All it takes is a frequency list of all the characters, or letters, coupled with punctuation marks or any other signs needed to write text in the script. Such a list gives the most used character and the least used character with all others in between in an ascending or descending order. There are research that decide the efficiency of the fingers in relation to the distribution of keys on a physical keyboard. The next job is to assign the characters to the fingers in relation to the efficiency of the keys. An analysis of bigrams, or the most frequent associations of two characters, and even trigrams, or the most frequent associations of three characters, could make the overlay more efficient as this stops the same finger being used twice consecutively, more so in cases of the fingers that are less efficient in relation to the physical distribution of the keys to ensure a minimum typing speed. The scientific principle has not largely been adhered to in designing an efficient keyboard overlay although developers off and on claim to have done this. An efficient keyboard overlay based on this scientific approach has still been missing from the scene.

 

The Bangladesh Computer Council came about in 1990. The Bangladesh Association of Software and Information Services was set up in 1997. Vendors and technologists have by then had rounds of fights over the standardisation of a keyboard overlay that could be made official. All the pressure groups were there and interests of all quarters were at play when the Unicode Consortium released its first version, which included the Bangla standard, described as Bengali, modelled on ISCII.

While the fight against and the opposition to the ‘Bengali’ block of Unicode continued, the committee on the implementation of the Bangla language on computer under the stewardship of the then head of the computer science and engineering department of the Bangladesh University of Engineering and Technology, given the task in April 1993, came up with the draft layout of the Bangla code page on June 30. The code page was called Bangla Standard Code for Information Interchange, or BSCII, in short. On the approval of the committee, the layout, along with a keyboard overlay, was sent to the Bangladesh Computer Council on July 13 and the council sent it to the Bangladesh Standards and Testing Institution on August 4. But the layout is heard of having been sent to the International Organisation for Standardisation for adoption on August 24, but it later failed to earn an approval of the Standards and Testing Institution. An acknowledgement of the receipt of the layout by the ISO on September 7 that year was also reported.

The 256-code table had ASCII characters in ASCII positions and Bangla characters in the higher ASCII block, the last 128 positions, with the table beginning with numerals in hex positions of 80–89, symbols in hex positions of 8A–8F, with only three occupied, canonical characters in hex positions of 90–C1, vowel markers in hex positions of C2–CF, with 10 occupied, consonants that could occur after another consonant in hex positions of D0–F2 for conjunct formation, and the hasanta, or invocaliser, in the hex position of F3, and hex positions of F4–FE left reserved for future use. The code page, with its inherent flaws, was better than what came up later in 1995. The main flaw of the code page was the repetition of consonants that could occur after another consonant having been given separate code points. This could have been solved with a marker instead, as has been done in Unicode.

The efforts stalled understandably in the face of opposition by vendors and traders of the time. The Bangladesh Computer Samity, the trade association of computer and accessories vendors that was founded in 1987, had already been there. Every vendor appears to have feared to lose their labour spent on the systems that they had so far devised or sold. The code page that was prepared also appears to have exposed the vendors and many of the technologists of the time to an uncharted area as most of them were comfortable with a font encoding that they could manipulate through a keyboard driver. Adherence to the code page could mean beginning anew, which they mostly shied away from.

While the first of the efforts lay with ISO, and, of course, without any chance for an official approval, the Standards and Testing Institution asked the Bangladesh Computer Council to work out a coded character set for Bangla again in December 1994. A new table came up in 1995, accepted on July 15, as a standard called BDS 1520:1995, which was, in fact, a repertoire of glyphs, set in a certain scheme, but not a set of characters, which a code page is. This was a marked deviation from the idea of code page and a jump into font encoding that vendors of the time perhaps liked because it provided all that they needed out-of-the-box, the glyphs that can be employed to write Bangla text, and the table included several instances of a single character without having any different behaviour. The set that had 224 glyphs was hardly adhered to by most of the add-on vendors. The Standards and Testing Institution also sent the standard to a working group of the International Organisation for Standardisation in June 1997, requesting the ‘incorporation’ of the code table of BSD 1520:1995 ‘Bangla Coded Character Set’ into ISO/IEC 10646, which along with Unicode parallelly define the Universal Character Set.

The International Organisation for Standardisation in an internal document dated 1998-03-18 for internal discussion, which erroneously refer to ‘BDS’ as ‘BSD’, says, ‘The WG2 has made a thorough review of the code table in N1634 [the contribution from Bangladesh Standards and Testing Institution, dated 1997-06-29] and has compared it to the Bengali code table in ISO/IEC 10646 and has found that BSD 1520 is mappable to 10646 as it currently stands, that no change to 10646 is required and that with an adequate table-lookup it will be possible for data coded in BSD 1520 to be transformed into 10646.’ The document further says, ‘Almost all of the characters from the range are glyph representations of an underlying coding compatible with 10646 coding for this script. The character appears (because of the characters CA, and D0-D6) to be based on an Apple Macintosh implementation for Bengali.’ The document also contains a four-page list of glyphs or glyph groups, as contained in BDS 1520:1995, mapped onto ISO/IEC 10646. The document ends by saying, ‘If careful analysis of BSD 1520 shows that one or more characters cannot be mapped directly (or with reasonable, local, context analysis) to 10646, then those characters may be candidates to be added to the standard.’ A reading of the text suggests that a poor understanding of the Universal Character Set by at least the Bangladesh Standards and Testing Institution, and perhaps all the people involved in the process, has been adequately exposed.

The science and information and technology ministry on October 5, 1998 yet again set up a committee involving the Bangla Academy on the formulation of a Bangla character set for Unicode. A lecturer in computer science in the University of Dhaka was also appointed a fellow on October 28 on the committee who was to review BDS 1520:1995 in the light of Unicode and ISO/IEC 10646 and submit a report to the committee. The fellow submitted the report on June 23 next year and the report was sent back to the fellow on August 1 with opinions of committee members and a note of dissent by a member. The final report was submitted on November 18, with the recommendation for the inclusion of ‘khanda-ta’, or the broken ‘ta’, a letter composed of the canonical Bangla ‘ta’, the sixteenth consonant of the Bangla alphabet, invocalised by a hasanta. The committee gave its approval to the report on January 17, 2000 and sent it to the ministry for its subsequent handling by the Standards and Testing Institution and, later, the International Organisation for Standardisation.

https://imagenfile.newagebd.com/uploads/aks_code2018.jpg

The Bangla code block in Unicode version 43… the Unicode block is the basis of BSTI standards issued in 2000, 2011 and 2018.

Interviews of almost all the people involved in the process that time showed that the final report on the validation of BDS 1520:1995 in the light of Unicode and ISO/IEC 10646 was geared towards the adoption of the Unicode Bengali block, with the inclusion of ‘khanda-ta’ and the word ‘Bangla’ in place of ‘Bengali’ as Unicode then said and still says. Blame was traded enough between the technologists, who perhaps could see no other option but to conform to the Unicode standard, and the vendors, who blamed the absence of industry experience in the academy and desperately sought a way out from their poor understanding of the Universal Character Set with the help of the fellow who was appointed for the review. The Bangladesh Standards and Testing Institution subsequently came up with the ‘first revision’ of its 1995 standard, called BDS 1520:2000 ‘Bangla Coded Character Set for Information Interchange’ on July 25, 2000.

The 2000 standard, which the Standards and Testing Institutions preferred to call the ‘first revision’, was a complete reversal of what the institution had till then batted for. It completely negated its 1995 version. The national standards agency sent the standard to the International Organisation for Standardisation on August 23, 2000, additionally seeking the incorporation of ‘khanda-ta’. Michael Everson in an internal posting on September 20, 2000, still listed on the Unicode Mail Archive, sought opinions about the ‘khanda-ta’ while he also sought to know: ‘Another question, is does BDS 1520:2000 completely replace BDS 1520:1997, or is the old standard still valid (and being implemented)?’ The posting had the 1995 standard year wrong, but it suggested that the consortium had thought about the contribution that the Standards and Testing Institution had made. Another poster, in reply, noted that the ‘khanda-ta’ was, in fact, ‘ta’ + virama (hasanta) and said that BDS 1520:2000 presented the table without any ligation control characters other than virama (hasanta). As for replacement issue, the poster noted that BDS 1520:1997, erroneously mentioned to refer to BDS 1520:1995, was ‘based on a font encoding…. It is also the encoding used in many web sites. BDS 1520:2000 is a complete replacement, being based on the ISO/IEC10646 character encoding model.’

The Unicode Consortium explained the ‘khanda-ta’, a letter unique to the Bangla script system, in the fourth version of the standard released in April 2003 saying that ‘ta’ + ‘hasanta’ + zero-width joiner would produce a ‘khanda-ta’ and a zero-width non-joiner, instead of the zero-width joiner, would produce a visible hasanta below the canonical ‘ta’. Although the consortium had not incorporated the ‘khanda-ta’ in the Unicode block until its version 4.1.0, released in March 2005, several programs, which included a word processor developed by Duke University, allowed users to write ‘khanda-ta’ with the mechanism that the consortium explained in version 4. A few technologists involved in Bangladesh efforts also argued, not so vehemently though, against the inclusion of the ‘khanda-ta’ as a canonical form. It appeared that vendors and developers of add-ons for the Bangla script system wanted a solution from the fellow appointed to the committee on how to develop software using the Bangla code block in Unicode — a hands-on guide of a sort on the Unicode system.

As Bangla glyphs had till then been directly called from the font file, most of the developers had no idea that with a set of canonical characters running in the background for text storing and interpretation, developers needed to use a lookup table to call all forms of letters, allographs, or alternative forms of one or more characters, and conjunct characters, which are contained in the Private Use Area in a Unicode font file. Most of the people involved in working out the code page for Bangla in Bangladesh that time were attuned to a natural sort order and a direct glyph representation, without having to know that they all should be done by way of a third-party interference keeping to Unicode, which has decided not to offer these functions since the very beginning. The fully-fledged word-processor named Barna that came out to run on DOS in the pre-Unicode era also employed a similar look-up table for all the glyphs with characters directly handled from the keyboard.

With Unicode having started to become all-pervasive, it was difficult for Bangla add-on developers to set aside the reality on the ground. The opposition to Unicode took another turn. Some demanded that the Bangla Unicode block should have its own punctuation marks, especially the ‘danda’ that works as a full stop, because Unicode lays out that the ‘danda’ in the Devanagari block should be employed as Bangla ‘danda’, too, as is the case with all Indic languages. The opposition did not appear logical as the same people conveniently use other punctuation marks such as the comma, the semicolon, the colon, the quotation marks, the exclamation mark and the question mark from the Latin, extended Latin and general punctuation blocks. Some of the opposition was related to the inclusion of two characters, broadly known as Assamese ‘va’ with a diagonal below the Bangla ‘ba’ and the Assamese ‘ra’ with a diagonal intersecting the counter of the Bangla ‘ba’. But all appear to have been oblivious to the fact that the Assamese ‘ra’ was also the Bangla ‘ra’ in the middle Bengali period, extensively used in handwritten codices and much throughout the early days of Bangla printing.

While all this went on, the Computer Council gave a committee involving people from the Bangladesh University of Engineering and Technology yet another task, under a project named ‘Standard Coding for Bangla Characters and Conversion’, to make BDS 1520 a standard code set, to deal with the limitation of characters in laying them out in ascending and descending orders and to make its conversion to and from other code sets. It could not be known whether the report was submitted at all. But this was a work that warranted attention because all the while the developers of script system add-ons opposed Unicode saying that it has not provided for any mechanism for sorting. They all believed that the characters as laid out in the Unicode block could not ensure a dictionary sort order. This is true. But they all appear to have ignored that an alphabetical sort order of the Bangla letters is quite different from the sort order that has traditionally been employed in dictionaries.

The Unicode Standard in its first version that came out in October 1991 in Chapter II, General Principles of the Unicode Standard, says, ‘The design of the Unicode encoding scheme is independent of the design of basic text processing algorithms… Unicode implementations are assumed to contain suitable text processing and/or rendering algorithms… In particular, sorting and string comparison algorithms cannot assume that the assignment of Unicode character code numbers provide an alphabetical ordering for lexicographic string comparison.… The expected sort sequence for the same characters differs across languages, so in general no single linear ordering exists.’ And, it says, ‘There is no reason to expect text processors in general to be as simple as they are for English.’ The developers of add-ons and technologists, attuned to mostly ASCII and Bangla font encodings designed in an alphabetical order, appear to have made fuss about the code table, without reading the text that accompanied and not knowing that Unicode does not talk about sorting or any sort order.

The next two standards — BDS 1520:2011, adopted on February 15, 2011, and BDS 1520:2018, adopted on February 26, 2018 — which the Standards and Testing Institutions call the second and the third revision of the BDS 1520:1995 standard, are basically updates on the BDS 1250:2000 standards conforming to the Unicode standards of the time — Version 6 in the case of BDS 1520:2011 and Version 10 in the case of BDS 1250:2018. Unicode in its version 11, released in June 2018, encoded three more signs in the Bangla block. The characters are used in old manuscripts, but the Standards and Testing Institution needs to issue another update if it wants to keep abreast of the Unicode standard.

The latest three BSTI standards on the coded character set for Bangla appear to be conforming to ISO/IEC 10646, which only assigns code points to characters, as they all deal with the character codes in a table and they have been through till date without any additional instructions such as the conjunct formation method, ligation control mechanism or the behaviour and property of the characters the way the Unicode standard has. It is wise for the agency not to issue any further ISO/IEC 1064-like standard, which without the rules cannot be put to work in the future if it cannot issue the instructions that Unicode does. Or it should adopt what Unicode does, to be, again, wise.

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.thedailystar.net/health/disease/coronavirus/news/uks-viracorp-partners-incepta-develop-nasal-covid-19-vaccine-2919761

UK's ViraCorp partners with Incepta to develop nasal Covid-19 vaccine

Star Digital Report

Fri Dec 17, 2021 07:32 PM Last update on: Fri Dec 17, 2021 07:34 PM

 

pic_incepta.jpg?itok=KjLrx930&timestamp=

British biomedical firm, ViraCorp, has joined forces with leading pharmaceutical company, Incepta, to develop a Covid-19 vaccine, which can be administered via one's nose.

Under its subsidiary ViraVac, ViraCorp's new vaccine is based on the work of Lancaster virologist Dr Muhammad Munir, who has taken on the role of chief scientific officer at ViraCorp.

It features a unique formulation and delivery method -- using nasal spray -- and transported using traditional cold-chain, said a press release.

This has numerous advantages compared to other vaccines currently on the market.

"Having a vaccine which can be transported easily and administered through a nasal delivery system reduces the heavy infrastructure and training requirements of a vaccination drive, and will help ensure that the vaccine can reach some of the world's most remote communities," said Dr Munir.

Incepta's facility has a yearly production capacity of 180 million single doses, or 1 billion doses in multi-dose format, added the release.

"Incepta always explores to acquire, develop and optimize new vaccine processes as well as production technologies. This collaboration will be a milestone to provide a new delivery system, making it a very attractive solution for vaccination in developing countries like ours, alongside remote communities," said Dr Abdul Muktadir, chairman and managing director, Incepta Vaccine Ltd.

ViraCorp CEO Jon Chadwick is confident about where this and other recently announced partnerships will lead.

"By combining our resources, we will ensure the highest standard of quality in our work to make vaccines more available, both logistically and financially," Jon said.

Dr Munir said, "This partnership with Incepta is a critical milestone to further develop our next generation Covid-19 vaccine which offers protections and blocks transmission independent of the nature of SARS-COV-2 variants."

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangladesh/bangladeshi-scientists-make-history-fully-sequencing-genomes-salinity-submergence

TBS Report 

23 December, 2021, 01:15 pm

Last modified: 23 December, 2021, 03:49 pm

Bangladeshi scientists make history by fully sequencing genomes of salinity, submergence tolerant rice varieties

img_20211223_123357.jpg?itok=z0y205jI&ti

 

Bangladeshi scientists, for the first time in history, have fully sequenced the genomes of four salinity and submergence tolerant rice varieties.

The announcement came during a press briefing held at the conference room of the Bangladesh Institute of Nuclear Agriculture (BINA) in Mymensingh on Thursday. 

Addressing the programme, Agriculture Minister Md Abdur Razzaque, said that with the joint efforts of BINA and a team of scientists from Bangladesh Agricultural University, a new horizon has been unlocked in rice research in Bangladesh.

"This was achieved by unraveling the mysteries of the lives of salt and water-tolerant rice varieties," he added.

"Our goal has always been to produce nutritious food in high volumes," the minister said adding, "With this [genome sequencing] not only we will be able to meet local demand, but also be able to export."

Bangladesh Agricultural University Professor Dr Md Bazlur Rahman Mollah said, "In future scientists, from both home and abroad, would be able to use this our sequencings as reference to make high-yielding varieties."

BINA Director General Dr Mirza Mofazzal Islam, and Bangladesh Agricultural University Vice Chancellor Professor Lutful Hasan also attended the event.

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://lekhapora24.net/2021/12/22/ইউআইইউতে-স্মার্ট-পাওয়ার/

PR-1-1-750x430.jpg

ইউআইইউতে স্মার্ট পাওয়ার সিস্টেম ল্যাব উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিবেদক।

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ইউআইইউ’র সেন্টার ফর এনার্জি রিসাচ ও বাংলাদেশ এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার রিসার্চ কাউন্সিল (ইপিআরসি), বাংলাদেশ সরকারের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় “ব্লক চেইন এন্ড সাইবার সিকিউরিটি অ্যাপ্লিকেশন ইন স্মার্ট পাওয়ার সিস্টেম” বিষয়ক সেমিনার এবং “স্মার্ট পাওয়ার সিস্টেম ল্যাব” উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আজ (২২ ডিসেম্বর ২০২১) বুধবার ইউআইইউ ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা (মন্ত্রী) ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, বীর বিক্রম।

বাংলাদেশ এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার রিসার্চ কাউন্সিলের সম্মানিত চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ সরকারের সচিব সত্যজিৎ কর্মকার এবং সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের টেকসই ও নবায়নযোগ্য শক্তি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (স্রেডা) এর চেয়াম্যান মোঃ আলাউদ্দিন। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউআইইউর উপাচার্য প্রফেসর ড. চৌধুরী মোফিজুর রহমান।

ইপিআরসি’র আথিক সহযোগীতায় প্রতিষ্ঠিত স্মার্ট পাওয়ার সিস্টেম ল্যাবটি ভবিষ্যতের ইন্টারেক্টিভ স্মার্ট গ্রিড সিস্টেমগুলির গবেষণা এবং বিকাশের উপর লক্ষ্য রেখে তৈরি করা হয়েছে। হাসান মাহমুদ রাজা, চেয়ারম্যান,বোর্ড অব ট্রাস্টিজ,ইউআইইউ,প্রফেসর ড. এম রিজওয়ান খান,নির্বাহী পরিচালক, ইনস্টিটিউট ফর অ্যাডভান্সড রিসার্চ, ইউআইইউ, শাহরিয়ার আহমেদ চৌধুরী, পরিচালক,সেন্টার ফর এনার্জি রিসার্চ,ইউআইইউ,ড. মোঃ শাহরিয়ার রহমান,সিএসই বিভাগ,ইউআইইউ,ড. একেএম আরিফুল আহসান, ইন্টেল কর্পোরেশন, ইউএসএ, এবং কাজী আশিকুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী, ডিপিডিসি বক্তাদের আলোচনায় সেশনটি প্রাণবন্ত ও সমৃদ্ধ ছিল।

সেমিনারে বক্তারা স্মার্ট গ্রিডের গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্যগুলির সাথে এর প্রয়োজনীয়তা, ব্লক চেইন ব্যবহার করে কীভাবে এর সাইবার নিরাপত্তা আরও বাড়ানো যায় এবং এর সফল বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় হার্ডওয়্যার তৈরি করা যায় তা তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষিকা,কর্মকর্তাবৃন্দ,শিক্ষাবিদ,সরকারি কর্মকর্তা,গবেষক,অন্যান্য বিশিষ্ট অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।

PR-2.jpg

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangla/ফিচার/news-details-78361

মারুফ হোসেন

27 December, 2021, 07:35 pm

Last modified: 28 December, 2021, 02:16 am

আঙুলের ছাপ শনাক্তকরণ পদ্ধতি: ‘বাংলাদেশি’ আজিজুল হকের বেহাত কৃতিত্ব

এই বাঙালির আবিষ্কৃত পদ্ধতি আজ গোটা বিশ্বে স্বীকৃত, সমাদৃত। নিখুঁতভাবে অপরাধী শনাক্ত করার পথে বহু বছর পিছিয়ে থাকতে হতো আজিজুল হকের এই আবিষ্কার না হলে। অথচ মহা-তাৎপর্যপূর্ণ এই আবিষ্কারের কৃতিত্ব তিনি পাননি।

khan_bahadur_qazi_azizul_haque_-_copy.jp

 

কাজী আজিজুল হক।

আঙুলের ছাপ বা ফিঙ্গারপ্রিন্ট—এক অনন্য জিনিস। অপরাধবিজ্ঞান বলে, পৃথিবীর প্রত্যেক মানুষের আঙুলের ছাপই আলাদা, কারও সঙ্গে কারোর আঙুলের ছাপের হুবহু মিল নেই। অপরাধী শনাক্তে পুলিশ-গোয়েন্দাদের বড় ভরসা আঙুলের ছাপ। শুধু কি অপরাধী শনাক্ত? আজকের দিনে আঙুলের ছাপ হয়ে উঠেছে আমাদের পরিচয় শনাক্তের এক অপরিহার্য অনুষঙ্গ। আঙুলের ছাপ শনাক্তকরণের পদ্ধতি আবিষ্কারের ফলে এক ধাক্কায় বিজ্ঞান এগিয়ে গিয়েছিল অনেকটা পথ। আর এই আঙুলের ছাপ শনাক্তকরণ পদ্ধতির আবিষ্কারক ছিলেন এই বঙ্গেরই বাসিন্দা।

তার নাম কাজী আজিজুল হক। এই বাঙালির আবিষ্কৃত পদ্ধতি আজ গোটা বিশ্বে স্বীকৃত, সমাদৃত। নিখুঁতভাবে অপরাধী শনাক্ত করার পথে বহু বছর পিছিয়ে থাকতে হতো আজিজুল হকের এই আবিষ্কার না হলে। অথচ মহা-তাৎপর্যপূর্ণ এই আবিষ্কারের কৃতিত্ব তিনি পাননি।

আঙুলের ছাপ শনাক্ত করার ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে এক বঞ্চনার ইতিহাস। দখলদার ঔপনিবেশিক ব্রিটিশরা ভারতীয়দের বহু কৃতিত্ব ও সম্পদ নিজেদের পকেটে পুরেছে। আরও অনেক কিছুর মতোই আজিজুল হকের আবিষ্কারের কৃতিত্বও চুরি করেছিলেন স্যার এডওয়ার্ড রিচার্ড হেনরি নামের এক ব্রিটিশ। চলুন জেনে নেওয়া যাক সেই ইতিহাস।

খান বাহাদুর কাজী আজিজুল হকের জন্ম ১৮৭২ সালে, তৎকালীন পূর্ববঙ্গের (বর্তমান বাংলাদেশের) খুলনা জেলার ফুলতলার পয়গ্রাম কসবায়। শৈশবেই আজিজুল বাবা-মাকে হারান এক নৌকা দুর্ঘটনায়। বাবাকে হারিয়ে ভীষণ অর্থকষ্টে পড়ে তার পরিবার। পরিবারের দায়িত্ব বর্তায় আজিজুলের বড় ভাইয়ের কাঁধে।

আজিজুল ছিলেন দারুণ মেধাবী। ছোটবেলা থেকেই কঠিন সব গাণিতিক সমস্যার সমাধান করে ফেলতেন অনায়াসে। তিনি আবার ভোজনরসিকও ছিলেন। জীবনে দুটো জিনিস সবচেয়ে বেশি ভালোবাসতেন আজিজুল—গণিত আর খাবার।

কিন্তু অভাবের সংসারে আজিজুলের রসনার চাহিদা মেটানো সম্ভব হতো না। বেশি খাওয়ার জন্য বড় ভাই প্রায়ই গালাগাল দিতেন আজিজুলকে। তবু নিজেকে সামলাতে পারত না কিশোর আজিজুল।

একদিন প্রচণ্ড গরমে হাড়ভাঙা খাটুনির পর শ্রান্ত দেহে বাড়ি ফিরে তার বড় ভাই দেখেন, ছোট ভাই তার অংশের খাবারও বেশ খানিকটা খেয়ে ফেলেছেন। প্রচণ্ড রাগে ভাইকে পেটালেন তিনি।

মার খেয়ে অপমানে, অভিমানে ফুঁসতে ফুঁসতে বাড়ি ছেড়ে পালাল আজিজুল। ট্রেপে চেপে চলে গেল কলকাতায়। ১৮৮৪ সালে ১২ বছরের বালক আজিজুল পা রাখে মহানগরী কলকাতায়। এখান থেকেই শুরু আসল কাহিনি।

সারাদিন কলকাতায় একটা আশ্রয়ের সন্ধানে ঘুরে বেড়ায় আজিজুল। কিন্তু অবসন্ন, ক্ষুধার্ত কিশোর কোথাও মাথা গোঁজার ঠাঁই না পেল না। শেষমেশ শ্রান্ত দেহে শুয়ে পড়ে এক বাঙালি বাবুর বাড়ির সামনে। সকালে দরজার কাছে ঘুমন্ত কিশোরটিকে দেখে মায়া হয় গৃহকর্তার। তাকে আশ্রয় দেন নিজের বাড়িতে। ফুটফরমাশ খাটার কাজে নিয়োগ দিলেন আজিজুলকে।

মাথা গোঁজার ঠাঁই পাওয়ার পর লেখাপড়ার প্রতি আগের আগ্রহ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে মেধাবী আজিজুলের। তাই বাড়ির ছেলেমেয়েদের পড়ানোর জন্য শিক্ষকরা এলে গুটিসুটি হয়ে কাছেপিঠে বসে পড়ত বালক আজিজুলও। শুনে শুনে অনেক কিছু শিখে নেয় সে। একসময় দেখা গেল যেসব অঙ্কের সমাধান করতে বাড়ির অন্য ছেলেমেয়েরা হিমশিম খাচ্ছে, আজিজুল ওসবের সমাধান করে দিচ্ছে চোখের পলকে।

মাত্র বারো বছর বয়সি ছেলের অমিত প্রতিভা দেখে গৃহকর্তাকে সে কথা জানালেন শিক্ষক। গৃহকর্তাও আজিজুলকে ডেকে বাজিয়ে দেখলেন, আসলেই এ ছেলে দারুণ মেধাবী। তাই তিনি স্কুলে ভর্তি করিয়ে দিলেন আজিজুলকে।

এরপর থেকে দারুণ ফলাফল করে স্কুলের গণ্ডি পেরোল আজিজুল। স্কুলের পাট চুকিয়ে ভর্তি হলো প্রেসিডেন্সি কলেজে। সেখানে গিয়ে গণিত ও বিজ্ঞানে দারুণ ফল করলেন। নিজের মেধা ও পরিশ্রমের জোরে প্রিন্সিপাল ও অধ্যাপকদের প্রিয়পাত্রে পরিণত হলেন বাড়ি থেকে পালানো আজিজুল। হয়ে উঠলেন সহপাঠীদের সমীহের পাত্র।

১৮৯২ সালে বেঙ্গল পুলিশের মহাপরিদর্শক স্যার এডওয়ার্ড রিচার্ড হেনরি এক চিঠি পাঠালেন প্রেসিডেন্সি কলেজের প্রিন্সিপালের কাছে। তাতে বললেন—পরিসংখ্যানে খুব ভালো, এমন ছাত্র যেন তার কাছে পাঠানো হয়। তার অধীনে তাদেরকে পুলিশ বাহিনীতে চাকরি দেবেন। চিঠি পেয়েই প্রিন্সিপাল ঝটপট আজিজুল ও হেমচন্দ্র বসু নামে আরেক ছাত্রকে সুপারিশ করলেন। ফলে স্যার হেনরির মাধ্যমে পুলিশের সাব-ইনস্পেক্টর হিসেবে চাকরি পেয়ে গেলেন আজিজুল ও হেমচন্দ্র।

অবিভক্ত বাংলায় তখন অপরাধী শনাক্ত করার হতো অ্যানথ্রোপমেট্রি (মানবদেহের আকৃতি) পদ্ধতিতে। স্যার হেনরি এই পদ্ধতিতে বেশ ত্রুটি দেখতে পান। তিনি দেখেন একজন লোকের দেহের মাপ বিভিন্ন হাতে এক ধরনের থাকে না। তাই তিনি ১৮৯৩ সালে অপরাধের সঙ্গে জড়িত লোকেদের বাঁ হাতের বুড়ো আঙুলের টিপ নেওয়ার নির্দেশ দেন। এর বছর তিনেক পর তিনি ধরা পড়া প্রত্যেক অপরাধীর দুই হাতের ১০ আঙুলের ছাপ নেওয়া বাধ্যতামূলক করেন। কিন্তু সমস্যা দেখা দেয় আঙুলের ছাপ নেওয়া এসব কাগজপত্র ফাইলভুক্ত করা নিয়ে। এ কাজের জন্যই লোক দরকার হয় তার।

swarajya_2017-11_ea56fa04-ca03-4d84-b76f

স্যার হেনরি আজিজুল ও হেমচন্দ্রকে নিয়োগ দিয়েছিলেন মূলত এ কাজ করানোর জন্যই। ফিঙ্গারপ্রিন্টের 'হেনরি ক্লাসিফিকেশন সিস্টেম' তৈরি করার ভার দিলেন তিনি দুজনের ওপর। গণিতপ্রিয় আজিজুল ও হেমচন্দ্র মহানন্দে লেগে গেলেন সে কাজে।

কাজ শুরু হলো কলকাতার রাইটার্স বিল্ডিংয়ে। আজিজুল তৈরি করলেন সিস্টেমের গাণিতিক ভিত্তি। আর হেমচন্দ্র বানালেন আঙুলের ছাপের টেলিগ্রাফিক কোড সিস্টেম। নিজের তৈরি বিশেষ এক গাণিতিক ফর্মুলার ওপর ভিত্তি করে আজিজুল ৩২টি সারি বানান। তারপর ওই ৩২ সারিতে বানান ১ হাজার ২৪টি খোপ। এসব খোপে তিনি গড়ে তুললেন ৭ হাজার আঙুলের ছাপের বিশাল সংগ্রহ। এতে অনেকটাই সহজ হয়ে যায় লাখ লাখ আঙুলের ছাপের শ্রেণিবিন্যাস করার কাজ।

আজিজুল-হেমচন্দ্র-হেনরির গবেষণা অপরাধবিজ্ঞানে বিপ্লব আনে। বর্তমান বায়োমেট্রিক সিস্টেম তৈরিতেও বড় ভূমিকা রেখেছে 'হেনরি ক্লাসিফিকেশন'। নানা যাচাই-বাছাইয়ের পর আনুষ্ঠানিকভাবে আঙুলের ছাপের সাহায্য অপরাধী শনাক্ত করার প্রচলন শুরু হয়। ১৯০০ সালের মধ্যে অ্যানথ্রোপমেট্রিকের জায়গা নিয়ে নেয় এই পদ্ধতি।

এর আগে চার্লস ডারউইনের কাজিন ও নৃবিজ্ঞানী ফ্রান্সিস গ্যালটন উদ্ভাবিত অ্যানথ্রোপমেট্রিক পদ্ধতিতে অপরাধী শনাক্ত করা হতো। কিন্তু এ পদ্ধতিতে আঙুলের ছাপের শ্রেণীবিন্যাস করতে লেগে যেত ঘণ্টার পর ঘণ্টা। কিন্তু আজিজুল হকের সাব-ক্লাসিফিকেশন বা শ্রেণীবিন্যাসকরণ পদ্ধতির দৌলতে মাত্র এক ঘণ্টাতেই সে কাজ সম্ভব হয়ে যায়।

আঙুলের ছাপের সাহায্যে অপরাধী শনাক্তকরণের পদ্ধতি আবিষ্কারের মূল কাজটি করেছেন আজিজুল হক। কিন্তু কাজের পুরো কৃতিত্ব নিজের পকেটে পুরে নিলেন স্যার হেনরি। এই পদ্ধতির নাম দেওয়া হয় তারই নামে—'হেনরি সিস্টেম'। অনেকে অবশ্য বলেন যে, এই পদ্ধতির মূল ধারণা যেহেতু স্যার হেনরির মাথা থেকে এসেছে, তাই সিংহভাগ কৃতিত্বের দাবিদারও তিনিই।

কিন্তু এ কাজের উদ্ভাবনী চিন্তার পরিচয় দিয়ে মূল পরিশ্রম যে আজিজুলই করেছেন, এ কথাও তো সত্য। অথচ স্যার হেনরি তার 'ক্লাসিফিকেশন অ্যান্ড ইউজেস অভ ফিঙ্গারপ্রিন্টস' বইয়ে বেমালুম চেপে যান আজিজুল হকের নাম।

যাহোক, হেনরি সিস্টেম গড়ে তোলার অল্প দিন পরেই কলকাতায় স্থাপিত হয় বিশ্বের প্রথম ফিঙ্গারপ্রিন্ট ব্যুরো। এই সংস্থা প্রতিষ্ঠার অনেক পর স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডেও একই ধরনের আরও একটি ব্যুরো গড়ে তোলা হয়। পরে আমেরিকাতেও স্থাপন করা হয় একই ধরনের প্রতিষ্ঠান। এখন বিশ্বের সব দেশেই ফিঙ্গারপ্রিন্ট ব্যুরো আছে। এসব প্রতিষ্ঠানে আজিজুল হকের আবিষ্কৃত আঙুলের ছাপের শ্রেণীবিন্যাসকরণ পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়।

স্যার হেনরি পুরো কৃতিত্ব নিজের পকেটে পুরলেও, ইতিহাসের পাতা ঘেঁটে অনুসন্ধিৎসু গবেষকরা ঠিকই বের করে এনেছেন আঙুলের ছাপের সাহায্যে পরিচয় শনাক্তকরণ পদ্ধতির মূল আবিষ্কারককে। 'কারেন্ট সায়েন্স' সাময়িকীর ২০০৫ সালের ১০ জানুয়ারি সংখ্যায় জিএস সোধী ও যশজিৎ কউর 'দ্য ফরগটেন ইন্ডিয়ান পাইওনিয়ারস অভ ফিঙ্গারপ্রিন্ট সায়েন্স' নামে এক নিবন্ধ লেখেন। ওই নিবন্ধে তারা হাতের ছাপ শ্রেণীবিন্যাসকরণে আজিজুল হকের অবদানের কথা অকুণ্ঠ চিত্তে স্বীকার করেছেন।

ওই নিবন্ধ থেকে এ-ও জানা যায় যে, আজিজুল হক তার কাজের স্বীকৃতি চেয়ে আবেদনও করেছিলেন। কিন্তু তার আবেদন গ্রাহ্য করা হয়নি। স্যার হেনরি যতদিন ভারতে ছিলেন, ততদিন এ ব্যাপারে কথা বলার সুযোগ তাকে দেওয়া হয়নি। তবে স্যার হেনরি বোধহয় পরে বিবেকের দংশন থেকেই ১৯২৬ সালের ইন্ডিয়া অফিসের তখনকার সেক্রেটারি জেনারেলকে লেখা এক চিঠিতে জানান, 'আমি স্পষ্ট করতে চাই যে আমার মতে, শ্রেণীবিন্যাসকরণ (ফিঙ্গারপ্রিন্ট) পদ্ধতিকে নিখুঁত করার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছেন আমার কর্মচারীদের মধ্যে তিনি (আজিজুল হক)।'

আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি না দিলেও অসামান্য কাজের খানিকটা পুরস্কার আজিজুল পেয়েছিলেন। ব্রিটিশ সরকারের তরফ থেকে তাকে খান বাহাদুর উপাধি দেওয়া হয়। সেইসঙ্গে দেওয়া হয় পাঁচ হাজার টাকা ও ছোটখাটো একটা জায়গির। আর চাকরিতে পদোন্নতি পেয়ে হয়েছিলেন পুলিশের এসপি। পাশাপাশি হেমচন্দ্রও পান রায় বাহাদুর উপাধি ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থপুরস্কার।

আজিজুলের জীবনের শেষ দিনগুলো কেটেছে অবিভক্ত ভারতের চম্পারানে (বর্তমান বিহার রাজ্যের উত্তর চম্পারান জেলা)। সেখানেই ১৯৩৫ সালে মারা যান তিনি। বিহারের মতিহারি স্টেশনের অনতিদূরে নিজের বাড়ি আজিজ মঞ্জিলের সীমানাতেই তাকে কবর দেওয়া হয়। দেশভাগের পর আজিজুলের পরিবারের অন্য সদস্যরা তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে চলে আসেন। আজিজুলের উত্তরসূরিরা বর্তমানে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট ও কানাডায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছেন।

তরুণ বাঙালি প্রজন্ম আজিজুল হক ও হেমচন্দ্রকে ভুলে গেছে। কিন্তু ইতিহাসবিদ ও গবেষকদের কাছে তারা দুজনেই পরম সম্মানিত। এই দুজনের সম্মানে ব্রিটেনের ফিঙ্গারপ্রিন্ট ডিভিশনে প্রচলিত হয়েছে হক অ্যান্ড বোস অ্যাওয়ার্ড নামে একটি পুরস্কার। এই পুরস্কারের মাধ্যমে আঙুলের ছাপ নিয়ে উদ্ভাবনী কাজ করা ব্যক্তিদের স্বীকৃতি দেওয়া হয়। 

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.dailynayadiganta.com/first-page/632524/তিন-বন্ধু-আবিষ্কার-করল-মাটির-প্রাণ-ডিভাইস

তিন বন্ধু আবিষ্কার করল ‘মাটির প্রাণ’ ডিভাইস

কৃষক করতে পারবেন মাটি পরীক্ষা, জানতে পারবেন কোন ফসল ফলাবেন, পাবেন সার ব্যবহারের পরামর্শও

কাওসার আজম 

 ২৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০

 

কৃষক বা কৃষির সাথে জড়িত ব্যক্তি নিজেই করতে পারবেন তার জমির মাটি পরীক্ষা। মাত্র পাঁচ মিনিটেই জানতে পারবেন তার জমির মাটির গুণাগুণ। একটা ডিভাইস নিয়ে মাঠে যাবেন কৃষক। যাওয়ার পর এই ডিভাইসটির সেন্সর দিয়ে মাটির আর্দ্রতা, পিএইচ, নাইট্রোজেন ফসফরাস, পটাশিয়ামÑ এগুলো পরিমাপ করবেন। পরিমাপের পর যে ফল আসবে (মাটির আর্দ্রতা ১০ শতাংশ, পিএইচ ৭ বা অন্যগুলোর তথ্য) সেগুলো মোবাইল অ্যাপের মধ্যে দেয়া হবে। এরপর মোবাইল অ্যাপ তাৎক্ষণিক ক্যালকুলেট করে জানিয়ে দেবে মাটির সার্বিক অবস্থা। যেমনÑ মাটিতে সারের পরিমাণ কম আছে নাকি বেশি, কোন ধরনের সার কী পরিমাণ দরকার হবে এবং কোন ধরনের ফসল ভালো হতে পারেÑ সেই পরামর্শ আসবে তাৎক্ষণিকভাবে। মাটিতে যদি পিএইচের পরিমাণ বেশি থাকে কিভাবে কমাতে হবে, কী সার দিতে হবে; নাইট্রোজেনের পরিমাণ কম থাকলে কিভাবে বাড়াতে হবে, বেশি থাকলে কিভাবে কমাতে হবেÑ সবকিছুই ক্যালকুলেট করে নির্ণয় করা যাবে একটি যন্ত্রের মাধ্যমে।
এই মাটি পরীক্ষার ডিভাইস বা যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন তিন তরুণ। যারা সবাই ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের সাবেক শিক্ষার্থী। আব্দুল্লাহ আল আরাফ, রাহাত উদ্দিন এবং রেজাউল খান নামের এই তিন বন্ধুর আবিষ্কারটির নাম দিয়েছেন ‘মাটির প্রাণ’। কৃষিবান্ধব ডিজিটাল পোর্টেবল সয়েল টেস্টিং ডিভাইস (মাটি পরীক্ষার যন্ত্র) এখন দ্বিতীয় পর্যায়ে আছে। বর্তমানে তারা তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অনুদানে একটি প্রকল্পের আওতায় গবেষণাটি এগিয়ে নিচ্ছেন। এটিকে কৃষক বা ভোক্তাপর্যায়ে নিতে আরো চয়-সাত মাস সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন তিন তরুণের অন্যতম আব্দুল্লাহ আল আরাফ। নয়া দিগন্তকে তিনি জানান, প্রথমে এই ধরনের আইডিয়া আমার মাথা থেকেই আসে। আমি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করি। আমার এই আইডিয়ার সাথে রাহাত ও রেজাউল একাত্মতা প্রকাশ করেন। এরপর আমরা এ নিয়ে কাজ শুরু করি।
গবেষকরা বলছেন, আমাদের দেশের কৃষি খাত প্রযুক্তির দিক থেকে অনেকটাই পিছিয়ে আছে। তাই আমরা আমাদের ডিপ্লোমার শেষের দিকে গ্রামে চলে যাই। আমাদের এলাকার যারা কৃষিকাজের সাথে যুক্ত তাদের সাথে অনেক দিন কাটাই। তাদের সাথে কথা বলি, তাদের সমস্যাগুলো বোঝার চেষ্টা করি। শেষে দেখতে পাই যে, তারা বেশির ভাগ সময় শুধু ধারণার ওপর ভিত্তি করেই জমি চাষ, পানি দেয়া, সার দেয়াÑ এগুলো করে আসছেন। যার ফলে বিভিন্ন সময় তারা তাদের কাক্সিক্ষত ফলন পাচ্ছেন না। তাদের এসব কিছু অ্যানালাইসিস করে আমরা বুঝতে পারি যে, এই সমস্যা সমাধানের একমাত্র উপায় হচ্ছে, মাটি পরীক্ষা করে তারপর চাষের সিদ্ধান্ত নেয়া; কিন্তু আমাদের দেশের বেশির ভাগ কৃষক গ্রামে বাস করে। বছরের পর বছর ধরে তারা তাদের গতানুগতিকভাবে ফসল চাষ করে যাচ্ছে। আমরা দেখতে পাই যে, আমাদের বেশির ভাগ কৃষকই মাটি পরীক্ষার বিষয়ে আগ্রহী নয়। এর কারণ হচ্ছে বর্তমানে ফসলের মাঠের মাটি পরীক্ষার জন্য যে পদ্ধতি মানা হয় তাতে অনেক ঝক্কিঝামেলা রয়েছে। কৃষককে মাঠ থেকে মাটির নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে নিয়ে যেতে হয়। এরপর একটি নির্দিষ্ট ফি’র বিনিময়ে তার নমুনা মাটিটুকু দিয়ে আসেন পরীক্ষার জন্য। পরীক্ষার ফলাফল আসতে সময় লাগে ২৫-৩০ দিন। এই মাটি পরীক্ষার সহজ উপায় যদি কৃষকের হাতের কাছে পৌঁছানো যায় তাহলে কৃষক এই মাটি পরীক্ষার প্রতি আগ্রহী হবেন।
তিন তরুণ গবেষকের মধ্যে আব্দুল্লাহ আল আরাফের বাড়ি নোয়াখালীর মাইজদীতে। ঢাকা পলিটেকনিক থেকে কম্পিউটার টেকনোলজি বিভাগ থেকে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেন ২০১৮ সালে। সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটিতে সিএসসি ডিপার্টমেন্ট থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেন। রাহাত উদ্দিনের বাড়ি চাঁদপুরের মতলব উত্তরের। গ্রামের ইমামপুর পল্লী মঙ্গল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক শেষ করেন। এরপর ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ইলেকট্র্রনিকস টেকনোলজি বিভাগ থেকে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেন ২০১৮ সালে। বর্তমানে প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটিতে ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্র্রনিকস ডিপার্টমেন্ট থেকে গ্র্যাজুয়েশন করছেন। আরেক গবেষক রেজাউল খানের বাড়ি গাজীপুরে। তিনিও ঢাকা পলিটেকনিকে কম্পিউটার টেকনোলজি বিভাগ থেকে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেন ২০১৮ সালে। বর্তমানে সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটিতে সিএসসি ডিপার্টমেন্ট থেকে গ্র্যাজুয়েশন করছেন।
আব্দুল্লাহ আল আরাফ জানান, আমরা তিন বন্ধু মিলে মাটি গবেষণার আইডিয়াকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য ২০১৮ সালের মাঝামাঝিতে কাজ শুরু করি। শুরুতেই আমরা কী কী দিক নিয়ে কাজ করব তা ঠিক করি। আমরা আমাদের প্রজেক্টের নাম দেই ‘মাটির প্রাণ’। এই প্রজেক্টটি হচ্ছে কৃষিবান্ধব ডিজিটাল পোর্টেবল সয়েল টেস্টিং ডিভাইস। এটি বেশ কিছু সেন্সরের সমন্বয়ে গঠিত, যার সাথে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন আছে। কৃষক তার ফসলের মাঠে বসেই মাটি পরীক্ষা করে ফসলের মাঠের অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবেন এই ডিভাইসের মাধ্যমে। কৃষক ডিভাইসটি নিয়ে মাঠে যাবেন এবং জমিতে ৯টি ব্লকে চিহ্নিত করে মাটির নমুনা সংগ্রহ করবেন। সংগৃহীত নমুনা মাটি থেকে দ্রবণ (মিশ্রণ) তৈরি করবেন এবং সেই দ্রবণে পিএইচ সেন্সরের মাধ্যমে মাটির মান নেবেন। আর্দ্রতা পরিমাপক সেন্সরকে মাঠের মাঝামাঝি স্থাপন করে মাটির আর্দ্রতার মান নেবেন। এরপর মাটির নাইট্রোজেন, ফসফরাস ও পটাশিয়াম পরিমাপ করবেন। মাটি থেকে প্রাপ্ত তথ্যগুলো আমাদের মাটির প্রাণ মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনে ইনপুট দেবেন। মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি সম্পূর্ণ বাংলায় তৈরি করা। ফলে একজন কৃষক খুব সহজেই এটি ব্যবহার করতে পারবেন। অ্যাপ ইনপুটকৃত তথ্যগুলোকে বিশ্লেষণ করে মাটির বর্তমান অবস্থা, পুষ্টি উপাদান, কী পরিমাণ সার দিতে হবে এবং ওই মাটিতে কী ফসল ভালো হবে তা বলে দেবে।
আব্দুল্লাহ বলেন, আমাদের এই ‘মাটির প্রাণ’ অ্যাপ্লিকেশনে কৃষকদের জন্য বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেÑ কৃষকের স্বাস্থ্য। আমাদের কৃষকরা বিভিন্ন সময় মাঠে অনেক দুর্ঘটনার সম্মুখীন হন। তখন তারা বুঝে উঠতে পারেন না যে, কী করবেন। আমাদের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনে সেসব প্রাথমিক চিকিৎসাগুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন। এ ছাড়াও তারা মাঠে কীটনাশক প্রয়োগ সম্পর্কে, কিভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সার দেবেন সে বিষয়ে সব নির্দেশনাবলি পাবেন। কৃষকরা যাতে তাদের অঞ্চলের কৃষি কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ এবং তার সমস্যাগুলো দ্রুত পৌঁছাতে পারেন সে ব্যবস্থাও আছে। কৃষি কর্মকর্তা ও আমাদের এই অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে তার অঞ্চলের রেজিস্টার্ড কৃষকদের ফসলের অবস্থা, কী কী চাষাবাদ হচ্ছে সব তথ্য পাবেন এবং কৃষকদের দ্রুত তথ্য সরবরাহ করতে পারবেন।
রাহাত উদ্দিন জানান, আমাদের এই ডিভাইসটি চাঁদপুর ও কুমিল্লায় কৃষকদের মধ্যে পাইলটিং পর্যায়ে রয়েছে। আমাদের ইচ্ছা এটিকে সারা দেশের কৃষকদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া। তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এই প্রকল্প বাস্তবায়নে আমাদের ছয় লাখ টাকা অনুদান দিয়েছে। আমরা আশা করছি, আগামী ছয় মাসের মধ্যে ভোক্তা বা কৃষকপর্যায়ে ব্যবহারের উপযোগী হিসেবে তৈরি করতে সক্ষম হবো। আরেক গবেষক রেজাউল খান বলেন, ডিভাইসটি কৃষকের হাতে যতটা স্বল্প মূল্যে সহজলভ্যভাবে তুলে দেয়া যায় সেভাবেই আমরা চিন্তা করছি।
এই তিন তরুণ গবেষক জানান, শুরুর দিকে নিজেদের খরচে তারা এক বছর গবেষণাকাজ চালিয়ে যান। এই ধরনের গবেষণাকাজের জন্য একটা ভালো ল্যাবের প্রয়োজন ছিল। আবার প্রজেক্টের বিভিন্ন যন্ত্রপাতি দেশের বাইরে থেকে আমদানি করার বিষয় ছিল। ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারস, বাংলাদেশ (আইডিইবি’র) সভাপতি এ কে এম এ হামিদ তাদের আইডিইবিতে গবেষণার জন্য একটি আইওটি অ্যান্ড রোবটিক্স রিসার্চ ল্যাব স্থাপন করে দেন। তারা আরো জানান, আমরা পুরোদমে গবেষণা চালিয়ে যাই। আমাদের এই ‘মাটির প্রাণ’ প্রজেক্ট নিয়ে থাইল্যান্ড শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশগ্রহণ করি। সেখানে সাতটি দেশের মধ্যে দ্বিতীয় হওয়ার গৌরব অর্জন করে ‘মাটির প্রাণ’। এরপর সেখান থেকে ফিরে ‘ব্যাসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডে’ অংশ নিয়ে সিনিয়র স্টুডেন্ট ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন হন তারা। ২০১৯ সালে ভিয়েতনামে অনুষ্ঠিত এপিক্টা অ্যাওয়ার্ডে অংশ নেন। এই প্রজেক্টকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আরাফ, রাহাত ও রেজাউল তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের বিশেষ অনুদানের জন্য আবেদন করেন। তাদের এই আইডিয়াটা পছন্দ করে ছয় লাখ টাকা অনুদান দেয় তথ্য ও প্রযক্তি মন্ত্রণালয়। এই প্রকল্পে তাদের মেন্টর হিসেবে আছেন ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রফেসর ড. খন্দকার আব্দুল্লাহ আল মামুন।
ডিভাইসটি বানাতে আট হাজার টাকা খরচ পড়েছে উল্লেখ করে আব্দুল্লাহ আল আরাফ জানান, ‘মাটির প্রাণ’ ডিভাইসটি ইতোমধ্যে বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস কর্তৃৃক রেজিস্টার্ড হয়েছে। এখন শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে প্যাটার্ন নিতে আবেদন প্রক্রিয়াধীন। এরপর চূড়ান্তভাবে তথ্য ও প্রযক্তি মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রেজেন্টেশন করা হবে। যেহেতু কৃষি বা কৃষকদের সুবিধার জন্যই এই আবিষ্কার তাই এখন আমাদের কৃষি মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন দরকার। আমরা চাই সরকার যেন কৃষকের মধ্যে আমাদের এই প্রযুক্তিটি ছড়িয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করে। সরকারের পাশাপাশি আমরা প্রাইভেট পর্যায়ের প্রতিষ্ঠানগুলোও এ বিষয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান করছি।

270061460_4739389139486063_8377461452396

270188896_4739389882819322_7677815005266

 

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/economy/s-korea-proposes-collaboration-projects-using-drone-technology-352657#.YdL30Js-1cs.facebook

TBS Report

03 January, 2022, 07:05 pm

Last modified: 03 January, 2022, 10:10 pm

S Korea proposes collaboration in water projects using drone technology

 

South Korea has proposed piloting a World Bank-funded project in Bangladesh on water quality management and aquaculture using drone technology, the ICT Division said on Monday.

The East Asian country is also interested in establishing a Geo-Specialised Lab in Bangladesh, according to a press statement of the Information and Communication Technology (ICT) Division.  

Lee Jang-Keun, South Korean ambassador to Bangladesh, made the proposal at a meeting with State Minister Zunaid Ahmed Palak at ICT Tower.

They also emphasised building the capacity of ministries and agencies concerned in implementing the projects.

They agreed on a February coordination meeting between the two countries regarding the implementation of the discussed projects.

State Minister Zunaid Ahmed Palak said effective coordination measures should be taken by government agencies for the use of drone technology.

To this end, he stressed the importance of building the capacity of the environment, forest and climate change ministry, the fisheries and livestock ministry, land ministry, civil aviation and tourism ministry, the water resources ministry, and other agencies concerned.

The meeting also discussed taking initiatives utilising the Korea International Cooperation Agency to build the efficiency of Bangladeshi govt officials in installing a geo-specialised lab.

The South Korean envoy promised all-out support of his country in the development of Bangladesh's ICT sector.

Lee said Bangladesh has become an emerging economy in the world and both countries will collaborate in several sectors, including technology.

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.thedailystar.net/bangladeshi-drone-o-logy-demystified-9695

Bangladeshi drone-o-logy demystified!

Shahriar Rahman

Mon Feb 3, 2014 12:22 AM Last update on: Mon Mar 9, 2015 01:28 AM

bangladeshi-drone-o-logy.jpg

The recent hype with drones has prompted us to actually take a closer look in to the actual situation. So in this issue of 'Bytes' we will be dissecting the concept, development, applications and future of drones in Bangladesh.

aiub-teams-test-drone.jpg

AIUB team's test Drone

So what are Drones?

Before 1950s, the word drone would only mean 'Male Bee'. But with improvement in ICs, avionics and wireless communication over the years; man was able to craft Unmanned Aerial Vehicles (UAVs) which had much smaller radar cross-section and much lesser noise signature from the engine which incited the nickname 'DRONE'.
For common folks not understanding the tech jargons, UAVs are of two types: Fixed Winged Aerial Vehicle and Rotor Winged Aerial Vehicle.  The total system includes ground control station, relay station, near earth orbiting satellite etc. Altogether it's called Unmanned Aerial System (UAS).
Fixed Winged Aerial Vehicles are very similar to the conventional aircrafts. They require a run-way to take off and land.
Rotor winged aerial vehicles can be of several kinds: helicopter, cyclocopter, gyrodyne, quadcopter, octocopter etc. Quad copter is the most popular form of non-military grade drone. Four rotors that it has hence the name quad copter. Very few countries in the world have fully functional all-weather operational UASs.  
UAVs are generally used for target practices, battlefield reconnaissance, providing attack capability for high-risk missions, shifting cargos and maintaining logistics operation, other civil and commercial uses etc.

sust-teams-test-plane.jpg

 

SUST team's test plane

Bangladesh & Drones
To begin with; there are no proper UAS in Bangladesh. Why? Probably because it requires extensive technological capabilities that Bangladesh is far from achieving and also it could cost the country a queen's ransom.
The first to bring in Aerial drones in Bangladesh was Bangladesh Army. These oversized fixed winged RC planes where used as targeting drones for their portable guided missile's target practicing. Most of these drones were imported from China and Thailand. Usually the drones did not have any sensor and no video feed or image capturing tools where embedded to it. Some engineers of the army were able to actually retrofit a camera with it. But it did not have any ground control station neither did it had any autonomous features. DRONE OR NOT: No way it's a drone.
The journeys of Quad-Rotor Aerial vehicles are fairly new in Bangladesh. In 2012 American International University –Bangladesh (AIUB) grads Kawsar Jahan and Nazia Ahsan showed off their quad-rotor drone, mainly built for one of their university projects, in the Digital Expo 2012 thus marking the journey of an elusive new chapter in indigenous drone building. Costing around Tk. 50,000/- plus, this drone has an operating range of 1.5 KM radius and can climb up to 650 feet. DRONE OR NOT: Can be developed to a civilian purpose drone.
Not too late, a lone wolf from Khulna University of Engineering Technology (KUET), Mamun Khan Dip also came up with a quad-copter as well. His copter was a remote controlled vehicle that could climb a height up to 300 feet. This project of Dip's caught the attention of a few more researchers of Bangladesh University of Engineering Technology (BUET). Together they teamed up and formed Aero Research Center (ARC) Bangladesh. Already they improved and developed two new variants: Bangla-drone and Ghuri1. These are the very first autonomous drones of Bangladesh which can hover around a given list of way points. In addition to that it has a ground center that be used for the landing and takeoff for the drone.Developed at a much lower cost than any conventional quadcopter that can be bought from international market, the actual cost might vary with features and add-ons, Dip said. This ARC official also added that DMP has conducted a test flight and is actively considering the acquisition of a fleet of drones for surveillance and security purposes. Specifications of these drones are not available yet but are assumed to have greater ceiling/climbing rate and much better endurance to increase the operational capabilities.

DRONE OR NOT: Entry level civil purpose drone.

arc-bangladeshs-test-drone.jpg

ARC Bangladesh's test drone

Lately, added to the elite list of drone developers are a group of researchers from Shahjalal University (SUST). They came up with a fixed winged RC plane. Well, it's not a functioning drone yet. But Syed Rizwanul Haq Nabil, the team leader of this project, expects that with a couple of months or two they will be able to improve this RC plane to a civilian grade drone. This drone system would consist of several upgrades including ground station, onboard control system and will be loaded with sensors.
DRONE OR NOT: Not yet. More works pending.
Is that all we got?
No, indeed not. Drone based platforms made by local grads might be new but drone based photography is certainly not. Cygnus Aerial Photography, a venture by rookie pilot Naimul Islam Opu, is one of the pioneer's in aerial photography; not only in this country but also in the entire SAARC region. Currently this group owns several foreign imported drones with specialized photography equipment i.e. GoPro3 Black Edition, CANON powershot etc. They have done some works too.  Most renowned one is for Canadian Broadcast Corporation (CBC) on their critically acclaimed investigative documentary named 'Made in Bangladesh'. In this documentary, Opu and his team provided some unseen aerial footage of collapsed Rana Plaza. Starting at Tk. 40,000/-, anyone can avail Opu and his teams services for their aerial photography needs.

bangladesh-armys-rc-drone.jpg

 

Bangladesh Army's RC Drone

The thin line between a drone and not a drone
Many of you might be wondering, what's the difference between RC toys that are in the market and a drone. Legally speaking, hobby crafts are not allowed to exceed 400 ft above ground, so if you see one flying high, it's probably a drone. Adding to that, list a RC plane must stay within line of sight whereas the flight operator will be operating DRONE from thousands of miles away. Our advice would be to shoot it down. If someone complains of the cost to replace, it's an RC Toy but if you shoot it and get arrested for destruction of government property, be assured it's a drone!
All jokes aside, these are the very first steps towards a greater goal- to be self sustained by developing key technologies in-house. But commercial grade parts required for these drones are also not easily available. Also these come with a steep price tag. Hence more and more funds should be allocated to ensure more and more research can be continued. A word of caution: before flying the drones, researchers are requested to contact proper authorities to make sure the route is safe for trial flights.

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.eduicon.com/Feature/Details/318.html

Bangladeshis Make Robot Submarine

Saifur Rahman Rony | May 13, 2014

http://www.eduicon.com/admin/images/News/Feature_Photo/271_FeaturePhoto.jpg

Bangladesh is a country of rivers which span across the entire delta with the Bay of Bengal situated in the South. However, our country lacks in the capacity to research and explore the seafloor as the necessity tools required for such actions are not readily available. Rescue operations after a calamity at sea are often futile. With the expanding economy and growing industries, a need for sea exploration has occurred. To cater to these requirements, a group of four engineering students from AIUB may have just come up with a solution.

"Price for these professional robots begins at a hefty $7000 and Abu realized that employing such robots would be impossible for a developing country like Bangladesh".

Before he enrolled as an engineering student, Abu Fattah would often be concerned about the accidents that occur at sea and the failure that follows in rescue operations. He then began to do research on how to do something for such calamities in Bangladesh and found out that a lot of work was being done abroad with ROV (remotely operated vehicle) and AUV (autonomous underwater vehicle) at professional levels in oil rigs, under water exploration, etc. Price for these professional robots begins at a hefty $7000 and Abu realized that employing such robots would be impossible for a developing country like Bangladesh. Hence he began to wonder how to create such robots in Bangladesh at a much cheaper price. Having watched some university students working on similar projects on the Discovery Channel one day, Abu joked with his friends and talked about making one themselves. When the time came for them to work on their thesis project, no other idea seemed appealing. Abu then spoke to his supervisor Dr. Kamrul Hasan and he showed interest in their idea and asked them to start working on it. Abu and his team mates, Prasun Biswas, Sajib Das and Meraj mustakim began working.

Their primary goal was to achieve the basic ROV functionalities and the biggest problem they faced in doing so was creating the body structure. According to their design, the electric parts and power unit would be placed inside the structure, hence, it would need to be waterproof and also be able to withstand water pressure. After careful consideration they came to the conclusion that the PVC pipe would meet all their requirements. They spoke with the manufacturers of PVC and explained what is required and they agreed to create the body structure. For the ROV to function properly it needs thrust and the thruster made by the team was unable to withstand water pressure below 5 meters. To fix this problem, a water proof motor was imported from abroad and that is where the production cost increased significantly. The next focus was on the control system. The micro controller system was the one to use as these could be easily programmed and are low on power consumption, along with other advantages. Finally the robot submarine came into being. This ROV, runs by water propulsion (instead of jet propulsion), powered by an on board battery and controlled by microcontroller. The target was to build a low cost ROV and they have used materials that are available in the local market. A total of Tk. 40,000 (appx $500) was needed to build this ROV whereas a similar ROV would cost about $2,000 abroad. Abu also noted that they wanted to do something that would be unique to our country and encourage others to venture out on their own. Also, there have been other occasions where Bangladeshis have taken part in national and international robotics competitions but no prior work has been done in underwater robotics.

A total of Tk. 40,000 (appx $500) was needed to build this ROV whereas a similar ROV would cost about $2,000 abroad

When it comes to the prospects of this robot submarine, they seem quite promising. The ROV built can perform basic tasks of a typical ROV. It can move horizontally and vertically. It can go under certain depths and can collect water sample and also send out video feed using on board light and camera. It also sports temperature and obstacle sensors that send data to the display mounted on the remote controller.

After further modification and enhancement of upgraded technologies is availed, it has another area of potential, which is to help in the recovery from disasters by detecting sunken water vehicles in the quickest possible time. This would particularly be useful in areas where it’s tough and dangerous for humans to dive and search under water. This robot could be used to make detailed underwater map of the seafloor in a cost effective way. It will also allow us to conduct precise underwater surveys. These underwater robots could be used to find endangered or unknown species of living creatures.

As for applications, the ROV can be used in various sectors and industries starting with the oil and gas industry to fish farms, criminal investigations, chemical industries, hydroelectric/nuclear, investigation of sunken objects and power stations, among others.

 

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangladesh/bangladesh-rises-research-publications-still-not-enough-356218#.Yd2yG8AA4hw.facebook

Kamran Siddiqui

11 January, 2022, 10:35 pm

Last modified: 12 January, 2022, 01:15 am

Bangladesh rises in research publications, still not enough 

In the previous year, the number was 9,116, while in 2019, it was 8,301 documents.

pg-5_research-in-bangladesh.png?itok=8Cz

 

Bangladeshi researchers published more than 11,000 scientific publications, mostly articles in international journals with impact factor, last year, which was third among South Asian countries.

Although the number was 2,000 more than in 2020, experts believe that this is not enough.

The country's neighbours -- India (222,849 publications) and Pakistan (35,663 publications) -- have contributed much more, despite near similar positions in economic and social indicators.

According to the online magazine Scientific Bangladesh's annual report on scientific documents, the scholars of the country published 11,477 articles and other publications in 159 peer-reviewed and impact factor journals and Proceedings till 6 January.

In the previous year, the number was 9,116, while in 2019, it was 8,301 documents.

The documents that were counted in the report apart from articles are: conference papers, reviews, book chapters, letters, errata, notes, editorials, data papers, books, short surveys, and others.

Prof Dr M Shamsher Ali, former president of Bangladesh Academy of Science, told The Business Standard, "The current publication number is not enough in Bangladesh; it is extremely inadequate. It's because of the poor research budget in universities. Our higher education institutions have become teaching institutes only."

He suggested identifying good researchers to increase publications.

According to the 2021 annual report of the University Grants Commission (UGC), 125 public and private universities in the country altogether spent only Tk153 crore – an average of Tk1.22 crore each – on research activities in 2019, which is only 1% of their total expenditure.

More strikingly, privately-run BRAC University's spending on research in 2019 was Tk37.9 crores, which was five crores more than the total spent on research by 10 public universities combined in the same year.

Meanwhile, available data shows that South Asian countries registered a significant growth in research publications over the last five years. From 2016 to 2021, Nepal and Sri Lanka's contribution grew by 20 times and 16.5 times, respectively, while Maldives' research publications increased by 30 times.

Bangladesh, Bhutan, and Pakistan's contribution grew by 2 times only.

Academics and experts maintain that the low amount of money spent on research in the country's universities had resulted in the inadequate research work.

Dr Saleh Hasan Naqib, a veteran scientist and professor of Physics at Rajshahi University, told TBS, "A faculty should publish at least one or two quality research publications in a year. But on average, we cannot do so.

"There is a policy problem as we are not appointing quality graduates as teachers. Many appointments are questionable due to corruption. Besides, a teacher can be promoted easily without publications."

For painting the picture of the research publication scenario in the country, Scientific Bangladesh gleaned their data from the citation and abstract based database Scopus, which includes peer-reviewed literature, as well as scientific journals, books and conference proceedings.

The top seven journals which published the highest number of articles by Bangladeshi researchers are:  Heliyon, Plos One, Sustainability Switzerland, Scientific Reports, IEEE Access, Environmental Science and Pollution Research, International Journal of Environmental Research and Public Health.                                         

According to Resurchify, an information portal, the impact factor of the Heliyon is 2.85.

The impact factor, also known as Journal Impact Factor (JIF), is a metric used to evaluate the relative importance of a journal. It is determined by calculating the average number of citations received by selected articles in that journal within the last few years.

Where Bangladesh stands

According to the Scopus database, the top three subject areas of publication for Bangladeshis are engineering (10.7%), medicine (10.4%), and computer science (9.6%).

There was also a big increase in environmental sciences publications in 2021, which made it the fourth-largest area surpassing agriculture and biological sciences.

Among both university and research organisations, Dhaka University (DU) retained the top position with 1,246 publications, 500 more than last year.                          

Bangladesh University of Science and Technology (BUET) slipped to third position with 693 publications, while Rajshahi University secured the second position.  

Jahangirnagar University secured fourth position, while the private North South University placed 5th, climbing two rungs from 2020.

Dr Monir Uddin Ahmed, editor of Scientific Bangladesh, told TBS, "Using the number of articles per faculty, we can better understand the performance of any university. In this case, Mawlana Bhashani Science and Technology University (1.42 articles per faculty) is at the top, followed by Jessore University of Science and Technology (1.20) and BUET (1.04).

"From the data of articles per faculty which is less than 1 for most universities, and the number of corresponding authors [only 1/4 articles are originating from the institutes' own research], the scenario is far from satisfactory though publication number is increasing," he added.  

Top Bangladeshi researchers

According to the Scopus database, Dr Talha Bin Emran, assistant professor of the pharmacy department at BGC Trust University, obtained the top position last year with 92 publications.

Dr Tahmeed Ahmed, executive director of Icddr,b and Dr Akbar Hossain, principal scientist, Bangladesh Wheat and Maize Research Institute, secured the 2nd position jointly last year with 73 articles.                                                   

Dr Abu Reza Md Towfiqul Islam, associate professor of disaster management at the Begum Rokeya University and Md Sahab Uddin, executive director of Pharmakon Neuroscience Research Network, jointly secured 4th position with 65 articles, according to the data available.  

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.kalerkantho.com/online/aniversary-2022/2022/01/10/1109538

সোনালি আঁশের সুদিন ফিরবে সোনালি ব্যাগে

এম সায়েম টিপু   

১০ জানুয়ারি, ২০২২ ০৯:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে

095753205130kalerkantho-SP-2022-01-10-03

নিজের উদ্ভাবিত সোনালি ব্যাগ হাতে ড. মোবারক আহমেদ খান

বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পলিথিনের ব্যবহার কমাতে যখন সোচ্চার উন্নত বিশ্বের দেশগুলো, তখন বিপুল সম্ভাবনা নিয়ে দেখা দিয়েছে পাটের আঁশ থেকে তৈরি আমাদের দেশের সোনালি ব্যাগ। এর ফলে পাটের হারানো গৌরব আবার ফিরিয়ে আনা সম্ভব বলে মনে করেন এই ব্যাগের উদ্ভাবক ড. মোবারক আহমেদ খান।

পাটের সেলুলোজ থেকে তৈরি এই ব্যাগ এরই মধ্যে বেশ সাড়া জাগিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, উৎপাদন সক্ষমতার অভাবে কিছুটা পিছিয়ে পড়লেও এই ব্যাগ রপ্তানি হচ্ছে ইউরোপ, আমেরিকা, যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে। পাশাপাশি এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগেও আগ্রহ প্রকাশ করছে যুক্তরাষ্ট্রের দুটি প্রতিষ্ঠান।

উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির জন্য চীনের একটি প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছে এরই মধ্যে। আশা করা হচ্ছে, এ বছরের মার্চের মধ্যে সেই প্রযুক্তি সরবরাহ করবে দেশটি। তখন প্রতি মিনিটে ৬০টি ব্যাগ উৎপাদন করা যাবে। বর্তমানে দিনে সাত-আট ঘণ্টায় তৈরি হয় দুই থেকে আড়াই হাজার ব্যাগ; মাসে ৫৫ থেকে ৬০ হাজার। গো গ্রিন নামের স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠান প্রতি সপ্তাহে ১০ টাকা পিস দামে দু-তিন হাজার ব্যাগ নিয়ে যায়। বাকি ব্যাগগুলো রপ্তানি হয়।

বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা মোবারক আহমেদ খান জানান, ১৯৯০-এর দশক থেকে তিনি পাটের ব্যাগ নিয়ে গবেষণা করছেন। পাটের সেলুলোজ প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে সোনালি ব্যাগ উদ্ভাবন করেন ২০১৫ সালে। ২০১৭ সালে ডেমরার লতিফ বাওয়ানী জুট মিলসে পাইলট প্রকল্পের আওতায় পলিথিন ব্যাগের বিকল্প হিসেবে সোনালি ব্যাগ উৎপাদন শুরু করে বিজেএমসি।

ড. মোবারক বলেন, ‘বিশ্ববাজারে শপিং ব্যাগের বাজার সাড়ে তিন ট্রিলিয়ন ডলারের। এই বাজারে পরিবেশবান্ধব সোনালি ব্যাগের বিপুল সম্ভাবনা থাকলেও উৎপাদন সক্ষমতার অভাবে আমরা সেখানে জায়গা করে নিতে পারছি না। তবে আশার কথা, সম্প্রতি এই খাতে বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এ ছাড়া দেশের তৈরি পোশাক খাতের উদ্যোক্তাদেরও আগ্রহ রয়েছে।’

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.thedailystar.net/bangla/স্টার-মাল্টিমিডিয়া/বাংলাদেশি-বিজ্ঞানীর-আবিষ্কার-২-সপ্তাহেরও-বেশি-সতেজ-থাকবে-ফলমূল-304281

বাংলাদেশি বিজ্ঞানীর আবিষ্কার: ২ সপ্তাহেরও বেশি সতেজ থাকবে ফলমূল

স্টার কানেক্টস

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৩, ২০২২ ১১:১৬ অপরাহ্ন

https://www.youtube.com/watch?v=Wj0tgYFbdkA&t=66s

দ্রুত পচনশীল হওয়ায় প্রচুর ফলমূল ও শাকসবজি নষ্ট হয়ে যায়। এক হিসেব মতে, সরবরাহ সমস্যার কারণে ভোক্তার কাছে পৌঁছানোর আগেই বিশ্বের ৬০ শতাংশ খাদ্য নষ্ট হয়ে যায়। অথচ বিশ্বের জনসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশ এখনো তিন বেলা ঠিকমতো খেতে পায় না। 

যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টনের রাইস ইউনিভার্সিটির ম্যাটেরিয়ালস সায়েন্স ও ন্যানোটেকনোলজি বিভাগের গবেষক ড. মুহাম্মদ মাকসুদ রহমানের নেতৃত্বাধীন গবেষক দল ডিম থেকে এমন এক কোটিং আবিষ্কার করেছেন, যা ফলমূলের সতেজ থাকার সময় কমপক্ষে এক সপ্তাহ বাড়িয়ে দিতে পারে।

এই গবেষণার নানা দিক নিয়ে স্টার কানেক্টসে কথা বলেছেন ড. মুহাম্মদ মাকসুদ রহমান।

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangla/অর্থনীতি/news-details-80584#.YemoQkHzDQ4.facebook

শওকত আলী

21 January, 2022, 12:20 am

Last modified: 21 January, 2022, 12:21 am

ধান থেকে মুরগি ও অন্যান্য অনেককিছুতেই দেশের কৃষি খাতে বিপ্লব এনেছে বিজ্ঞান

গত কয়েক দশকে দেশের কৃষি খাতে এসেছে অভাবনীয় পরিবর্তন। এই কৃষি বিপ্লবের পেছনে রয়েছে গবেষণা।

lead-info-for-online.jpg?itok=mtNdDBgt&t

 

১৯৭১ সালের আগে নওগাঁর কৃষক মোকাব্বর আলী প্রতি বিঘা জমি থেকে পেতেন ৪-৬ মণ (প্রতি মণে প্রায় ৩৭ কেজি) ধান। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে বিভিন্ন জাতের হাইব্রিড ধান পৌঁছে যাওয়ায় বিঘাপ্রতি ধানের ফলন ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে।

২০১৫ সালে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বারি) উদ্ভাবিত বীজ পান মোকাব্বর। সেই বীজ ব্যবহার করে তিনি প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় ২৮ মণ ধানের ফলন পান।

৭০ বছর বয়সি এই কৃষক বলেন, 'সরকারি বীজ একেবারেই অন্যরকম।' গত অর্ধশতকে চাষবাসের চেহারা পাল্টে দেওয়া কৃষি-জাদুর ব্যাপারে এই বর্ষীয়ান কৃষক কিছুই জানেন না।

এই কৃষি-জাদুর মধ্যে রয়েছে উচ্চ ফলনশীল ফসলের জাত এবং দক্ষ চাষাবাদের যন্ত্রপাতি আবিষ্কার। এর ফলে মোকাব্বরের মতো কৃষকরা ৫০ বছর আগে যে পরিমাণ ধান ফলাতেন, এখন ফলাতে পারেন তারচেয়ে চারগুণ বেশি ধান।

১৯৭৩ সালে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পূর্বাভাস দিয়েছিল বাংলাদেশ হচ্ছে একটি 'গন কেস'—অর্থাৎ বাংলাদেশ মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না। এ পূর্বাভাসের সমুচিত জবাব হয়ে এসেছে এই চারগুণ ধান উৎপাদন।

স্বাধীন বাংলাদেশের বয়স যখন মাত্র দুই বছর, তখন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট (ব্রি) বিআর-৩ নামের একটি ধানের জাত উদ্ভাবন করে। জাতটি খুব অল্প সময়ে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে এবং আউশ, আমন ও বোরো তিনটি মৌসুমেই একই জাতের ধান চাষ হয়। যে কারণে এটি বিআর-বিপ্লব হিসেবে পরিচিত পায়।

গবেষকরা বলছেন, শুরুতে বিআর-৩-এর মাধ্যমে ১৯৭৩-পরবর্তী সময়ে ধানের উৎপাদন ১ কোটি টন থেকে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ টনে উন্নীত হয়। এরপর ১৯৮০ সালে ব্রি-১১ নামের আরেকটি জাত উদ্ভাবন করে ব্রি। আশির দশকে এই জাতটি ধীরে ধীরে বিআর-৩-এর জায়গা নেয়। এরপর নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝিতে আসে বিআর-২৮ ও ২৯, যা বোরো মৌসুমের ইরি ধান হিসেবে পরিচিত। এ দুটি জাত বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ধান উৎপাদনে আরও বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনে।

ব্রি-র মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর জানান, দেশে এখন উচ্চ ফলনশীল ধানের জাত ২০০-র বেশি। সর্বশেষ ২০২০-২১ অর্থবছরে ধান উৎপাদন হয়েছে ৩ কোটি ৮০ লাখ টন।

শুরুতে কৃষি গবেষণা কেবল ধান উৎপাদনের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও বিজ্ঞান ও গবেষণা ধীরে ধীরে মৎস্য, পোল্ট্রি, দুগ্ধ ও গবাদিপশুর মধ্যে ঢুকে পড়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে ফসল, মাছ ও গবাদিপশুর মোট ১ হাজার ১৬০টি নতুন জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। 

ধানের উৎপাদনে বিআর-৩, বিআর-১১, মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে তেলাপিয়া ও পাঙ্গাস, মাংস ও ডিমের জোগান বৃদ্ধিতে পোল্ট্রি ও সোনালি মুরগি গেইম চেঞ্জারের ভুমিকা রেখেছে। এই সবগুলো জাতই বাংলাদেশের নিজস্ব গবেষণার ফসল।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) কর্তৃক প্রকাশিত '১০০ ইয়ারস অভ এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্ট ইন বাংলাদেশ' বই থেকে জানা যায়, বর্তমানে গবাদিপশু, মৎস্য ও ফসল খাতে জন্য সরকারি প্রতিষ্ঠান তৈরি হয়েছে ১৩টি। 

১৯৭০ সালে ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটের জন্ম হয় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে। স্বাধীনতার পর এটিকে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট হিসেবে নামকরণ করা হয়। প্রতিষ্ঠানটি ধানের উৎপাদন ও জাত উন্নয়নে কাজ করছে। ব্রি উদ্ভাবিত ধানের জাতগুলো এখন নানা বৈশিষ্ট্যের। কোনোটা রোগ প্রতিরোধী, কোনোটা আবার লবণাক্ততা সহনশীল। এছাড়া বন্যা, খরা, ঠান্ডা, অঞ্চলভিত্তিক বৈশিষ্ট্য, জিঙ্ক সমৃদ্ধ, উচ্চ ফলনশীল নানা ধরনের জাত উদ্ভাবন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ধানের জাত উদ্ভাবনের পাশাপাশি ফসলের প্রযুক্তি উদ্ভাবন নিয়েও কাজ গবেষণা করছে বাংলাদেশ পরমাণু গবেষণা কেন্দ্র (বিনা)। ধান ছাড়াও মরিচ, ডাল, গম, রসুন, পেঁয়াজ, টমেটোসহ বিভিন্ন ফসলের রোগ প্রতিরোধী জাত উদ্ভাবন, জীবনকাল কমিয়ে আনা, ফসল সংগ্রহ-পরবর্তী লোকসান কমিয়ে আনা, উৎপাদিত পণ্যের শেলফ-লাইফ বৃদ্ধিসহ নানা কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিনার মহাপরিচালক ডমির্জা মোফাজ্জল ইসলাম বলেন, 'জাত উদ্ভাবনের পাশাপাশি আমরা কৃষি প্রযুক্তির উন্নয়নে প্রতিনিয়তই গবেষণা করছি। যার প্রভাবে কৃষি উৎপাদন প্রতিনিয়তই বৃদ্ধি পাচ্ছে।'

এদিকে সবজিসহ আলু ও ডালজাতীয় বেশকিছু পণ্যের জাত উদ্ভাবনে কাজ করছে বারি। প্রতিষ্ঠানটি গম, ভুট্টা, বেগুন, আলু সহ বেশকিছু ফসলের জাত উদ্ভাবন করছে। উচ্চফলনশীলতার পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মাথায় রেখে প্রতিষ্ঠানটি জাত উদ্ভাবনে গুরুত্ব দিচ্ছে।

আলুর জাত উদ্ভাবনে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয় বারি। বারি-উদ্ভাবিত উন্নত জাতের কারণেই এখন আলুর উৎপাদন এক কোটি টনের কাছাকাছি। গমের নানা জাত উদ্ভাবন হলেও পরিবেশগত কারণেই এর উৎপাদন খুব বেশি বাড়ানো সম্ভব হয়নি। তবে ভুট্টা উৎপাদনে বাংলাদেশে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে। উৎপাদনের শুরুটা গমের পরে হলেও ভুট্টার উৎপাদন এখন ৬০ লাখ টনের আশেপাশে। 

বারির মহাপরিচালক ড. দেবাশীস সরকার বলেন, 'গবেষণার কারণেই কৃষি খাতের চিত্র পাল্টে গেছে। কারণ গবেষণার মাধ্যমে উন্নত জাত ও প্রযুক্তিগুলো স্থানীয় পর্যায়ে উৎপাদনে ব্যবহার করা হচ্ছে।' তিনি বলেন, তাদের বর্তমানের গবেষণাগুলো করতে হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মাথায় নিয়ে।

সবজির জাত উদ্ভাবন ও গবেষণায় সরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ে বেশি সাফল্য দেখিয়েছে বেশকিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। লাল তীর, এসিআই, সুপ্রিম সীড, ব্র্যাকসহ অনেক প্রতিষ্ঠানের দখলে এখন সবজির বীজের ব্যবসা। এ পর্যায়টি তৈরি হয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলোর নিজস্ব গবেষণার কারণে। প্রতিষ্ঠানগুলো সবজির পাশাপাশি ধানের হাইব্রীড বীজের জাতও উদ্ভাবন করছে। 

মৎস্য বিপ্লবের নেতৃত্বে তেলাপিয়া ও পাঙ্গাস

স্বাধীনতার পর সময়ে থাইল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে নাইলোটিকা নামের তেলাপিয়ার একটি জাত নিয়ে আসেন গবেষকরা। পরীক্ষামূলক চাষাবাদ ও গবেষণার মাধ্যমে এর বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয় আশির দশকে। দ্রুত বর্ধনশীল ও লাভজনক হওয়ায় সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে এ মাছের চাষ দ্রুত। 

বর্তমানে দেশে প্রতি বছর প্রায় ৪ লাখ টন তেলাপিয়া মাছ উৎপাদন হয়। গবেষকদের তথ্যানুসারে, তেলাপিয়ার যে জাতটি এখন চাষ হচ্ছে সেটি ১৩তম প্রজন্ম, যা গবেষণার মাধ্যমে উদ্ভাবন করা হয়েছে। এই প্রজন্মের তেলাপিয়া যারা চাষ করছেন তারা প্রথম জাতের তুলনায় ৬৩ শতাংশ বেশি উৎপাদন পাচ্ছেন। 

বাজারে এক-দেড় কেজি ওজনের যেসব তেলাপিয়া কিনতে পাওয়া সেটাও বিজ্ঞানীদের গবেষণার ফল। 

জাতিসংঘের কৃষি ও খাদ্য সংস্থার তথ্য বলছে, বিশ্বের মধ্যে তেলাপিয়া উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে।  

থাইল্যান্ড থেকে আরও একটি মাছ নিয়ে আসা হয় নব্বইয়ের দশকের শুরুতে, যেটি পাঙ্গাস নামে পরিচিত। স্থানীয় আবহাওয়া-উপযোগী করে পাঙ্গাসের জাত উন্নয়ন ও উদ্ভাবন করে স্থানীয়ভাবে চাষাবাদ শুরু হয়। নব্বইয়ের শুরু শেষ দিকে পাঙ্গাসেরও ব্যাপক বাণিজ্যিক চাষাবাদ শুরু হয়। এখন বাজারে সাধারণ মানুষের মাছ হিসেবে তেলাপিয়া ও পাঙ্গাস দুটি বেশ জনপ্রিয়।

এছাড়াও গবেষকরা গবেষণাগারে অনেকগুলো ছোট মাছের জাত উদ্ভাবন করেছেন বাণিজ্যিক উৎপাদনের জন্য। ২০০৮-০৯ সালে ছোট মাছের উৎপাদন ছিল ৬৭ হাজার টন, যা এখন আড়াই লাখ টনে পৌঁছেছে। উন্নত জাত উদ্ভাবিত হওয়ায় পাবদা, কৈ, শিং, টেংরাসহ বিভিন্ন মাছের উৎপাদন বেড়েছে।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউট (বিএফআরআই)-এর মহাপরিচালক ও বিজ্ঞানী ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ টিবিএসকে বলেন, 'মাছের অ্যাভেইলেবিলিটি নিশ্চিতের পেছনে বাণিজ্যিকভাবে মাছ চাষ ভূমিকা রেখেছে। তেলাপিয়া, পাঙ্গাস ও কৈ মূলত দেশের মাছ চাষকে একটি ভিন্ন মাত্রা দিয়েছে। এটা পুরোটাই আমাদের গবেষণার ফল। ধারাবাহিক গবেষণার ফলেই মাছ চাষে এত বেশি সফলতা এসেছে। বর্তমানে সবমিলে প্রতি বছর মাছ উৎপাদন ৪৫ লাখ টন ছাড়িয়েছে, যা চাহিদার চেয়ে বেশি।'

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশ এখন বদ্ধ জলাশয়ের মাছ আহরণ ও উৎপাদনের দিক থেকে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে।

বিএফআরআই ও মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, নব্বইয়ের দশকে পোনা উৎপাদনের জন্য হ্যাচারির সংখ্যা ছিল ৬০-৬৭ টি। বর্তমানে এই সংখ্যাটা এসে ঠেকেছে ৯৫০টিতে, যার মধ্যে ৮২০টিই বেসরকারি মালিকানাধীন। এর পেছনে গবেষণার গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত গবেষকরা বিভিন্ন মাছের ৬০টি জাত, প্রজনন ও চাষাবাদের প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন। এসব উদ্ভাবন মৎস্য খামার ও হ্যাচারিতে ব্যবহার করা হচ্ছে।

গবেষণার জন্য বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউট গঠন করা হয় ১৯৮৪ সালে। একসময় মুক্ত জলাশয়ের উপর নির্ভরশীল বাংলাদেশ এখন বদ্ধ জলাশয়ের চাষের মাছের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। চাষের মাধ্যমে হারিয়ে যেতে বসা বিভিন্ন প্রকারের ছোট মাছ, কই, শিং, রুই কাতলাসহ বিভিন্ন মাছের জাত উদ্ভাবন করে এই প্রযুক্তিগুলো খামারিদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।    

ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ বলেন, 'মৎস্য খাতে গবেষণায় জোর দেয়ার জন্য গত ৫-৭ বছরে ১০০-র বেশি বিজ্ঞানীর নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়েছে এবং নিয়োগ দেয়া হয়েছে।'

মাংসের চাহিদা মেটাতে ব্রয়লারের আগমন

নিজেদের ক্যাটারিং সার্ভিসের জন্য বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স আশির দশকে দেশে সর্বপ্রথম ব্রয়লার মুরগির বাচ্চা এনে পালন শুরু করে। বাংলাদেশের আবহাওয়ায় এই মুরগি টিকে যাওয়ার পর থেকেই দু-একজন করে বিমানের কাছ থেকে বাচ্চা সংগ্রহ করে এর পালন শুরু করে। 

তবে সর্বপ্রথম এগস অ্যান্ড হেনস লি. নামের একটি প্রতিষ্ঠান বাণিজ্যিকভাবে পোল্ট্রি উৎপাদন শুরু করে। মাত্র ৪-৬ সপ্তাহে খাওয়ার উপযোগী হওয়ায় এবং উৎপাদন খরচ কম থাকায় ধীরে ধীরে এটি ছড়িয়ে পড়তে থাকে।

লাভজনক হওয়ায় ১৯৮৩ সালে ব্র্যাক তাদের রুরাল পোল্ট্রি মডেল প্রকল্পে দরিদ্র কৃষকদের উঠান পর্যায়ে পোল্ট্রি খামার তৈরিতে উৎসাহিত করে। আশির দশকের শেষ ও নম্বইয়ের দশকে পোল্ট্রি উৎপাদন দ্রুত বৃদ্ধি পায়। কর্মসংস্থানের একটি খাত হয়ে উঠে পোল্ট্রি খামার। এ কারণে সরকারও বিভিন্ন নীতিগত সহায়তা এবং বিনিয়োগের পথ তৈরি করে দেয়।

ব্রয়লার ছাড়াও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের গবেষণার মাধ্যমে দেশে উদ্ভাবিত আরেকটি মুরগির জাত জনপ্রিয় হয়েছে, যা এখন সোনালি নামে পরিচিত। স্বাদ ও দেখতে অনেকটা দেশি মুরগির মতো হওয়ায় সোনালির চাহিদাও দিন দিন বাড়ছে। 

বর্তমানে বাজারের ৬০ ও ৪০ শতাংশ যথাক্রমে ব্রয়লার ও সোনালির দখলে রয়েছে। আর ডিমের চাহিদার ৮০ শতাংশ জোগান আসছে পোল্ট্রি খাত থেকে। এই খাতে এখন বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকা।

প্রণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, গত এক দশকে দেশে মাংসের উৎপাদন তিনগুণেরও বেশি এবং ডিমের উৎপাদন প্রায় তিনগুণ বেড়েছে।

কৃত্রিম প্রজননে দুধ, মাংস উৎপাদনে সাফল্য 

২০২০-২১ অর্থবছরে মাংস উৎপাদন হয়েছে ৮৪ দশমিক ৮০ লাখ টন, দুধ উৎপাদন হয়েছে ১ কোটি ১৯ লাখ টন। গবেষকরা বলছেন, পরিবেশগত কিছু কারণে দুধে একটু পিছিয়ে থাকলেও মাংস ও ডিমে বাংলাদেশ বেশ এগিয়েছে। পোল্ট্রির বাইরে গরু ও ছগলের কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে গবাদিপশু খাতের ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। 

কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে বাংলাদেশ এখন উন্নত মানের ষাঁড় উৎপাদন করছে। এ প্রযুক্তির সুবাদে প্রত্যন্ত জেলাগুলোতেও এখন হাজার হাজার গরুর খামার তৈরি হয়েছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর বলছে, মাঝে মাংসের উৎপাদন দ্রুত বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত বড় হওয়া ব্রাহমা জাতের উৎপাদনে গেলেও দুধ কমে যাওয়ার শঙ্কায় সরকার আপাতত এই জাতের কৃত্রিম প্রজনন বন্ধ রেখেছে। যদিও বিশ্বের অনেক দেশই মাংসের জন্য দ্রুত বড় হওয়া জাতের দিকে ঝুঁকছে। তবে দুধের জন্য উন্নত জাতের গাভি পালনেও গুরুত্ব দিচ্ছেন খামারিরা।

প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউটের সাবেক মহাপরিচালক ড. নাথুরাম সরকার টিবিএসকে বলেন, কৃত্রিম প্রজনন শুরু হওয়ার পর থেকে এই খাতের আকার ব্যাপকভাবে বেড়েছে। কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে উদ্ভাবিত জাতগুলো বড় বিনিয়োগ নিয়ে আসছে। অনেক তরুণ উদ্যোক্তাই এখন গবাদিপশু পালনে আসছেন।

ড. নাথুরাম সরকার বলেন, প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউট রোগ নির্ণয়, প্রযুক্তি, উৎপাদন পদ্ধতিসহ নানা বিষয় নিয়ে গবেষণা করে প্রতিনিয়ত এ খাতকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। 

কৃষির চেহারা বদলে দিয়েছে যেসব কৃষি প্রযুক্তি

ফেরোমন ফাঁদ হলো এক ধরনের কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি। এ পদ্ধতিতে রাসায়নিক কীটনাশক বা কীটনাশক ব্যবহার করা হয় না। তার বদলে এ পদ্ধতিতে জৈবিকভাবে উৎপাদিত রাসায়নিক ফেরোমন ব্যবহার করা হয়। এই রাসায়নিক পোকামাকড়কে আকৃষ্ট করে জৈব পদ্ধতিতে ফসল বাঁচাতে সাহায্য করে। অনেক কৃষকই এখন প্রাকৃতিক উপায়ে কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণের উপর বেশি জোর দিয়ে ফসল উৎপাদনে ফেরোমন ব্যবহার করছেন।

একসময় কৃষকরা প্যাডেল-সেচ দিয়ে জমিতে পানি দিতেন। এখন তার জায়গা নিয়েছে ডিজেলচালিত মোটর এবং গভীর বৈদ্যুতিক নলকূপ।

স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত কৃষি খাতে সর্বমোট ১ হাজার ১৬৭টি নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন বিজ্ঞানী ও গবেষকরা। 

আগে কৃষি খাত ব্যাপকভাবে কায়িক শ্রমের ওপর নির্ভরশীল ছিল। ষাঁড় ও লাঙলের ব্যবহার থেকে কৃষকরা এখন জমি চাষ করার জন্য ট্রাক্টর ব্যবহার করছেন। শারীরিক শ্রমনির্ভর হওয়ায় আগে বীজ বপন থেকে শুরু করে ফসল সংগ্রহ পর্যন্ত অনেক সময় লেগে যেত, সে প্রক্রিয়াও ছিল অত্যন্ত ধীর। এখন কৃষিযন্ত্রের সুবাদে এ খাত হয়েছে গতিশীল।

বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা কৃষি যন্ত্র উদ্ভাবন করছে। অন্যদিকে ৩ হাজার ২০ কোটি টাকার খামার যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সরকার।

ছোট আকারের চাষ এখন বাণিজ্যিক কৃষিতে পরিবর্তিত হয়েছে। অনেক কৃষি উদ্যোক্তাই হাই-ভ্যালু ফসলের দিকে ঝুঁকছে।

আরও গবেষক প্রয়োজন

উচ্চ ফলনশীল ধানের জাত উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে দুই বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব ব্রি-র সাবেক সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আবদুস সালাম এবং ব্রি-র সাবেক পরিচালক তমাল লতা আদিত্য।

ইরি উদ্ভাবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল আবদুস সালামের। অন্যদিকে 'ধন কন্যা' নামে পরিচিত তমাল লতা আদিত্য একাই উদ্ভাবন করেছেন ১৫টি ধানের জাত।

বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানী ড. খান শহীদুল হক দুগ্ধ উন্নয়ন ও গবাদিপশু মোটাতাজাকরণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। পোল্ট্রি খাতের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন ড. ইমদাদুল হক। আর ইলিশ উৎপাদনে অবদান রেখেছেন ডা. আনিসুর রহমান।

এছাড়াও আরও কয়েকজন বিশিষ্ট গবেষকদের মধ্যে রয়েছেন বিনার মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম ও শামসুন নাহার বেগম, কৃষিবিদ ড. মোহাম্মদ হোসেন মন্ডল এবং বারির কাজী এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, যিনি বিখ্যাত কাজী পেয়ারার জাত উদ্ভাবন করেছিলেন।

বিএআরসির তথ্য অনুসারে, বাংলাদেশে বর্তমানে কৃষি গবেষকের সংখ্যা ২ হাজার ৫০০, যা নেপাল ও শ্রীলঙ্কার চেয়ে বেশি কিন্তু ভারত ও পাকিস্তানের তুলনায় অনেক কম।

ব্রির মহাপরিচালক মো. শাহজাহান কবীর বলেন, 'কৃষি গবেষণার জন্য অর্থায়ন কোনো সমস্যা নয়, আমাদের শুধু আরও গবেষক দরকার।'

কৃষি গবেষণা বাড়াতে পাট গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধীনে শুধু ফসলের জন্যই একটি জিনোম সিকোয়েন্সিং কেন্দ্র রয়েছে। ইনস্টিটিউটটি সম্প্রতি একটি পাটের জিনোম ডিকোড করার পরে আলোচনার কেন্দ্রে এসেছিল।

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://today.thefinancialexpress.com.bd/first-page/sweden-to-seek-bds-approval-for-human-trial-of-nasal-covid-jab-1642960415

Sweden to seek BD's approval for human trial of nasal Covid jab

 FE REPORT |  January 24, 2022 00:00:00

https://today.thefinancialexpress.com.bd/uploads/1642960415.jpg

Sweden's Karolinska Institute is set to seek ethical clearance of Bangladesh Medical Research Council (BMRC) to start human trial of its developed nasal Covid-19 vaccine here.

The ISR has already assigned Bangladesh Clinical Trials Ltd as its contract research organisation.

The two organisations also signed a Memorandum of Understanding (MoU) earlier to this effect.

Dr Ahmedul Kabir, principal of Mugda Medical College, and Dr ABM Abdullah, a former dean of the medicine faculty at Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University, will work as principal investigators if the trial gets approved.

They are working on the protocol of the clinical trial.

"We're in the final stage. We'll soon submit their protocols seeking ethical clearance from the BMRC," medicine expert Dr ABM Abdullah said.

After getting the approval, he said, they would start trial run of the nasal vaccine here.

"We want to start first phase of the clinical trial first. If it is successful, we'll start phase-2 and phase-3 trails together," he said.

He also informed that they would administer two doses of the vaccine in a break of four weeks.

Dr Ahmedul Kabir said a nasal spray device is used to dry up the entire proteins.

"The good part in the system is you don't need to keep it in refrigerator. Even people can administer the antidote by themselves. They don't need to come to the vaccination point," he said.

A total of 90 volunteers will take part in the trial run of the first phase of the nasal vaccine.

Currently, the Covid-19 vaccines being used across the world are injected into the muscles of the recipients, but concern has grown over their efficacies to prevent infection with new variants amid a lack of doses while vaccines that target the mucous membranes are not new.

There are many oral vaccines that are approved to combat infections such as polio and cholera.

In a July 21 article, Karolinska Institute immunologist and T cell researcher Marcus Buggert said when infections take place in the mucosal surfaces of the nasal cavity and the T cells, the immune system is primed.

[email protected]

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.dhakatribune.com/business/2022/01/19/buet-signs-mou-with-walton#:~:text=Through this agreement%2C Walton has,technology products made in Bangladesh.&text=Walton will provide related equipment to set up the lab.&text=of the country.-,Walton also presented a check for Tk10,Buet for three Masters Fellowships.

Buet signs MoU with Walton

Walton also presented a check for Tk10 lakh to Buet for three Masters Fellowships.

https://new-media.dhakatribune.com/en/uploads/2022/01/19/rsz-1-dsc2025-1.jpeg

 

Tribune Desk

January 19, 2022 6:41 PM

On January 18 at the Buet Council Building, the memorandum of understanding (MoU) was signed on behalf of Bangladesh University of Engineering and Technology (Buet) by Vice-Chancellor Prof Dr Satya Prasad Majumder and on behalf of Walton DG-Tech Industries Ltd by Chairman SM Rezaul Alam. 

Prof Dr Muhammad Anisuzzaman Talukder, director of Research and Innovation Centre for Science and Engineering (RISE) of Buet and Golam Murshed, managing director of Walton Hi-Tech Industries PLC were present in the MoU signing ceremony, reads a press release.

Through this agreement, Walton has announced to set up a lab at Buet to jointly work on research and development of electronics and technology products made in Bangladesh. 

Walton will provide related equipment to set up the lab. Buet teachers and students will be able to do effective research on Walton products in the lab. 

This will bring about a revolutionary change in the economic development and technological advancement of the country. 

Walton also presented a check for Tk10 lakh to Buet for three Masters Fellowships.

All the Deans, Heads, Directors of different departments and offices of the University and senior officials of Walton Hi-Tech Industries PLC and Walton DG-Tech Industries Limited were also present on the occasion in compliance with the hygiene rules.

 

Link to comment
Share on other sites

  • 2 weeks later...
  • Gold Class Members

ময়মনসিংহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থী নাহিয়ান আল রহমান এবং তার টিমের তৈরী রকেট উৎক্ষেপনের অপেক্ষায়। বাংলাদেশ সরকারের অনুমতি পেলেই পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করা হবে তাদের তৈরী করা রকেটটি।

273145854_1316439345491270_4902613702387

 

Link to comment
Share on other sites

  • 3 months later...
  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/features/pursuit/why-there-arent-enough-female-science-professionals-bangladesh-401342

Promila Kanya & Sumaiya Tithi

11 April, 2022, 02:15 pm

Last modified: 16 April, 2022, 08:38 am

Why there aren’t enough female science professionals in Bangladesh

dr._kadri_photo_noor_a_alam_5.jpg?itok=y

Dr Firdausi Qadri has been instrumental in discovering vaccines that have saved millions of lives. She is seen here along with an ensemble of younger scientists who look up to her. Photo: Noor-A-Alam

Many female students successfully complete honours and masters in science related subjects but do not get into professions related to their degrees. Here is why

Farzana Zarin Maria, a geology graduate from the University of Dhaka, had won the Dean's Award for her extraordinary result. However, her good grades were not sufficient for fulfilling her dream of pursuing a career in geology.

Now, Farzana works in a bank. When asked why she chose a career unrelated to her degree, she replied, "I think not even one percent of geology graduates get to work in the scientific field," she said, adding, "I had to start earning quickly and support my family."

But there are many female science professionals in the country; should she have stopped trying?

According to Farzana, those who are working in science in Bangladesh, are going through daily struggles to remain in their positions. "It is difficult for women to work in science since they sometimes have to go for field visits and spend time at the laboratory."

She also mentioned how only her batchmates from affluent families could go abroad for higher studies or at least plan about it.

It is not just Farzana, there are many others like her who successfully complete honours and masters in science-related subjects but do not get into professions related to their degrees.

The barriers include lack of social security (staying at the lab at night or going on field visits are generally considered unsafe for women), job insecurity (insufficient positions for female science professionals) and overall, an environment that is unfavourable for women and their growth potential.

In Dhaka University, 30% to 40% of students studying physics and chemistry are female.

Data from 2020 show that 188 female students enrolled in the physics department of Dhaka University. 172 female students enrolled in the mathematics department whereas 158 new admissions were female in the chemistry department.

Despite these figures, the number of female professionals in scientific and research organisations is low.

As of 2021, there are 90 scientists and engineers in the Bangladesh Atomic Energy Commission and 16 of them are women. According to the list provided on the website of Bangladesh Rice Research Institute, out of 227 scientists, only 54 are women.

Excellence in scientific field

However, there are exceptions such as Scientist Dr Firdausi Qadri, winner of Ramon Magsaysay Award 2021 and lead at the Institute for Developing Science and Health Initiatives.

We reached out to Dr Firdausi, who has also been awarded as one of the top 100 scientists in Asia, to understand the importance of higher engagement of women in our country's scientific fields.

On the low participation of women in science, she said, "It is taken for granted that women will not come into science; they cannot spend a lot of time away from family. And my life goal was to do things so others get inspired and see they can do them too."

Women have to work much harder to prove themselves and when they work, they work very well, the scientist opined. 

"I think of my life 40 years ago and I have to say things have improved over time. However, the disparity between boys and girls begins from home so the change has to begin from there as well," she added.

Assistant Professor at the department of chemistry of Dhaka University Dr Saika Ahmed shared with us, "Although my family is supportive, I still face many obstacles as I progress in my career. Because society still believes I would not be able to give time for career growth as I am a woman."

Dr Saika believes if more women join the scientific fields, there will be more role models for other women to follow. This will also help to dismantle stereotypes such as women are not as efficient as men.

Going back, the pros and cons

In case someone had a fallout in her career and wanted to come back, how difficult would the journey be for her?

Zakia Roushan Runi is a deputy manager at Sadharan Bima Corporation. She completed her honours and masters in chemistry from Dhaka University. As a student, she wanted to pursue a PhD abroad or at least work in the industrial field or gas fields in Bangladesh. 

With most industrial jobs being based out of Dhaka and also her family wished for her to stay in Dhaka with her husband, she chose her current job. 

After a nine-year hiatus, she has recently begun her PhD in chemistry. "I came back to science because I wanted to gain more knowledge," she said, adding, "despite all the support, it is becoming incredibly difficult for me to balance between family, job and PhD." 

The barriers and the solutions

A student has to spend years studying and learning in order to complete a master's degree. When she cannot pursue a career that is aligned with her education, it becomes a loss of talent as well as resource.   

On this, Professor Dr Abdus Salam of the Institute of Education and Research at Dhaka University added, "We lack in education and industry alignment. Our job market does not match the degrees."

He suggested, "Every institution should have a link with companies so that students get ample opportunities for internships. Through strong internships programmes, they will be better prepared for jobs that are related to their degrees."      

Dr Firdausi Qadri said, "The government is playing a great role in ensuring we have lower dropouts from science. There are PhD programmes for women posing excellent opportunities for them," adding, "more scholarships, training and of course, a changed mind-set of family members, will help to increase women's participation in science."   

Dr Saika believes female students are not continuing with science or joining scientific fields due to a lack of job positions and job security.

She added, "Authorities have to create a women-friendly environment to encourage women to join research and science areas. At the same time, by providing daycare support, they have to make sure motherhood does not become an obstacle in women's careers."   

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangladesh/education/97-ru-teachers-capture-places-world-best-researchers-list-409314

BSS

25 April, 2022, 05:35 pm

Last modified: 25 April, 2022, 05:41 pm

97 RU teachers capture places in world best researchers list

A total of 97 teachers of Rajshahi University (RU) have captured their places in the world best researchers list of the Alper-Dodger (AD) Scientific Index- 2022.

On April 23 last, the list was published on the website of AD Scientific Index. A total of 7.29 lakh researchers from 14,120 institutions in the world got their places in the list.

Professor Monzur Hossain of the Department of Botany in RU said the AD Scientific Index is a ranking system with a methodology-based principle of including only meritorious scientists.

Based on Google Scholar's total h-index scores, it lists all academicians, who are ranked in the world in the top university rankings for the last five years.

According to the international standard index, the scientists were divided into 12 categories. In the ranking list, 2,771 researchers got positions from Bangladesh, including 97 from different departments in RU.

Among the RU ranking researchers, Professor Ali Akbar from the Department of Applied Mathematics grabbed the first position, while Prof Yamin Hossain from the Department of Fisheries clutched the second, Prof Mahbubur Rahman from the Department of Botany took the third, Prof Ashique Mosaddique from the Department of Pharmacy captured fourth and Prof Khaled Hossain from the Department of Biochemistry and Molecular Biology grabbed the fifth position.

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

A total of 38 KUET (Khulna University of Engineering and Technology) faculty members have been named to the Alper-Dodger (AD) Scientific Index- 2022 list of the world's best researchers.

The list was released on the AD Scientific Index website on April 23. The list included 7.29 lakh researchers from 14,120 universities around the world. The scientists were grouped into 12 categories based on the international standard index.

Bangladesh was represented on the list by 2,771 researchers, including 38 from KUET's various departments.

Professor Mostafa Zaman Chowdhury from EEE Department got the first place among the KUET researchers. Internet of Things, eHealth, 5G, and other topics are his research interests.

Prof. Alamgir, the former vice-chancellor of KUET, was ranked first in his university, sixth in Bangladesh, and 708th among Asian scientists in civil engineering. He also placed fourth and 100th in the engineering and technology category at KUET and Bangladesh, respectively.

The AD Scientific Index is a ranking system based on only including worthy scientists. Based on total h-index scores, i-10 index, and citation scores from Google Scholar. It lists all academicians who have been ranked in the top five university rankings globally for the previous five years.

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangladesh/education/bracu-dichari-first-bangladeshi-team-qualify-european-robotics-league-erl

TBS Report

08 May, 2022, 03:55 pm

Last modified: 08 May, 2022, 04:38 pm

BracU Dichari: First Bangladeshi team to qualify for European Robotics League (ERL)

untitled.jpg?itok=1QSGJ9NE

 

The European Robotics League (ERL) is a famous robot tournament that focuses on tasks that robots must do in real-world scenarios.

They have concentrated their efforts on advancing autonomous capabilities and seamless outdoor/indoor navigation for air and land robots since these are crucial milestones for emergency robotic systems.

This year's "ERL Emergency League Local Tournament" will be held in Poznan, Poland, from 20 to 25 June where air and ground robots will work together in both outdoor and interior environments.

Brac University's Dichari – a robotics team from the institute's school of engineering – is all set to participate in the latest edition of the tournament as the first Bangladeshi team, reads a press release.

The Advanced Centre for Aerospace Technologies (CATEC), the European Space Foundation (ESF), Poznan University of Technology, and the Poznan Supercomputing and Networking Center are working together to complete this challenge funded by the European Union (EU).

Abdulla Hil Kafi (research associate, LaSSET, School of Engineering) is in the team as its advisor, while Md Khalilur Rhaman, PhD (associate professor, computer science and engineering, Brac University) will be playing the role of co-advisor.

Some of the members of this group are – Md Firoz Wadud (drone control), Shams Fardous Arnab (mechanical), Jahir Uddin (autonomous and AI), Sadikul Alim Toki (drone and rover vision), Mahbub Ul Haque (electronics), Muntasir Ahad (communication), Sihab Sahariar (rover control), Md Amanto Amin (management) and Tanzimul Alam (management).

Team Dichari has built a rover and a drone for the prestigious competition.

The rover has an arm supporting five degrees of freedom, which makes it flexible to reach any spot within a 1.5-metre range, and it can pick items of a maximum 2kg weight.

Besides, it can work autonomously and map its surroundings, which can be used to inspect any disaster zone further.

Meanwhile, the drone also comes with autonomous features as it can fly to any point mentioned through the flight controller, which is developed by the team itself.

It has also got several safety features, including a wireless kill switch mechanism to stop the drone at any moment.

The ERL committee chooses the teams in two steps. First, the teams must register, providing short information about the teammates and a brief idea of how they will implement their ideas for this competition.

Then, after the committee reviews those ideas and approves them, teams must provide extensive details about their drone and rover for the second stage qualification.

They must also provide a video of their whole system and structure. After that, only a few teams advance to the championship round.

Each team must complete two challenges with the rover and the drone.

These tasks include rescuing and delivering emergency kits to survivors stuck within the disaster zone and mapping the disaster zone with detailed information so that human rescuers can quickly assess the situation.

Both the rover and the drone can be controlled via a single interface while doing duties simultaneously, which is a unique characteristic of this technology.

Ahsan Bari (Aditto) contributed to this report 

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.bigganchinta.com/technology/interview-of-lafifa-jamal-2

সাক্ষাৎকার

কোনো না কোনো বিষয়ে নিজেকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে : লাফিফা জামাল

লেখা:

প্রকাশ: ০৮ মে ২০২২, ১০: ০৬

_DAS2242.jpg?rect=0,314,6010,3381&auto=f

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবোটিকস এন্ড মেকাট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক তিনি। রোবোটিকসবিষয়ক তাঁর গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয় বিশ্বের নামকরা সব জার্নালে। বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াড কমিটির প্রধান তিনি। সম্প্রতি তিনি বিজ্ঞানচিন্তার মুখোমুখি হয়েছিলেন। বলেছিলেন রোবোটিকসে এ দেশের বর্তমান-ভবিষ্যতের কথা। আশার কথা শুনিয়েছেন তিনি, বলেছেন বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনার কথাও। তাঁর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বিজ্ঞানচিন্তার নির্বাহী সম্পাদক আবুল বাসার ও সহসম্পাদক আবদুল গাফফার।

বিজ্ঞানচিন্তা: বাংলাদেশে রোবোটিকসের শিক্ষা শুরু হয়েছিল আপনার হাত ধরে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবোটিকস অ্যান্ড মেকাট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রথম চেয়ারম্যান আপনি।

লাফিফা জামাল: এখানে একটু তথ্যঘাটতি আছে। এই বিভাগের প্রথম চেয়ারম্যান ড. হাফিজ মুহাম্মদ হাসান বাবু। তিনি খুব অল্প সময়ের জন্য দায়িত্বে ছিলেন। এ জন্য অনেকেই মনে করেন আমি প্রথম চেয়ারম্যান। আমি ২০১৬ সালের আগস্টে জয়েন করেছি। এর আগে ৯ মাস দায়িত্বে ছিলেন তিনি। এরপর তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ–উপাচার্য হয়ে যান। পরে আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

বিজ্ঞানচিন্তা: রোবোটিকস নিয়ে আপনার ভাবনার শুরুটা কীভাবে হলো? শুরু করতে গিয়ে কী কী সুবিধা ও অসুবিধার মুখোমুখি হয়েছিলেন?

_DAS2371.jpg?auto=format,compress&format

বিজ্ঞোনচিন্তা হাতে লাফিফা জামাল

Suvra Kanti Das

লাফিফা জামাল: রোবোটিকস অ্যান্ড মেকাট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ শুরু হওয়ার ৯ মাস পর আমি দায়িত্ব নিই। সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন বিভাগ। সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ফান্ডিংয়ের অপ্রতুলতা থাকে। সরকার থেকে বা ইউজিসি থেকে যা আছে, তার মধ্যেই আমাদের চলতে হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ফান্ডিংগুলো হয় মাথাপিছু হিসাবে। তার মানে অন্য কোনো একটা ডিপার্টমেন্টে, যাদের কারিকুলাম ল্যাবরেটরি নির্ভর নয়, কিন্তু ২০০ শিক্ষার্থী আছে। অন্যদিকে আমার ল্যাব দরকার, রিসোর্স দরকার। কিন্তু আমার শিক্ষার্থী মাত্র ২০ জন। তাই আমি ১০ ভাগের ১ ভাগ বাজেট বরাদ্দ পাচ্ছি।

প্রথমবার লাইব্রেরিতে বই কেনার জন্য যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল, দেখা গেল মাত্র তিনটি বই কেনা সম্ভব হলো। কারণ আমাদের বিষয়ের বইয়ের দাম বেশি কিন্তু আনুপাতিক হিসেবে বরাদ্দ অনেক কম। পরে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়কে বোঝাতে পেরেছিলাম, সবকিছু মাথাপিছু দিয়ে হয় না। এই ফান্ডিংগুলো আমাদের দরকার। চতুর্থ শিল্পবিপ্লব সামনে। সরকার তাই এ বিষয়গুলোতে জোর দিচ্ছে। বিষয়টার গুরুত্ব বুঝে আমাদের ল্যাব ও রোবট কেনার জন্য আলাদা ফান্ড দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। নতুন তো, স্বাভাবিকভাবেই গুছিয়ে উঠতে সময় লাগে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন থেকেও সহায়তা পাচ্ছি। আরেকটা কথা না বললেই নয়। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ ইতিমধ্যে আমাদের বেশ কিছু যন্ত্রপাতি দিয়েছে। আমাদের এখানে যে রোবট, পিএলসি মেশিন আছে—তার অনেকগুলোই কিন্তু আমাদের আইসিটি ডিভিশন থেকে পাওয়া। আরও একটা ল্যাব দেওয়া হবে শিগগির। চারদিকের এই সুবিধাগুলো মিলিয়ে আমরা চলছি আরকি।

বিজ্ঞানচিন্তা: অর্থাৎ শুরুতে যে চ্যালেঞ্জগুলো ছিল, সেগুলো অনেকাংশেই মেটানো সম্ভব হয়েছে।

লাফিফা জামাল: আমাদের যখন প্রথম থেকে তৃতীয় বর্ষ পর্যন্ত স্টুডেন্ট ছিল, তখন একটাও ডেডিকেটেড ক্লাসরুম ছিল না! আমরা এখানে-সেখানে ধার করে ক্লাস করতাম। এখন আমাদের ক্লাসরুম হয়েছে। অনেকটাই স্বনির্ভর হয়েছি।

বিজ্ঞানচিন্তা: শিক্ষার্থীদের আগ্রহ কেমন? এখন কতজন শিক্ষার্থী আছেন?

লাফিফা জামাল: শিক্ষার্থীদের যথেষ্ট আগ্রহ আছে। এমনিতেই প্রযুক্তি বিষয়ে এ প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের অনেক আগ্রহ। সরাসরি প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা এবং প্রযুক্তি নিয়ে পড়াশোনা করা একটু আলাদা। কারণ, দেখা যাচ্ছে, এখানে আসলে গণিতের পাঁচটা কোর্স করতে হচ্ছে। ছেলেমেয়েরা হয়তো প্রথম দিকে শুনে ধাক্কা খায়, এখানে এত গাণিতিক কোর্স কেন? কিন্তু রোবোটিকসে ভিত শক্ত করতে হলে গাণিতিক দক্ষতার প্রয়োজন আছে।

বিজ্ঞানচিন্তা: প্রোগ্রামিংয়ের জন্য লাগে?

লাফিফা জামাল: প্রোগ্রামিং তো আছেই। কিন্তু একটা রোবটের মুভমেন্ট করবেন, কোন অ্যাঙ্গেলে করবেন, কীভাবে করবেন? কোন ভেক্টর জিওমেট্রি মেনটেইন করে করবেন? সেখানে প্রচুর গণিত দরকার। প্রোগ্রামিং করতে হয়। ইলেকট্রনিকস ও মেকানিক্যাল পার্টটা জানতে হয়। কাজেই খুব যে সহজ পড়াশোনা, সেটা বলব না। কিন্তু আগ্রহ থাকলে সেটা সম্ভব।

বিজ্ঞানচিন্তা: বর্তমানে কতজন স্টুডেন্ট আছেন?

লাফিফা জামাল: আমাদের বর্তমানে চারটা অনার্স ও একটা মাস্টার্সের ব্যাচ চলছে। মোট পাঁচটা ব্যাচ। প্রথম মানে ২০১৬ সালে যাদের নিয়ে শুরু হলো, ওরা এখন মাস্টার্সে আছে। করোনা না থাকলে ওরা বের হয়ে যেত আগেই। প্রতি ব্যাচে ২০ জন স্টুডেন্ট। প্রথম ব্যাচে ১৫ জন ছিল। দ্বিতীয় ব্যাচ থেকে ২০ জন।

বিজ্ঞানচিন্তা: রোবট অলিম্পিয়াডের চিন্তা কীভাবে শুরু করলেন? কেন এগুলোতে যুক্ত হলেন?

লাফিফা জামাল: বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত আছি দীর্ঘ সময় ধরে। ওখানে ছেলেমেয়েদের জন্য ন্যাশনাল হাইস্কুল প্রোগ্রামিং কনটেস্ট শুরু করেছিলাম আমরা। বিভিন্ন ধরনের ওয়ার্কশপ করি আমরা আরডুইনো নিয়ে। আইওটি–বেজড ওয়ার্কশপ করি। এ রকম অনেক কাজ আমরা করি ওখান থেকে। বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান ভাই এ ব্যাপারে বেশ আগ্রহী ছিলেন। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদও উৎসাহ দিলেন। বললেন, ‘আপনারা একটু চেষ্টা করুন বাংলাদেশের সদস্যপদের জন্য।’ সম্মিলিত প্রচেষ্টা এটা। আমরা সফল হলাম। আমার একার ভাবনা ছিল না এটা। মূলত বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক থেকেই ভাবনাটার শুরু হয়েছে।

বিজ্ঞানচিন্তা: রোবোটিকস গবেষণায় আপনি কীভাবে যুক্ত হলেন? এখন কী নিয়ে গবেষণা করছেন?

লাফিফা জামাল: রোবোটিকসের মূল ভিত্তি প্রোগ্রামিং। আপনি যদি কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের সিলেবাসটা দেখেন, সেখানে প্রোগ্রামিং তো আছেই। সেখানে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, মেশিন লার্নিং পড়তে হয়। প্রতিটা জিনিস কিন্তু রোবোটিকসের সঙ্গে সম্পৃক্ত। ওদিক থেকে একটা ভিত্তি ছিলই। তারপর সেখান থেকে এই বিভাগে চলে এলাম। আমি মূলত কম্পিউটার আর্কিটেকচার এবং এবং রিভারসিবল লজিক ডিজাইন নিয়ে কাজ করতাম। আগে টুকটাক কাজ করেছি ওদিকে। এই বিভাগে চলে আসার পর পুরোপুরিভাবেই রোবোটিকস-আইওটি-আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে কাজ করছি। সম্প্রতি একটা আইওটি ডিভাইস তৈরি করলাম। হাসপাতালের রোগীদের স্যালাইনের প্রবাহ স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে ওটা বর্তমান ব্যবস্থায়। স্যালাইনের প্রবাহ শেষ হলে ম্যানুয়ালি বন্ধ করতে হয়। হাতে গোনা দুই-একটি হাসপাতালে হাসপাতালে অ্যালার্মের ব্যবস্থা আছে। এর মাধ্যমে বোঝা যায় স্যালাইন শেষের পথে। আমাদের ডিভাইসটা একটু অন্য রকম। তাতে তিন ধরণের সিস্টেম আছে। তারই একটা অ্যালার্ম সিস্টেম। রোগীর অ্যাটেনডেন্স অ্যালার্ম শুনে সেটা ম্যানুয়ালি বন্ধ করে দিতে পারেন। নার্সস্টেশনে একটা মনিটর দেওয়া থাকে। সেখানে প্রত্যেক রোগীর স্যালাইন লেভেল দেখায়। নার্স স্টেশনে বসেই স্যালাইনের প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আরেকটা সিস্টেম আছে, সেটা পুরোপুরি স্বয়ংক্রিয়। স্যালাইন শেষ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে।

বিজ্ঞানচিন্তা: এটার পেটেন্ট যদি আপনারা পান, তাহলে বাজারজাত করা যাবে কি?

_DAS2417.jpg?auto=format,compress&format

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে লাফিফা জামাল

Suvra Kanti Das

লাফিফা জামাল: আমাদের কাজটা হচ্ছে আরএনডি করা। কিন্তু এটা বাজারজাত করতে আরও কয়েকটা ধাপ পার হতে হবে। যেমন এটা শিল্পকারখানার উপযোগী করে তৈরি করতে হবে, তারপর সে অনুযায়ী প্রপোজাল তৈরি করব। ইচ্ছা আছে, এটাকে প্রোডাক্ট হিসেবে নিয়ে আসার। আরেকটা প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করছি। এমন একটা রোবট তৈরি করতে চলেছি, যেটা বাচ্চাদের বর্ণমালা শেখাবে, হাতের লেখা শেখাবে। বাচ্চা যখন লিখবে, রোবট তাকে পর্যবেক্ষণ করবে। যদি দেখে ঠিকমতো লেখাটা হয়নি, তখন সে বলবে, ভুল হচ্ছে, এটা-ওটা ঠিক করো। প্রয়োজনে রোবট নিজে লিখে দেখিয়ে দেবে, কীভাবে সেটা লিখতে হয়। আমরা প্রাথমিকভাবে অ থেকে ঔ পর্যন্ত করেছি। আমাদের পরিকল্পনা, এটা বাংলা বর্ণমালার প্রতিটা অক্ষর পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার। এরপর এটা শব্দ বা বাক্য শেখানো পর্যন্ত উন্নীত করতে চাই। এটা বেশ চ্যালেঞ্জিং একটা কাজ।

বিজ্ঞানচিন্তা: এটা কত বড় রোবট? সবার ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকবে?

লাফিফা জামাল: খুব বড় সাইজের কিছু হবে না। এখন এটি গবেষণা পর্যায়ে আছে। ঠিকঠাক মতো তৈরি করতে পারলে ইন্ডাস্ট্রির সাথে কলাবোরেশন করে বাজারজাত করার ইচ্ছা আছে। যতো বেশি পরিমাণে প্রোডাক্ট তৈরি হবে, দাম ততো হাতের নাগালের মধ্যে থাকবে।

বিজ্ঞানচিন্তা: যাঁরা রোবোটিকস নিয়ে কাজ করতে চান, রোবোটিকসে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাঁদের কীভাবে শুরু করা উচিত?

লাফিফা জামাল: এগুলো আসলে প্যাশনের বিষয়, জোর করে শেখা যায় না। রোবোটিকস জানতে হলে বেশ কিছু জিনিস জানতে হয়। প্রোগ্রামিং জানতে হয়, ইলেকট্রনিকস জানতে হয়। মেকানিক্যাল সাইডটাও জানতে হয়। যাঁরা এই বিভাগে পড়ছেন, তাঁদের জন্য প্রতিটা বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করে কাজ করা সহজ। ধরুন, একজন রোবটপ্রেমী। তিনি হয়তো কম্পিউটার সায়েন্সে পড়ছেন। তাঁকে ইলেকট্রনিকস ও মেকানিক্যাল—দুই ধরনের বিষয়েই কাজ করতে হয়। তাঁরাও তো কাজ করছেন রোবোটিকস নিয়ে। আমি সব সময় বলি, একটা টিম হওয়া দরকার। দুজন বা তিনজনে একটা গ্রুপ তৈরি করা যায়। গ্রুপের একেকজন একেক বিষয়ে দক্ষ হবেন। কেউ প্রোগ্রামিংটা দেখবেন, কেউ হয়তো ইলেকট্রনিকস পার্টটা দেখবেন, আরেকজন দেখবেন মেকানিক্যালের পার্ট।

আরেকটা বড় ব্যাপার হলো গতানুগতিকের বাইরে চিন্তা করা। কাজের একটা প্রায়োগিক দিক থাকা দরকার। জিনিসটা কোথায় ব্যবহার করা যাবে, সেটা আগে ভাবতে হবে। আমি নিজেও কম্পিউটার আর্কিটেকচার নিয়ে কাজ করেছি। সম্পূর্ণ থিওরিটিক্যাল। আমাদের দেশে ও রকম চিপ ডিজাইনিং ল্যাব নেই। আমরা ডিজাইন করে সিমুলেশন পর্যন্ত দেখছি। তারপর এগোতে পারি না। দেশের বাইরের অনেক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমাদের কোলাবরেশন আছে। সিমুলেশনে ডিজাইন পাঠিয়ে দিই তাদের কাছে। এটা কিন্তু খুব ভালো পদ্ধতি নয়।

এই জায়গায় সুযোগ আছে। এখন সরকারও বেশ আন্তরিক এ ব্যাপারে। যাঁরা গবেষণা করতে চান, তাদের জন্য এখন সরকারের নানারকম প্রকল্প আছে, যার মাধ্যমে ফান্ড পাওয়া যায়। আগে ফান্ড নিয়ে খুব দুশ্চিন্তা করা হতো, এখন সেটা নেই। শুধু আইসিটি ডিভিশন নয়, বিজ্ঞান মন্ত্রণালয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন থেকে গবেষণা প্রকল্পের জন্য ফান্ড পাওয়া যায়। তাই বলব, গবেষণা করতে চাইলে, আমি মনে করি না এখন খুব বেশি সমস্যা হবে। এমনকি দেশের বাইরের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে কলাবোরেশন করেও কাজ করা সম্ভব।

বিজ্ঞানচিন্তা: আমাদের প্যাশন তো আছেই। তারপরও আমাদের দেশের যে বাস্তবতা, ক্যারিয়ারের চিন্তা করতেই হয়। এই মুহূর্তে যাঁরা পড়াশোনা করছেন রোবোটিকস নিয়ে, তাঁদের জন্য আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে কোনো কর্মক্ষেত্র তৈরি হয়েছে কি না? তাঁরা কোন ধরনের চাকরি পেতে পারেন?

লাফিফা জামাল: অনেক প্রতিষ্ঠানই আইওটি ডিভাইস তৈরির কাজ করছে। দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে জাপানে স্মার্ট হোম তৈরিতে বা সৌদি আরবে পানির সমস্যা নিরসনে আমাদের দেশ থেকে আইওটি ডিভাইস তৈরি হচ্ছে। আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা এই কাজগুলো করে। গ্র্যাজুয়েশন শেষ করে বের হয়নি যেসব শিক্ষার্থী, তারাও বাইরের কাজ করছে দেশে বসেই। এই সুযোগগুলো আছে। দেশের ভেতরে কর্মক্ষেত্র এখনো অতটা প্রসারিত হয়নি। এ ছাড়া রোবোটিকসের সঙ্গে মেকাট্রনিকসের একটা যোগ আছে। এ রকম কাজ অবশ্য ওয়ালটনসহ আরও দু–একটা প্রতিষ্ঠান করছে। এই খাতে আমাদের ছেলেমেয়েদের কাজ করার সুযোগ আছে। সামনে আরও সুযোগ বাড়বে। তবে রোবট ম্যানুফ্যাকচারিংেয়র কাজ এখানে এখনো শুরু হয়নি। সফটওয়্যার–বেজড কাজ অনেক হলেও হার্ডওয়্যার তৈরির ব্যাপারটা এখনো সেভাবে শুরু হয়নি।

_DAS2511.jpg?auto=format,compress&format

রোবট নিয়ে কাজ করছেন লাফিফা জামাল ও শিক্ষার্থীরা

Suvra Kanti Das

বিজ্ঞানচিন্তা: রোবোটিকসের সঙ্গে মেকাট্রনিকসের সম্পর্কটা একটু বুঝিয়ে বলবেন কি?

লাফিফা জামাল: মেকাট্রনিকসকে আমরা আসলে বলি মেকানিক্যাল প্লাস ইলেকট্রনিকস। বিভিন্ন ম্যানুফ্যাকচারিং প্ল্যান্টগুলোয় জিও অটোমেশন হয়। এই কাজগুলো যেসব যন্ত্র করছে, সেগুলো পুরোপুরি রোবট নয়। যন্ত্রগুলোর একটা রোবোটিক হাত থাকে। প্যাকেজিংয়ে যেটা হয়, বেল্ট থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে, প্যাকেজিং করে ফেলছি। সব জায়গায়ই মেকাট্রনিকস অ্যাপ্লিকেশনস নিয়ে ভাবা হচ্ছে। কোনো একটা কন্ট্রোল সিস্টেম যদি আমরা তৈরি করতে চাই, সেখানে পাচ্ছি।

বিজ্ঞানচিন্তা: রোবোটিকসে গবেষণার জন্য বা উচ্চশিক্ষার জন্য যাঁরা দেশের বাইরে যেতে চান, তাঁদের জন্য সুযোগটা কেমন? তাঁদের কী করা উচিত? আপনারা তাঁদের জন্য কী করেন?

লাফিফা জামাল: উচ্চশিক্ষার জন্য বাইরে যাওয়ার সুযোগ আছে। প্রযুক্তি বিষয়ে যারা পড়াশোনা করছে তাদের জন্য নর্থ যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইউরোপ, জাপান, কোরিয়ায় উচ্চশিক্ষার সুযোগ আছে। গবেষণার কাজগুলো করার জন্য এবং কর্মক্ষেত্রের জন্য অনেক সুযোগ আছে। উচ্চশিক্ষায় বাইরে পড়ার জন্য একদম ফুল ফান্ডের সুযোগ থাকে। মাস্টার্স বলেন বা পিএইচডি—দুই লেভেলেই।

বিজ্ঞানচিন্তা: মেয়েদের রোবোটিকসে বিশেষ আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। অন্য অলিম্পিয়াডে মেয়েদের অংশগ্রহণ কম। মেয়েরা কেন রোবোটিকসের দিকে বেশি ঝুঁকছেন? এর সুদূরপ্রসারী ফলাফল কেমন?

লাফিফা জামাল: গণিত অলিম্পিয়াডে দেখা যায়, প্রাইমারি লেভেলে প্রচুর মেয়ে থাকে। জুনিয়র থেকে সেকেন্ডারিতে একটু কমে যায়। সেকেন্ডারি থেকে যখন হায়ার সেকেন্ডারিতে যাচ্ছে, তখন আরও কমে যায়। মানে, ওরা কিন্তু শুরুটা করে। ধীরে ধীরে ঝরে পড়ে। এখানে অনেকগুলো কারণ থাকে। একধরনের সংস্কার আছে সমাজে—গণিত খুব কঠিন বিষয়, ওটা মেয়েদের জন্য নয়। এ ধরনের মনোভাব মেয়েদের ঝরে যাওয়ার বড় কারণ। ছেলেমেয়েরা সরাসরি মা–বাবার মাধ্যমে পরিচালিত হয়। কোনো একটা মেয়ে ম্যাথ অলিম্পিয়াডে হয়তো জেলা পর্যায়ে পুরস্কার পেল, পরে বিভাগীয় পর্যায়ে যেতে হবে, তারপর জাতীয় পর্যায়ে যাবে? অনেক দূর থেকে ঢাকায় আসতে হবে। মেয়েকে ঢাকায় নিয়ে আসা, কোথায় থাকবে, কোথায় কী করবে—মেয়েদের নিয়ে একধরনের দুশ্চিন্তা থাকে অভিভাবকদের মনে।

রোবট অলিম্পিয়াডে একটা সুবিধা আছে। আন্তর্জাতিক গণিত বা ফিজিকস অলিম্পিয়াডে বাচ্চারা যেতে পারে না। সুতরাং বাচ্চারা অনেকেই আগ্রহ হারিয়ে ফেলে সেকেন্ডারি পর্যন্ত যাওয়ার আগে। মেয়েদের ক্ষেত্রে এটা বেশি। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডে প্রাথমিক স্তরের বাচ্চারাও যেতে পারে। আমি মনে করি, এটা একটা পজিটিভ দিক। অন্যরা যখন দেখে, একটা আট বছরের বাচ্চা রোবট অলিম্পিয়াডের কল্যাণে থাইল্যান্ড-ফিলিপাইনে যাচ্ছে, তখন অভিভাবকেরা উৎসাহিত হন। অন্য বাচ্চারা অনুপ্রাণিত হয়। ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত সুযোগ থাকে আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ করার। তাই এক-দুবার ব্যর্থ হলেও হাল ছাড়ে না। তা ছাড়া দল হিসেবে অলিম্পিয়াডে অংশ নিতে পারে বলে অভিভাবকেরাও অনেকটা নিশ্চিন্ত বোধ করেন। মেয়েদের ঝরে পড়ার হার তাই অনেক কম।

এ বছর জুনিয়র গ্রুপে দুজন ও সিনিয়র গ্রুপে একজন মেয়ে শিক্ষার্থী স্বর্ণপদক জিতেছে। ওরাও কিন্তু রোল মডেল হিসেবে কাজ করছে। তা ছাড়া ওরা যখন রোবট অলিম্পিয়াডের নেতৃত্বের জায়গায় একজন নারীকে দেখে সেটাও ওদের উৎসাহ যোগায়। আমরা কিন্তু চেষ্টা করি মেয়েদের জন্য আলাদা ক্যাম্প করার। মেয়েদের মধ্যে আরেকটু আগ্রহ তৈরি করার জন্য।

বিজ্ঞানচিন্তা: রোবট অলিম্পিয়াড আপনারা শুরু করেছেন ২০১৮ সালে। এত কম সময়ের মধ্যেই আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে আপনাদের সাফল্য অনেক। এটা কীভাবে এল?

লাফিফা জামাল: আমি মনে করি, সব খারাপেরই ভালো দিক আছে। আমাদের এখানে রোবোটিকস কিট খুব বেশি পাওয়া যায় না। যেগুলো বাজারে আছে, সেগুলোর দামও অনেক, মানে নাগালের বাইরে। এত টাকা দিয়ে বাচ্চাকে কে কিনে দেবে জিনিস? প্রথমবার আন্তর্জাতিক অলিম্পিয়াডে গিয়ে, বাচ্চাদের-আমাদের—সবার মন খারাপ হয়েছিল। অন্য দেশের বাচ্চারা কত ভালো ভালো কিট দিয়ে কাজ করছে। আমাদের বাচ্চাদের কিছুই নেই। সেটাই বরং শাপেবর হয়ে আসে আমাদের জন্য। ওরা একদম স্ক্র্যাচ থেকে কাজ করে, আরডুইনো দিয়ে প্রোগ্রামিং করছে। ওয়্যারিং-সোল্ডারিং করছে। ধোলাইখালে মা–বাবাকে নিয়ে গিয়ে একটা পার্টস বানিয়ে নিয়ে এসেছে। বিচারকদের কাছে বিষয়টা অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। যে বাচ্চা কিটস জোড়া দিয়ে শুধু প্রোগ্রামিংটা করেছে, তাদের চেয়ে যে বাচ্চা সবকিছু নিজে নিজে করছে, তাদের দক্ষতা অনেক বেশি বলে মনে করেন বিচারকেরা। সুতরাং অন্যদের টপকে আমাদের বাচ্চারা ঠিকই পুরস্কার পেয়ে যাচ্ছে।

এই সাফল্য অন্য দেশের কোচ-দলনেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। তারা আমাদের কাছে আসে, জানতে চায় আমাদের সাফল্যের রহস্য। প্রথম দিকে আমরা ওদের জিজ্ঞেস করতাম ওরা কীভাবে কাজ করে? এখন ওরা আমাদের কাছে আসছে। এটা দারুণ ব্যাপার।

আমরা প্রচুর ওয়ার্কশপ ক্যাম্প করি সারা বছর—শুধু অলিম্পিয়াডের সময় নয়। এখন আমরা টিওটি করছি। ট্রেনার তৈরি করছি। তারপর ট্রেনিং শুরু করব।

বিজ্ঞানচিন্তা: একটা গুজব আছে যে ভবিষ্যতে শ্রমিকদের বিকল্প হিসেবে রোবট কাজ করবে। শুধু শ্রমিক নয়, অনেক জায়গায় কর্মকর্তাদের বিকল্প হয়ে উঠবে। এখানে মানুষের কর্মহীন হয়ে পড়ার কোনো আশঙ্কা আছে কি না?

_UV_0566.jpg?auto=format,compress&format

নিজের গবেষণাগারে লাফিফা জামাল

Suvra Kanti Das

লাফিফা জামাল: এটা খুব কমন প্রশ্ন। আমরা সব সময় এই প্রশ্নের মুখোমুখি হই। আমরা তো দেখি, আমাদের দেশের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হলো আনস্কিলড লেবাররা। কয়জনই–বা হাই স্কিল কাজ করে? ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম–২০২১-এর রিপোর্ট বলছে, প্রচুর মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়বে ঠিক, তেমনি প্রচুর নতুন কর্মক্ষেত্র তৈরি হবে। আমরা সবাই অনার্স-মাস্টার্স করার জন্য পাগল হয়ে যাই। আমাদের কতজন পলিটেকনিকে পড়তে চায়? পলিটেকনিকে যায় কোথাও চান্স না পেয়ে। কিন্তু ওখানে কাজ করলে আপনার সুযোগ আছে। কাজেই আমি যেটা বলি, দিনমজুরের কাজ বা পোশাকশ্রমিকের কাজ, এই জায়গাগুলোয় যত বেশি অটোমেশন হবে, তত আমাদের শ্রমিকের সংখ্যা কমে যাবে। এ জন্য সরকারিভাবে এই উদ্যোগ নেওয়া দরকার। ব্যক্তিগতভাবে বা বেসরকারি লেভেলে সম্ভব নয়। সেটা অটোমেশন শুরু হওয়ার পর নিলে হবে না। এখন নিতে হবে। এই মানুষদের দক্ষ করে তুলতে হবে। অটোমেশন হলো মানুষ আর রোবটের সমন্বয়ে কাজ। মানে কিন্তু পুরো কাজটাই রোবট করবে না; বরং রোবট ও মানুষের পারস্পরিক সহায়তায় কাজ হবে, যাকে আমরা বলি কোবট বা কলাবরেটিভ রোবট। রোবট কাজ করছে, সেগুলোকে অপারেট করতে মানুষ লাগবে—দক্ষ মানুষ। হয়তো ১০০ জনের জায়গায় ২০ জন লাগবে। ৮০ জনকে তাহলে কী করতে হবে? তাদের স্কিল ডেভেলপ করাতে হবে। সার্টিফিকেট, পরীক্ষায় পাস—এসব দেখে চাকরি পাওয়ার সময় কিন্তু শেষ। জিপিএ–৫ বা ফার্স্ট ক্লাস—এসব কাজ দেবে না। শিগগির দক্ষতাই হবে যোগ্যতার মাপকাঠি। তাই দক্ষ জনগোষ্ঠী তৈরির উদ্যোগ এখনই নিতে হবে।

বিজ্ঞানচিন্তা: এবার কিছু ব্যক্তিগত প্রশ্ন করি। আপনার ছোটবেলা সম্পর্কে বলুন। বড় হয়ে কী হতে চেয়েছিলেন?

লাফিফা জামাল: ছোটবেলায় পাইলট হওয়ার খুব শখ ছিল। প্লেন চালাব, আকাশে আকাশে ঘুরব। ওই ইচ্ছা সময়ের সঙ্গে বদলে গেছে। তারপর মনে হলো, শিক্ষক হব এবং শিক্ষক হলেও ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিষয়েই শিক্ষক হবো।

বিজ্ঞানচিন্তা: আপনার শৈশব কেটেছে কোথায়? লেখাপড়া?

লাফিফা জামাল: জন্ম-বেড়ে ওঠা নারায়ণগঞ্জে। নারায়ণগঞ্জ প্রিপারেটরি স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা। তারপর নারায়ণগঞ্জ গভর্নমেন্ট গার্লস হাইস্কুল, এরপর ভিকারুননিসা নূন কলেজ। তারপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর।

বিজ্ঞানচিন্তা: আপনার পরিবার সম্পর্কে একটু বলেন। আপনার মা–বাবা?

লাফিফা জামাল: ১১ মাস বয়সে বাবাকে হারিয়েছি। আমার ভাই-বোন নেই। মা এখনো আছেন সিঙ্গেল প্যারেন্ট হিসেবে। যৌথ পরিবারে বড় হয়েছি। চাচা-চাচি, চাচাতো ভাইবোনদের সঙ্গে। এমনকি আমার বাবার চাচাতো ভাইবোন, তাঁদের ছেলেমেয়ে—সবাইকে নিয়েই আমাদের বিশাল যৌথ পরিবার ছিল। তাই একাকিত্ব ব্যাপারটা অতটা অনুভব করিনি। তারপরও দিন শেষে ভাইবোন নেই, বাবা নেই। সেই একাকীত্বটা কিন্তু কোন কিছু দিয়েই মুছে ফেলা যায় না।

বিজ্ঞানচিন্তা: নারীদের ক্ষেত্রে সমস্যাটা এখনো রয়ে গেছে। উচ্চশিক্ষায় তাঁরা বাধাগ্রস্ত হন। আপনার অভিজ্ঞতা কেমন?

লাফিফা জামাল: এ ক্ষেত্রে আমার ভাগ্যটা ভালো ছিল। বিয়ের আগপর্যন্ত পরিবারের নিরঙ্কুশ সমর্থন পেয়েছি। পরে আমার শ্বশুর-শাশুড়ি, স্বামী—সবাই আমার লেখাপড়া, ক্যারিয়ারে সমর্থন দিয়েছেন। বেশির ভাগ নারীই এই সমর্থন পান না। বিয়ের পর আমার শাশুড়ি প্রথম দিনই বলেছিলেন, ‘খুব শখ ছিল আমার ছেলেমেয়েরা পিএইচডি করবে। ওরা কেউ সেটা করেনি। তুমি শখটা পূরণ কোরো। রান্নাঘরে তোমার কাজ করতে হবে না। সেটা আমি দেখব।’

বিজ্ঞানচিন্তা: আপনি পিএইচডি কোথায় করেছেন?

লাফিফা জামাল: পিএইচডি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ড. হাফিজ মুহাম্মদ হাসান বাবু স্যারের তত্ত্বাবধানে। বিদেশে যাইনি আমার পরিবারের কারণে, বিশেষ করে আমার মায়ের জন্য। আমার দেশের বাইরে না যাওয়ার মূল কারণ আমার মা।

বিজ্ঞানচিন্তা: আপনি যে পজিশনে আছেন, আমাদের দেশে পিএইচডি করেও এই পজিশনে আসা সম্ভব—এটাও একটা উদাহরণ। আমাদের কিন্তু এ রকম একটা ধারণা সমাজে প্রচলিত আছে যে দেশে পিএইচডি করে সফল হওয়া যায় না।

লাফিফা জামাল: আমার পিএইচডি সুপারভাইজারের অনেক বড় কৃতিত্ব এখানে। তিনি প্রথম দিনই আমাকে কিছু টার্গেট ধরিয়ে দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, ‘দুটো হাই ইমপ্যাক্ট ফ্যাক্টর জার্নাল আর দুটো ইইইর স্টার লেভেলের কনফারেন্স—চারটা জিনিস যত দিন না দেবে, তত দিন তোমার ডিগ্রি হবে না।’ এতে আমার পাঁচ বছরের বেশি সময় লেগেছে। নরমালি বাংলাদেশে তিন বছরে পিএইচডি হয়ে যায়। কিন্তু কাজটা করেছি আমি ঠিকঠাকমতো।

বিজ্ঞানচিন্তা: আপনার বর্তমান পরিবার সম্পর্কে বলুন।

লাফিফা জামাল: আমার স্বামী ব্যবসা করেন। আমার ছেলে এখন ক্লাস টুয়েলভে, মেয়ে ক্লাস নাইনে। দুজনেরই প্রযুক্তির প্রতি ভালোবাসা আছে। আমার মেয়ে শুরু থেকেই রোবট অলিম্পিয়াডে অংশ নিচ্ছে। প্রথমবার আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডে অনারেবল মেনশন পায়। ২০১৯–এ একটা রৌপ্যপদক পায়। ২০২০-এ একটা স্বর্ণপদক ও একটা রৌপ্যপদক পায়, ২০২১–এ একটা সোনা ও একটা ব্রোঞ্জ পেয়েছে। ছেলে ন্যাশনাল আইসিটি কুইজ কনটেস্টে এ বছরের চ্যাম্পিয়ন। প্রোগ্রামিংয়ে আগ্রহ আছে, ম্যাথ অলিম্পিয়াডেও বিভাগীয় পর্যায় পর্যন্ত গেছে।

বিজ্ঞানচিন্তা: বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করতে গিয়ে নারী হিসেবে কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন কি না?

লাফিফা জামাল: আমাদের সামাজিক একটা দৃষ্টিভঙ্গি থাকে। ধরুন, আমি ভালো করছি। আমাকে তুলনা দেওয়ার জন্য বলে যে তিনি নারী হিসেবে ভালো করছেন। আমি নারী হিসেবে ভালো করছি না, আমি একজন আইসিটি প্রফেশনাল বা একজন ফ্যাকাল্টি হিসেবে ভালো করছি। অনেক পুরুষ সহকর্মীর চেয়ে ভালো করছি। কিন্তু তুলনা করার সময় বলে, আমি একজন নারী হিসেবে ভালো করছি। এটা নিয়ে একটা কষ্ট তো থাকেই।

আমি একাডেমিয়াতে আছি, এই জায়গায় নারী-পুরুষের বিভেদটা একটু কম। তা ছাড়া নতুন বিভাগে নেতৃত্বের জায়গায় থেকেছি বলে বৈষম্যের শিকার কম হয়েছি।

বিজ্ঞানচিন্তা: এত কাজের মধ্যে বই পড়ার অবসর পান?

লাফিফা জামাল: সত্যিই এখন পাই না। ছোটবেলায় প্রচুর বই পড়তাম। বাসায় প্রচুর বই ছিল। আমার লাইব্রেরি আছে। আমার খাটের ডিজাইনটা এমনভাবে করা, এর সঙ্গে একটা বইয়ের তাক যুক্ত করা আছে। যেসব বই পড়ি, সেগুলো এই তাকে রেখে দিই। কিন্তু খুব বেশি পড়া হয় না। বই নিয়ে কয়েক পৃষ্ঠা পড়ার পরই ক্লান্তিতে ঘুমিয়ে যাই। তবে আবার শুরু করেছি। কোভিডের সময় বহুদিন ঘরবন্দী ছিলাম। প্রচুর বই পড়েছি ওই সময়। তখন আমার মনে হয়েছে, একটা সময় নিজেকে হারিয়ে ফেলেছিলাম, সেটা আবার ফিরে পেয়েছি। আমি গান শুনতেও পছন্দ করি।

বিজ্ঞানচিন্তা: এমন একটা বইয়ের নাম বলুন, যেটা তরুণ প্রজন্মের সবারই পড়া উচিত।

লাফিফা জামাল: তরুণ প্রজন্মকে বলব, একটা হচ্ছে সাহিত্যচর্চা বা সাহিত্যের বই পড়া উচিত সবার। আরেকটা হচ্ছে, আমাদের নিজেদের ইতিহাসকে জানা। কারও বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহ থাকবে, কারও আগ্রহ থাকবে না। কিন্তু বই পড়ার অভ্যাস সবারই থাকা উচিত। এর পাশাপাশি দেশের ইতিহাসটা জানো। আমাদের বঙ্গবন্ধুকে জানা উচিত। তিতিনি দলমত নির্বিশেষে আমাদের দেশের সবার নেতা। যে রাজনৈতিক বিশ্বাসেই থাকি না কেন, বঙ্গবন্ধুর লেখা অসমাপ্ত আত্মজীবনী বইটা প্রত্যেকের পড়া উচিত।

বিজ্ঞানচিন্তা: আপনার প্রিয় বই কোনটি?

লাফিফা জামাল: আমার খুব পছন্দের বই হচ্ছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শেষের কবিতা। আগে খুব সুন্দর একটা অডিও ছিল এটার। ওই অডিওটা ক্যাসেটে শুনতাম। অডিওটা কিন্তু পুরো নয়, বইয়ের কিছু খণ্ডিত অংশ। সত্যি বলতে কি, শেষের কবিতা আমার মুখস্থ।

বিজ্ঞানচিন্তা: বিজ্ঞানচিন্তার কিশোর-তরুণ পাঠকদের জন্য কিছু বলুন।

লাফিফা জামাল: কিশোর-তরুণদের জন্য আমার পরামর্শ হলো—পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করা বা জিপিএ–৫ পাওয়া জীবনের মূল উদ্দেশ্য নয়। এখান থেকে বের হয়ে আসতে হবে। আমাদের সার্টিফিকেটনির্ভর পড়াশোনাটা এখনো আছে। সে ক্ষেত্রে আমাদের একটা রেজাল্ট দরকার হয়। তাই বলে এটাই জীবনের সবকিছু নয়। এটা অনেক কিছুর মধ্যে একটা। আরেকটা পরামর্শ হলো, কোনো না কোনো স্কিল ডেভেলপ করতেই হবে। সর্বোপরি ভালো মানুষ হওয়াটা জরুরি। সবকিছু ভেস্তে যাবে, যদি মানুষ হিসেবে ভালো না হই।

বিজ্ঞানচিন্তা: ধন্যবাদ আপনাকে।

লাফিফা জামাল: বিজ্ঞানচিন্তাকেও ধন্যবাদ।

অনুলিখন: আহমাদ মুদ্দাসসের

 

 

Link to comment
Share on other sites

  • Gold Class Members

https://www.tbsnews.net/bangladesh/rice-researchers-identified-highly-adaptable-advanced-breeding-lines-bangladesh

TBS Report

11 May, 2022, 06:35 pm

Last modified: 11 May, 2022, 06:35 pm

Rice researchers identified highly-adaptable advanced breeding lines for Bangladesh ecosystems

adaptive_breeding_lines_event_10_may_202

 

Rice researchers have identified advanced breeding lines suitable for various types of environments which could help in developing new breeding lines and varieties highly adapted to local ecosystems in Bangladesh to help farmers increase productivity, and in turn, strengthen the country's food security.

The outcomes of the trials were presented during the Annual Advancement Meeting of AGGRi Network Trials 2022 on 10 May in Dhaka, according to a press release issued by International Rice Research Institute (Irri) Bangladesh Office.

The agricultural materials were tested for short, medium, and late maturity alongside stress tolerance (against cold, salinity, and submerging or flooding).

They were tested to select the superior breeding lines in different environments in Bangladesh through on-farm field trials under the supervision of the Irri Bangladesh Office and NARes partners.

The results were part of the various field tests conducted on Aman in 2021 by researchers from Irri Bangladesh in collaboration with Bangladesh Rice Research Institute (BRRI), Bangladesh Institute of Nuclear Agriculture (Bina), and Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman Agricultural University (BSMRAU).

The experiments were carried out in seven districts, including Gazipur, Rajshahi, Rangpur, Kushtia, Cumilla, Satkhira, and Barisal.

During these tests, researchers studied various materials for short, medium, and long-term duration and identified whether they are suitable for drought and salinity, or if they are flood-tolerant, the press release added.

The findings of the trials are valuable for Irri and NARes partners like BRRI, Bina, public universities and private entities as these could help enrich their rice breeding research and development, and formulate how they develop new varieties.

BRRI Director General Md Shahjahan Kabir and Bina Director-General Mirza Mofazzal Islam were present at the meeting as the chief guest and a special guest, respectively. Humnath Bhandari, Irri Representative for Bangladesh, chaired the event.

A wide range of participants attended the meeting including breeders and molecular breeders from Irri headquarters, Manila and Irri Bangladesh; scientists from BRRI and Bina, professors from BSMRAU, Khulna University, Sylhet Agricultural University, and scientists from five private partner companies such as Aftab Bahumukhi Farms Limited, Ispahani Agro Limited, Lal Teer Seed Limited, Metal Agro Limited, and Supreme Seed Company Limited.

"Taken together, the improvements in product focus, selection accuracy, selection intensity, and cycle length, driven by the effective application of new genotyping, phenotyping, and decision support technologies, have the potential to raise the current rate of genetic gain in the staple food crops produced by farmers in the developing world from a current rate that is likely well under 1% annually (and in many instances not significantly different than zero) to at least 2%," shared Mirza Mofazzal Islam.

"In the process, farmers will be better protected against a rapidly changing climate and be better able to adapt to rapidly commercialising production systems," he added.

"We have lots of challenges in the future for sustaining food security; BRRI needs a massive reform both in human resource development and physical facilities. It is expected that IRRI's contribution and collaboration will be continued for the up-gradation of the research capacity of BRRI, particularly in the field of cutting-edge technologies like genomics, phenomics, proteomics, bioinformatics, genome editing, speed breeding, automation, digitisation, mechanisation and infrastructure development," said Md Shahjahan Kabir, the director-general of BRRI.

Link to comment
Share on other sites

Please sign in to comment

You will be able to leave a comment after signing in



Sign In Now
 Share

×
×
  • Create New...